Login | Register

নুয়াইম বিন হাম্মাদ: আল ফিতান

Double clicking on an arabic word shows its dictionary entry
হযরত আরতাত ইবনুল মুনজির থেকে বর্নিত, তিনি বলেন, বর্বর জাতি এসে ফিলিস্তিন এবং জর্দানের মাঝামাঝি জায়গায় ঘাঁটি করবে। অতঃপর তাদের মাশরিক এবং শামের সম্মিলিত বাহিনী তাদের দিকে এগিয়ে ধাবিত হয়ে জাবিয়া নামক স্থানে অবস্থান গ্রহন করবে। এক পর্যায়ে সাখার এর সন্তানদের থেকে একজন দুর্বলচিত্তে প্রকাশ পাবে এবং বায়ছানের পাহাড়ে পশ্চিমাদের সাথে তার সাক্ষাত হবে। অতঃপর তাদেরকে বায়ছান থেকে বিতাড়িত করবে। তারা আবারো পরেরদিন পরস্পরের সাথে দেখা হবে এবং সেখান থেকে তাদেরকে বিতাড়িত করবে। এক পর্যায়ে তারা পিছন থেকে মারাত্নক ভাবে আক্রান্ত হবে। তৃতীয়দিন তারা আবারো মিলিত হবে এবং তাদেরকে আইনুর রীহ পর্যন্ত ধাওয়া করবে। এ ধরনের পরিস্থিতিতে হঠাৎ তাদের নেতার মৃত্যু হবে এবং তারা তিনদলে বিভক্ত হয়ে পড়বে। একদল নিজেদের এলাকায় ফিরে যাবে, আরেকদল হিজায ভূমিতে গিয়ে আশ্রয় নিবে এবং অন্যদলটি চলে যাবে সাখরা নামক স্থানে। তারা অন্য দলের খোজে চলতে থাকবে এক পর্যয়ে ফাতাক নামক এলাকার পর্বতের চুড়ায় উপনীত হবে এবং যেখানে তাদের দেখা মিলবে। সেখান থেকে তাদেরকে সাখরা নামক ভুখন্ডের দিকে ইঙ্গিত করা হবে। অতঃপর শাম এবং মাশরিক বাহিনী একে অপরের প্রতি আন্তরিক হয়ে উঠবে, এবং উভয়ে একস্থানে মিলিত হবে। তখন তাদেরকে জাবিয়া এবং খারিবার মাঝামাঝি জায়গায় নিয়ে যাওয়া হবে। তখনই তাদের মাঝে ভয়ানক এক যুদ্ধ হবে, যার কারনে তাদের ঘোড়া রক্ত সাগরে হাবুডুবু খেতে এবং শাম বাসিরা তাদের সর্দারকে হত্যা করবে। আর তাদেরকে সাখরা পর্যন্ত ধাওয়া করে নিয়ে যাবে। তাদের দিমাশকে নিয়ে গিয়ে হাত-পা কর্তন করা হবে। এক পর্যায়ে মাশরিকের দিক থেকে কালো ঝান্ডাবিশিষ্ট একটি বাহিনী প্রকাশ পাবে, যারা কুফা নগরীতে এসে অবস্থআন করবে এবং তাদের সর্দার সেখানে আত্নগোপন করবে। যার কারনে তার অবস্থান চিহ্নিত করা মুশকিল হয়ে যাবে। ফলে উক্ত বাহিনী শংকিত অবস্থায় দিনাতি পাত করতে থাকবে। অতঃপর বতনুল ওয়াদী নামক স্থানে আত্নগোপন করা একলোক হঠাৎ করে আত্নপ্রকাশ করে উক্ত বাহিনীর হাল ধরবে। তার আত্নপ্রকাশের মূল কারন হচ্ছে, সাখার বাসিরা তার পরিবারের সাথে কৃত কর্মের প্রতিশোধ নেয়া। ফলে সে মাশরিক বাহিনীকে নিয়ে শামের দিকে যেতে যেতে সাখরা ভূখন্ডে এসে উপনীত হবে। তার উদ্দেশ্য কিন্তু এ শহরই ছিল। এহেন পরিস্থিতিতে তার দিকে পশ্চিমা বাহিনীও ধেয়ে আসবে। তারা উভয় দল হিমস নগরীর একটি পাহাড়ে মিলিত হবে। তাদের এ যুদ্ধে অনেক জ্ঞানী লোক মারা যাবে। এক পর্যায়ে মাশরিক বাহিনী পলায়ন করতে থাকলে সাখরা বাহিনী তাদের পিছু নিবে। এবং দুই নদীর সংযোগস্থলের পার্শ্বে কার কিসিয়া নামক স্থানে তাকে পেয়ে যাবে এবং উভয়ে মিলিত হবে। তাদের উপর কঠিন বিপদ নেমে আসলে, যার কারনে মাশরিকীদের থেকে প্রায় দশ জনের সাত জনকে হত্যা করা হয়। এবং সাখারী বাহিনী কূফা নগরীতে প্রবেশ করবে, যার কারনে তাদের উপর ভুমি কম্পের আঘাত নেমে আসবে এবং পশ্চিমাদের থেকে এক লোক মাশরিক বাহিনী যেদিকে রয়েছে সেদিকে যেতে থাকবে, তার সামনে তাদের বন্দিদেরকে উপস্থিত করতে বলবে। এভাবে কথাবার্তা চলতে থাকবে। হঠাৎ মক্কা নগরীতে মাহদী আঃ এর আগমনের সংবাদ আসবে। তার বিরুদ্ধে কূফা নগরী থেকে একটি বাহিনী আত্ন প্রকাশ করলে তাদের গোটা দলকে মাটিতে ধসে দেয়া হবে। বর্ননাকারী হযরত আরতাত রহঃ বলেন, মাসরিক এবং মাগরিব বাহিনী ব্রীজের পাদদেশে সাতদিন পর্যন্ত অবস্থান করবে, অতঃপর তারা আরীশা নামক স্থানে আবারো স্বাক্ষাত করবে। এক পর্যায়ে মাশরিক বাহিনী পৃষ্ট প্রদর্শন করে জর্দান এসে পৌঁছবে। সেখানে পৌছার সাথে সাথে সুফিয়ানী আত্ন প্রকাশ করবে। ইতোমধ্যে হিমসে অবস্থান কারী রোম বসিরা বর্বর জাতির আক্রমনের ব্যাপারে ভীত সন্ত্রস্থ থাকবে এবং তারা বলবে, হে তামরা! বর্বর দ্বারা তোমাদের ধ্বংস হোক। এখানে তামরা দ্বারা উদ্দেশ্য হচ্ছে, হিমস এলাকা।
[ আল ফিতান: নুয়াইম বিন হাম্মাদ - ৭৯৬ ]
___________________________________
نعيم بن حماد - ٧٩٦
عن أرطاة بن المنذر
قال يجيء البربر حتى
ينزلوا بين فلسطين والأردن
فتسير إليهم جموع المشرق والشام حتى ينزلوا الجابية
ويخرج
رجل من ولد صخر
في ضعف فيلقى جيوش المغرب على ثنية بيسان فيردعهم عنها ثم
يلقاهم من الغد فيردعهم عنها فينحازون وراءها ثم يلقاهم في اليوم الثالث فيردعهم
إلى عين الريح
فيأتيهم موت رئيسهم فيفترقون ثلاث فرق
فرقة ترتد على أعقابها وفرقة
تلحق بالحجاز وفرقة تلحق بالصخري فيسير إلى بقية جموعهم حتى يأتي ثنية فتق قيلتقون
عليها فيدال عليهم الصخري ثم تعطف إلى جموع المشرق والشام فتلقاهم فيدال عليهم ما
بين الجابية والخربة حتى تخوض الخيل في الدماء و
يقتل أهل الشام رئيسهم وينحازون إلى
الصخري
فيدخل دمشق فيمثل بها و
تخرج رايات من المشرق
مسوده فتنزل الكوفة فيتوارى
رئيسهم فيها فلا يدرى موضعه فيتحين ذلك الجيش ثم يخرج رجل كان مختفيا في بطن الوادي
فيلي أمر ذلك الجيش وأصل مخرجه غضب مما صنع الصخري بأهل بيته
فيسير بجنود المشرق
نحو الشام
ويبلغ الصخري مسيره إليه فيتوجه بجنود أهل المغرب إليه فيلتقون بجبل [ أهل ] الحص فيهلك بينهما عالم كثير ويولي المشرقي منصرفا ويتبعه الصخري
فيدركه بقرقيسيا عند مجمع النهرين فيلتقيان فيفرغ عليهم الصبر
فيقتل من جنود
المشرقي من كل عشرة سبعة ثم يدخل جنود الصخري الكوفة
فيسوم أهلها
الخسف
ويوجه جندا
من أهل المغرب إلى من بإزائه من جنود المشرق فيأتونه بسبيهم فإنه لعلى ذلك إذ يأتيه
خبر ظهور المهدي بمكة
فيقطع إليه من الكوفة بعثا
يخسف به
.
قال أرطاة ويكون بين
أهل المغرب وأهل المشرق بقنطرة الفسطاط سبعة أيام ثم يلتقون بالعريش فتكون الدبرة
على أهل المشرق حتى يبلغوا الأردن ثم يخرج عليهم السفياني بعد وكان الروم الذين
كانوا بحمص كانوا يتخوفون عليها البربر ويقولون ويلك يا تمرة من بربر

Execution time: 0.02 render + 0.00 s transfer.