Login | Register

আল বিদায়া ওয়ান্নিহায়া - খন্ড ৯

পৃষ্ঠা ৯৫ ঠিক করুন

ওয়াসিত নগরী প্রতিষ্ঠা :;ন্ৰুঙ্কু

ইবন জারীর (র) বলেছেন, এই সনে হ জ্জাজ ওয়াসিত শহর প্রতিষ্ঠা করে ৷ এর প্রেক্ষাপট

ছিল এই যে, একদিন হাজ্জাজ দেখল এক যাজককে যে, তার গর্দডীর পিঠে চড়ে সে দজলা
নদী অতিক্রম করল ৷ সে ওয়াসিত নামক স্থানে যাবার, পর তার গর্দডী ওখানে পেশার করে
দেয় ৷ যাজক সাথে সাথে গর্দভীর পিঠ ছেড়ে নীচে নেমে যায় ৷ এবং ও পেশাবের স্থানের মাটি
খুড়ে দজলা নদীতে ফেলে দেয় ৷ হাজ্জাজ বলল, ওই যাজককে আমার নিকট নিয়ে আস ৷ তাকে
নিয়ে আসা হল ৷ সে যাজককে বলল, তুমি এরুপ করলে ণ্কন ? উত্তরে যাজক বলল, আমরা
আমাদের কিতায়ে পেয়েছি যে, এই স্থানে একটি মসজিদ নির্মিত হয়ে এবং এই পৃথিবীতে
যতদিন একজন তাওহীদপন্থীও জীবিত থাকবেত তদিন এই মসজিদে আল্লাহর ইবাদত করা
হবে ৷ অতংপর হাজ্জাজ ওয়াসিত নগরীর প্রতিষ্ঠা করে এবং সেখানে একটি মসজিদ

করে ৷বাৎনায় ইসলামিক বই ডাউনলোড করতেও তিজিট বরুণঃ ইসলামি ব্ইডট ওয়ার্ডপ্রেস কম

এই ৮৩ সনে আতা ইবন রাফিয় নেতৃত্বে সিসিলির যুদ্ধ সংঘটিত হয় ৷

৮৩ হিজরী সনে যাদের ওফাত হয়

আবদুর রহমান ইবন জুহয়েরা (র)

৮৩ সনে যীদের ওফাত হয় তাদের একজন হলেন আবদুর রহমান ইবন জুহায়রা খাওলানী
মিসরী ৷ বহু সাহাবী থেকে তিনি হাদীস বর্ণনা করেছেন ৷ মিসরের শাসনকর্তা আবদুল আযীয
ইবন মারওয়ান র্তাকে একই সালে বিচারক, নসীহতকারী এবং রান্থীয় ণ্কাষাগ্যারর দায়িত্বশীল
হিসেবে নিয়োগ দান করেন ৷ তার বাৎসরিক সম্মানী নির্ধারিত হয় এক হাজার দীনড়ার স্বর্ণমুদ্রা ৷
তিনি ওই অর্থের কিছুই সঞ্চিত করতেন না ৷

তারিক ইবন শিহাৰ (বা)
৮৩ সনে যে সব বিশিষ্ট ব্যজিং ইনতিকাল হয় তাদের একজন হলেন তারিক ইবন শিহড়াব

ইবন আবৃদ শামৃস আহমাসী ৷ তিনি রাসুলুল্লাহ্ (সা) ণ্ক দেখতে পেয়েছিলেন ৷ প্রথম খলীফা

হযরত আবু বকর সিদ্দীক (বা) এবং দ্বিতীয় খলীফা হযরত উমার (রা)-এর খিলাফতকালে
তিনি চল্পিশোর্ধ যুদ্ধে অংশ নেন ৷ ৮৩ সনে তিনি মদীনাতে ইনতিকাল করেন ৷

উবায়দৃল্লাহ্ ইবন আদী (বা)

এই সনে ইনতিকাল হয় এমন বিশিষ্ট ব্যক্তিদের অন্যতম হলেন হযরত উবায়দুল্লাহ্ ইবন

আদী (র) ৷ তিনি রাসুলুল্লাহ্ (না)-এর যুগ’ পেয়েছিলেন ৷ বহু সাহাবী থেকে তিনি হাদীস বর্ণনা
করেছেন ৷ তিনি মদীনা শরীফে কাযী বা বিচারক পদে দায়িত্ব পা ৷লন করেছেন ৷ তিনি কুরায়শ
বংশের অন্যতম ফকীহ ও আলিম ছিলেন ৷ তার পিতা আদী বদর যুদ্ধে ক৷ ৷ফির অবস্থায় নিহত
হয়েছিল ৷

৮৩ সনে ওফাত হয়েছে মারছাদ ইবন আবদুল্লাহ আবু খায়ব মুযানীর ৷ ইবনুল আশআছের
দলভুক্ত বহু কারী ও আলিম ব্যক্তি এই সনে হারিয়ে নিয়েছেন ৷ তাদের মধ্যে কতক পলায়ন

করেছেন ৷ কতক যুদ্ধ ক্ষেত্রে নিহত হয়েছেন এবং কতককে বন্দী অবস্থায় হ জ্জাজেব নিকট

পাঠিয়ে দেয়৷ হয় ৷ অতংপর হাজ্জাজ তাদেরকে হত্যা করে ৷ ওদের কতককে হাজ্জাজ খুজে
খুজে ধরে এনে হত্যা করে ৷ ইতিহাসবিদ খলীফা ইবন খাইয ত তাদের কয়েকজনের নাম
উল্লেখ করেছেন ৷ যেমন মুসলিম ইবন ইয়াসার মুযানী৷ আবু মুরানাহ্ আজালী ৷ ইনি নিহত



Execution time: 0.01 render + 0.00 s transfer.