Login | Register

আল বিদায়া ওয়ান্নিহায়া - খন্ড ৯

পৃষ্ঠা ৫২ ঠিক করুন





ণ্ ;


কিয়ামতের দিন মহান আল্লাহ ঋণ্যাস্ত ব্যক্তিকে ডেকে আসবেন ৷ তারপর বলবেন কেন
তুমি মানুষের হক নষ্ট করেছ ? কেন তুমি ওদের মালামাল নিয়ে গিয়েছ ? সে বলবে, ইয়া
রাব্ব ৷ আমি ইচ্ছাকৃতভাবে তা নষ্ট করিনি ৷ জাহাজ ভুবি নৌকা ডুবিতে আমার সম্পদ নষ্ট
হয়েছে কিৎবা আগুনে পুড়ে নষ্ট হয়েছে ৷ তখন মহান আল্লাহ বলবেন, তবে আমি আজ তোমার
পক্ষে ঋণ শোধ করে দিব ৷ এরপর ওই ব্যক্তির পাপাচারের তুলনায় পুণ্য ভারী হবে, লেক
আমলের ওযন বেশী হয়ে এবং তাকে জান্নাতেপাঠানোর নির্দেশ দেয়া হবে ৷’ এটি হল আবু
দাউদেৱ ভাষ্য ৷ ইয়াযীদ ইবন হারুন এটি সাদাকা থেকে যা বর্ণনা করেছেন তাতে আছে যে,
এরপর মহান আল্লাহ কি একটা বস্তু আনয়নের নির্দেশ দিবেন ৷ সেটি তার পাল্লায় রাখা হবে
এবং তাতে তার নেকীর পাল্লা ভারী হয়ে যাবে ৷

আল্লামা তাবারানী এটি উদ্ধৃত করেছেন আবু নুআয়ম সুত্রে সাদাকা থেকে ৷ আল্লামা
তাবারানী এটি হাফস ইবন উমার এবং আহমদ ইবন দাউদ মকী থেকেও বর্ণনা করেছেন ৷
তারা দুজনে বলেছেন যে, মুসলিম ইবন ইব্রাহীম এই হাদীস সাদাকা সুত্রে আমাদের নিকট
বর্ণনা করেছেন ৷: মহান আল্লাহ্ই ভাল জানেন ৷

আবদুল্লাহ ইবন পানাম (র)

এই সনে যে সব বিশিষ্ট ব্যক্তির ইনৃতিকাল হয় তাদের একজন হলেন আবদুল্লাহ ইবন
গানাম আশআরী ৷ তিনি ফিলিস্তিনে বসবাস করতেন ৷ একাধিক সাহাবী থেকে তিনি হাদীস
বর্ণনা করেছেন ৷ কেউ কেউ বলেন যে, তিনি সাহাবী ছিলেন ৷ হযরত উমার (রা) তাকে সিরিয়া
পাঠিয়েছিলেন জনসাধারণকে দীন শিক্ষা দেবার জন্যে ৷ তিনি সৎ ও পুণ্যৰান মানুষদের একজন
ছিলেন ৷

জুনাদা ইবন উমাইয়া আযদী (র)

৭৮ সনে যাদের ওফাত হয় তাদের একজন হলেন জুনাদা ইবন উমইিয়া আযদী ৷ তিনি :
মিসর বিজয় অভিযানে অংশ নিয়েছিলেন ৷ মুআবিয়ার (র) আমলে নৌযুদ্ধে তিনি সেনাপতির
দায়িত্ব পালন করেছিলেন ৷ বীরতৃ ও কল্যাণমুলক কাজে তার প্রসিদ্ধি ছিল ৷ প্রায় ৮০ বছর
বয়সে এই সনে তিনি সিরিয়াতে ইনতিকাল করেন ৷

আশা ইবন যিয়াদ বসরী

এই সনে যাদের ওফাত হয় তাদের একজ্যা হলেন আলা ইবন যিয়াদ বসরী ৷৩ তিনি বসরার
অধিবাসী ছিলেন ৷৩ তিনি সৎ ও পুণ্যবান মানুষ ছিলেন ৷ তার মধ্যে পরম খােদাভীতি ও তাকওযা
জ্জি ৷ তিনি প্রায়ই নিজ গৃহে একাকী সময় কাটাতেন ৷ লোকজনের সাথে খুব একটা মিশতেন
না ৷ খুব বেশী র্কাদতেন ৷ কেদে কেদে তিনি অন্ধ হয়ে যান ৷ তার অনেক সুকীর্তি ও
গৌরবজ্যাক ঘটনা রয়েছে ৷ ৭৮ সনে বসরাতে তিনি ইনৃতিকাল করেন ৷

আমি বলি আলা ইবন যিয়াদের কান্নার মাত্রা প্রচুর বেড়ে গেল সেদিন থেকে যেদিন এক
ব্যক্তি র্ডাকে জান্নাতী বলে স্বপ্নে ণ্দখল ৷ সিরিয়ার অধিবাসী এক লোক তাকে স্বপ্নে দেখে যে,
তিনি জান্নাতের অধিবাসী হয়ে আছেন ৷ এই সংবাদ ণ্শা নার পর আলা ইবন যিয়াদ তাকে


পৃষ্ঠা ৫৩ ঠিক করুন

বললেন, ভাই আপনি আমার সম্পর্কে ভাল স্বপ্ন দেখেছেন তইি আল্লাহ আপনাকে ভাল বিনিময়
দান করুন ৷ আর আমি, আপনার স্বপ্ন তো আমাকে এত অস্থির করে তুল্যেছ যে, আমি এখন
না দিলে শান্তি পাই না রাতে ৷ এরপর থেকে দিনের পর দিন কেটে যেত তিনি কিছু মুখে
দিতেন না, উপোসী থাকতেন ৷ আর র্কীদতেন ৷ শুধুই র্কাদতেন ৷ এতে করেই তিনি মৃত্যুর
নিকটবর্তী হয়ে গিয়েছিলেন ৷ নামায পড়তেন তো পড়তেনই বিরামহীন ৷ এ অবস্থায়ত তার ভাই
হযরত হাসান বসরী (র) এর নিকট এলেন এবং বললেন, আমার ভাইকে প্রাণে রক্ষা করুন
তিনি তো মারা যাবেন ৷ তার সম্পর্কে এক লোক স্বপ্ন দেখেছে যে, “তিনি জান্নাতের অধিবাসী”
একথা শোনার পর থেকে তিনি শুধু রােযা রাখছিল ৷ খাওয়া দাওয়৷ করছেন না ৷ শুধুই ইবাদত
করছেন, ঘুমুচ্ছেন না ৷ দিনে রাতে শুধুই র্কাদছেন ৷

হযরত হাসান বসরী আলা-এব বাড়ীতে এলেন ৷ত তার দরযায় টোক৷ দিলেন ৷ তিনি দরযা
খুললেন না ৷ হযরত হাসান বসরী (র) বললেন, দরযা ৰুখুলুন, আমি হাসান ৷ তার কণ্ঠ শুনে
আল৷ (র) দরযা খুললেন ৷ হযরত হাসান (র) বললেন, ভইি আপনি কি জান্নাত পাবার জন্যে
ব্যতিব্যস্ত হয়ে পড়েছেন ? হার, মু’মিনের জন্যে জান্নাতের কী চিন্তা ! মু’মিনের জন্যে আল্পাহ্র
নিকট এমন পুরস্কার রয়েছে যা জান্নাতের চাইতে শতগুন্থণ উত্তম ৷ আপনি কি এখন আত্মহত্যার
সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ? হযরত হাসান (র) এভাবে র্তাকে অনবরত বুঝাতে লাগলেন ৷ অবশেষে
তিনি খাদ্য ও পানীয় গ্রহণ করবেন ৷ এবং ইভােপুর্বে ইবাদতে যে অবস্থানে ছিলেন তার চাইতে
সামান্য কমিয়ে আনলেন ৷

ইবন আবু দৃনয়া আলা (র)-এর বরাতে উল্লেখ করেছেন যে, একদিন তিনি স্বপ্নে দেখলেন
যে, র্জ্যনক আগত্তুক তার নিকট এসেছে ৷ সে তার মাথার চুল ধরে বলল, বাছা বন! উঠ,
আল্লাহর যিকির কর ৷ তাহলে মহান আল্লাহ তোমার কথা আলোচনা করবেন ৷ এই চেতনা ও
মনোভাব তার মধ্যে সর্বদা বিরাজমান ছিল ৷ এক পর্যায়ে তার মৃত্যু হল ৷

কেউ কেউ বলেছেন, তার এক সাথী স্বপ্নে দেখেছিল যে, প্রতিদিন বহুলোক মিলে যে
আমল করে, তার সমপরিমাণ লেক আমল একা আল৷ (র) এর প্নক্ষ থেকে মহান আল্পাহ্র
দঃাবারে পৌছে ৷

আলা (র) বলেছেন, আমরা তো নিজেৰাৰুৰুনিঃজ্যাদবকে জাহান্নাঙ্গে নিক্ষেপ করি ৷ মহান
আল্লাহ যদি আমাদেরকে সেখান থেকে বের রাত চান তবে তিনি বের করবেন ৷ নাহলে
ওটাই আমাদের বাসস্থান ৷ আলা (র) ণ্ লা,ক ছিল মানুষকে দেখানোর জন্যে








যে লেক আমল ণ্ ৩ ৷ ক্ষ্যণ হ্মণে জামা কা মোঃকুরআন পাঠ করত উচ্চ
ৰ্রে ৷ কারো নি কে গাল মন্দ ণ্ অছুছুরু’তাকে ইখলাস, নিষ্ঠা
৩ পুর্ণ বিশ্বাস শ্-ৰুণ্ ৷ ৰু ’ করল-ন্াণ্:জুর সততার বিষয়টি
ৰ্ক্সোহ্র উপর ন্যস্ত করল এবং অংন্ নেক দৃআ করতে শুরু করল ৷
ন্ ৰুর্বৃসৌং
ন্ন্ মুৰ্কো ইব্র্ন মিরদাস আযদী ণ্ হুত্দ্ব

৭৮ সনে যাদের মৃত্যু হয় তাদের একজন হলেন সুরাকা ইবন মিরদাস আযদী ৷ তিনি
ন্নে স্পষ্টভাষী কবি ছিলেন ৷ তিনি হাজ্জাজেৱ নিন্দা করেছিলেন ৷ তাই হাজ্জাজ তাকে
নীিব্রায় দেশাম্ভরিত করে ৷ সেখানে তার ওফাত হয় ৷



Execution time: 0.02 render + 0.00 s transfer.