Login | Register

নুয়াইম বিন হাম্মাদের: আল ফিতান

আসকান্দারিয়া মিশরের অধপতন ও মিশরের আবর্তন বিবর্তন সম্পর্কে

   

আসকান্দারিয়া মিশরের অধপতন ও মিশরের আবর্তন বিবর্তন সম্পর্কে

Double clicking on an arabic word shows its dictionary entry
হযরত আমর ইবনুল আস রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি একবার ইসকান্দারিয়ায় ছিলেন। অতপর তাকে বলা হলো কতগুলো নৌকা দেখা যাচ্ছে। অতপর লেকজন ভীত সন্ত্রস্ত হলো। অতপর আমর ইবনুল আস রাযিয়াল্লাহু আনহু বরলেন তোমরা খোপা বাধো (তৈরী হও)। অতপর বরলেন কোন দিক থেকে দেখা যাচ্ছে? লোকজন বলল মিনারার দিক থেকে। অতপর তিনি বললেন নিশ্চিন্ত থাকো। আমার ভয় পশ্চিম দিক থেকে আসাকে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৪২৯ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٤٢٩
حدثنا ضمام بن إسماعيل عن أبي قبيل
عن عبد الله بن عمرو بن العاص أنه كان بالأسكندرية فقيل له ترايت مراكب ففزع
الناس
فقال عبد الله بن عمرو بن العاص أسرجوا ثم قال من ناحية ترايت
قالوا
من ناحية المنارة
فقال حلوا إنما نخاف عليها من ناحية المغرب
হযরত শাফী বিন উবাইদ আল আসবাহী থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, ইস্কান্দরিয়ার দুটি যুদ্ধ রয়েছে। তন্মধ্যে এবটি বড় আরেকটি ছোট। সুতরাং বড়টি হলো মিনারার থেকে সমুদ্র এক বারিদ বা দুই বারিদ দূর হয়ে যাবে। অতপর যিলকর নাইনের গূচ্ছ সম্পদ বের হবে। তার গূচ্ছ সম্পদের নয়টি পূর্বে পশ্চিমে থাকবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৪৩০ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٤٣٠
حدثنا
رشدين بن سعد عن ابن لهيعة
عن شفي بن عبيد الأصبحي قال
للأسكندرية ملحمتان
إحداهما الكبرى والأخرى الصغرى
فأما الكبرى فيتباعد البحر من المنارة بريدا أو
بريدين ثم تخرج
كنوز ذي القرنين
تسع كنوزها المشرق والمغرب
وعلامة الصغرى
أن الأسكندرية تقطر دما
হযরত উবাই কবিাইল থেকে বর্ণিত তিনি বলেন ইস্কান্দারিয়ায় তবারেস ইবনে ইসতিনান ইবনে আখবাস ইবনে কুসতুনতীন ইবনে হেরাকেলের হাতে হত্যাযজ্ঞ হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৪৩১ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٤٣١
حدثنا رشدين عن ابن لهيعة
عن أبي قبيل قال
تكون ملحمة الأسكندرية على يدي طبارس بن أسطينان بن الأخرم بن قسطنطين بن هرقل
হযরত আব্দুল্লাহ বিন আমর ইবনে আস রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত তিনি বলেন রোম সাতশ নৌকা বানাবে। অতপর ঐগুলির মাধ্যমে আস্কান্দারিয়ার দিকে অগ্রসর হবে। আর আস্কান্দরিয়ার একজন কুরাইশ বংশের লোক থাকবে। অতপর তারা মুসলমানদের বিরুদ্ধে পায়তারা করবে। তারা তাদের নৌকা ঐ মাসালেহে সিগার এর মুখি করবে যেখানে আস্কান্দারিয়া ডুবে গেছে। অতপর কুরাইশী ব্যক্তি তার বন্ধুকে পৃথক করে দিবে। উক্ত ডুবন্ত নেকৈার দিকে সে চালাবে। আর কিছু তার ঘোড়া তার নিকট থাকবে। আব্দুল্লাহ বললেন হে আহমক তোমার ঘোড়াকে পৃথক করিও না। সে বলল অতপর তারা নামবে । অতপর মুসলমানগণ তাদের সাথে যুদ্ধ করবে। এমনকি রোম সৈন্যরা মুসলমান সৈন্যদের মাছের বাজার পর্যন্ত যেতে বাধ্য করবে। তারা এমনভাবে হত্যা করবে যে, তাদের রক্ত ঘোড়ার খুড়ের নীচে এসে পড়বে। অতপর মুসলমানদের প্রকাশ্য সাহায্য আসবে। যখন রোম সৈন্যরা উহা দেখবে তখন তারা তাদের নৌকার দিকে মুখ করে পালাবে। এবং নৌকায় চড়বে, ভেগে যাবে ও চলে যাবে। এমনকি দৃষ্টিশক্তি দূর্বল ব্যক্তি বলবে আমি তাদের দেখিনা। আর প্রখর দৃষ্টিশক্তির অধিকারী বলবে আমি তাদের শেষ অংশ দেখছি। অতপর আল্লাহ তা’আলার তাদের উপর প্রচন্ড বাতাশ পাঠাবেন আর তা তাদেরকে ইস্কানদারিয়ায় ফিরিয়ে নিয়ে আসবে। অতপর তাদের নৌকাগুলি ইস্কন্দারিয়া ও মিনারা এর মধ্যবর্তী স্থানে ভেঙ্গে যাবে। অতপর তারা তাদেরকে আটক করবে। তবে একটি নৌকা ব্যতীত। উক্ত নৌকাটি তার আরোহীসহ বেচে যাবে। এমনকি যখন উহা তাদের দেশে পৌছাবে। অতপর তাদের সাথে সংগঠিত সকল সংবাদদিকে। আল্লাহ তা’আলা উক্ত নৌকার প্রতি প্রচন্ড বাতাশ পাঠাবেন। উক্ত বাতাশ উক্ত নৌকাকে ইস্কান্দারিয়ায় নিয়ে আসবে। এবং ভেঙ্গে ফেলবে। অতপর উক্ত নৌকার আরোহীগণকে প্রেফতার করা হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৪৩২ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٤٣٢
حدثنا رشدين [ قال ] قال ابن لهيعة حدثني يزيد بن أبي حبيب
عن عبد
الله بن عمرو بن العاص قال إن الروم تعد سبع مائة سفينة ثم
يقبل فيها إلى
الأسكندرية
وعلى الأسكندرية رجل من قريش فيكيدون المسلمين سفائن يوجهونها إلى
المسالح الصغار التي غرب الأسكندرية فيفرق القرشي خليه نحو تلك السفن المغربة
تسايرها وبعض خيله عنده
قال عبد الله يا أحمق لا تفرق خيلك قال فينزلون
فيقاتلونهم المسلمون حتى تضطر الروم المسلمين إلى سوق الحيتان فيقتتلون حتى يبلغ
الدم ثنن الخيل ثم يأتي المسلمين راية مددا لهم فإذا رآها الروم توجهوا إلى مراكبهم
فركبوها ثم دفعوا فساروا حتى يقول الذي في بصره ضعف ما أراهم ويقول الحديد البصر
إنى لأرى أخرياتهم
فيبعث الله عليهم ريحا عاصفا
فتردهم إلى الأسكندرية فتنكسر
مراكبهم ما بين الأسكندرية والمنارة فيأسرونهم بأجمعهم إلا مركب واحد ينجو بأهله
حتى إذا أتوا بلادهم فأخبروهم خبر ما لقوا بعث الله على ذلك المركب ريحا عاصفا
فردته الأسكندرية فينكسر فيأخذوا من فيه
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৪৩৩ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٤٣٣
حدثنا رشدين عن ابن لهيعة
عن أبي قبيل قال
علامة ملحمة دمياط ألوية تخرج من مصر إلى الشام يقال لها ألوية
الضلالة
হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্র্ণিত তিনি বলেন যখন তুমি আরবের সরদারদের মধ্য থেকে দুইজন সরদারকে রোমের দিকে পালাতে দেখবে তখন মনে রেখ সেটাই ইস্কন্দারিয়ার ঘটনার আলামত।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৪৩৪ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٤٣٤
حدثنا الوليد بن مسلم ورشدين عن ابن لهيعة عن يزيد بن حبيب عن
أبي فراس
عن عبد الله بن عمرو قال إذا رأيت دهقانين من دهاقين العرب هربا إلى
الروم فذلك علامة وقعة الأسكندرية
হযরত ইয়াযিদ ইবনে আবী আমর সাইবানী থেকে বর্ণিত যে, তিনি বলেন আব্দুল্লাহ ইবনে তা’লা একবার তার ছেলেকে বললেন যখন তোমার নিকট আস্কন্দারিয়ার বিজয়ের খবর পৌছবে তখন যদি তোমার পর্দা পশ্চিমে থাকে তাহলে ধরিও না যতক্ষণ পর্যন্ত না পূর্ব দিকে থেকে মিলে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৪৩৫ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٤٣٥
حدثنا ضمرة عن يحيى ابن أبي عمرو
السيباني قال
قال عبد الله بن تعلى لابنته إذا بلغك أن الأسكندرية قد فتحت فإن
كان خمارك بالغرب فلا تأخذيه حتى تلحقي بالمشرق
قال وكان عبد الله بن تعلى
عالما
হযরত শাফী বর্ণনা করেন যে, মিশরের প্রথম অধপতন হলো তার শত্রুরা উহাকে বিচক্ষণতা দ্বারা জালিয়ে দিবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৪৩৬ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٤٣٦
حدثنا رشدين عن ابن لهيعة عن بشير بن أبي عمرو عن يزيد بن قوذر
حدثني شفي أن أول مواحيز مصر يخربه العدو بكيس
হযরত আবু যর আ বর্ণনা করে বলেন, তিনি শাফি কে বলতে শুনেছেন হে মিশর বাসী অচিরেই তোমাদের উপর তোমাদের এলাকা কাটা হবে। গ্রীস্মকালের প্রচন্ড ঠান্ডায়। অতএব তোমরা তোমাদের জন্য ভালো ইখতিয়ার করো। তারা বলল তার ভালো কি? তিনি বললেন প্রত্যেক এলাকা বা অঞ্চল পানি তলাবে না। অতপর শত্রুরা তোমাদের উপর জলাতঙ্কের সৃষ্টি করবে। এবং তারা তোমাদের অঞ্চলে তোমাদের কে নযরে রাখবে। এমনকি তোমাদের একজন ধোয়ার দিকে দেখবে সে সেখানে দয়াপরবশ হয়ে পৌছতে পারবে না। ক্রাণ তার পরিবারের দিকে তার শত্রুরা বিরোধীতা করবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৪৩৭ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٤٣٧
قال ابن لهيعة
وأخبرني أبو زرعة أنه
سمع شفيا يقول يا أهل مصر ستقطع عليكم مواحيزكم [ صر
]
الشتاء مع الصيف فاختاروا لأنفسكم خيرها
قالوا وما خيرها
قال كل ماحوز لا
يحيط به الماء ثم يكلب عليكم العدو
ويرابطونكم في مواجيزكم حتى أن أحدكم
لينظر إلى دخان قدره فلا يصل إليها شفقا أن يخالفه العدو إلى أهله
হযরত আব্দুল্লাহ রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন তবারেস ইবনে ইস্তীনানের হাতে ইস্কান্দারিয়ার যুদ্ধ হবে। যখন নৌকা মিনারাতে নোঙ্গর করবে। অতপর রাখবে। অতপর তিন বার উঠবে। অতপর যখন নদীর মাঝখানে পৌছবে তখন তোমাদের নিকট চারশ নৌকা আসবে অতপর আবারো চারশ নৌকা আসবে। এমনকি ঐগুলি মিনারায় নোঙ্গর করবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৪৩৮ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٤٣٨
حدثنا
رشدين عن ابن لهيعة عن بشير بن أبي عمرو
عن عبد الله قال ملحمة الأسكندرية على
يدي طبارس بن أسطينان إذا نزل مركب بالمنارة فوضع ثم رفع ثلاث مرات فإذا انتصف
النهار جاءكم بأربع مائة مركب ثم أربع مائة حتى ينزلوا عند المنارة
হযরত আবু যর  আ তিনি তাবী থেকে বর্ণনা করে বলেন যে, তিনি বলেন ইস্কান্দারিয়ায় সেদিন যুদ্ধের সময় একজন কুরাইশী আহমক থাকবে। তখন যুদ্ধটা হবে মাছের বাজারে আর রোমের বাদশা কায়সার ও সবুজ স্যামল কুবায় তাদের অধিপত্য বিস্তার করবে। আর মুসলমানগণ সুলাইমান আ. এর মসজিদের দিকে চলে যাবে। তাদেরকে আরবের নেতৃস্থানীয় একটি দল ঘিরে নিবে। তাদের মধ্যে একজন ঘোড় সোয়ার এমন একটি ঘোড়ার উপর থাকবে যা ঔজ্জল্য ও অনুগত ও তার ভিতর সাদা কালো দাগ থাকবে মিনারার সারির মধ্যে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৪৩৯ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٤٣٩
قال
ابن لهيعة وحدثني أبو زرعة
عن تبيع قال على الأسكندرية يومئذ في ملحمتها أحيمق
قريش فتكون الملحمة بسوق الحيتان ويضع ملوك الروم كراسيهم بقيسارية والقبة الخضراء
وينحاز المسلمون إلى مسجد سليمان حتى تغشاهم طليعة العرب فيهم فارس على فرس أغر
مجيب فيه بلقة على كوم المنارة
হযরত আব্দুল্লা ইবনে রাসেদ হতে বর্ণিত তিনি বলেন আমি আমার পিতা কে বলতে শুনেছি যে, অচিরেই কুরাইশ থেকে এমন একজন লোক যে পিতা ও মাতার দিকে থেকে বংশগত পরিচিত সে রাগ হয়ে রোমে চলে যাবে। অতপর রোমের লোকেরা তাকে গ্রহণ করবে এবং সম্মান করবে। অতপর তার রোমের দিকে বাহির হওয়ার দিন থেকে বিশ মাস হবে, অতপর রোমের লোকেরা তাদের নৌকায় করে ইস্কান্দারিয়ার দিকে অতপর এমন তারা প্রচন্ড বাতাশের সম্মুখিন হবে যে, তাদের থেকে একজন লোকও তাদের দেশে ফিরে যেতে পারবে না। তবে একজন সংবাদদাতা ব্যতীত। তার পিতার বলেন, যদি আমি চাই যে, যেরূপ রোমের আমিরের হয়েছে, আমি সেদিন তাকে দেখছি যে, পুরাতন খাযরা এর মধ্যবর্তী হতে মিনারার দিকে যা ইস্কান্দারিয়া সংযুক্ত।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৪৪০ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٤٤٠
حدثنا رشدين عن ابن لهيعة قال حدثني سعيد
عن عبد الله بن راشد قال
سمعت أبي يقول سيخرج من قريش رجل معروف النسب من الأب
والأم مغضبا إلى الروم فيقبلونه وينزلونه منزل كرامة ثم يكون من يوم خروجه إلى
الروم عشرين شهرا ثم يقبل بالروم إلى الأسكندرية في سفنهم فتلقاهم ريح شديدة لا
يرجع منهم إلى أرض الروم إلا مخبر
قال أبوه فلو أشاء أن أخبركم حيث يضع أمير
الروم رأيته يومئذ ينزل بين الخضراء القديم إلى المنارة مما يلي الأسكندرية
হযরত বাশার ইবনে মাআ’ফিরি থেকে বর্ণিত তিনি বলেন আমি আবু ফিরাসকে বলতে শুনেছি যে, আমি আব্দুল্লাহ ইবনে আমর কে বলতে শুনেছি যে, ইস্কান্দারিয়ার যুদ্ধের আলামত হলো, যখন তোমরা দেখবে আরবের নেতাদের মধ্যে দুইজন নেতা রোমের দিকে চলে যাবে। আর সেটাই হলো ইস্কান্দারিয়ার যুদ্ধের আলামত।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৪৪১ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٤٤١
حدثنا رشدين وابن وهب جميعا عن ابن لهيعة قال حدثني بشر بن مخمر
المعافري قال سمعت أبا فراس يقول
سمعت عبد الله بن عمرو يقول علامة ملحمة
الأسكندرية إذا رأيتم دهقانين من دهاقنة العرب خرجا إلى الروم فهو علامة ملحمة
الأسكندرية
হযরত আবু ফিরাস থেকে বর্ণিত যে, তিনি বলেন ইস্কান্দারিয়ায় আমরা একবার আব্দুল্লাহ ইবনে আমর এর সাথে ছিলাম। তখন তাকে বলা হলো মানুষ ভয় পাচ্ছে। অতপর তিনি তার অস্ত্র ও ঘোড়া সম্পর্কে আদেশ দিলেন। অতপর তার নিকট একজন লোক আসলো। এবং বলল, কোন দিক থেকে এই ভয়টা আসবে? তিনি বললেন, অনেক নৌকা যেটা দেখা যাবে কাবরাস এর দিক থেকে । অতপর বললেন আমার ঘোড়া থেকে পৃথক হও। তিনি বলেন আমরা বললাম আপনার সাথি আল্লাহ। আর মানুষ আরোহণ করেছে। অতপর তিনি বললেন, এটা ইস্কান্দারিয়ার যুদ্ধ নয়। কেননা সেটা আসবে আরবের আনতাবিলিসের দিক থেকে। অতপর আসবে একশ তারপর একশ এভাবে সাতশ পর্যস্ত।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৪৪২ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٤٤٢
حدثنا ابن وهب ورشدين جميعا عن ابن لهيعة عن عمران بن أبي
جميل عن أبي فراس قال
كنا عند عبد الله بن عمرو بالأسكندرية
فقيل له إن
الناس قد فزعوا
فأمر بسلاحه وفرسه فجاءه رجل فقال
من أين هذا الفزع
قال
سفين ترايت من ناحية قبرس
قال انزعوا عن فرسي
قال فقلنا أصلحك الله إن
الناس قد ركبوا
فقال ليس هذا بملحمة الأسكندرية إنما يأتون من نحو المغرب من
نحو أنطابلس فيأتي مائة ثم مائة حتى عد سبع مائة
হযরত যাবের আল হাযরামি থেকে বর্ণিত যে, তিনি বলেন, আমি শাফী আল আসবাহী কে বলতে শুনেছি যে, আস্কান্দারিয়ার দুটি যুদ্ধ রয়েছে। একটি হলো ছোট। আরেকটি হলো বড়। আর ছোট যুদ্ধ এর ক্ষেত্রে পাচশ নৌকা আসবে। আর বড় যুদ্ধের ক্ষেত্রে এমন একশ নৌকা আসবে। ছোট যুদ্ধের সময় সত্তর জন দক্ষ লোক যুদ্ধ করবে। আর বড় যুদ্ধের সময় চারশ জন দক্ষ লোক যুদ্ধ করবে। ছোট যুদ্ধের আলামত হলো, মিনারার থেকে সমুদ্রের দূরত্ব হবে দুই বারিদ। অতপর যুলকারনাইনের নয়টি গুপ্তধন পূর্ব ও পশ্চিমে বাহির হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৪৪৩ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٤٤٣
حدثنا ابن وهب عن ابن
لهيعة عن عمرو بن جابر الحضرمي قال
سمعت شفيا الأصبحي يقول إن للأسكندرية
ملحمتين إحداهما الصغرى والأخرى الكبرى
فاما الصغرى فيأتيها خمس مائة قلع وأما
الكبرى فيأتيها مائة قلع
يقتل في الصغرى سبعون عريفا ويقتل في الكبرى أربع مائة
عريف
علامة الصغرى أن البحر يستأخر من المنارة بريدين
ثم تخرج كنوز ذي القرنين
تسع
كنوزه أهل المشرق والمغرب
হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন আস্কান্দারিয়ার যুদ্ধের সময় রোম আনতাবিলিস এর দিকে অগ্রসর হবে। এমনকি যখন তারা লুবিয়া এলাকাধীন মানহার আলবারযুন নামক স্থানে পৌছবে তখন আস্কান্দারিয়ার অধিবাসীদের তাদের ব্যাপারে খবর পৌছবে। হায় আফসোস সেদিন কুরাইশের একজন বোকা জীবিত থাকবে। অতপর আমি বললাম হে আহমক তোমার উপর তোমার ঘোড়াকে আটকে রাখ, কারণ তারা তোমাকে ঘিরে রেখেছে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৪৪৪ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٤٤٤
حدثنا ابن وهب عن ابن لهيعة عن أبي قبيل
عن عبد الله بن عمرو قال ملحمة الأسكندرية تقبل الروم من نحو أنطابلس حتى إذا
بلغوا منحر البرذون من أرض لوبية بلغ صاحب الأسكندرية خبرهم فيبعث إليهم مجنبته فلا
يرجعون إليه حتى ينزل الروم الأسكندرية فياليتني لحميق قريش يومئذ حيا فأقول يا
احمق احبس عليك خيلك فإنهم يغشونك
হযরত কা’ব রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত তিনি বলেন, আমি আশা করি যে, আস্কান্দারিয়ার দিন না দেখা পর্যন্ত মৃত্য বরণ কররো না। তাকে বলা হলো আস্কান্দারিয়া কি বিজীত হয় নি? তিনি বললেন, না এটা আস্কন্দারিয়ার বিজয়ের দিন নয়। বরং তার বিজয় হলো যখন তার দিকে একশ নৌকা বা জাহাজ আসবে। এবং তার পরপরই আরো একশ নৌকা বা জাহাজ আসবে। এভাবে সাতশ পূর্ণ হবে। এভাবে একের পর এক আসবে। আর সেদিনই হবে তার (বিজয়) দিন। ঐ সত্বার কসম যার হাতে কা’বের জীবন সেদিন এমন যুদ্ধ হবে যে, মানুষের রক্ত ঘোড়ার পায়ের গোছার নিচে হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ১৪৪৫ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ١٤٤٥
حدثنا عبد الله بن مروان عن أرطاة
عن كعب قال وددت لا أموت حتى أشهد يوم الأسكندرية
قيل له أليس قد فتحت
قال ليس هذا يومها إنما يومها إذا جاءها مائة سفينة في أثرها مائة سفينة حتى
يتم سبع مائة وفي أثر ذلك مثل ذلك فذلك يومها والذي نفس كعب بيده لتقتتلن حتى يبلغ
الدم أرساغ الخيل
ما يقدم إلى الناس في خروج الدجال

Execution time: 0.06 render + 0.00 s transfer.