Login | Register

নুয়াইম বিন হাম্মাদের: আল ফিতান

নিম্ন শ্রেনীর লোকজনের জয়লাভ করা প্রসঙ্গে

   

নিম্ন শ্রেনীর লোকজনের জয়লাভ করা প্রসঙ্গে

Double clicking on an arabic word shows its dictionary entry
বকর ইবনে সাওয়াদা রাযিঃ থেকে বর্নিত, তিনি বলেন, একদা খাসআম গোত্রের কিছু লোক রাসূলুল্লাহ সাঃ এর কাছে আসলে তিনি তাদেরকে বললেন, তোমরা কি কিছু স্বপ্নে দেখেছ? উত্তরে তাঁরা না করলে রাসূলুল্লাহ সাঃ বললেন, দেখলে অবশ্যই আমাকে জানাবে। এক পর্যায়ে তারা বলল, স্বপ্নে আমরা এমন একটি গাধা দেখতে পেয়েছি যার চার পা উপরের দিকে হয়ে আছে। রাসূলুল্লাহ সাঃ তাদেরকে এর ব্যাখ্যা সম্বন্ধে জিঙ্গাসা করলে তারা বলল, আমরা চিন্তা করেছি এর ব্যাখ্যা এভাবে হতে পারে যে, নিম্ন ও নিকৃষ্টতম শ্রেনীর লোকজন জয়লাভ করবে এবং সম্মানিত লোকজন পরাজিত হবে। তাদের ব্যাখ্যার কথা শুনে রাসূলুল্লাহ সাঃ বললেন, হ্যাঁ উক্ত স্বপ্নের ব্যাখ্যা তোমাদের ব্যাখ্যার ন্যায়।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৬৭৮ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٦٧٨
حدثنا رشدين عن ابن لهيعة
عن بكر بن سوادة قال قدم بنو خثعم على رسول الله صلى الله عليه وسلم فقال لهم
رسول الله صلى الله عليه وسلم ما رأيتم
قالوا لا شيء
قال لتخبرني
قالوا
رأينا حمارا قد علته قوائمه
قال فما أولتم قالوا قلنا تعلو سفلة الناس وسقاطهم
ويتضع أشرافهم
فقال رسول الله صلى الله عليه وسلم فإنه كما أولتم
আব্দুল্লাহ ইবনে আমর ইবনুল আস রাযিঃ থেকে বর্নিত, তিনি এরশাদ করেন, শাম দেশে ফিৎনা এত বেশি, তীব্র আকার ধারন করবে যদ্বারা সমাজের সম্মানী লোকজন প্রথমে বিজয়ী হবে। অবশ্যই সেটা খুবই অল্প সময়ের জন্য থাকবে। অতঃপর নিম্ন শ্রেনীর লোকজন জয়লাভ করতে থাকবে। যাদের ঞ্জান বুদ্ধি হবে খুবই কম। তারা সম্মানী লোকদেরকে কৃতদাস বানিয়ে রাখবে যেমন পূর্ববর্তী যুগের লোকজন গোলাম বানিয়ে রাখতো।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৬৭৯ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٦٧٩
حدثنا ضمام عن أبي قبيل
عن عبد الله بن عمرو قال تكون بالشام فتنة ترتفع فيها
ريساهم وأشرافهم ثم لا يأتي عليها إلا قليل حتى ترتفع فيها سفهاؤهم وسفلتهم حتى
يستعبدوا ريساهم وأشرافهم كما كانوا يستعبدونهم من قبل ذلك
কা’ব রহঃ থেকে বর্নিত, তিনি বলেন, যদি প্রতিটি মুক্তা পানির ফোঁটা হয়ে ভেসে যেত কতই না ভালো হতো। অতঃপর তিনি বলেন, লোকজন বকরির বিরাট পাল লালন পালন করতে থাকবে এবং ঐ ছাগল পাল গর্ভবতীও হবে। যার ফলে তারা অনেক সম্পদশালী হয়ে উঠলে ধীরে ধীরে সমাজ, জামাআত এবং মসজিদ বিমুখ হতে থাকবে। প্রথমেই তারা এগুলো বর্জন করবে। এদিকে আল্লাহ তাআলা য্খনই কোনো নবী রাসূল ও খলীফা প্রেরন করেন, প্রথমেই তাদেরকে গ্রামবাসীদের নিকট প্রেরন করতেন। অবশ্যই তারা সম্পদশালী কিংবা শহরবাসীদের প্রতি তেমন মনোযোগী ছিলেন না। যখন আল্লাহ তা’আলা তাদেরকে সমাজ, জামা’আত এবং মসজিদ বিমূখ দেখলেন তখন তাদের কাছে এমন এক গোত্রকে প্রেরন করলেন যারা প্রথমে তাদেরকে অধীন করে নেয় এবং তাদের সাথে আরবী ভাষায় কথোপকথোন করে, আর তাদেরকে সম্মানী বানাতে চেষ্টা করে। এক পর্যায়ে তারা আবারো মসজিদ ও জামা’আতমূখী হয়ে যায়। যার কারনে অনারবের বেশি লোককে কয়েদী ও বন্দি করা সম্ভব হয়নি। যদি তারা তাদের অধীনস্থদের বন্দি করা শুরু করতেন, তাহলে প্রতি দশজনের নয়জনকে হত্যা করতে পারতেন। কিন্তু না তাদেরকে নিয়ে যাওয়া হলো। উচ্চতা, সম্মান ও সম্ভ্রান্তের প্রতি। আল্লাহর কসম! তারপরও তারা পরিপূর্ন ভাবে সাচ্ছন্দতা পেয়ে মৃত্যুবরন করবেনা।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৬৮০ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٦٨٠
حدثنا بقية بن
الوليد وأبو المغيرة عن صفوان عن شريح ابن عبيد
عن كعب قال وددت أن كل در على
وجه الأرض سار قطرانا ثم
قال إن الناس لا ينتهون حتى يتخذ الغنم ويحبلونها
ويتباروا فيها حتى إذا كثرت خرجوا من المدن والجماعات والمساجد فبدوا بها فلم يبعث
الله نبيا ولا جعل خلافة ولا ملكا إلا في أهل القرى والحضارة وكانوا لا يطمعون أن
يجعلها في أهل عمود ولا بدو فإذا راى الله رغبتهم عن الجماعات والمساجد ابتعث الله
عليهم مما ملكت أيمانهم أقواما يناطقونهم بالعربية ويضربونهم بالمشرفية حتى يعودوا
إلى الجماعة والمساجد فلا تستكثروا من سبي العجم ولو سلطت على ما في أيديكم من
سبيهم لقتلت من كل عشرة تسعة وانظروا إلى العشر الباقي فأنفيهم إلى وادي الشجر
ووادي العرج أو وادي العرعر فوالله لن يفوا لكم ليموت عليكم العيش
আবুজ্ জাহিরিয়্যাহ রহঃ থেকে বর্নিত, তিনি বলেন, তোমাদের অবস্থা কেমন হবে,যখন তোমাদের গ্রামবাসীদের লোকজন তোমাদের ভিতরে প্রবেশ করে তোমদের ধন সম্পদের মধ্যে শরীক হয়ে যাবে এবং তোমাদের কেউ তাদেরকে বাধা দিতে পারবেন। যার কারনে কেউ বলে থাকে “যত বেশি সময় তোমরা সম্পদশালী ছিলে, আমরা তত বেশি সময় পর্যন্ত দুর্ভাগ্যতে ছিলাম।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৬৮১ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٦٨١
حدثنا
أبو المغيرة عن ابن عياش عن عبد الرحمن بن نجيح القرشي
عن أبي الزاهرية قال كيف
بكم إذا دخل أهل باديتكم فشاركوكم في أموالكم لا تمتنعون منهم حتى يقول القائل طال
ما كنتم في النعمة ونحن في الشقوة
ইয়া ইবনে জাবের রহঃ বলেন, তোমাদের গ্রামবাসীরা তোমাদের থেকে অমুখাপেক্ষি হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত তোমাদের মাঝে কল্যান বাকি থাকবে। তাছাড়া কল্যান তোমাদের সাথে থাকবে, যতক্ষন পর্যন্ত বহন করার মত পিঠ তোমাদের সাথে থাকবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৬৮২ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٦٨٢
قال عبد الرحمن بن نجيح وأخبرني يحيى
بن جابر قال لن تزالوا بخير ما استغنى عنكم أهل بدوكم ولن تزالوا بخير ما وجدتم
ظهرا تحملون عليه
জাহরিয়্যাহ রহঃ থেকে বর্নিত, তিনি বলেন, তোমাদের জিম্মিদের মাঝে এমন কোনো গোত্র জন্ম লাভ করবেনা যারা বালা মুসিবতের দিক দিয়ে মাশরিক বাসীদের থেকে কঠোর হবে। যারা লবন এবং পানি বিশিষ্ট হবে। নিঃসন্দেহে তাদের মহিলাদের থেকে কোনো মহিলা তার আঙ্গুল দ্বারা অন্য মুসলিম মহিলার পেটে আঘাত করে গালিসূলভ বলবে হ্যাঁ আমাদেরকে টেক্স বা কর দাও।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৬৮৩ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٦٨٣
قال ابن عياش وأخبرني الأزهري راشد عن أبي الزاهرية قال
ليس من أهل ذمتكم قوم أشد عليكم في تلك البلايا من أهل الشرقية أصحاب الملح والغسول
إن المرأة من نسائهم لتطعن بإصبعها في بطن المرأة من نساء المسلمين وتقول جزيانا
شماتة بها تقول أعطوا الجزية
সাঈদ ইবনুল মুসাইয়াব রহঃ থেকে বর্নিত, তিনি বলেন, যদি আমি তোমার গোত্রের সাথে বের হই, অতঃপর বলেন, মাআযাল্লাহ! আমি একশত পঁচিশ নামাযকে যদি পাঁচ নামাযের উপর ছেড়ে দিই, অতঃপর সাঈদ বললেন, আমি কা’বে আহবারকে বলতে শুনেছি, যদি এ দুধগুলো পানির ফোটাতে পরিনত হয় কতই না ভালো হতো। তাকে বলা হলো, সেটা কীভাবে? তিনি বললেন, নিঃসন্দেহে কুরাইশগন পর্বতের উঁচু স্থানে আরোহন করে উটের পিছনে ছুটতে থাকে এবং শয়তান একজনের সাথে এবং শয়তান দুইজন থেকে অনেক অনেক দুরে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৬৮৪ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٦٨٤
قال ابن عياش وأخبرني داود بن عبد
الرحمن عن قيس بن عاصم الثقفي
عن ابن المسيب قال قلت لو خرجت مع قومك فقال معاذ
الله أن أترك خمسا وعشرين ومائة صلاة إلى خمس صلوات ثم قال سعيد
سمعت كعب
الأحبار يقول ليت هذا اللبن عاد قطرانا قيل ولم ذاك قال إن قريشا اتبعت أذناب الإبل
في الشعاب وإن الشيطان مع الواحد وهو من الأثنين أبعد
আব্দল্লাহ ইবনে ওমর রাযিঃ থেকে বর্নিত,তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাঃ এরশাদ করেছেন, কল্যান তোমাদের সাথে থাকবে, যতক্ষন পর্যন্ত তোমাদেরর গ্রাম বাসিরা শহরবাসীদের থেকে অমুখাপেক্ষি থাকবে। যদিতারা তোমাদের কাছে আসে তাহলে তোমরা তাদেরকে নিষেধ করোনা। যেহেতু তোমাদের কাছে সম্পদের ছড়াছড়ি থাকবে। তারা বলবে, দীর্ঘদিন থেকে আমরা ক্ষুধার্ত, অথচ তোমরা তৃপ্ত সহকারে খেয়ে যাচ্ছ এবং দীর্ঘদিন হতে আমরা কষ্ট শিকার করে যাচ্ছি অথচ তোমরা সাচ্ছন্দবোধ করে যাচ্ছ। অতঃপর আজকে আমরা তোমাদের সহানুভূতি দেখাচ্ছি।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৬৮৫ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٦٨٥
حدثنا الحكم بن
نافع عن كثير بن مرة
عن ابن عمر رضى الله عنهما قال قال رسول الله صلى الله
عليه وسلم لن تنفكوا بخير ما استغنى أهل بدوكم عن أهل حضركم فإذا أتوكم لم تمتنعوا
منهم لكثرة من يسيل عليكم يقولون طال ما جعنا وشبعتم وطال ما شقينا ونعمتم فواسونا
اليوم
হাসান বসরী রহঃ থেকে বর্নিত তিনি বলেন রাসূলুল্লাহ সাঃ এরশাদ করেছেন, তোমরা সৎকাজের আদেশ করবে এবং অসৎকাজের নিষেধ করবে অন্যথায় আল্লাহ তাআলা তোমাদের বিরুদ্ধে অনারব থেকে এমন এক দুশমন পাঠাবেন, যারা তোমাদের ঘাড়ের উপর আক্রমন করবে এবং তোমাদের যাবতীয় সম্পদ ভক্ষন করে নিয়ে যাবে।
অন্যথায় তোমরা দৃঢ় পদক্ষেপকারী সিংহের আকার ধারন করবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৬৮৬ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٦٨٦
حدثنا ابن وهب عن يحيى بن عبد الله بن سالم عن عبد الله بن عمر
عن الحسن قال قال رسول الله صلى الله عليه وسلم لتأمرن بالمعروف وتنهن عن
المنكر أو ليبعثن الله عليكم العجم فلبضربن رقابكم وليأكلن فيئكم وليكونن أسد لا
يفرون
আমের রহঃ থেকে বর্নিত, তিনি বলেন, আমি মুহাম্মদ ইবনে আশআছ কে বলতে শুনেছি, কিয়ামতের পূর্বে এমন কিছু বিষয় প্রকাশ পাবে, যদ্বারা বোকা ও নির্বোধ লোক ও ঞ্জানীকে পথপ্রদর্শন করতে চেষ্টা করবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৬৮৭ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٦٨٧
حدثنا ابن عيينة عن مجالد
عن عامر قال سمعت محمد بن الأشعث
يقول ما من شيء إلا يدال منه حتى إن النوك ليكون له دولة على الكيس
ইবনুল আসআছ থেকে বর্নিত, তিনি বলেন, এমন কিছু বিষয় প্রকাশ পাবে যদ্বারা বুঝা যাবে যে, নির্বোধ ও বোকা টাইপের লোকও বিচক্ষন লোকের জন্য পথপ্রদর্শনকারী হবে।
এবং বেকুব লোক ও ঞ্জানী লোককে পথ দেখাবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৬৮৮ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٦٨٨
حدثنا ابو أسامة عن مجالد عن عامر
عن محمد بن الأشعث يقول ما من شى الأ يدال
منة حتى ان النوك ليكونن لهم دولة وحتى أن للحمق على الحكم دولة
সাহাবী হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর বলেন, নিঃসন্দেহে প্রত্যেক মাখলুকই দৌলতপ্রাপ্ত হবে। সম্পদশালীরা অভাবীর উপর বেশি প্রাধান্য পাবে। অতঃপর শেষ যামানায় মানুষের মধ্যে যারা বেকুব ও অভাবী তারা পথপ্রদর্শনকারী সাব্যস্ত হবে। এক পর্যায়ে জিঞ্জাসা করতে হবে, সম্মানিত কারা?
সময় ও পরিবর্তন এভাবে চলতে থাকবে, হঠাৎ করে দাজ্জালের আবির্ভাব ঘটবে । হঠাৎ করে দাজ্জালের আবির্ভব ঘটবে। অতঃপর কিয়ামত অতি নিকটে ও দ্বার প্রান্তে এসে উপনীত হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৬৮৯ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٦٨٩
حدثنا
محمد بن عبداللة التيهرتي عن عبد السلام بن مسلمة عن ابي قبيل
عن عبد الله بن
عمرو بن العاص رضي الله عنهما قال لكل شيء دولة تصيبنة فللأشراف على الصعاليك دولة
ثم للصعاليك وسفلة الناس دولة في اخر الزمان حتى يدال لهم من أشراف الناس فإذا كان
ذلك فرويدك الدجال ثم الساعة والساعه أدهى وأمر
সাহাবী হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রাযিঃ থেকে বর্নিত, তিনি কুরআনের বানী ----------------
এর ব্যাখ্যা করতে গিয়ে বলেন, তার আশপাশ থেকে কল্যান চলে যাবে। অর্থাৎ, শাম দেশ কিংবা পৃথিবীর কোথাও কোনো ধরনের কল্যান থাকবেনা।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৬৯০ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٦٩٠
حدثنا ابن نمير عن طلحة
عن عطاء
عن ابن عباس رضى الله عنه في قولة تعالى ننقصها من أطرافها قال ذهاب
خيارها
আমর ইবনে কাইস রহঃ থেকে বর্নিত, তিনি হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর ইবনুল আস রাযিঃ কে বলতে শুনেছেন, নিঃসন্দেহে কিয়ামতের আলামত হচ্ছে, দেশের প্রতাপশালীরাই একমাত্র পৃথিবীতে থাকবে, অন্য ভালো ও নেককারদেরকে উঠিয়ে নেয়া হবে। এবং মুনাফেকদেরকেই প্রত্যেক গোত্রের সরদার বানানো হবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৬৯১ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٦٩١
حدثنا محمد بن حمير عن عمرو بن قيس
سمع عبدالله بن عمرو يقول
إن من أشرط الساعة أن توضع الأجبار وترفع الأشرار ويسود كل قوم منافقوهم
হোজাইফা ইবনুল ইয়ামান রাযিঃ থেকে বর্নিত, তিনি বলেন, কিয়ামত সংঘঠিত হবেনা, যতক্ষন পর্যন্ত সমাজের যাবতীয় দায়িত্ব এমন লোকের হাতে ন্যস্ত করা হবেনা, কিয়ামতে দিন একটি যব পরিমানও যার মূল্য থাকবেনা।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৬৯২ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٦٩٢
حدثنا توبة بن علوان عن سماك بن حرب عن عبدالله بن عميرة
عن حذيفة بن اليمان
رضى الله عنه قال لا تقوم الساعة حتى يقوم على الناس من لا يزن شعيرة يوم القيامة
আব্দুল্লাহ ইবনে আমর ইবনুল আস রাযি থেকে বর্নিত, তিনি রাসূলুল্লাহ সাঃ থেকে বর্ননা করেন, রাসূলুল্লাহ সাঃ এরশাদ করেন, তোমাদের কি অবস্থা হবে, যখন তোমাদের মাঝে এমন যুগ আসবে, যা মানুষকে চালনির ন্যায় চালতে থাকে, যদ্বারা মানুষ নানান ধরনের মুসিবতের সম্মুখিন হয়ে ধ্বংস হতে থাকবে এবং নিকৃষ্টতম মানুষই একমাত্র ভালো থাকবে। এমন অবস্থা দেখা দিতে থাকলে তোমরা সৎকাজকে আকড়িয়ে ধর এবং অসৎকাজ থেকে দুরে থাক। বিশেষ মানুষের প্রতি ধাবিত হও এবং সর্ব সাধরন থেকে দুরে সরে থাকো।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৬৯৩ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٦٩٣
حدثنا ابن أبي حازم عن أبيه عن عمارة بن عمرو بن حزم
عن عبد الله
بن عمرو رضى الله عنه عن النبي صلى الله عليه وسلم قال كيف بكم وزمان يغربل الناس
غربلة فلا تبقى له حثالة من الناس فإذا كان ذلك فخذوا ما تعرفون وذروا ما تنكرون
وأقبلوا على أمر خاصتكم وذروا أمر العوام
সাফওয়ান ইবনে আমর রহঃ আব্দুল্লাহ ইবনে কাইস থেকে শুনে বর্ননা করেন, তিনি এরশাদ করেন, তোমাদের অবস্থা কেমন হবে, যখন এমন একযুগ আসবে, বিশজন কিংবা তার থেকে অধিক লোক দেখা গেলেও তাদের মধ্যে আল্লাহকে ভয় করে এমন কাউকে পাওয়া যাবেনা।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৬৯৪ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٦٩٤
حدثنا بقية عن صفوان بن عمرو
عمن سمع
عبد الله بن قيس قال كنا نسمع أنه كان يقال كيف أنتم وزمان إذا رأيت
العشرين رجلا أو أكثر لا يرى فيهم رجلا يهاب في الله
উকবা ইবনে আমের রাযিঃ থেকে বর্নিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাঃ এরশাদ করেন, নিঃসন্দেহে আমি আমার উম্মতের ক্ষেত্রে দুধের ব্যাপারে মদ থেকেও বেশি আশংকা করছি। একথা শুনে সাহাবায়েকেরাম বললেন, ইয়া রাসূলুল্লাহ সাঃ এটা কীভাবে হতে পারে? জবাবে রাসূলুল্লাহ সাঃ বলেন, তারা দুধকে এত বেশি পছন্দ করবে, যার কারনে জামাআত থেকে অনেক দুরে সরে যাবে এবং ধীরে ধীরে জামাআত ত্যাগ করতে থাকবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৬৯৫ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٦٩٥
حدثنا بقية بن
الوليد عن معاوية بن يحيى بن سعيد التجيبي عن أبي فبيل
عن عقبة بن عامر رضى
الله عنه قال قال رسول الله صلى الله عليه وسلم لأنا أخوف على أمتي في اللبن أخوف
مني عليهم في الخمر قالوا وكيف يا رسول الله قال يحبون اللبن فيتباعدون من الجماعات
ويضيعونها
কাসীর ইবনে মুররা রাযিঃ থেকে বর্নিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাঃ এরশাদ করেছেন কিয়ামতের অন্যতম আলামত হচ্ছে, অযোগ্য লোক এ পৃথিবিতে আধিপত্য বিস্তার করবে এবং নিকৃষ্টতম লোকদেরকে সম্মানিত করবে ও সম্মানিদেরকে অপদস্ত করবে।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৬৯৬ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٦٩٦
حدثنا الحكم بن نافع عن سعيد بن سنان عن أبي الزاهرية
عن
كثير بن مرة قال قال رسول الله صلى الله عليه وسلم من أشراط الساعة أن يملك من ليس
أهل أن يملك ويرفع الوضيع ويوضع الرفيع
কা’ব রহঃ থেকে বর্নিত, তিনি বলেন যখন তুমি কুরাইশের আচরনে আরববাসীকে,সমাজের বিত্তবানদেরকে লজ্জিত হতে দেখবে, অতঃপর আরববাসীদের এবং সমাজের বিত্তবানদের কারনে পৃথিবীর মুসলমানদেরকে অপমান হতে দেখবে তাহলে বুঝতে হবে তোমাকে কিয়ামতের যাবতীয় আলামত গ্রাস করে নিয়েছে। উক্ত হাদীসে বর্ননাকারী কুরাইব রহঃ বলেন, আমি আবুইসহাককে বললাম হযরত হোজাইফ ইবনুল ইয়ামান রাযিঃ তো আমাদেরকে আহমারাইন সম্বন্ধে বলেছেন, সেটা কি জিনিস। জবাবে তিনি বললেন, সেটা তখনই হবে যখন কলমের সঞ্চালন বন্ধ হয়ে যাবে এবং কেউ আর সমাজ ও রাষ্ট্র পরিচালনাকারী থাকবেন।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৬৯৭ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٦٩٧
حدثنا ابن وهب عن موسى بن
أيوب عن سليط بن شعبة الشعثاني عن أبيه عن كريب بن
عن كعب قال إذا رأيت العرب
تهاونت بأمر قريش ثم رأيت الموالي تهاونت بأمر العرب ثم رأيت مسلمة الأرضين تهاونت
بأمر الموالي فقد غشيتك أشراط الساعة
قال كريب فقلت له يا أبا إسحاق إن حذيفة
حدثنا بالأحمرين قال ذاك إذا منعت الأقلام والوسائد
المعقل من الفتن

Execution time: 0.04 render + 0.00 s transfer.