Login  

My Notes

Dua For Safety

اللَّهُمَّ كَما لَطَفْتَ في عَظَمَتِكَ دونَ اللُّطَفاءِ
হে আল্লাহ৷ যেভাবে দয়ালু হয়েছেন, আপনার আজমত দিয়ে, সকল দয়ালুর উপর

وَعَلَوْتَ بِعَظَمَتِكَ على العُظَماءِ
আর উপরে উঠেছেন, আপনার আজমত দ্বারা, সকল শক্তির উপরে

وَعَلِمْتَ ما تَحْتَ أَرْضِكَ كَعِلْمِكَ بِما فَوْقَ عَرْشِكَ
আর আপনি জানেন পৃথিবীর নিচে যা আছে, যে রকম আপনি জ্ঞান আরশের উপরের

فَكانَتْ وَسَاوِسُ الصُّدُورِ كالعَلانِيَةِ عِنْدَكَ
বুকের মাঝের চুপিচুপি কথা আপনার কাছে জোরে ঘোষনার মত

وَعَلانِيَةُ القَوْلِ كَالسِّرِّ في عِلْمِكَ
আমার ঘোষনা দিয়ে বলা কথা আপনার জ্ঞানে গোপন কথার মত

وَانقادَ كُلُّ شَيءٍ لِعَظَمَتِكَ
সব কিছু আপনার আজমতের কাছে আত্মসমর্পন করে

وَخَضَعَ كُلُّ ذي سُلطَانٍ لِسُلطانِكَ
সব বাদশাহ আপনার বাদশাহীর সামনে নত হয়

وَصارَ أَمْرُ الدُّنْيَا وَالآخِرَةِ كُلُّهُ بِيَدِكَ
দুনিয়া আর আখিরাতের সব কাজের শুরু আপনার হাতে

اجْعَلْ لي مِنْ كُلِّ هَمٍّ أَمْسَيْتُ فِيْهِ فَرَجاً وَمَخْرَجاً
প্রতিটা আশংকা যা আমি পার করছি তা থেকে আমাকে খুশি করেন আর মুক্ত করেন

اللَّهُمَّ إِنَّ عَفْوَكَ عَنْ ذُنُوْبِي
হে আল্লাহ। নিশ্চই আপনি আমার গুনাহ মাফ করেছেন

وَتَجاوُزَكَ عَنْ خَطيئَتي
আমার ভুলগুলোকে আপনি সরিয়ে দিয়েছেন

وَسَتْرَكَ على قَبيحِ عَمَلي
আমার খারাপ কাজগুলোকে আপনি ঢেকে রেখেছেন

أَطْمَعَني أَنْ أَسْأَلَكَ ما لا أَسْتَوْجِبُهُ مِمَّا قَصَّرْتُ فيهِ
আশা দিয়েছে, আপনার কাছে চাইবো
যার যোগ্য আমি নই আমার কমতির জন্য

أدْعُوكَ آمِناً
আমি নিশ্চিন্তে আপনার কাছে দোয়া করি

وَأَسْأَلُكَ مُسْتَأْنِساً
আর আপনের মত আপনার কাছে চাই

فإِنَّكَ الْمُحْسِنُ إِلَيَّ
আপনি আমার প্রতি ভালো

وَأنا الْمُسِيءُ إِلَى نَفْسِي
আর আমি নিজের উপর খারাপ

فِيما بَيْنِي وَبَيْنَكَ
আমার আর আপনার মাঝে কি?

تَتَوَدَّدُ إِلَيَّ بِنِعَمِكَ
আপনি নিয়ামত দিয়ে আমার বন্ধু হন

وَأتَبَغَّضُ إِلَيْكَ بِالْمَعَاصِي
আর আমি গোনাহ করে আপনার শত্রু হই

وَلَكِنَّ الثِّقَةَ بِكَ حَمَلَتْنِي على الْجَراءَةِ عَلَيْكَ
কিস্তু আপনার উপর আমার ভরসা আমাকে সাহস দেখাতে অনুপ্রাণিত করেছে

فَعُدْ بِفَضْلِكَ وَإِحْسَانِكَ عَلَيَّ
অতএব আপনি আমার প্রতি পুর্ববৎ কথা ও অনুগ্রহ করুন

إِنَّكَ أَنْتَ التَّوّابُ الرَّحِيْمُ
নিশ্চয় আপনি তওবা কবুলকারী, দয়ালু


Dua For Being Protected From Shitan

اللهم إنك سلطت علينا عدوا
عليماً بعيوبنا
يرانا هو وقبيله من حيث لا نراهم
اللهم آيسه منا كما آيستـه من رحمتك
وقنطه منا كما قنطـته من عـفوك
وباعــد بيننا وبينه كما باعـدت بينه وبين رحمتك وجنتك

প্রতিদিন ফজরের পরে।

অর্থ: হে আল্লাহ৷ আপনি আমাদের উপর এক শত্রুকে ক্ষমতা দান করেছেন, যে আমাদের দােষত্রুটি সম্পর্কে ওয়াকিফহাল৷ সে এবং তার দলবল আমাদেরকে এমন জায়গা থেকে দেখে, যেখান থেকে আমরা তাদেরকে দেখি না৷ হে আল্লাহ! অতএব আপনি তাকে আশা থেকে নিরাশ করুন, যেমন তাকে আপনার রহমত থেকে নিরাশ করেছেন৷ তাকে আমাদের থেকে হতাশ করুন, যেমন আপনার ক্ষমা থেকে হতাশ করেছেন৷ তার মধ্যে ও আমাদের মধ্যে দুরত্ব সৃষ্টি করুন, যেমন তার মধ্যে ও আপনার রহমতের মধ্যে দূরত্ব সৃষ্টি করেছেন৷


Salat and Salam

اللهم صل و سلم على سيدنا و مولنا محمد وعلى آل سيدنا محمد
... بعدد رحمة الله
... بعدد فظل الله
... بعدد خلق الله
... بعدد علم الله
... بعدد كلمت الله
... بعدد كرم الله
... بعدد حروف كلام الله
... بعدد قطرات الامتار
... بعدد اوراق الاشجار
... بعدد رمل القفار
... بعدد ما جلق فالبحار
... بعدد الحبوب والثمار
... بعدد الليل والنهار
... بعدد ما اظلم عليه الليل و الشرق عليه النهار
... بعدد من صلى عليه
... بعدد من لم يصلى عليه
... بعدد انفاس الخلائق
... بعدد انجوم السموت
... بعدد كل شيء في الدنيا والاخرة

صلوات الله تعالى وملئكته وانبيائه ورسله وجميع الخلائق على سيد المرسلين وامام المتقين وقائد الغر المحجلين وشفيع المذنبين سيدنا ومولنا محمد و على اله واصحابه وازواجه وذرياته واهل بيته واهل طاعتك اجمعين من اهل السماوت الارضين برحمتك يارحم الراحمين
ويا اكرم الاكرمين
وصلى الله تعالا على سيدنا محمد واله واصحابه اجمعين
وسلم تسليما دائما ابدا كثرا كثيرا
والحمد لله رب العالمين


Mentally strong people avoid these

1. Waste Time Feeling Sorry for Themselves. You don’t see mentally strong people feeling sorry for their circumstances or dwelling on the way they’ve been mistreated. They have learned to take responsibility for their actions and outcomes, and they have an inherent understanding of the fact that frequently life is not fair. They are able to emerge from trying circumstances with self-awareness and gratitude for the lessons learned. When a situation turns out badly, they respond with phrases such as “Oh, well.” Or perhaps simply, “Next!”

2. Give Away Their Power. Mentally strong people avoid giving others the power to make them feel inferior or bad. They understand they are in control of their actions and emotions. They know their strength is in their ability to manage the way they respond.

3. Shy Away from Change. Mentally strong people embrace change and they welcome challenge. Their biggest “fear”, if they have one, is not of the unknown, but of becoming complacent and stagnant. An environment of change and even uncertainty can energize a mentally strong person and bring out their best.

4. Waste Energy on Things They Can’t Control. Mentally strong people don’t complain (much) about bad traffic, lost luggage, or especially about other people, as they recognize that all of these factors are generally beyond their control. In a bad situation, they recognize that the one thing they can always control is their own response and attitude, and they use these attributes well.

Amy Morin is a licensed clinical social worker and writer (Image courtesy of AmyMorinLCSW.com)
Amy Morin is a licensed clinical social worker and writer (Image courtesy of AmyMorinLCSW.com)

5. Worry About Pleasing Others. Know any people pleasers? Or, conversely, people who go out of their way to dis-please others as a way of reinforcing an image of strength? Neither position is a good one. A mentally strong person strives to be kind and fair and to please others where appropriate, but is unafraid to speak up. They are able to withstand the possibility that someone will get upset and will navigate the situation, wherever possible, with grace.

6. Fear Taking Calculated Risks. A mentally strong person is willing to take calculated risks. This is a different thing entirely than jumping headlong into foolish risks. But with mental strength, an individual can weigh the risks and benefits thoroughly, and will fully assess the potential downsides and even the worst-case scenarios before they take action.

7. Dwell on the Past. There is strength in acknowledging the past and especially in acknowledging the things learned from past experiences—but a mentally strong person is able to avoid miring their mental energy in past disappointments or in fantasies of the “glory days” gone by. They invest the majority of their energy in creating an optimal present and future.

8. Make the Same Mistakes Over and Over. We all know the definition of insanity, right? It’s when we take the same actions again and again while hoping for a different and better outcome than we’ve gotten before. A mentally strong person accepts full responsibility for past behavior and is willing to learn from mistakes. Research shows that the ability to be self-reflective in an accurate and productive way is one of the greatest strengths of spectacularly successful executives and entrepreneurs.

9. Resent Other People’s Success. It takes strength of character to feel genuine joy and excitement for other people’s success. Mentally strong people have this ability. They don’t become jealous or resentful when others succeed (although they may take close notes on what the individual did well). They are willing to work hard for their own chances at success, without relying on shortcuts.

10. Give Up After Failure. Every failure is a chance to improve. Even the greatest entrepreneurs are willing to admit that their early efforts invariably brought many failures. Mentally strong people are willing to fail again and again, if necessary, as long as the learning experience from every “failure” can bring them closer to their ultimate goals.

11. Fear Alone Time. Mentally strong people enjoy and even treasure the time they spend alone. They use their downtime to reflect, to plan, and to be productive. Most importantly, they don’t depend on others to shore up their happiness and moods. They can be happy with others, and they can also be happy alone.

12. Feel the World Owes Them Anything. Particularly in the current economy, executives and employees at every level are gaining the realization that the world does not owe them a salary, a benefits package and a comfortable life, regardless of their preparation and schooling. Mentally strong people enter the world prepared to work and succeed on their merits, at every stage of the game.

13. Expect Immediate Results. Whether it’s a workout plan, a nutritional regimen, or starting a business, mentally strong people are “in it for the long haul”. They know better than to expect immediate results. They apply their energy and time in measured doses and they celebrate each milestone and increment of success on the way. They have “staying power.” And they understand that genuine changes take time. Do you have mental strength? Are there elements on this list you need more of? With thanks to Amy Morin, I would like to reinforce my own abilities further in each of these areas today. How about you?


Prophecies

Narrated from Ka'b bin Alqama : "There will be, after the Fitna (trouble) in AshSham, an eastern one (Fitna) which will be the devastation of the kings and the humiliation of the Arabs, until the people of the Maghrib come out." (Nuaim bin Hammad, Kitab al-Fitan, No. 53)

Aqba bin Amer Al-Juhni said: " If the People of Maghreb go on an expedition, the Romans will take over the Maghreb. Alexandria and Egypt and the coast of AshSham will be devastated." (Nuaim bin Hammad's book Kitab Al-Fitan)

The people of AsSham (Greater Syria) will take prisoner the tribes of Egypt. (Ibn Hajar Haytahami, Al-Qawl Al-Mukhtasar fi Alamat Al-Mahdi Al-Muntazar, p. 49)

"The tribulation in AshSham (Greater Syria) will calm down on the one hand and flare up again on another. This corruption will not end until an angel from the sky calls: 'The Mahdi is your leader. The Mahdi is your caliph.'" (Risalat Khuruj al-Mahdi, p. 63)

"When there comes to you a document from the East that will be read out to you as: "From the slave of Allah, 'Abdullah, Amir al-Mu'mineen (Prince of the Faithful Believers)," then await another document coming to you from the West that will be read out to you as: "From the slave of Allah, 'Abd-Rahman, Amir al-Mu'mineen (Prince of the Faithful Believers)." Then, by He (God) in whose hand is Huzayfa's soul, you will fight them near Al-Qantarah, and they will expel you far, far away from the land of Egypt and the land of AshSham, and an Arabian woman will be sold at the stairs of Damascus for twenty-five dirhams." (Nuaim bin Hammad, Kitab al-Fitan, No. 52)


Our Prophet صلى الله عليه وسلم said: " There will be such troubles and calamities that nobody will be able to find a place of shelter. These woes will move around AshSham (Greater Syria), fall upon Iraq and tie the hands and feet of the Arabian Peninsula. A group of Muslims will fight against troubles in the steppes. Nobody will feel any sympathy for them or even say, 'Alas!' As they try to remedy their woes from one side, the woes will emerge again on the other side." (Muntakhab Kanz Al-Ummal, vol. 5, pp. 38-39)

Mohammad bin Al-Hanafiya said: "The People of Maghreb enter Damascus Mosque and while they are looking at its marvels, there will be a land tremor so the western part of the Mosque will collapse and there will be a Khusuf (land collapse) in a town called Harasta. Then, the Sufyani comes out and fights them until he pushes them back to Egypt. Then, he returns and fights the People of the East until he pushes them back to Iraq." (Nuaim bin Hammad's book Kitab Al-Fitan)

Abdullah ibn Hawalah said: The Messenger of Allah صلى الله عليه وسلم said: "Matters will run their course until you become three armies: an army in AshSham (Syria), an army in 'Iraq, and an army in the Yemen." I said: "O Messenger of Allah, which one I should join ? " He said: "You should go to AshSham, for it is the best of Allah's lands, and the best of His servants will be drawn to there. If you do not (go to AshSham), go to the Yemen and drink from its wells. For Allah has guaranteed me that He will look after AshSham and its people." (Abu Dawud)

Abu Huraira said: "The fourth Fitna (strife) remains for 12 years, then it clears . Once it clears, the Euphrates will recede revealing a mountain of gold. Seven out of every nine (people fighting for it) will be killed." (Nuaim ibn Hammad's Kitab Al-Fitan)

Ka'b said: "The perishing (end) of Bani Al-Abbas (the progeny of Al-Abbas) will be once a star appears in Jawf (region), and a Hadda (powerful, hammering sound) and Wahiya (catastrophe). All of this in the month of Ramadan. The redness will be between the 5th and 20th of Ramadan. The Hadda (powerful, hammering sound) is between the middle and the 20th (of Ramadan). The Wahiya (catastrophe) is between the 20th and 24th (of Ramadan). A star thrown (by Allah from Heaven) illuminates like a moon and then turns like a snake until its ends meet. Two tremors will be in the night of Fis'hain. The star thrown (by Allah from Heaven) is a Shahab (asteroid) that rushes from the sky with a powerful sound when it drops in the East and because of it, people will experience magnificent disasters." (Nuaim bin Hammad's Kitab Al-Fitan )

Ali bin Abi Taleb (r.a.) said: "When the black banners differ among each other, a village from the villages of Iram and the western side of its Mosque collapses. Then, in AshSham, three banners (armies) come out for each of the As'Hab (reddish, white man), Abqa', and Sufyani. The Sufyani comes from AshSham and the Abqa' from mesr(King of Damascus). The Sufyani will defeat them." (Nuaim bin Hammad's Kitab Al-Fitan)

Sulaiman bin Isa said: "I was told that the Sufyani will rule for three and a half years." (Nuaim bin Hammad's Kitab Al-Fitan)

Ibn Abbas (r.a.) said: " If the coming out of the Sufyani is in thirty seven , his reign will be for 28 months. If he come out in thirty nine , his reign will be for 9 months." (Nuaim bin Hammad's Kitab Al-Fitan)

Al-Zuhri said: "During the reign of the second Sufyani, a sign in the sky will be seen." (Nuaim bin Hammad's Kitab Al-Fitan)

Al-Zubri said: "If the black banners differ among each other, the yellow banners will attack them. They will meet at the Qantara of the People of Egypt(Damascus). The people of the East (with black banners) and the people of the Maghreb (Morocco, Algeria, or Tunis) (with yellow banners) fight each other for seven (probably, for 7 months). The people of the East will be defeated to the extent that (people of the Maghreb) will land in Al-Ramla (in Palestine). Something will happen between the people of AshSham and the people of the Maghreb that will make people of the Maghreb angry. So, people of the Maghreb will say: We came to aid you and you do what you are doing, we will quit (tilting the balance of power) between you and people of the East ! They warn you because the people of AsSham will be few in number in the eyes of the people of Maghreb. Then, the Sufyani will come out and the people of AshSham will follow him. So, he will fight people of the East." (Nuaim bin Hammad's book Kitab Al-Fitan)


Iraq Text Books

Class 1: القراءة الخلدونية
Class 2: قراءتي للصف الثاني


Birthday Paradox

For random data in a 2^n range, you have a collision probability of 50% after just 2^(n/2) values


CS Terms

Traits: library of methods.
Generators: function as an iterator
Monads: markup doing logic


Sleeping and Personality

"The Fetus" is the most common position, with the sleeper lying curled up on their side. It is said to reflect someone with a tough exterior shell but a soft, sensitive core.

"The Log" position is that of someone lying on their side with their arms down. "Log" sleepers are sociable and outgoing, but gullible.

"The Yearner" sleeps on their side as well, but with their arms stretched out in front of them. This positions tends to reflect a cynical straight shooter: someone who is hesitant to commit or trust but once they do, they're all in and mean business.

"The Soldier" position is on the back with the hands at the side. This is a common one for more reserved, less dramatic folks.

"The Starfish" is the least common position, but when you find a "Starfish" sleeper, hang onto them! This position is associated with people who are selfless, generous, humble individuals.


Odor elimination.

Febreze eliminates odors while air fresheners just mask it.


How to prevent scrapping.

I actually came up with a very effective method for identifying scraping and blocking it in near real-time. The challenge that I've had was that I was being scraped via many many proxies/IPs in short spurts using a variety of user agents - so as to avoid, or make difficult detection. The solution was simply to identify bot behavior and block it:
1. Scan the raw access logs via 1 minute cron for the last 10,000 lines - depending on how trafficked your site is
2. parse the data by IP, and then by request time
3. search for IP's that have not requested a universal and necessary elements like anything in the images or scripts folder, and that made repetitive requests in a short period of time - like 1 second.
4. Shell command 'csf -d IP_ADDY scraping' to add to the firewall block list.
This process is so effective of identifying bots/spiders that I've had to create a whitelist for search engines and other monitoring services that I want to continue to have access to the site.
Most scrapers don't go to the extent of scraping via headless browsers - so, for the most part, I've pretty much thwarted the scraping that was prevalent on my site.


Nafis' letter to Judge.

সম্মানিত ক্যারল বাগলি অ্যামন

চিফ ইউনাইটেড স্টেটস ডিস্ট্রিক্ট জাজ

ইস্টার্ন ডিস্ট্রিক্ট অব নিউইয়র্ক

সম্মানিত বিচারক অ্যামন,

আমি কাজী মোহাম্মদ রেজওয়ানুল নাফিস। আমি যা করতে চেয়েছিলাম সত্যিই তা ভয়াবহ ছিল। এজন্য আমি খুব দুঃখিত। এখন আমার একমাত্র স্বস্তির বিষয় হলো, আমার এই নির্বুদ্ধিতায় কেউ ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি।

আমি ইসলামি মৌলবাদে আর বিশ্বাস করি না। আমি অন্তরের অন্তঃস্থল থেকে একে ঘৃণা করি। এটি পুরোপুরি খারাপ ও অমানবিক। এটি মোটেও ইসলাম নয়। এই কাজটিকে সমর্থন করায় আমি সব সময় অনুশোচনা করে যাব, যে কাজ আংশিকভাবে আমাকে খেপাটে এক কাজে নিয়ে গিয়েছিল। এ কাজের জন্য আমৃত্যু আমার অনুশোচনা থেকে যাবে।

আমি যা বলতে যাচ্ছি, দয়া করে তা গ্রহণ করুন। কৃতকর্মের জন্য অনুশোচনার কথা বলে আমার অনুভূতির ব্যাপারে যে স্পষ্ট ব্যাখ্যা দিচ্ছি, কেবল এজন্য নয়, পরিষ্কারভাবে অপরাধের দায় গ্রহণ ও শাস্তি পাওয়ার মতো অপরাধের বিষয়টি উপলব্ধির জন্য আমার এ আবেদন গ্রহণ করুন। একই সঙ্গে আমি আপনার কাছে দয়া ও ক্ষমা প্রত্যাশা করছি।

আমার কৃতকর্ম অমার্জনীয় ও কাপুরুষোচিত। এ বিষয়ে গভীরভাবে চিন্তা করার পর আমার কর্মকাণ্ডের প্রতি ঘৃণা জন্মেছে। আমি জানি, ভবিষ্যতে আমি আর কখনো কোনো ধরনের কাজ করতে পারব না, কেননা এটি শুধু অনৈসলামিক নয়, এটি আমার পরিবার ও আমার জীবনকে ধ্বংস করেছে, সর্বোপরি জীবনের এ দুর্বিপাকের জন্য আমার মাথা হেঁট হয়ে গেছে।

খুব ছোটবেলা থেকে আমার বেশ তোতলামির সমস্যা ছিল এবং তা কয়েক বছর ধরে চলে। আমার সত্যিকারের কোনো বন্ধু ছিল না। মা-বাবার সঙ্গে সুসম্পর্ক ছিল না। নিঃসঙ্গভাবে বেড়ে উঠি। একটা কিছু হতে আমি জীবনভর চেষ্টা করেছি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত কিছু হতে পারিনি। এটি আমার ও পরিবারের জন্য পুরোপুরি হতাশার। বাবা-মায়ের কাছে আমি ‘লোকসানি প্রকল্প’ বৈ কিছু ছিলাম না। আমার জন্য তাদের সব চেষ্টা বিফলে গেছে। কোনো সাফল্য না পাওয়ায় আমার জীবনটা পুরোপুরি বরবাদ হয়ে গিয়েছিল।

সাদাসিধে মানুষ হিসেবে আমি লোকজনের কথায় সহজেই ভজে যেতাম। বাংলাদেশে বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে আমার প্রকৃত কোনো বন্ধু ছিল না। কাজেই প্রভাবশালী ও নামডাকওয়ালা মৌলবাদী বন্ধুরা যখন কাছে এল, খুব সহজে তাদের সঙ্গে তাদের কথায় পটে গেলাম। তাদের সঙ্গে মিশে এবং কথা শুনে ধার্মিক হয়ে উঠতে লাগলাম, কিন্তু কখনো মনে হয়নি যে ধীরে ধীরে ভুল পথে এগোচ্ছি। তবে তা নিশ্চিতভাবে ছিল ইসলামের নামে ভুল শিক্ষা।

ভাগ্যান্ব্বেষণে নিজের পায়ে দাঁড়াতে আমি একসময় যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমাই। পরিবারের বোঝা হয়ে আর থাকতে চাইনি। আশা ছিল, আয়-রোজগার করে নিজের জীবনযাপন আর পড়ার খরচ চালিয়ে নেব। কিন্তু কোনোটিই হয়ে ওঠেনি, বরং আমার পেছনে মা-বাবার খরচের বোঝা বাড়িয়েছি। খরচ বাঁচাতে আমি বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাওয়া শিক্ষাগত যোগ্যতার কাগজপত্র মিসৌরি স্টেট ইউনিভার্সিটিতে পাঠাই। কিন্তু শিক্ষাগত যোগ্যতার মান ছিল খুব খারাপ। এতে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ে আমার পড়াশোনা বন্ধ হয়ে যায়। পরে নিউইয়র্কের আলবেনিতে চাচার কাছে চলে আসি। একটা চাকরি খুঁজে বেড়াই। কিন্তু সফল হইনি। চাচির অমত থাকায় চাচার ওখানে বেশি দিন থাকা হয়নি।

এরপর জ্যামাইকার কুইন্সে দূর সম্পর্কের আত্মীয় সোনিয়ার কাছে চলে যাই। সেখানে আমি কিছু কাজ পেলেও কোনোটি চালিয়ে যেতে পারিনি। সাফল্য অর্জনের ক্ষেত্রে নিজেকে শারীরিক ও মানসিকভাবে বিফল মনে হতে লাগল। ধাবমান প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বের সঙ্গে আমি ঠিক কুলিয়ে উঠতে পারছিলাম না। গভীর বিষণ্নতায় ডুবে যেতে লাগলাম।

একদিন সোনিয়ার বাবার সঙ্গে আমার উত্তপ্ত বাগবিতণ্ডা হলো। সামান্য ভুলের জন্য তিনি আমাকে জঘন্য ভাষায় অপদস্থ করলেন। এ ঘটনার পর সোনিয়ার ওখানে থাকা আমার জন্য অসম্ভব হয়ে উঠতে লাগল। বাংলাদেশি আরেকটি মেয়ের কদর করতাম, যার সঙ্গে আমি আমার ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখেছিলাম। একপর্যায়ে টের পেলাম সে আমার সঙ্গে প্রতারণা করছে। সেটা জানার পর আমার মন থেকে শেষ সান্ত্বনাটুকুও মুছে গেল। গোটা আকাশ যেন আমার মাথার ওপর ভেঙে পড়েছে। মনে হলো, এই পৃথিবীতে আমার আর কোনো স্থান নেই। বেঁচে থাকারও কোনো মানে নেই।

কিন্তু ইসলাম ধর্মে নিষিদ্ধ থাকায় আমি আত্মহত্যাও করতে পারিনি। সোজাসুজি চিন্তা করার ক্ষমতা হারিয়ে ফেললাম, হয়ে গেলাম খেপাটে। এভাবেই জিহাদি কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে নিজেকে শেষ করে দেওয়ার ভাবনা আসে। কিছুদিন পর জিহাদি কর্মকাণ্ডের বার্তাবাহক ও ছদ্মবেশী চরদের সঙ্গে দেখা করি। আমার ইচ্ছার কথা জানাই তাদের। এই খেপাটে চিন্তাভাবনা নিয়ে পড়ে থাকি আমি। জিহাদি কাণ্ড ঘটানোর আগে একবার বাংলাদেশে যাওয়ার কথা ভাবি। পৃথিবীতে বেঁচে থাকার ব্যাপারে আমার পরিবারের কাছ থেকে কোনো আশা যদি পাওয়া যায়, এ আশায় সিদ্ধান্তটা নিই। চর আমাকে জানায়, এ কাজ করলে তারা আমার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করবে। এ কথায় আমি সত্যিই আহত হই এবং মনে মেনে বলি, বাংলাদেশে যদি কোনো আশাই থাকত, তাহলে তো আর যুক্তরাষ্ট্রে আসতাম না। তাই আমি যুক্তরাষ্ট্রে থেকে যাই এবং যত দ্রুত সম্ভব পৃথিবী ত্যাগে যা খুশি করতে থাকি।

গ্রেপ্তার হওয়ার পর ইসলাম বিষয়ে পড়াশোনা করার জন্য আমি প্রচুর সময় পেয়েছি। আমি পুরো কোরআন পড়েছি, কারাগারে আসার আগে কখনো এই সুযোগ হয়নি। যতই পড়েছি, আমি ততই বুঝতে পেরেছি আমি কোনো কিছু না বুঝেই অন্ধভাবে মৌলবাদীদের অনুসরণ করেছি। আমার পরিকল্পিত এই কর্মকাণ্ডের সমর্থনে আমি কোরআনের কোথাও একটি আয়াতও পাইনি। একেকটি দিন যাচ্ছিল, আর আমি আল্লাহকে ধন্যবাদ দিচ্ছিলাম। কেননা, কোনো দিনও সত্যিকারের কোনো মানুষের সঙ্গে আমার দেখা হয়নি। এই চররা যদি আমাকে না পেত, তাহলে আমি জানি না কী হতো। আমাকে এ ধরনের চূড়ান্ত আত্মঘাতী অপকর্মের হাত থেকে রক্ষা করায় আমি যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি কৃতজ্ঞ।

যেদিন আমি গ্রেপ্তার হই, ওই দিনই আমি চরদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে শুরু করেছিলাম। শুরু থেকে তারা আমার সঙ্গে খুব ভালো ব্যবহার করে, যা আমার কাছে প্রায় অবিশ্বাস্য ছিল। আমি তাদের সঙ্গে মজা করতাম। মনে আছে, আমি তাদের বলেছিলাম আমার প্রিয় চলচ্চিত্র ‘আমেরিকান পাই’। বৈঠকে তারা আমার সঙ্গে ছোট ভাইয়ের মতো আচরণ করত। একবার আমার খুব ঠান্ডা লাগার কারণে একজন এজেন্ট তার জ্যাকেটটা আমাকে দিয়ে দিয়েছিল। আমি দুপুরে কী খেতে চাই, তারা তা জানতে চেয়েছিল।

খাবার আনার পর আমরা সবাই একটি পরিবারের মতো খেয়েছিলাম। আমি বারবার ভাবছিলাম, মৌলবাদীদের কাছ থেকে শুনেছি মার্কিনরা মুসলিমদের ঘৃণা করে, অথচ আমি ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক উড়িয়ে দিতে চাই জানার পরও এই চরেরা আমার সঙ্গে কতটা ভালো ব্যবহার করছে।

আরেক দিনের কথা আমার মনে পড়ছে। আমি তাদের বললাম, আমি হালাল মুরগি খেতে চাই। এর কিছুক্ষণ পর একজন চর আমাকে জানাল, আজ হালাল মুরগি নেই। একই সঙ্গে জানতে চাইলেন, আমি ভেড়ার হালাল মাংস খাব কি না? তারা আমার প্রতি যে সততা ও সম্মান দেখাল, তাতে আমি বিস্মিত হলাম। আমি বুঝতে পারলাম, যুক্তরাষ্ট্রে মুসলিম দেশগুলোর চেয়েও ইসলামের নিয়ম-কানুন বেশি মানা হয়।

এমডিসিতে আমার অভিজ্ঞতা আমেরিকা সম্পর্কে আমার ধারণা অনেকখানি বদলে দিতে সহায়তা করেছে। এসএইচইউতে আমার জীবনের নিকৃষ্টতম কিছু দিন কেটেছে। কিন্তু সেই কঠিন সময়েও আমি এসএইচইউয়ের লেফটেন্যান্টের কাছ থেকে প্রয়োজনীয় সব ধরনের সহায়তা পেয়েছি। তিনি আমার প্রতি খুব দয়ালু এবং আন্তরিক পরামর্শক ছিলেন।

শুরুর দিকে এখানকার পরিবেশের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নেওয়াটা একটু কঠিন ছিল। তবে ধীরে ধীরে যখন মিশতে শুরু করলাম, তারা আমার প্রকৃত আচরণ সম্পর্কে জানতে পারল, তখন তারা আমার প্রতি বন্ধুসুলভ হলো। এমডিসির যে জিনিসটি আমার ভালো লেগেছে তা হলো, এখানে সবাইকে নিরপেক্ষ দৃষ্টিতে সমভাবে দেখা হয়। বড়দিনের সময় এমডিসি যে ‘হলিডে প্যাকেজ’ দিয়েছিল, তার কথা মনে পড়ছে। এই প্যাকেজ পেয়ে আমি খুশি ও বিস্মিত হয়েছি। আর ভেবেছি, আমি কিনা আমেরিকার বিরুদ্ধে গিয়েছি, সেও এই প্যাকেজ পেলাম; প্যাকেজ দেওয়ার সময় তারা আমাদের ‘হ্যাপি হলিডে’ জানায়। প্যাকেজ নিয়ে কারাকক্ষে যাওয়ার পর আমি আমার কৃতকর্মের জন্য সত্যিই খুব দুঃখবোধ করলাম। আমি আমার নিজেকে জিজ্ঞেস করলাম, যে আমেরিকা সমান অধিকার ও ন্যায়বিচারে বিশ্বাস করে, আমি কেন তার বিপক্ষে গেলাম?

এমডিসিতে আমরা মুসলমানেরা নামাজ আদায় করতে পারি। কাউন্সিলর, সিও, ইউনিট ব্যবস্থাপকসহ সবাই ধর্মের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। রোজার মাসে সিওরা রাত সাড়ে তিনটার দিকে ঘুম থেকে ওঠেন। এমডিসি সেহরি ও ইফতারে আমাদের ভালো খাবার দেয়। টার্কি, বিফ স্টু, পিচ ফলের মতো সুস্বাদু খাবার আমি আগে কখনো খাইনি।

যুক্তরাষ্ট্র আমার জন্য বিনা খরচে হেইডি সি সিজার নামে একজন ভালো আইনজীবী নিয়োগ দিয়েছে। আবারও বুঝতে পারি, মার্কিন জনগণকে নিরপেক্ষ ও সমভাবে দেখে। আমার আইনজীবী হেইডি শুধু ভালো আইনজীবীই নন, ভালো মানুষও। এসএইচইউতে থাকার সময় তিনি প্রায়ই আমাকে দেখতে আসতেন। আমার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগের ক্ষেত্রে তাঁরাই একমাত্র মাধ্যম ছিলেন। তিনি আমাকে বোঝার অনেক চেষ্টা করতেন। তিনি আমার সঙ্গে খালা বা ফুপুর মতো নিকটাত্মীয়দের ব্যবহার করতেন।

এমডিসিই প্রথম জায়গা যেখানে আমি ইসলামি মৌলবাদ নিয়ে মৌলবাদী নয়, এমন ব্যক্তিদের সঙ্গে আলোচনা করতে পেরেছি। কোরআন পাঠ করার পর এবং কয়েকজন জ্ঞানী মুসলমানের সঙ্গে কথা বলার পর আমি বুঝতে পারি, আমি কত ভুল জানতাম।

ইসলামে মৌলবাদের স্থান নেই। দুর্ভাগ্যের শিকার না হলে আমি কখনো এ ধরনের জিহাদি কাজ করতাম না। কারণ, আমি কখনোই মন থেকে ইসলামী মৌলবাদে বিশ্বাসী ছিলাম না। এখন আমি বুঝতে পারছি, ইসলামের নামে কীভাবে মৌলবাদের বিকৃত ব্যাখ্যা দেওয়া হয়। আমেরিকা ইসলামের শত্রু না, ইসলাম ও মুসলমানদের শত্রু মৌলবাদীরা।

আমি বন্দী। যুক্তরাষ্ট্রের সেই সুন্দর দিনগুলোর কথা পুরোপুরি ভুলে গিয়েছিলাম। বেঁচে থাকার সব আশা ছেড়ে মৌলবাদে বিশ্বাস করতে শুরু করেছিলাম। মিসৌরির কেপ গিয়ারডিউয়ের জীবনের কথা ভুলে গিয়েছিলাম। কেপ গিয়ারডিউ জায়গাটা দারুণ। আমার কাছে মনে হয়েছে, সেখানকার লোকজন বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে সুন্দর ও সবচেয়ে বন্ধুসুলভ। একটি দিনের কথা মনে পড়ছে। আমি আর এক বাংলাদেশি যুবক একটা ‘এটিটি স্টোর’ খুঁজছিলাম। পথে একজন বৃদ্ধ দম্পতির দেখা পাই আমরা। তাঁরা আমাদের জানালেন, আমরা ভুল পথে যাচ্ছি। বুঝতে পারলাম, গন্তব্যস্থল থেকে অনেক দূরে আমরা। ওই বৃদ্ধ দম্পতি আমাদের পৌঁছে দেওয়ার প্রস্তাব করলেন। তাঁরা শুধু আমাদের ওই দোকানে পৌঁছেই দেননি, যতক্ষণ পর্যন্ত না আমাদের কাজ শেষ হলো, তাঁরা অপেক্ষা করলেন এবং বাড়িতে পৌঁছে দিলেন। আচরণে মনে হচ্ছিল, আমরা যেন তাঁদেরই নাতি।

আমরা যেখানে থাকতাম, সেখানে রাস্তার পাশে একটি পশুপাখির দোকানে এক নারী কাজ করতেন। তিনি আমার প্রতি খুব দয়াশীল ও আমার ধর্মের প্রতি শ্রদ্ধাশীল ছিলেন। আমাকে একটা চাকরি খুঁজতে সহায়তা করবেন বলে জানিয়েছিলেন তিনি। এ ছাড়া পদার্থবিদ্যার ক্লাসে এক প্রবীণ সহপাঠীর কথা মনে পড়ছে। ক্লাস শেষ হওয়ার পর প্রায় প্রতিদিন তিনি আমাকে তাঁর গাড়িতে করে বাসায় পৌঁছে দিতেন। আমার ক্যালকুলেটর ছিল না। সেটা জানতে পেরে তিনি আমাকে ১০০ ডলার দিয়ে একটা ক্যালকুলেটর কিনে দিয়েছিলেন। তিনি ছিলেন আমার বন্ধুর মতো।

হায়! এখন সেই দিনগুলোর জন্য খুব আফসোস হচ্ছে। আমি সত্যি দুর্ভাগা! নিজের কৃতকর্মের জন্য আমি কতটা অনুতপ্ত, তা পশুপাখির দোকানের নারী বা ক্লাসের ওই প্রবীণ সহপাঠীকে ব্যাখ্যা করার ভাষা আমার কাছে নেই। নিজেকে ঋণী মনে হচ্ছে। তাঁদের কাছ থেকে যে ভালোবাসা পেয়েছি, তা কখনো ফিরিয়ে দিতে পারব না।

সত্যি বলতে কি, কারারুদ্ধ হওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি মনোভাব বদলে গেছে আমার। মাননীয় বিচারক, আমি মার্কিনদের ভালোবাসি। আমার আরও ধৈর্য ধরা উচিত ছিল। অন্যের দ্বারা প্রভাবিত না হয়ে নিজের বিবেক-বুদ্ধি দিয়ে মার্কিন নাগরিকদের মূল্যায়ন করা উচিত ছিল। এখন যখনই পেছনে ফিরে তাকাই, নিজের প্রতি ঘৃণা হয়। আমি কল্পনাও করতে পারি না, কী করতে যাচ্ছিলাম। একটা ঘোরের মধ্যে ছিলাম। আমি ভাগ্যবান যে চররা আমাকে ধরতে পেরেছিল। তারা আমাকে আত্মঘাতী হামলা করা থেকে রক্ষা করেছে। আমি এখন জীবনের নতুন অর্থ খুঁজে পেয়েছি।

কারাগারে ধর্মচর্চা করার পুরো সুযোগ আমার রয়েছে। এখানে আসার পর আমি আরও ধার্মিক হয়েছি। পবিত্র কোরআনের আয়াত মুখস্থ করছি। নামাজ আদায় করে, বই পড়ে, টিভি দেখে, অন্যদের সঙ্গে গল্পগুজব করে এখানে নিজেকে ব্যস্ত রেখেছি।

মাননীয় বিচারক, আমি আমার মা-বাবার একমাত্র ছেলে। আমার বড় বোন বিবাহিত। বাবার বয়স ৬৩ বছর, মায়ের ৫২। পরিবারের সঙ্গে ভালো যোগাযোগ আছে আমার। মা-বাবা আমাকে খুবই ভালোবাসেন। গ্রেপ্তার হওয়ার আগে বুঝতে পারিনি, আমি তাঁদের কতটা ভালোবাসি বা তাঁরা আমাকে কতটা ভালোবাসেন। মা-বাবার ভালোবাসায় আমি আবারও পৃথিবীতে বেঁচে থাকার আশা দেখছি। জঘন্য অপরাধ করে তাঁদের হূদয় ভেঙে দিয়েছি আমি। ভালোবাসা ও শান্তি দিয়ে গড়া এক নতুন জীবন আমাকে এনে দিয়েছেন তাঁরা। মনে হচ্ছে, মৃত্যু থেকে ফিরে এসেছি। কারণ ভেতরে ভেতরে আমি পুরোপুরি মরে গিয়েছিলাম। সব সময় নিজের মৃত্যু কামনা করতাম। কিন্তু আমি আবারও হূদয়ের ভেতরে স্পন্দন টের পাচ্ছি। আমি সবকিছুর জন্য পৃথিবীতে বাঁচতে চাই, বিশেষ করে মা-বাবার জন্য। কারণ, তাঁরাই আমার জীবনের সব। তাঁরা ছাড়া আমি কিছুই নই।’

মা-বাবাকে কতটা দুর্দশায় ফেলেছি, ধারণাও করতে পারি না। অথচ এখনো তাঁরা আমাকে ভালোবাসেন। আমার কারণে বাবা চাকরি হারিয়েছেন। সঞ্চয়ের অর্থ থেকে তাঁরা জীবনধারণ করছেন, সেখান থেকেই আমার জন্য টাকা পাঠাচ্ছেন। একমাত্র সর্বশক্তিমান আল্লাহই জানেন, এভাবে তাঁরা কত দিন চলতে পারবেন। আমার বয়স্ক মা-বাবাকে দেখার কেউ নেই।

মাননীয় বিচারক, যত দ্রুত সম্ভব আমি তাঁদের কাছে যেতে চাই। আমাকে দেওয়া আল্লাহর শ্রেষ্ঠ উপহার তাঁরা। এই আশায় বেঁচে আছি যে পৃথিবী থেকে বিদায় নেওয়ার আগে একদিন তাঁদের কাছে যেতে পারব। দয়া করে আমার বেঁচে থাকার আশাটা হারিয়ে যেতে দেবেন না। আমাকে ক্ষমা করার অনুরোধ করছি। আপনার কাছে আরেকটা সুযোগ প্রার্থনা করছি।

মাননীয় বিচারক, আমি গুরুতর ভুল করেছি। দয়া করে আমাকে করুণা করুন। আমাকে শাস্তি দেওয়ার আগে আমার জীবনের পরিস্থিতিটা বিবেচনা করুন। একেবারে সাধারণ, শান্ত এই আমি মানব সভ্যতার ইতিহাসে সবচেয়ে সহিংস অপরাধ করতে যাচ্ছিলাম। গুরুতর অপরাধের জন্য আমাকে ক্ষমা করতে আপনাকে বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি। আমি আপনার কাছে ক্ষমা চাইছি। আপনার মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রের সব নাগরিক, বিশেষ করে নিউইয়র্কের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকে যাঁরা কাজ করেন, তাঁদের কাছে ক্ষমা চাই। মাননীয় বিচারক, দয়া করে আমাকে বেঁচে থাকার আশা দিন। আপনার করুণা প্রার্থনা করছি। দয়া করে আমাকে ক্ষমা করুন।



Execution time: 0.04 render + 0.01 s transfer.