Login | Register

আল বিদায়া ওয়ান্নিহায়া - খন্ড ৪ : পৃষ্ঠা ৩৩৯

আল বিদায়া ওয়ান্নিহায়া খন্ড ৪: পৃষ্ঠা - ৩৩৯


খায়বর জানে যে, আমি মারহাব ! অস্ত্রধারী অভিজ্ঞ নেতা আমি ৷ সিংহ ক্ষিপ্ত হয়ে যখন সম্মুখে
এগিয়ে আসে এবং বিজয়ীর হামলার ভয়ে যখন সে পিছনে সরে যায় ৷

এর জবাবে আলী (রা) হুৎকার দিয়ে আবৃত্তি করেন :

ম্ভ )দ্দৌ

ন্নে এে

আমি যে ব্যক্তি, যার নাম রেখেছেন তার মা হায়দর বলে ৷ :যন জঙ্গলের সিংহ আর কি ৷
শক্ত আমার পাকড়াও ৷ আমি তােমাদেরকে যেপে দেবাে এক সা এর বিনিময়ে এক মান্দারা
(এক বড় মাপের পরিমাণ বিশেষ) ৷

রাবী বলেন, এরপর উভয়ে সম্মুখ সময়ে অবতীর্ণ হন ৷ একে অন্যের উপর আঘাত হানেন ৷
হযরত আলী (বা) তার উপর এমন তবে আঘাত হানেন যা প্রস্তরকেও তা খানখান করে দেয় ৷ যা
মস্তক ভেদ করে মাড়ির দীত পর্যন্ত পৌছে ৷ এরপর তিনি খায়বর নগরী অধিকার করে নেন ৷

হাফিয বায্যার আব্বাদ ইবন ইয়াকুব ইবন আব্বাস (রা) সুত্রে খায়বরের দিন হযরত
আবু বকর (রা) , হযরত উমর (রা) , অবশেষে হযরত আলী (রা) কে প্রেরণ করা এবং তার হাতে
খায়বর বিজয়ের কাহিনী বণ্টা করেছেন ৷ তবে তার বর্ণনার কিছুটা বৈকল্য আর অগ্ৰাহ্যতা রয়েছে
এবং তার সনদে এমন ব্যক্তিও রয়েছেন ৷ যিনি শিয়াবাদের অভিযোগে অভিযুক্ত ৷ আল্লাহ্ই ভাল
জানেন ৷

ইমাম মুসলিম (র) এবং ইমাম বায়হড়াকী (র) হড়াদীছের শব্দমালা ইমাম বড়ায়হাকী ইকরিমা
ইবন আম্মার সালামা ইবনুল আক্ওয়া ৷ তিনি তার পিতা সুত্রে দীর্ঘ হড়াদীছ বর্ণনা করে
তাতে ফাজারা যুদ্ধ থেকে তাদের প্রত্যাবর্তন প্রসঙ্গ উল্লেখপুবর্ক বলেন যে, আমরা তথায় তিন দিন
অবস্থান করে খায়বরের উদ্দেশ্যে বের হই ৷ রাবী বলেন যে, আমীর নিলোধৃত কবিতা আবৃত্তি
করতে করতে রাস্তায় বের হন ও

ণ্ট্রুএে ৷ ,

আল্লাহ্র কসম ! আপনি না থাকলে আমরা হিদায়াত পেতাম না, সাদাকা করতাম না, নামায

আদায় করতাম না ৷ আপনারা দয়া থেকে আমরা বিমুখ হতে পারি না ৷ সুতরাং আপনি আমাদের
প্রতি শান্তি নাযিল করুন ৷

আর আমরা যখন সম্মুখ সময়ে অবতীর্ণ হই তখন আমাদের পদ দৃঢ় ও স্থির রাখবেন ৷



Execution time: 0.02 render + 0.00 s transfer.