Login | Register

নুয়াইম বিন হাম্মাদের: আল ফিতান

সুফিয়ানির প্রথম কাজ, এবং হাশিমিদের খুরাসান থেকে কালো পতাকা নিয়ে বের হওয়া

   

সুফিয়ানির প্রথম কাজ, এবং হাশিমিদের খুরাসান থেকে কালো পতাকা নিয়ে বের হওয়া

Double clicking on an arabic word shows its dictionary entry
হযরত আলী ইবনে আবু তালেব রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন যখন সুফইয়ানী ঘোড়া (সৈন্য) কূফার দিকে বের হবে। সে খোরাসানবাসীদৈর অনুসন্ধানের জন্য সৈন্য প্রেরণ করবে। আর এদিকে খোরাসানবাসীরা মাহদী আলাইহিস সালামের খোজে বের হবে। অতপর সে এবং হাশেমী ব্যক্তি কালো ঝান্ডা সহকারে যে ঝান্ডাবহী দলের সম্মুখভাগে থাকবেশুয়াইব ইবনে সালেহ। অতপর তার এবং সুফইয়ানীর দলের ইসতাখাররা বাবের নিকট সাক্ষাৎ ঘটবে। অতপর তাদের মাঝে বড় একটি যুদ্ধ হবে। অতপর কালো ঝান্ডা প্রকাশ পাবে। এবং কুফইয়ানীর সাথী বা দল খেগে যাাবে। আর সে সময়ই মানুষ মাহদী আলাইহিস সালামের আকাংখা করবে। এবং তাকে ডাকবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৯১২ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٩١٢
حدثنا الوليد بن
مسلم ورشدين بن سعد عن ابن لهيعة عن أبي قبيل عن أبي رومان
عن علي بن أبي طالب
رضى الله عنه قال إذا خرجت خيل السفياني إلى الكوفة بعث في طلب أهل خراسان ويخرج
أهل خراسان في طلب المهدي فيلتقي هو والهاشمي برايات سود على مقدمته شعيب بن صالح
فيلتقي هو وأصحاب السفياني بباب اصطخر فتكون بينهم ملحمة عظيمة فتظهر الرايات السود
وتهرب خيل السفياني فعند ذلك يتمنى الناس المهدي ويطلبونه
হযরত আবু জা’ফর রাযিয়াল্লাহু আনহু ঘতে বর্ণিত যে, সুফইয়ানী কূফা ও বাগদাদে প্রবেশের পর তার সৈন্যদলকে বিভিন্ন দিকে পাঠাবে। তখন নদীর অন্যদিক হতে তার দলের একটি শাখা খোরসানবাসীদের থেকে তার নিকটে পৌছবে। অতপর পূর্বাঞ্চলের অধিবাসীরা তাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধের জন্য অগ্রসর হবে। আর তারা তাদের সৈন্য সহকারে যাবে। অতপর যখন তার নিকট উক্ত খবর পৌছবে, তখন সে ইস্তাখাররায় বিশাল এক সৈন্য প্রেরণ করবে। উক্ত সৈন্য দলে বনু উমাইয়ার এক ব্যক্তি থাকবে। আর কাওমাস, দাওলাতুর রাই এবং তাখূমুয যারীহ নামক এলাকা সমূহে তাদের ঘটনা ঘটবে অর্থাৎ যুদ্ধ হবে। আর ঐ সময় সুফইয়ানী কূফাবাসী ও মদীনা বাসীদের হত্যার আদেশ দিবে। আর তখনই খোরাসান হতে কালো ঝান্ডাবাহী দল অগ্রসর হবে। আর সমস্ত মানুষের উপর বনু হাশেমের এক যুবক থাকবে। তার ডান হাতে থাকবে বন্ধুত্ব বা কার্য সম্পাদনের শক্তি। আল্লাহ তা’আলা তার সমস্ত বিষয় ও সকল রাস্তা সহজ করে দিবেন। অতপর খোরাসানের তাখূম নামক এলাকায় তাদেও একটা যুদ্ধ হবে। অতপর হাশেমী ব্যক্তি রাঈ এর পথে যাত্রা করবে। অতপর বনু তামিমের এক ব্যক্তি মাওয়াল থেকে বের হয়ে ইস্তাখাররা এর দিকে উমাইয়াদের দিকে চলে যাবে। যাকে শুয়াইব ইবনে সালেহ বলা হবে। অতপর ইস্তাখাররা এর বাইযা নামক স্থানে তার, মাহদী আলাইহিস সালামের এবং হাশেমী ব্যক্তির মাঝে সাক্ষাত ঘটবে। আর তখন তাদেও দুয়ের মাঝে কঠিন যুদ্ধ হবে। ফলে ঘোড়ার পায়ের গোড়ালির গিট পর্যন্ত রক্তে রঙ্গিন হয়ে যাবে। অতপর তার নিকট সিজিস্তান থেকে বড় একটি দল আসবে। উক্ত দলের উপর বনু আদি এর এক ব্যক্তি থাকবে। অতপর আল্লাহ তা’আলা তার সাহায্য ও তার সৈন্য প্রকাশ করবেন। রাঈ এর দুটি যুদ্ধের পর মাদায়েনে একটি যুদ্ধ হবে। আর আকের কূফাতে সীলীমার যুদ্ধ হবে। যার ব্যাপারে প্রত্যেক মুক্তিপ্রান্ত খবর দিবে। উক্ত ঘটনার পর বাকেল নামক স্থানে বড় হত্যাযজ্ঞ অনুষ্ঠিত হবে এবং যমিনের দুই অংশের কোন এক অংশে যুদ্ধ হবে। অতপর সংকীর্ণ চোখ বিশিষ্টদের উপর তাদের কালো বর্ণদের থেকে একটি জাতি বের হবে। তারা হবে একটি দল। তাদের অধিকাংশ হবে কূফা ও বসরা হতে। এমনকি তারা তার হাতে দুই কূফার যে কয়েদী থাকবে তা রক্ষা করবে।** মৌলিক থেকে চতূর্থ অধ্যায়ের শেষাংশ যা তেলাওয়াত হবে পঞ্চমে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৯১৩ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٩١٣
حدثنا سعيد أبو
عثمان عن جابر عن أبي جعفر قال يبث السفياني جنوده في ألآفاق بعد دخوله الكوفة
وبغداد فيبلغه فرعه من وراء النهر من أهل خراسان فيقبل أهل المشرق عليهم قتلا ويذهب
بجيشهم فإذا بلغه ذلك بعث جيشا عظيما إلى اصطخر عليهم رجل من بني أمية فيكون لهم
وقعة بقومس ووقعة بدولات الري ووقعة بتخوم زريح فعند ذلك يأمر السفياني بقتل أهل
الكوفة وأهل المدينة عند ذلك تقبل الرايات السود من خراسان على جميع الناس شاب من
بني هاشم بكفه اليمنى خال يسهل الله أمره وطريقه ثم تكون له وقعة بتخوم خراسان
ويسير الهاشمي في طريق الري فيسرح رجل من بني تميم من الموال يقال له شعيب بن صالح
إلى اصطخر إلى الأموي فيلتقي هو والمهدي والهاشمي ببيضاء اصطخر فتكون بينهما ملحمة
عظيمة حتى تطأ الخيل الدماء إلى أرساغها ثم تأتيه جنود من سجستان عظيمة عليهم رجل
من بني عدي فيظهر الله أنصاره وجنوده ثم تكون وقعة بالمدائن بعد وقعتي الري وفي
عاقر قوفا وقعة صيليمة يخبر عنها كل ناج ثم يكون بعدها ذبح عظيم بباكل ووقعة في أرض
من أرض نصيبين ثم يخرج على الأخوص قوم من سوادهم وهم العصب عامتهم من الكوفة
والبصرة حتى يستنفذوا ما في يديه من سبي كوفان
হযরত আলী রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন সুফইয়ানী ও কালো ঝান্ডাবাহী দলের সাথে সাক্ষাত ঘটবে। যে দলের মাঝে বনু হাশেমের এক যুবক থাকবে। তার বাম তালুতে থাকবে বন্ধুত্ব বা কার্য সম্পাদনের শক্তি। আর উক্ত দলের সম্মুখভাগে বনু তামিমের এক ব্যক্তি থাকবে। যাকে শুয়াইব ইবনে সালেহ বলা হবে। তাদের সাক্ষাত ঘটবে বাবে ইস্তাখাররাতে। তাদের মাঝে বড় একটি যুদ্ধ হবে। সে যুদ্ধে কালো ঝান্ডাবাহী দল জয়ী হবে। এবং সুফইয়ানীর সৈন্য পলায়ন করবে। আর সে সময়ই মানুষ মাহদী আলাইহিস সালামের আকাংখা করবে এবং তাকে খুজতে থাকবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৯১৪ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٩١٤
أبي قبيل عن أبي رومان
عن علي رضى الله عنه قال يلتقي السفياني والرايات السود
فيهم شاب من بني هاشم في كفه اليسرى خال وعلى مقدمته رجل من نبي تميم يقال له شعيب
بن صالح بباب اصطخر فتكون بينهم ملحمة عظيمة فتظهر الرايات السود وتهرب خيل
السفياني فعند ذلك يتمنى الناس المهدي ويطلبونه
হযরত যামরা ইবনে হাবীব ও তার শাইখদের থেকে বর্ণিত যে, তারা বলেন সুফইয়ানী তার অশ্বারোহী বাহিনী ও সৈন্যদল প্রেরণ করবে। তারা খোরাসানের আম্মাতুশ শিরকে ও পারস্য ভুমিতে পৌছবে। অতপর পূর্বাঞ্চলের অধিবাসীরা তাদেও সাথে বিদ্রোহ করবে। ফলে তারা তাদের সাথে যুদ্ধ করবে। আর তাদের সাথে বিভিন্ন জায়গায় অনেক যুদ্ধ হবে। যখন তাদের মাঝে যুদ্ধ বিগ্রহ দীর্ঘস্থায়ী হবে তখন বনু হাশেমের এক ব্যক্তির নিকট বাইয়াত গ্রহন করবে। আর সে সেদিন পূর্বাঞ্চলের একেবারে শেষে থাকবে। অতপর সে খোরাসানবাসীদের নিয়ে বের হবে। উক্ত দলের সম্মুখে থাকবে বনু তামিমের আযাদকৃত গোলাম। সে হবে হলুদ বর্ণের, পাতলা দাড়ি ওয়ালা। পাচ হাজারের মধ্যে তার দিকে বের হবে। যখন তার নিকট তার বের হওয়র খরব পৌছবে তখন সে তার নিকট বাইয়াত গ্রহণ করবে এবং তাকে সম্মুখে দিবে। সেদিন যদি তাদের সামনে রাওয়াসীর পাহাড়ও আসে তাহলে তার মিটিয়ে দিবে। অতপর তার সাথে সুফইয়ানীর সৈন্যদের সাথে দেখা হবে। অতপর সে তাদের পরজিত করবে। আর তাদের থেকে বিশাল এক অংশকে সেদিন হত্যা করবে। এমনিভাবে তাদেরকে এক এলাকা হতে আরেক এলাকায় পরাজিত করতে থাকবে। এমনকি তাদের ইরাকের দিকে পরাজিত করে দিবে। অতপর তাদের মাঝে ও সুফইয়ানীর অশ্বারোহীদের মাঝে যুদ্ধ হবে। আর সে যুদ্ধে সুফইয়ানীর বিজয় হবে। আর হাশেমী পালায়ন করবে। আর শুয়াইব ইবনে সালেহ গোপনে বাইতুল মুকাদ্দাসের দিকে বের হয়ে যাবে। সে মাহদী আলাইহিস সালামের আবাস স্থল গোছাতে থাকবে, যখন তার নিকট সিরিয়ায় মাহদী আলাইহিস সালামের অভির্বাবের খবর আসবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৯১৫ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٩١٥
التيهرتي عن معاوية بن صالح عن شريح بن عبيد وراشد بن سعد وضمرة بن حبيب ومشايخهم
قالوا يبعث السفياني خيله وجنوده فيبلغ عامة الشرق من أرض خراسان وأرض فارس
فيثور بهم أهل المشرق فيقاتلونهم ويكون بينهم وقعات في غير موضع فإذا طال عليهم
قتالهم إياه بايعوا رجلا من بني هاشم وهو يومئذ في آخر الشرق فيخرج بأهل خراسان على
مقدمته رجل من بني تميم مولى لهم أصفر قليل اللحية يخرج إليه في خمسة آلاف إذا بلغه
خروجه فيبايعه فيصيره على مقدمته لو استقبله الجبال الرواسي لهدها فيلتقي هو وخيل
السفياني فيهزمهم ويقتل منهم مقتلة عظيمة [ ولا يزال يهزمهم من بلدة إلى بلدة حتى
يهزمهم إلى العراق ثم يكون بينهم وبين خيل السفياني ] ثم تكون الغلبة للسفياني
ويهرب الهاشمي ويخرج شعيب بن صالح مختفيا إلى بيت المقدس يوطيء للمهدي منزله إذا
بلغه خروجه إلى الشام
হযরত ওলীদ হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন আমার নিকট এখবর পৌছেছে যে, এই হাশেমী ব্যক্তি মাহদী আলাইহিস সালামের পিতার দিকের সৎ ভাই। আর কতিপয় বলেন উক্ত ব্যক্তি মাহদী আলাইহিস সালামের চাচাতো ভাই।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৯১৬ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٩١٦
لأبيه وقال بعضهم هو ابن عمه
হযরত ওলীদ সহ কতিপয় বর্ণনাকারী বলেন সে মৃত্যুবরণ করবে না। তাবে পরাজয়ের পওে সে মক্কায় উদ্দেশ্যে বের হবে। অতপর যখন মাহদী আলাইহিস সালামের অবির্ভাব হবে তখন তার সাথে বের হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৯১৭ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٩١٧
بعد الهزيمة يخرج إلى مكة فإذا ظهر المهدي خرج معه
হযরত তাবে’ থেকে বর্ণিত যে, তিনি বলেন সুফইয়ানী তার সৈন্য দল মুরুয়ুর রুযে পাঠাবে। যাতে সে উক্ত স্থানের অন্যদিকে যা আছে তা অর্জন করতে পারে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৯১৮ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٩١٨
مروان عن أرطاة عن تبيع
قال يبعث السفياني جنوده إلى مرو الروذ ليحوز ما وراءها
হযরত যুহরী থেকে বর্ণিত যে, তিনি বলেন কূফা থেকে মুরু এর দিকে একটি দল পাঠানো হবে। এমনভিাবে হিজাজের দিকেও একটি দল পাঠানো হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৯১৯ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٩١٩
الكوفة بعثا إلى مرو وبعثا إلى الحجاز
হযরত আলী ইবনে আবু তালেব রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন মাহদী আলাইহিস সালামের দিকে তার পরিবার হতে পূর্বাঞ্চলে এক ব্যক্তি বের হবে। তার কাধে আঠারো মাস তরবারী থাকবে। সে যুদ্ধ করবে এবং অনুসরণ করবে অর্থাৎ যুদ্ধ করতে থাকবে। এবং বাইতুল মুকাদ্দাসের দিকে অগ্রসর হতে থাকবে। সেখানে পৌছানোর পূর্বেই সে মারা যাবে। সে বাইতুল মুকাদ্দাসে পৌছতে পারবে না।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৯২০ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٩٢٠
بن عبد الرحمن عمن حدثه
عن علي بن أبي طالب رضى الله عنه قال يخرج رجل قبل
المهدي من أهل بيته بالمشرق يحمل السيف على عاتقه ثمانية أشهر يقتل ويمثل ويتوجه
إلى بيت المقدس فلا يبلغه حتى يموت
হযরত আবু জা’ফর রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত যে, তিনি বলেন খোরাসান হতে আগত যে কালো ঝান্ডাবাহী দল কূফায় অবস্থান নিবে। অতপর যখন মক্কায় মাহদী আলাইহিস সালামের অবির্ভাব ঘটবে তখন অনুগত্যের (স্বীকার করার জন্য) জন্য মাহদী আলাইহিস সালােেমর নিকট একটি দল প্রেরণ করবে।** মদীনার দিকে তার সৈন্য প্রেরণ। আর মদীনায় তারা যুদ্ধ হতে কি কি ঘটবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৯২১ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٩٢١
أبي جعفر
قال تنزل الرايات السود التي تقبل من خراسان الكوفة فإذا ظهر المهدي
بمكة بعث بالبيعة إلى المهدي
بعثه الجيوش إلى المدينة وما يصنع فيها من القتل

Execution time: 0.11 render + 0.00 s transfer.