Login | Register

নুয়াইম বিন হাম্মাদের: আল ফিতান

   

মক্কায় মানুষের একত্রিত হওয়া, মাহদীর হাতে বাইয়াত হওয়া এবং ঐ বছরের ঘটনা

Double clicking on an arabic word shows its dictionary entry
হযরত কাতাদা রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন তার নিকট ইরাকের মানুষের দল ও সিরিয়ার সূফী-সাধকরা আসবে। অতপর তারা তার নিকট রুকুন ও মাকামের মাঝামাঝি স্থানে বাইয়াত গ্রহণ করবে। অতপর ইসলাম তার উটের ঘাড়ের সম্মুখভাগে সাক্ষাত করবে।

[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০০১ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٠١
حدثنا أبو ثور وعبد الرزاق وابن معاذ عن معمر
عن قتادة قال قال
رسول الله صلى الله عليه وسلم يأتيه عصاب العراق وأبدال الشام فيبايعونه بين الركن
والمقام فيلقي الإسلام بجرانه
خروج المهدي من مكة إلى بيت المقدس والشام
بعدما يبايع له وما يكون في مسيره بينه وبين السفياني وأصحابه
হযরত মুহাম্মাদ ইবনে আলী হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন যখন মক্কায় আশ্রয়প্রার্থী যখন ভুমি ধসের কথা শুনবে তখন সে বার হাজার লোকের সাথে বের হবে। যাদের মাঝে আবযাল থাকবে। এমনকি তারা ঈলায় অবস্থান নিবে। অতপর যে ব্যক্তি সৈন্য প্রেরণ করেছে যখন তার নিকট ঈলার খবর পৌছবে। জীবনের কসম! তখন আল্লাহ তা’আলা এই ব্যক্তির ক্ষেত্রে তাকে উপদেশ ও দৃষ্টান্ত বানাবেন। উক্ত ব্যক্তির উপর উহাই পৌছবে যা তাদের উপর পৌছেছিল। অতপর তারা যমিনে ধসে যাবে। আর এটাই হল উপদেশ। আর সুফইয়ানী তার দিকে অনুগত্যতা আদায় করবে। অতপর সে বের হবে এমনকি একজন কালবী লোকের সাথে সাক্ষাত ঘটবে। আর তারা হল তার সময়। অতপর তারা তার নিকট লজ্জিত হবে তাদের কৃত কর্মের কারণে। এবং তারা বলবে আল্লাহ তা’আলা আপনাকে পরিধেয় পরিধান করিয়েছেন। আর তুমি তা অপসৃত করছ। অতপর সে বলবে- তোমাদের কি আমি কি তাকে বাইয়াত হতে অব্যহতি দিব ? অতপর তারা বলবে হ্যা। অতপর তার নিকট ঈলা হতে লোকজন আসবে। অতপর সে বলবে- তোমরা কি আমাকে কম করে দিয়েছ? অতপর সে বলবে- আমি এটা করবো না। সে বলবে- তাই? সে তাকে বলবে- তুমি কি চাও, আমি তোমাকে পদচ্যুত করে দেই? (বাইয়াত হতে বের করে দেই?) অতপর সে বলবে হ্যা। ফলে সে তাকে পদচ্যুত করে দিবে। (বাইয়াত থেকে বের করে দিবে।) অতপর সে বলবে- এই ব্যক্তি আমার আনুগত্যতা ছিন্ন করেছে। অতপর তাকে সে সময় হত্যা করার আদেশ দিবে। অতপর তাকে ঈলার শান বাধানো পাথরের উপর যবাহ করা হবে। অতপর সে কালবের দিকে সফর করবে। অতপর তাদের লুণ্ঠন করা হবে। সুতরাং ধোকাবাজ হল যে কালবে লুণ্ঠনের দিন ধোকা দিবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০০২ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٠٢
حدثنا
الوليد ورشدين عن ابن لهيعة قال حدثني أبو زرعة عن محمد بن علي
قال إ
ذا سمع
العائذ
الذي بمكة
بالخسف
خرج مع اثنى عشر ألفا
فيهم الأبدال
حتى ينزلوا إليلاء
فيقول الذي بعث الجيش حين يبلغه الخبر بإيلياء لعمرو الله لقد جعل الله في هذا
الرجل عبرة بعثت إليه ما بعثت فساخوا في الأرض إن هذا لعبرة وبصيرة
ويؤدي إليه
السفياني الطاعة
ثم يخرج حتى يلقى كلبا وهم أخواله فيعرونه بما صنع
ويقولون
كساك الله قميصا فخلعته
فيقول ما ترون أستقيله البيعة
فيقولون نعم فيأتيه
إلى إيلياء
فيقول أقلني
فيقول إني غير فاعل
فيقول بلى
فيقول له
أتحب أن أقيلك
فيقول نعم فيقيله
ثم يقول هذا رجل قد خلع طاعتي فيأمر به عند
ذلك فيذبح على بلاطة أيلياء ثم يسير إلى كلب فينهبهم فالخائب من خاب يوم نهب كلب
হযরত যুল কিরইয়াত হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন সে সফর করবে এমনকি ঈলায় অবতরণ করবে। আর তার থেকে আরেক দল তার নিকট বাইয়াত গ্রহণ করবে। অতপর সে অনুশোচনা করবে। অতপর সে ইস্তফা চাইবে। ফলে তাকে ইস্তফা দিবে। অতপর তাকে এবং যে তাকে ধোকার জন্য আদেশ দিয়েছে উভয় জনকে হত্যার আদেশ দিবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০০৩ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٠٣
قال ابن لهيعة في حديث رشدين عن أبي قبيل عن سعيد بن الأسود عن ذي
قربات
قال يسير حتى ينزل أيلياء ويبايعه الآخر فرقا منه ثم يندم فيستقيله
فيقيله ثم يأمر بقتله وقتل من أمر بالغدر
হযরত যুহরী থেকে বর্ণিত যে, তিনি বলেন তার প্রেরণের আরেক দল তাকে পাবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০০৪ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٠٤
حدثنا عبد الله بن مروان عن
سعيد بن يزيد
عن الزهري قال يتلقاه الآخر ببعثه
হযরত হারেস ইবনে যায়েদ হতে বর্ণিত যে, তিনি ইবনে যুরাইর গাফেকী হতে শুনেছেন যে, তিনি হযরত আলী রাযিয়াল্লাহু আনহু কে বলতে শুনেছেন যে, যদি কম হয় তাহলে বার হাজারের মধ্যে বের হবে। আর যদি বেশী হয় তাহলে পনের হাজার। রু’ব (ভয়) তার নিজের সামনের দিকে সফর করবে। তার শত্রুদের থেকে যাকেই পাবে সে তাকে আল্লাহ তা’আলার অনুমতিতে পরাস্ত করে দিবে। তাদের নিদর্শন হবে (টিলা টিলা) উচু উচু। কোন তিরস্কারকারীর তিরস্কারকে আল্লাহ তা’আলার রাস্তায় তারা পরোয়া করবে না। অতপর তাদের দিকে সিরিয়া হতে সাতটি ঝান্ডা বের হবে। অতপর সে তাদের পরাজিত করবে এবং বাদশা হবে। অতপর মানুষের নিকট তাদের মুহাব্বাত বা ভালবাসা, তাদের ফাসসা, তাদের সুখ সমৃদ্ধি, সফলতা ফিরে আসবে। আর তাদের পরে দাজ্জালের ফিতনা ব্যতীত আর কোন কিছু ঘটবে না। আমরা বললাম ফাসসা ও বাযযারা কি? উত্তরে তিনি বললেন বিষয়কে ধরা হবে। এমনকি মানুষ যা চাইবে তাই বলবে। সে কাউকে ভয় করবে না।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০০৫ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٠٥
حدثنا ابن وهب عن
ابن لهيعة عن الحارث بن يزيد سمع ابن زرير الغافقي
سمع عليا يقول يخرج في اثني
عشر ألفا إن قلوا أو خمسة عشر ألفا إن كثروا يسير الرعب بين يديه لا يلقاه عدو إلا
هزمهم بإذن الله
شعارهم أمت أمت
لا يبالون في الله لومة لائم فيخرج إليهم سبع رايات
من الشام فهزمهم ويملك فترجع إلى الناس محبتهم ونعمتهم وفاصتهم وبزارتهم فلا يكون
بعدهم إلا الدجال
قلنا وما الفاصة والبزارة
قال يفيض الأمر حتى يتكلم الرجل
بما شاء لا يخشى شيئا
হযরত আলী রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন হে আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! সিরিয়াবাসীদের জামা’আত বা দলকে কে খন্ড খন্ড করে দিবে। এমনকি খেঁকশিয়ালরাও যদি আক্রমণ করে তাহলে তাদেরকে পরাজিত করে দিবে। আর উক্ত সময় আমার পরিবারের থেকে এক ব্যক্তি তিনটি ঝান্ডার মধ্যে বের হবে। যাদের অধিক সংখ্যা হবে পনের হাজার। আর তাদের কম সংখ্যা হবে বার হাজার। তাদের নিদর্শন হবে (টিলা টিল্)া উচু উচ্।ু তাদের থেকে একটি ঝান্ডার উপরে এমন একজন ব্যক্তি থাকবে যে, রাজত্বের আশা করবে। অথবা তার জন্য ক্ষমতা শ্রেষ্ঠতর হবে। অতপর আল্লাহ তা’আলা তাদের সকলকে হত্যা করে দিবেন। অতপর আল্লাহ ত’আলা মুসলমানদের উপর তাদের আলফাত, ফাসসা, বাযযারা এর ইচ্ছা করবেন। অর্থাৎ মুসলমানদের ঘনিষ্ঠতা, সুখ সমৃদ্ধি, সফলতা ফিরে আসবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০০৬ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٠٦
حدثنا رشدين عن ابن لهيعة عن عياش بن عباس الزرقي
عن ابن زرير
عن علي رضى الله عنه
قال يا رسول الله
على أهل الشام من يفرق
جماعتهم حتى لو قاتلتهم الثعالب غلبتهم وعند ذلك يخرج رجل من أهل بيتي في ثلاث
رايات
المكثر يقول خمسة عشر ألفا والمقلل يقول اثنا عشر ألفا أمارتهم أمت أمت على
كل
راية منها رجل يطلب الملك أو يبتغي له الملك فيقتلهم الله جميعا ويرد الله على
المسلمين ألفتهم وفاصتهم وبزارتهم
হযরত মুহাম্মাদ ইবনে আলী হতে এরূপই বর্ণিত হয়েছে। তবে তিনি এরূপ বলেছেন যে, নয়টি কালো ঝান্ডা।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০০৭ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٠٧
قال ابن لهيعة وأخبرني إسرائيل بن
عبادة عن محمد بن علي مثله إلا أنه قال تسع رايات سود
হযরত মুহাদ্দিস হতে বর্র্ণিত যে, মাহদী আলাইহিস সালাম, সুফইয়ানী ও কালবী ব্যক্তি বাইতুল মুকাদ্দাসে যুদ্ধ করবে। যখন সে বাইয়াত প্রত্যাখ্যান করবে। অতপর সুফইয়ানীকে বন্দি করে আনা হবে। অতপর বাবে রিহহাতে তাকে যবাহ করা হবে। অতপর তাদের মহিলাদের ও তাদের পশুকে দামেস্কের সিড়ির নিকটে বিক্রি করা হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০০৮ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٠٨
حدثنا الوليد بن
مسلم قال حدثني محدث
أن
المهدي والسفياني وكلب يقتتلون في بيت المقدس
حين
يستقيله البيعة فيؤتى بالسيفاني أسيرا فيأمر به فيذبح على باب الرجة
ثم تباع نساؤهم
وغنائمهم على درج دمشق
হযরত হিশাম ইবনে আব্দুর রহমান হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন আমার নিকট ঐ ব্যক্তি বর্ণনা করেছে যে, হযরত আলী রাযিয়াল্লাহু আনহু কে বলতে শুনেছেন যে, যখন সুফইয়ানী মাহদী আলাইহিস সালামের দিকে সৈন্য প্রেরণ করবে তখন খোলা প্রান্তর তার সৈন্য দল নিয়ে ধসে যাবে। এবং এ খবর সিরিয়াবাসীদের নিকট পৌছবে। তখন তারা তাদের খলীফাকে বলবে, মাহদী আলাইহিস সালাম বের হয়ে গেছে। সুতরাং তার নিকট বাইয়াত গ্রহন করুন। এবং তার আনুগত্যে প্রবেশ করুন। অন্যথায় আমরা আপনাকে হত্যা করবো। ফলে সে বাইয়াত গ্রহণের জন্য প্রতিনিধি প্রেরণ করবে। আর মাহদী আলাইহিস সালাম সফর করবে এমনকি সে বাইতুল মুকাদ্দাসে অবতরণ করবে। আর গুপ্ত সম্পদগুলো তার দিকে চলে যাবে। আর আরবী, আজমী (অনারবী), যুদ্ধে লিপ্ত মানুষ, রোম আর অন্যান্যরা কোন যুদ্ধ ছাড়াই তার অনুগত্যে প্রবেশ করবে। এমনকি কুসতুনতুনিয়া ও এছাড়াও অন্যান্য জায়াগায় মসজিদ স্থাপিত হবে। আর এর পূর্বে তার পরিবার থেকে পূর্বাঞ্চল হতে এক ব্যক্তি বের হবে। যে তার কাঁধে আট মাস তরবারী বহন করবে। সে যুদ্ধ করবে, অঙ্গ বিকৃতি করবে, এবং বাইতুল মুকাদ্দাসের দিকে অগ্রসর হবে। সে সেখানে পৌছানোর পুর্বেই মারা যাবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০০৯ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٠٩
حدثنا عبد الله بن مروان عن الهيثم بن عبد الرحمن
قال حدثني من سمع عليا رضى الله عنه يقول إذا بعث السفياني إلى المهدي جيشا
فخسف بهم بالبيداء وبلغ ذلك أهل الشام قالوا لخليفتهم قد خرج المهدي فبايعه وادخل
في طاعته وإلا قتلناك فيرسل إليه بالبيعة ويسير المهدي حتى ينزل بيت المقدس وتنقل
إليه الخزائن
وتدخل العرب العجم وأهل الحرب والروم وغيرهم في طاعته من غير قتال
حتى
تبنى المساجد بالقسطنطينة وما دونها
ويخرج قبله رجل من أهل بيته بأهل المشرق
يحمل
السيف على عاتقه ثمانية أشهر يقتل ويمثل
ويتوجه إلى بيت المقدس
فلا يبلغه حتى يموت
হযরত কা’ব রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন আমি আশা রাখি যে, আমি আ’রাবের লুণ্ঠন পাবো। আর তা হলো কালবের লুণ্ঠন। সুতরাং ধোকাবাজ হল ঐ ব্যক্তি যে কালবের দিনে ধোকা দিবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০১০ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠١٠
حدثنا الحكم بن نافع البهراني عن صفوان بن عمرو عن الفرج بن يحمد
عن
كعب قال وددت أني أدرك نهب الأعراب وهي نهبة كلب فالخايب من خاب يوم كلب
হযরত যার ইবনে হাবস হতে বর্ণিত যে, তিনি হযরত আলী রাযিয়াল্লাহু আনহু কে বলতে শুনেছেন যে, আল্লাহ তা’আলা আমাদের থেকে এক ব্যক্তির মাধ্যমে যুদ্ধ বিগ্রহ বিদীর্ণ করবেন। সে তাদের উপর ধস চাপিয়ে দিবে। সে তাদেরকে একমাত্র তরবারীই দিবে। সে নাশকতার জন্য তার কাধে নয় মাস তরবারী রাখবে। এমনকি লোকজন বলাবলি করবে যে, আল্লাহ তা’আলার কসম! এ ব্যক্তি হযরত ফাতেমা রাযিয়াল্লাহু আনহার বংশধর হতেই পারে না; যদি সে তার বংশধর হত তাহলে সে আমাদের উপর দয়াবান হত। আল্লাহ তা’আলা বনী আব্বাস ও বনী উমাইয়া দ্বারা তাকে লাগিয়ে দিবেন। (তার পতন ঘটাবেন।)
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০১১ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠١١
حدثنا أبو هارون عن عمرو بن قيس الملائي عن المنهال عن زر بن حبيش
سمع عليا رضى الله عنه يقول يفرج الله
الفتن
برجل منا يسومهم خسفا لا يعطيهم إلا السيف يضع السيف
على عاتقه ثمانية أشهر هرجا
حتى يقولوا والله ما هذا من ولد فاطمة
لو كان من ولدها
لرحمنا يغريه الله ببني العباس وبني أمية
হযরত হানাস ইবনে আব্দুল্লাহ হতে বর্ণিত যে, তিনি হযরত ইবনে আব্বাস রাযিয়াল্লাহু আনহু কে বলতে শুনেছেন যে, যখন যমিন সুফইয়ানীর সৈন্যদল নিয়ে ধসে যাবে। তখন মক্কার বাদশা বলবে এটা হল ঐ আলামত বা নিদর্শন যার ব্যাপারে তোমাদেরকে খবর দেওয়া হয়েছে। অতপর তারা সিরিয়ার দিকে সফর করবে। অতপর দামেস্কের বাদশার নিকট পৌছবে। অতপর তার নিকট তারা বাইয়াত হওয়ার জন্য প্রতিনিধি প্রেরণ করবে। আর সে তাদের বাইয়াত গ্রহণ করবে। অতপর তার নিকট কালবী ব্যক্তি আসবে। অতপর তারা বলবে তুমি কি করেছ? আমাদের বাইয়াতের দিকে তুমি অগ্রসর হয়েছ। অতপর সে উহা ছিন্ন করবে। এবং তা নিজের জন্য করে নিবে। অতপর সে বলবে, আমি যা করেছি, মানুষ সকল আমার নিকট আত্মসমর্পন করুক। অতপর তারা বলবে নিশ্চই আমরা তোমার সাথে আছি। অতপর তোমার বাইয়াত (এর পরিমান) কম হয়ে গেছে। অতপর সে হাশেমীদের বাইয়াত করার জন্য তাদের নিকট প্রতিনিধি প্রেরণ করবে। আর তারা তার বাইয়াত প্রত্যাখ্যান করবে। অতপর তারা তার সাথে যুদ্ধ করবে। অতপর হাশেমীরা তাদের পরাজিত করবে। আর সেদিন যে ব্যক্তি তার বর্শা কোন জীবিত কালবীর উপর বিধবে সেটা তার হয়ে যাবে। সুতরাং ধোকাবাজ হল ঐ ব্যক্তি যে কালবীদের লুণ্ঠনের দিনে ধোকা দিবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০১২ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠١٢
حدثنا ابن وهب عن ابن لهيعة عن
خالد بن أبي عمران عن حنش بن عبد الله
سمع ابن عباس رضى الله عنه يقول إذا خسف
بجيش السفياني قال صاحب مكة هذه العلامة التي كنتم تخبرون بها فيسيرون إلى الشام
فيبلغ صاحب دمشق فيرسل إليه ببيعته ويبايعه ثم تأتيه كلب بعد ذلك فيقولون ما صنعت
انطلقت إلى بيعتنا فخلعتها وجعلتها له فيقول ما أصنع أسلمني الناس فيقولون فإنا معك
فاستقل بيعتك فيرسل إلى الهاشمي فيستقيله البيعة ثم يقاتلونه فيهزمهم الهاشمي فيكون
يومئذ من ركز رمحه على حي من كلب كانوا له فالخائب من خاب يوم نهب كلب
হযরত আলী ইবনে আবু তালেব রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন যদি কম হয় তাহলে বার হাজার (মানুষ) তাদের নিয়ে সফর করবে। তাদের নিদর্শন হবে টিলা (এর মত)। এমনকি তার সাথে সুফইয়ানীর সাক্ষাত হবে। অতপর সে বলবে তোমরা ইবনে আ’মার দিকে বের হয়ে যাও। এমনকি সে তার জয়ধ্বনী করবে। অতপর সে তার দিকে বের হবে। এবং তার জয়ধ্বনী করবে। অতপর তার নিকট ক্ষমতা তার নিকট হস্তান্তর করবে। এবং তার আনুগত্য স্বীকার করে নিবে। অতপর যখন সুফইয়ানী তার সাথীদের নিকট প্রত্যাবর্তন করবে তখন কালবী তার তিরস্কার করবে। অতপর সে ফিরে আসবে যাতে সে তাকে পদত্যাগ করতে পারে। এবং পদত্যাগ করাবে। এবং সে এবং সুফইয়ানীর সৈন্যদের মাঝে সাতটি ঝান্ডার উপর যুদ্ধ হবে। আর প্রত্যেক ঝান্ডার মালিকই তার নিজের জন্য ক্ষমতার আশা করবে। অতপর মাহদী আলাইহিস সালাম তাদের সকলকে পরাস্ত করবেন।হযরত আবু হুরাইরা রাযিয়াল্লাহু আনহু বলেন মাহরুম হল ঐ ব্যক্তি যে কালবের লুণ্ঠনের দিনে মাহরুম হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০১৩ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠١٣
حدثنا الوليد عن ليث بن سعد عن عياش بن عباس القتباني عمن حدثه
عن علي بن
أبي طالب رضى الله عنه قال يسير بهم في اثني عشر ألفا إن قلوا وخمسة عشر ألفا إن
كثروا شعارهم أمت أمت حتى يلقاه السفياني فيقول أخرجوا إلي ابن عمي حتى أكلمه فيخرج
إليه فيكلمه فيسلم له الأمر ويبايعه فإذا رجع السفياني إلى أصحابه ندمه كلب فيرجع
ليستقيله فيقيله ويقتتل هو وجيش السفياني
على
سبع رايات كل صاحب راية منهم يرجوا
الأمر لنفسه فيهزمهم المهدي
قال أبو هريرة فالمحروم من حرم نهب كلب
হযরত আবু হুরাইরা রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্র্ণিত যে, তিনি রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম থেকে বর্ণনা করেন যে, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন প্রকৃত মাহরুম বা বঞ্চিত হল ঐ ব্যক্তি যে কালবের দিনে গণীমাত থেকে বঞ্চিত হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০১৪ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠١٤
حدثنا الوليد عن ابن لهيعة عن أبي الأسود عمن حدثه عن أبي هريرة رضى الله عنه
عن النبي صلى الله عليه وسلم قال المحروم من حرم غنيمة كلب
হযরত যুহরী থেকে বর্ণিত যে, যমিন ধসের পর বদরের যুদ্ধের সাহাবীদের পরিমান তথা তিনশত চৌদ্দজন মানুষ নিয়ে মাহদী আলাইহিস সালাম মক্কা থেকে বের হবে। অতপর তার সাথে সুফইয়ানীর সৈন্যদের নেতার সাথে সাক্ষাত ঘটবে। আর সেদিন মাহদী আলাইহিস সালামের সাথীদের জান্নাত বা বাগান হবে বারাযেআ’ অর্থাৎ তাদের নিশ্চিন্ততা। আর এর পূর্বে উহার নাম হবে বারাযেআ’ এর দিন। আর বলা হবে যে, আর সেদিন সে আকাশ থেকে একটি আওয়াজ শুনবে যে, একজন সম্বোধনকারী সম্বোধন করে বলবে তোমরা ভালভাবে জেনে রাখ যে, আল্লাহ তা’আলা বন্ধু হল অমুক ব্যক্তির সাথীরা। অর্থাৎ মাহদী আলাইহিস সালামের সাথীরা। অতপর সুফইয়ানীর সাথীদের উপর পালায়ন আবশ্যক হয়ে যাবে। ফলে তারা তাদেরকে হত্যা করবে। এমনভাবে যে, তাদের বিতাড়িতরা ব্যতীত কেহই জীবিত থাকবে না। সুতরাং বিতাড়িতরা পালায়ণ করে সুফইয়ানীর নিকট যাবে এবং তাকে যুদ্ধের ব্যাপারে খবর দিবে। আর মহদী সিরিয়ার দিকে যাবেন। অতপর সুফইয়ানী মাহদী আলাইহিস সালামের সাথে তার বাইয়াতের জন্য সাক্ষাত করবে। সব দিক থেকে মানুষ তার দিকে দ্রুত আসতে থাকবে। আরা সারা দুনিয়ায় ন্যায় পরায়ণতা দ্বারা পূর্ণ হয়ে যাবে। যেমনি ভাবে সারা পৃথীবি জুলুম অত্যাচারে ভরে গিয়েছিল।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০১৫ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠١٥
حدثنا
عبد الله بن مروان عن سعيد بن يزيد
عن الزهري قال يخرج المهدي من مكة بعد الخسف
في ثلثمائة وأربعة عشر رجلا عدة أهل بدر فيلتقي هو وصاحب جيش السفياني وأصحاب
المهدي يومئذ جنتهم البراذع يعني تراسهم كان يسمى قبل ذلك يوم البراذع ويقال إنه
يسمع يومئذ صوت من السماء مناديا ينادي ألا إن أولياء الله أصحاب فلان يعني المهدي
فتكون الدبرة على أصحاب السفياني فيقتتلون لا يبقى منهم إلا الشريد فيهربون إلى
السفياني فيخبرونه ويخرج المهدي إلى الشام فيتلقى السفياني المهدي ببيعته ويتسارع
الناس إليه من كل وجه وتملأ الأرض عدلا كما ملئت جورا
হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন মাহদী সাতজন পুরুষ আলেমকে বাইয়াত করবেন। যারা পৃথীবির বিভিন্ন দিক হতে বিভিন্ন সময়ে মক্কামুখি হয়েছে। তারা প্রত্যেকেই তিনশত এবং দশোধিক ব্যক্তির জন্য বাইয়াত গ্রহণ করবে। অতপর তারা সকলেই মক্কায় জমায়েত হবে। অতপর তারা সকলেই তার হতে বাইয়াত গ্রহণ করবে। আর আল্লাহ তা’আলা মানুষের অন্তরে তার মুহাব্বাত বা ভালবাসা ঢেলে দিবেন। অতপর তিনি তাদের নিয়ে সফর করবেন। অতপর তারা ঐসমস্ত লোকের দিকে যাবে যারা সুফইয়ানীর অশ্বারোহীতে বাইয়াত হয়েছে। তাদের নেতৃত্বে একজন জারমী ব্যক্তি থাকবে। অতপর যখন সে মক্কা থেকে বের হবে তখন তার সাথীরা তার পিছু নিবে। আর তারা (তার পিছনে) ইযার ও চাদর পরে চলতে থ্কাবে। এমনকি তারা জারমী তে পৌছবে। অতপর তার বাইয়াত গ্রহণ করা হবে। অতপর কালবী এক ব্যক্তি তাকে তার বাইয়াতের তিরস্কার করবে। অতপর সে তার নিকট আসবে এবং তার বাইয়াত প্রত্যাখ্যান করতে চাইবে এবং সে তাকে বাইয়াত অপসৃত করবে। অতপর সে তার সৈন্য দলকে তার সাথে যুদ্ধ করার জন্য বলবে। অতপর তাকে পরাজিত করবে। আর আল্লাহ তা’আলা তার হতে রোমকে পরাজিত করবেন। আর আল্লাহ তা’আলা তার হাত দ্বারাই যুদ্ধ বিগ্রহ দূর করবেন। আর সে সিরিয়ায় অবতরণ করবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০১৬ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠١٦
حدثنا أبو عمر عن
ابن لهيعة عن عبد الوهاب بن حسين عن محمد بن ثابت عن أبيه عن الحارث
عن عبد
الله بن مسعود رضى الله عنه قال
يبايع المهدي سبعة رجال علماء
توجهوا إلى مكة من
أفق شتى على غير ميعاد قد بايع لكل رجل منهم ثلثمائة وبضعة عشر رجلا فيجتمعون بمكة
فيبايعونه ويقذف الله محبته في صدور الناس فيسير بهم وقد توجه إلى الذين بايعوا خيل
السفياني عليهم رجل من جرم فإذا خرج من مكة خلف أصحابه ومشى في إزار ورداء حتى يأتي
الجرمي فيبايع له فيندمه كلب على بيعته فيأتيه فيستقيله البيعة فيقيله ثم يعبأ
جيوشه لقتاله فيهزمه و
يهزم الله على يديه الروم
ويذهب الله على يديه
الفتن
وينزل الشام
হযরত কা’ব রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন যখন তুমি বাইতুল মুকাদ্দাসের খলীফাকে দেখবে। আর তাকে ব্যতীত আরেকজনকে দেখবে তথা দামেস্কের। তখন তুমি তাকে ব্যতীত অন্য কাউকে অনুসরণ করিও না। কেননা সে হবে গাধার বংশধরের থেকেও নিকৃষ্ট।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০১৭ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠١٧
حدثنا
الوليد بن مسلم عن خير بن محمد الرعيني قال أخبرني راشد مولانا عن تبيع
عن كعب
قال
إذا رأيت خليفة ببيت المقدس
و
آخر دونه يعني بدمشق
فلا تتبع الذي دونه فإنه أضل
من حمار أهله
হযরত আবু হুরাইরা রাযিয়াল্লাহু আনহু রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হতে বর্ণনা করেন যে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন অতপর বাইতুল মুকাদ্দাস ব্যতীত অন্য যে খলীফা থাকবে তাকে হত্যা করা হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০১৮ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠١٨
حدثنا الوليد عن بلال العكي عن يحيى بن أبي عمرو عن عبد
الجبار الأزدي
عن أبي هريرة رضى الله عنه عن النبي صلى الله عليه وسلم قال
فيقتل الخليفة الذي ببيت المقدس الذي دونه
হযরত আবু বকর বলেন আমার নিকট আমাদের শাইখগণ বর্ণনা করে বলেন যে. সুফইয়ানী হল ঐ ব্যক্তি যে মাহদী আলাইহিস সালামের নিকট খেলাফত হস্তান্তর করবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০১৯ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠١٩
حدثنا عبد القدوس عن أبي بكر
قال حدثني أشياخنا
قال
السفياني هو الذي يدفع الخلافة إلى المهدي
হযরত আরাতাত থেকে বর্ণিত যে, তিনি বলেন ছখরী (নামক এক ব্যক্তি) কূফায় প্রবেশ করবে। অতপর তার নিকটে মক্কায় মাহদী আলাইহিস সালামের অবির্ভাবের খবর পৌছবে। অতপর সে কূফা হতে এক সৈন্য দল তার দিকে প্রেরণ করবে। অতপর উক্ত সৈন্য দল যমিনে ধসে যাবে। শুধুমাত্র একজন মাহদী আলাইহিস সালামের সুসংবাদ দানকারী ও সতর্ককারী যে ছখরীকে সতর্ক করবে। সে ব্যতীত সকলেই ধ্বংস হয়ে যাবে। অতপর মাহদী আলাইহিস সালাম মক্কা হতে ও ছখরী কূফা হতে সিরিয়ার দিকে অগ্রসর হবে। তারা কেমন যেন একই বাজির দুটি ঘোড়া। অতপর ছখরী আগে চলে যাবে। অতপর ছখরী সিরিয়া হতে মাহদী আলাইহিস সালামের দিকে একটি সৈন্যদল প্রেরণ করবে। তাদের সাথে মাহদী আলাইহিস সালামের হেজাজে সাক্ষাত হবে। সেখানে অবস্থান করবে। এবং তাকে বলা হবে- তুমি কার্যকর কর। ফলে সে উক্ত পথ (কাজ) অপছন্দ করবে। এবং সে বলবে তুমি ইবনে আ’ম এর নিকট পত্র লিখ। কেননা সে তার বাইয়াত বা অনুগত্যতা ছিন্ন করেছে। আর আমরা নিশ্চই আপনাদের সাথী। অতপর যখন উক্ত পত্র ছখরীর নিকট পৌছবে তখন সে তার জন্য আত্মসমর্পণ করবে এবং তার বাইয়াত গ্রহণ করবে। অতপর মাহদী আলাইহিস সালাম সফর করবেন এমনকি তিনি বাইতুল মুকাদ্দাসে অবতরণ করবেন। আর মাহদী আলাইহিস সালাম সিরিয়ার কোন ব্যক্তির হাতে এক বিঘত পরিমান জায়গাও ছেড়ে দিবেন না। বরং তা তিনি আহলে যিম্মাদের ফিরিয়ে দিবেন। আর সকল মুসলমানদের জিহাদে ফিরিয়ে নেয়া হবে। অতপর তা তিন বছর অবস্থান করবে। অতপর কালবী এক লোক বের হবে। যাকে কিনানা বলা হবে। সে হবে তার কওমের গোষ্ঠিতে তারকার মত। এমনকি সে ছাখরী এর নিকটে আসবে। অতপর বলবে আমরা আপনার নিকট বাইয়াত গ্রহন করবো। এবং আপনাকে সাহায্য করবো। এমনকি যখন আপনি বাদশা হয়ে যাবেন, তখন আমাদের শত্রুদের বাইয়াত করবেন। যাতে আমরা তাদেরকে বের করতে পারি ও তাদের সাথে যুদ্ধ করতে পারি। অতপর সে বলবে কাদের মধ্যে বের হবে? অতপর সে বলবে আপনার থেকে বড় আমেরীর মাতা বাকী থাকবে না। বরং সে আপনার সাথে মিলিত হবে। মোজা ওয়ালা মহিলা আপনার থেকে ভিন্ন হবে না। ক্ষুর (ওয়ালা) নয়। অতপর সে প্রস্থান করবে এবং তার সাথে আমের তার পূর্ণাঙ্গ রূপে তার সাথে প্রস্থান করবে। এমনকি তারা বাইসান নামক স্থানে অবতরণ করবে। আর মহদী তাদের দিকে ঝান্ডা (বাহী দল) নিয়ে তাদের দিকে আসবে। আর মহদীর সময়ে সব থেকে বড় ঝান্ডাবাহী দল হবে একশত লোক বিশিষ্ট। অতপর তারা ইবরাহীমের ফাছূরে তারা অবতরণ করবে। অতপর কালব, তার অশ্ব, তার ঘোড়া, তার তার পশু কাতার দিয়ে দাড়াবে। অতপর যখন দুটি ঘোড়া অন্যের বিপদে আনন্দে উৎফুল্ল হবে তখন কালব তার পিছনের দিকে পালায়ন করবে। এবং ছখরীকে পাকড়াও করা হবে। অতপর তাকে যমিনে কিনসিয়ার নিকটে পরিস্কার প্রতিবাদকারীর উপর যবাহ করা হবে। যেটা বতনে ওয়াদীতে অবস্থিত। যেটা তূরে যাইনা অভ্যন্তরে ব্রিজের দিকে অবস্থিত। যেটা ওয়দীর ডান দিকে অবস্থিত। যেটা যমিনে পরিস্কার প্রতিবাদকারীর উপর অবস্থিত। উহার উপর যবাহ করা হবে যেমন নাকি ছাগল যবাহ করা হয়। আর প্রকৃত ধোকাবাজ হল ঐ ব্যক্তি যে, কালবের দিনে ধোকা দিবে। এমনকি কুমারী দাসীদেরকে নয় দিরহামের বিনিময়ে বিক্রি করা হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০২০ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٢٠
حدثنا الحكم بن نافع عن جراح عن أرطاة قال يدخل
الصخري
الكوفة ثم يبلغه ظهور المهدي
بمكة
فيبعث إليه من الكوفة بعثا فيخسف به
فلا ينجوا منهم إلا بشير إلى المهدي ونذير
ينذر الصخري
.
فيقبل المهدي من مكة والصخري من الكوفة نحو الشام كانهما فرسا رهان
فيسبقه الصخري فيقطع بعثا آخر من الشام إلى المهدي فيلقون المهدي بأرض الحجاز فيقيم
بها ويقال له انفذ فيكره المجاز ويقول أكتب إلى ابن عمي فإن يخلع طاعته فأنا صاحبكم
فإذا وصل الكتاب
إلى الصخري سلم له
وبايع و
سار المهدي حتى ينزل بيت المقدس
فلا يترك المهدي بيد رجل من الشام فترأ من
الأرض إلا ردها على أهل الذمة ورد المسلمين جميعا إلى الجهاد
فيمكث في ذلك ثلاث
سنين
ثم
يخرج رجل من كلب يقال له كنانة
بعينه كوكب في رهط من قومه حتى يأتي الصخري
فيقول بايعناك ونصرناك حتى إذا ملكت بايعت عدونا لنخرجن فلنقاتلن فيقول فيمن
أخرج
فيقول لا يبقى عامرية أمها أكبر منك إلا لحقتك لا يتخلف عنك ذات خف ولا
ظلف فيرحل وترحل معه عامر بأسرها حتى ينزل بيسان ويوجه إليهم المهدي راية
وأعظم
راية في زمان المهدي مائة رجل
فينزلون على فاثور إبراهيم فتصف كلب خيلها وإبلها
وغنمها فإذا تشامت الخيلان ولت كلب أدبارها وأخذ
الصخري فيذبح
على الصفا المعترضة
على وجه الأرض عند الكنيسة التي في بطن الوادي على طرف درج طور زيتا القنطرة التي
على يمين الوادي على الصفا المعترضة على وجه الأرض عليها يذبح كما تذبح الشاة
فالخايب من خاب يوم كلب حتى تباع الجارية العذراء بثمانية دراهم
হযরত আরতাত হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন তার অনুগত্যের সপথ করবে। অতপর মহদী মক্কার দিকে ফিরে আসবে। সেখানে তিন বছর থাকবে। অতপর কালব থেকে এক ব্যক্তি বের হবে। অতপর যে ব্যক্তি আরমে কারহাতে থাকবে সে বের হবে। অতপর সে বাইতুল মুকাদ্দাসে বার হাজার লোক নিয়ে মাহদী আলাইহিস সালামের দিকে সফর করবে। অতপর সে সুফইয়ানীকে গ্রেফতার করবে এবং বাবে জিরানের উপর তাকে হত্যা করবে।

[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০২১ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٢١
حدثنا
الحكم بن نافع عن جراح عن أرطاة قال يبايعه ثم
يعود المهدي إلى مكة ثلاث سنين
ثم
يخرج رجل من كلب فيخرج من كان في أرض أرم كرها فيسير إلى المهدي إلى بيت المقدس في
اثني عشر ألفا فيأخذ السفياني فيقتله على باب جيرون
سيرة المهدي وعدله وخصب
زمانه
হযরত কা’ব রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন মাহদী আলাইহিস সালাম রোমে যুদ্ধের জন্য সৈন্য পাঠাবেন। সেখানে দশজন বুদ্ধিমান জ্ঞানী দিবেন। যারা আন্তাকিয়ার এক গুহা থেকে তাবুতের সাকীনা খুজে বের করবে। যেটার ভিতর আল্লাহ তা’আলা মুসা আলাইহিস সালামের উপর যে তাওরাত নাযিল করেছিলেন। এবং ঈসা আলাইহিস সালামের উপর ইঞ্জিল নাযিল করেছিলেন তা থাকবে। তিনি তাওরাত ওয়ালাদেরকে তাওরাত দ্বারা বিচার করবেন। এবং ইঞ্জিল ওয়ালাদের ইঞ্জিল দিয়ে বিচার করবেন।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০২২ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٢٢
حدثنا أبو يوسف المقدسي عن صفوان بن عمرو عن عبد الله بن بشر
الخثعمي
عن كعب قال المهدي يبعث بقتال الروم يعطي فقه عشرة
يستخرج تابوت
السكينة من غار بأنطاكية فيه التوارة
التي أنزل الله تعالى على موسى عليه السلام
والإنجيل
الذي أنزل الله تعالى على عيسى علسه السلام يحكم بين اهل التوراة بتوراتهم
وبين أهل الإنجيل بإنجيلهم
হযরত কা’ব রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন মাহদী আলাইহিস সালামকে মাহদী বলে নাম করণের কারণ হচ্ছে কেননা সে লুকায়িত বিষয়েযর পথ প্রদর্শন (হেদায়াত) করবেন। এবং তাওরাত ও ইঞ্জিলকে এমন এক জায়গা হতে খুজে বের করবেন যার নাম হবে আন্তাকিয়া।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০২৩ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٢٣
حدثنا عبد الرزاق عن معمر عن مطر الوراق عمن
حدثه
عن كعب قال إنما سمي المهدي لأنه يهدي لأمر قد خفي ويستخرج التوراة
والإنجيل من أرض يقال لها أنطاكية
হযরত জা’ফর ইবনে সিয়ার শামী হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন যে মাহদী আলাইহিস সালামকে প্রত্যাখ্যান করবে সে অত্যাচারীর কাছে পৌছবে। এমনকি মানুষের মাড়ির দাতের নীচে যদি কিছু থেকে থাকে অপসারণ করবে যাতে তার কাছে ফিরে আসে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০২৪ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٢٤
حدثنا معتمر بن سليمان عن جعفر بن
سيار الشامي قال
يبلغ من رد المهدي المظالم حتى لو كان تحت ضرس إنسان شيء
انتزعه حتى يرده
হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে শারীক হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন মাহদী আলাইহিস সালামের সাথে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর ঝান্ডা থাকবে। আর তা হল বিজয়। হায়! যদি আমি তাকে পেতাম। আর আমি বিকলাঙ্গ।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০২৫ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٢٥
حدثنا يحيى بن اليمان عن قيس عن عبد الله بن شريك قال
مع المهدي راية رسول الله صلى الله عليه وسلم المغلبة ليتني أدركته وأنا أجدع
হযরত নওফ বাকালী হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন মাহদী আলাইহিস সালামের ঝান্ডার মধ্যে আল্লাহ তা’আলা অনুগত্যতা লেখা থাকবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০২৬ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٢٦
حدثنا يحيى بن اليمان عن سفيان الثوري عن أبي إسحاق
عن نوف
البكالي قال في راية المهدي مكتوب البيعة لله
হযরত ইবনে সিরীন হতে বর্ণিত যে, তাকে বলা হল, কে উত্তম? হযরত আবু বকর ও ওমর রাযিয়াল্লাহু আনহুমা নাকি মাহদী আলাইহিস সালাম? তিনি বলেন তিনি তাদের উভয়ের চেয়ে উত্তম। তিনি নবীর বরাবর।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০২৭ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٢٧
حدثنا يحيى عن السري بن
يحيى عن ابن سيرين
قيل له المهدي خير أو بكر وعمر رضى الله عنهما
قال هو
خير منهما ويعدل بنبي
হযরত আবু রওবাতা হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন মাহদী আলাইহিস সালাম (এর ব্যপারটা) কেমন যেন মিসকীনদের মাখনের সাথে ঝুলে থাকার মত।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০২৮ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٢٨
حدثنا يحيى عن سيف بن واصل عن أبي يونس عن أبي
رؤبة قال
المهدي كأنما يعلق المساكين الزبد
হযরত মাতরুল ওয়ারাক হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন মাহদী আলাইহিস সালাম তাওরাতকে বের করবেন গুযযা (ঘাটতি) এর জন্য। অর্থাৎ তাজা (মিশ্রণবিহীন) কিতাব আন্তাকিয়া থেকে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০২৯ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٢٩
حدثنا يحيى عن المنهال
بن خليفة عن مطر الوراق قال
المهدي يخرج التوراة غضة يعني طرية من أنطاكية
হযরত কা’ব রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, হযরত কাতাদা রাযিয়াল্লাহু আনহু বলেন উত্তম মানুষ হল মাহদী আলাইহিস সালামের সাহায্যকারী ও তার বাইয়াত গ্রহণকারী। দুই কূফার, ইয়ামানের অধিবাসীদের, ও সিরিয়ার সূফী সাধকদের থেকে। তার সামনে থাকবে হযরত জীবরাঈল আলাইহিস সালাম। তাদের পিছনে থাকবে মিকাঈল আলাইহিস সালাম। তারা হল আল্লাহ তা’আলার সৃষ্টিতে প্রিয় সৃষ্ট। আল্লাহ ত’আলা যুদ্ধ বিগ্রহ, অন্ধকারতা দূর করে দিবেন। আর পৃথীবি নিরাপদ হবে। (শান্তি ফিরে আসবে।) এমনকি একজন মহিলা পাঁচ জন মাহিলার মাঝে হজ্ব করবে, আর তাদের সাথে কোন পুরুষ থাকবে না। তারা আল্লাহ তা’আলাকে ব্যতীত আর কাউকে ভয় পাবে না। যমিন তার প্র্রবৃদ্ধিতা দিবে। আসামান তার বরকত দিবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০৩০ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٣٠
حدثنا الوليد عمن حدثه وقرأه
عن كعب قال قادة المهدي خير الناس أهل
نصرته وبيعته من أهل كوفان واليمن وأبدال الشام مقدمته جبريل وساقته ميكائيل محبوب
في الخلائق يطفيء الله تعالى
الفتن
ة العمياء وتأمن الأرض حتى إن المرأة لتحج في خمس نسوة
ما معهن رجل لا تتقي شيئا إلا الله تعطي الأرض زكاتها والسماء بركتها
হযরত তাউস হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন মাহদী আলাইহিস সালামের আলামত হল - সে আমমাল তথা কাজের উপর কঠিন হবে। মাল সম্পদের দিক দিয়ে দানশীল হবে। মিসকীনদের ক্ষেত্রে দয়াশীল হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০৩১ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٣١
حدثنا فضيل بن عياض وابن عيينة جميعا عن ليث عن طاوس قال
علامة المهدي أن يكون
شديدا على العمال جوادا بالمال رحميا بالمساكين
হযরত আবু সাঈদ রাযিয়াল্লাহু আনহু রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হতে বর্ণনা করেন যে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন শেষ যমানায় একজন খলীফা বের হবে। সে মাল সম্পদ গণনা ব্যতীত দিবে। (দান করবে।)
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০৩২ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٣٢
حدثنا أبو معاوية عن
داود عن أبي نضرة
عن أبي سعيد رضى الله عنه عن النبي صلى الله عليه وسلم قال
يخرج في آخر الزمان خليفة يعطي المال بغير عدد
হযরত মাতার হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন তার নিকট হযরত উমর ইবনে আব্দুল আযীয আলোচনা করলেন। অতপর বললেন আমাদের নিকট এ খবর পৌছেছে যে, মাহদী আলাইহিস সালাম এমন কিছু করবেন যা উমর ইবনে আব্দুল আযীযও করে নাই। আমরা বললাম সেটা কি? তিনি বললেন তার নিকট এক ব্যক্তি আসবে অতপর তাকে কাছে (কিছু) চাইবে। অতপর সে বলবে তুমি বাইতুল মালে (রাষ্ট্রিয় কোষাগারে) প্রবেশ কর। এবং গ্রহণ কর। অতপর সে সেখানে প্রবেশ করবে। এবং গ্রহণ করবে। অতপর সে সেখান থেকে বের হবে। আর মানুষ তাকে দেখবে যে, সে পরিতৃপ্ত। (মানুষ দেখার কারণে সে) লজ্জিত হবে। এবং তার দিকে ফিরে আসবে এবং তাকে বলবে আমাকে আপনি যা দিয়েছেন তা ফিরিয়ে নিন। অতপর সে অস্বীকৃতি জানাবে এবং বলবে, আমি দেই। গ্রহণ করি না।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০৩৩ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٣٣
حدثنا ضمرة عن ابن شوذب
عن مطر قال
ذكر عنده عمر بن عبد العزيز فقال بلغنا أن المهدي يصنع شيئا لم
يصنعه عمر بن عبد العزيز
قلنا ما هو
قال يأتيه رجل فيسأله
فيقول ادخل
بيت المال فخذ فيدخل فيأخذ فيخرج فيرى الناس شباعا فيندم فيرجع إليه
فيقول خذ
ما أعطيتني
فيأبى ويقول إنا نعطي ولا نأخذ
হযরত আবু যিয়াদ হতে বর্ণিত যে, তিনি হযরত কা’ব রাযিয়াল্লাহু আনহু কে বলতে শুনেছেন যে, আমি নবী গণের কিতাব সমূহে মাহদী আলাইহিস সালাম সম্পর্কে পেয়েছি যে, তার কাজে যুলুম বা অত্যাচার থাকবে না। এবং দোষও থাকবে না।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০৩৪ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٣٤
حدثنا ضمرة عن ابن شوذب
عن أبي المنهال عن أبي زياد سمعت كعبا يقول إني أجد المهدي مكتوبا في أسفار
الأنبياء ما في عمله ظلم ولا عيب
হযরত কা’ব রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন মহদী আলাইহিস সালামের নামকরণ মাহদী করে করার কারণ হচ্ছে যে, সে তাওরাত কিতাবের পথের দিকে পথ দেখাবে। সে তাওরাত কিতাবকে সিরিয়ার এক পাহাড় থেকে খুজে বের করবে। সে ইহুদিদেরকে উহার দিকে ডাকবে। অতপর উক্ত কিতাবের উপর অনেক দল আত্মসমর্পণ করবে। অতপর তিনি ত্রিশ হাজারের মত উল্লেখ করলেন।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০৩৫ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٣٥
حدثنا ضمرة عن ابن شوذب عن مطر
عن
كعب قال إنما سمي المهدي لأنه يهدى إلى أسفار من أسفار التوراة يستخرجها من جبال
الشام يدعو إليها اليهود فيسلم على تلك الكتب جماعة كثيرة ثم ذكر نحوا من ثلاثين
ألفا
হযরত মুহাম্মাদ ইবনে সিরীন হতে বর্ণিত যে, তিনি একবার যুদ্ধ সম্পর্কে আলোচনা করলেন। অতপর বললেন যখন উহা ঘটবে তখন তোমরা তোমাদের ঘরে উপবেশন করবে। (অবস্থান করবে।) যতক্ষণ পর্যন্ত না তুমি হযরত আবু বকর ও হযরত ওমর রাযিয়াল্লাহু আনহুমা হতে মানুষের উপর ভালো কিছু হবে। বলা হল হে আবু বকর! হযরত আবু বকর ও হযরত ওমর রাযিয়াল্লাহু আনহুমা হতেও উত্তম!! তিনি বললেন তাকে কতিপয় নবীর উপরও মর্যাদা দেওয়া হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০৩৬ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٣٦
حدثنا ضمرة عن ابن شوذب عن محمد بن سيرين
أنه ذكر فتنة
تكون فقال إذا كان ذلك فاجلسوا في بيوتكم حتى تسمعوا على الناس بخير من أبي بكر
وعمر رضى الله عنهما
قيل يا أبا بكر خير من أبي بكر وعمر
قال قد كان يفضل
على بعض الأنبياء
হযরত কাতাদা রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন সে (মাহদী) খুজে গচ্ছিত সম্পদ বের করবে। এবং মাল সম্পদ বন্টন করে দিবে। আর ইসলামকে তার পাশ্ববর্তীর সাথে সাক্ষাত করাবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০৩৭ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٣٧
حدثنا عبد الرزاق عن معمر
عن قتادة قال قال رسول
الله صلى الله عليه وسلم إنه يستخرج الكنوز ويقسم المال ويلقي الإسلام بجرانه
হযরত আবু সাঈদ খুদরী রাযিয়াল্লাহু আনহু রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হতে বর্ণনা করেন যে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন তার উপর আকাশের অধিবাসীরা ও যমিনের অধিবাসীরা খুশি থাকবে। তোমরা আকাশের এক ফোঁটা চাইও না। তবে যা বর্ষণ করবে। এমনি ভাবে তোমরা যমিনের কাছে কিছু চাইও না। তবে যা উৎপন্ন করবে। এমনকি জীবিতরা মৃত্যুর আকাংখা করবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০৩৮ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٣٨
قال معمر وأخبرنا أبو هارون عن معاوية عن أبي الصديق الناجي
عن أبي
سعيد الخدري رضى الله عنه عن النبي صلى الله عليه وسلم قال يرضى عنه ساكن السماء
وساكن الأرض لا تدع السماء من قطرها شيئا إلا صبته ولا الأرض من نباتها شيئا إلا
أخرجته حتى يتمنى الأحياء ألا موات
হযরত আবু সাঈদ খুদরী রাযিয়াল্লাহু আনহু রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হতে বর্ণনা করেন যে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন সে এমন ভাবে মাল সম্পদ ছড়াবে। (মাল সম্পদ বন্টন করবে।) যে, বন্টনের ক্ষেত্রে গণনা করবে না। সে সারা পৃথীবিকে ন্যায় বিচার দ্বারা পরিপূর্ণ করে দিবে যেমনিভাবে সারা পৃথীবিতে অত্যাচার ও নিপিড়ন ভরে গিয়েছিল।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০৩৯ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٣٩
حدثنا الوليد عن سعيد عن قتادة عن
أبي نضرة
عن أبي سعيد الخدري رضى الله عنه عن النبي صلى الله عليه وسلم قال
يحثي المال حثيا لا يعده عدا يملأ الأرض عدلا كما ملئت جورا وظلما
হযরত আবু সাঈদ খুদরী রাযিয়াল্লাহু আনহু রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হতে বর্ণনা করেন যে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন তার নিকট তার ক্রিতদাসী আশ্রয় গ্রহণ করবে। যেমনিভাবে উপহার মোমের সাথে। সে পৃথীবিতে ন্যায় বিচার দ্বারা ভরে দিবে। যেমনিভাবে অত্যাচার জুলুম ভরে গিয়েছিল। এমনকি তারা তাদের প্রথম বিষয়ের মত হয়ে যাবে। ঘুমন্ত ব্যক্তির ঘুম ভাঙ্গবে না। আর রক্তপাতও হবে না।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১০৪০ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٠٤٠
قال
الوليد عن أبي رافع إسماعيل بن رافع عمن حدثه
عن أبي سعيد الخدري عن النبي صلى
الله عليه وسلم قال تأوي إليه أمته كما تأوي النحلة يعسو بها يملأ الأرض عدلا كما
ملئت جورا حتى يكون الناس على مثل أمرهم الأول لا يوقظ نائما ولا يهريق دما

Execution time: 0.15 render + 0.01 s transfer.