সুরা আ’বাসা

سورة عبس

সুরা আ’বাসা

بِسْمِ اللهِ الرَّحْمنِ الرَّحِيمِ عَبَسَ وَتَوَلَّى
তিনি ভ্রূকুঞ্চিত করলেন এবং মুখ ফিরিয়ে নিলেন। [সুরা আ’বাসা - ৮০:১]
أَن جَاءهُ الْأَعْمَى
কারণ, তাঁর কাছে এক অন্ধ আগমন করল। [সুরা আ’বাসা - ৮০:২]
وَمَا يُدْرِيكَ لَعَلَّهُ يَزَّكَّى
আপনি কি জানেন, সে হয়তো পরিশুদ্ধ হত, [সুরা আ’বাসা - ৮০:৩]
أَوْ يَذَّكَّرُ فَتَنفَعَهُ الذِّكْرَى
অথবা উপদেশ গ্রহণ করতো এবং উপদেশ তার উপকার হত। [সুরা আ’বাসা - ৮০:৪]
أَمَّا مَنِ اسْتَغْنَى
পরন্তু যে বেপরোয়া, [সুরা আ’বাসা - ৮০:৫]
فَأَنتَ لَهُ تَصَدَّى
আপনি তার চিন্তায় মশগুল। [সুরা আ’বাসা - ৮০:৬]
وَمَا عَلَيْكَ أَلَّا يَزَّكَّى
সে শুদ্ধ না হলে আপনার কোন দোষ নেই। [সুরা আ’বাসা - ৮০:৭]
وَأَمَّا مَن جَاءكَ يَسْعَى
যে আপনার কাছে দৌড়ে আসলো [সুরা আ’বাসা - ৮০:৮]
وَهُوَ يَخْشَى
এমতাবস্থায় যে, সে ভয় করে, [সুরা আ’বাসা - ৮০:৯]
فَأَنتَ عَنْهُ تَلَهَّى
আপনি তাকে অবজ্ঞা করলেন। [সুরা আ’বাসা - ৮০:১০]
كَلَّا إِنَّهَا تَذْكِرَةٌ
কখনও এরূপ করবেন না, এটা উপদেশবানী। [সুরা আ’বাসা - ৮০:১১]
فَمَن شَاء ذَكَرَهُ
অতএব, যে ইচ্ছা করবে, সে একে গ্রহণ করবে। [সুরা আ’বাসা - ৮০:১২]
فِي صُحُفٍ مُّكَرَّمَةٍ
এটা লিখিত আছে সম্মানিত, [সুরা আ’বাসা - ৮০:১৩]
مَّرْفُوعَةٍ مُّطَهَّرَةٍ
উচ্চ পবিত্র পত্রসমূহে, [সুরা আ’বাসা - ৮০:১৪]
بِأَيْدِي سَفَرَةٍ
লিপিকারের হস্তে, [সুরা আ’বাসা - ৮০:১৫]
كِرَامٍ بَرَرَةٍ
যারা মহৎ, পূত চরিত্র। [সুরা আ’বাসা - ৮০:১৬]
قُتِلَ الْإِنسَانُ مَا أَكْفَرَهُ
মানুষ ধ্বংস হোক, সে কত অকৃতজ্ঞ! [সুরা আ’বাসা - ৮০:১৭]
مِنْ أَيِّ شَيْءٍ خَلَقَهُ
তিনি তাকে কি বস্তু থেকে সৃষ্টি করেছেন? [সুরা আ’বাসা - ৮০:১৮]
مِن نُّطْفَةٍ خَلَقَهُ فَقَدَّرَهُ
শুক্র থেকে তাকে সৃষ্টি করেছেন, অতঃপর তাকে সুপরিমিত করেছেন। [সুরা আ’বাসা - ৮০:১৯]
ثُمَّ السَّبِيلَ يَسَّرَهُ
অতঃপর তার পথ সহজ করেছেন, [সুরা আ’বাসা - ৮০:২০]
ثُمَّ أَمَاتَهُ فَأَقْبَرَهُ
অতঃপর তার মৃত্যু ঘটান ও কবরস্থ করেন তাকে। [সুরা আ’বাসা - ৮০:২১]
ثُمَّ إِذَا شَاء أَنشَرَهُ
এরপর যখন ইচ্ছা করবেন তখন তাকে পুনরুজ্জীবিত করবেন। [সুরা আ’বাসা - ৮০:২২]
كَلَّا لَمَّا يَقْضِ مَا أَمَرَهُ
সে কখনও কৃতজ্ঞ হয়নি, তিনি তাকে যা আদেশ করেছেন, সে তা পূর্ণ করেনি। [সুরা আ’বাসা - ৮০:২৩]
فَلْيَنظُرِ الْإِنسَانُ إِلَى طَعَامِهِ
মানুষ তার খাদ্যের প্রতি লক্ষ্য করুক, [সুরা আ’বাসা - ৮০:২৪]
أَنَّا صَبَبْنَا الْمَاء صَبًّا
আমি আশ্চর্য উপায়ে পানি বর্ষণ করেছি, [সুরা আ’বাসা - ৮০:২৫]
ثُمَّ شَقَقْنَا الْأَرْضَ شَقًّا
এরপর আমি ভূমিকে বিদীর্ণ করেছি, [সুরা আ’বাসা - ৮০:২৬]
فَأَنبَتْنَا فِيهَا حَبًّا
অতঃপর তাতে উৎপন্ন করেছি শস্য, [সুরা আ’বাসা - ৮০:২৭]
وَعِنَبًا وَقَضْبًا
আঙ্গুর, শাক-সব্জি, [সুরা আ’বাসা - ৮০:২৮]
وَزَيْتُونًا وَنَخْلًا
যয়তুন, খর্জূর, [সুরা আ’বাসা - ৮০:২৯]
وَحَدَائِقَ غُلْبًا
ঘন উদ্যান, [সুরা আ’বাসা - ৮০:৩০]
وَفَاكِهَةً وَأَبًّا
ফল এবং ঘাস [সুরা আ’বাসা - ৮০:৩১]
مَّتَاعًا لَّكُمْ وَلِأَنْعَامِكُمْ
তোমাদেরও তোমাদের চতুস্পদ জন্তুদের উপাকারার্থে। [সুরা আ’বাসা - ৮০:৩২]
فَإِذَا جَاءتِ الصَّاخَّةُ
অতঃপর যেদিন কর্ণবিদারক নাদ আসবে, [সুরা আ’বাসা - ৮০:৩৩]
يَوْمَ يَفِرُّ الْمَرْءُ مِنْ أَخِيهِ
সেদিন পলায়ন করবে মানুষ তার ভ্রাতার কাছ থেকে, [সুরা আ’বাসা - ৮০:৩৪]
وَأُمِّهِ وَأَبِيهِ
তার মাতা, তার পিতা, [সুরা আ’বাসা - ৮০:৩৫]
وَصَاحِبَتِهِ وَبَنِيهِ
তার পত্নী ও তার সন্তানদের কাছ থেকে। [সুরা আ’বাসা - ৮০:৩৬]
لِكُلِّ امْرِئٍ مِّنْهُمْ يَوْمَئِذٍ شَأْنٌ يُغْنِيهِ
সেদিন প্রত্যেকেরই নিজের এক চিন্তা থাকবে, যা তাকে ব্যতিব্যস্ত করে রাখবে। [সুরা আ’বাসা - ৮০:৩৭]
وُجُوهٌ يَوْمَئِذٍ مُّسْفِرَةٌ
অনেক মুখমন্ডল সেদিন হবে উজ্জ্বল, [সুরা আ’বাসা - ৮০:৩৮]
ضَاحِكَةٌ مُّسْتَبْشِرَةٌ
সহাস্য ও প্রফুল্ল। [সুরা আ’বাসা - ৮০:৩৯]
وَوُجُوهٌ يَوْمَئِذٍ عَلَيْهَا غَبَرَةٌ
এবং অনেক মুখমন্ডল সেদিন হবে ধুলি ধূসরিত। [সুরা আ’বাসা - ৮০:৪০]
تَرْهَقُهَا قَتَرَةٌ
তাদেরকে কালিমা আচ্ছন্ন করে রাখবে। [সুরা আ’বাসা - ৮০:৪১]
أُوْلَئِكَ هُمُ الْكَفَرَةُ الْفَجَرَةُ
তারাই কাফের পাপিষ্ঠের দল। [সুরা আ’বাসা - ৮০:৪২]