Login | Register

আল বিদায়া ওয়ান্নিহায়া - খন্ড ৪ : পৃষ্ঠা ৩৩৩

আল বিদায়া ওয়ান্নিহায়া খন্ড ৪: পৃষ্ঠা - ৩৩৩

আবদুল্লাহ ইবন ইদরীস ইবন ইসহাক থেকে আবদুল্লাহ ইবন আবু বকর (রা) সুত্রে বর্ণনা করেন
যে, মুহাররম মাসের শেষের দিকে খায়বর বিজয় হয় এবং সযক্ষ্ম মাসের শেষের দিকে নবী করীম
(সা) মদীনায় ফিরে আসেন ৷ ইবন হিলাল বলেন, এ সময় রাসৃলুল্লাহ্ (সা) নুসায়লা ইবন
আবল্লোহ্ লায়হীকে মদীনায় তার স্থলাভিষিক্ত করে যান ৷

ইমাম আহমদ (র) আফ্ফান আবুহুরায়রা সুত্রে বর্ণনা যে, আবু হুরায়রা (র) তার
সম্প্রদায়ের কিছু লোকের সঙ্গে মদীনায় আগমন করেন ৷ নবী করীম (সা ) তখন খায়বরে ছিলেন ৷
তিনি সিবা ইবন উরফাতা পাতফানীকে মদীনায় তার স্থলাভিষিক্ত নিয়োগ করেন ৷ আবুহুরায়রা
(রা) বলেন :: আমি সিবার নিকট গিয়ে পৌছলাম, তখন তিনি ফজরের সালাতের প্রথম
রাকামাতে কাফ-হা-ইয়া-অইিন-সাদ এবং দ্বিতীয় রাকআতে ওয়াইলুললিল মুতাফ্ফিফীন সুরা পাঠ
করছিলেন ৷ তখন আমি মনে মনে বললা-স্র, অমুকের জন্য দাভাগ, যে মানুষের নিকট থেকে
যখন মেগে নেয়, তখন পুরাপুরি আদায় করে নেয়, আর যখন মানুষকে যোগ দেয় তখন কম
দেয় ৷ তিনি বলেন, আমীর নামায আদায় করে আমাদেরকে কিছু জিনিস দান করলে আমরা তা
নিয়ে খায়বর পৌছি ৷ নবী করীম (সা) তখন খায়বর বিজয় সম্পন্ন করেছেন ৷ তিনি মুসলমানদের
সঙ্গে কথা বলেন এবং গনীমতের সালে আমাদেরকেও শরীক করেন ৷

ইমাম বায়হাকী সুলায়মান ইবন হাবৃব বনুগিফারের একদল লোক থেকেও হাদীছটি
বর্ণনা করেছেন ৷

ইবন ইসহাক (র) বর্ণনা করেন যে, নবী করীম (সা) মদীনা থেকে খায়বরের পথে বের হয়ে
আসৃর পাহাড়ের পথে গমন করেন এবং তথায় একটা মসজিদ নির্মাণ করেন ৷ তারপর সাহ্বা’
নামক স্থানে আগমন করেন; এরপর তিনি সৈন্যদেরকে নিয়ে অগ্রসর হয়ে রাব্জী নামক উপত্যকায়
অবস্থান নেন ৷ সেখানে খায়বরবাসী এবং পাতফানীদের মধ্যস্থলে অবস্থান গ্রহণ করেন, যাতে
তাদের মধ্যে আঃরায় হন, যেন তারা খায়বরবাসীদেরকে সাহায্য করতে না পারে ৷ কারণ, তারা
ছিল রাসুলুল্লাহ্ (না)-এর বিপরীতে খায়বরের য়াহ্রদীদের জন্য সাহায্যকারী ৷ আমি জানতে পেয়েছি
যে, পাতফানের ণ্লাকেরা যখন এটা জানতে পারে তখন একত্র হয়ে বের হয় যাতে রাসুলুল্পাহ্
(না)-এর বিরুদ্ধে য়াহ্রদীদেরকে সাহায্য করতে পারে ৷ তারা সৰেমাত্র এক মনযিল পথ অতিক্রম
করেই পেছনে সহা সম্পদ আর পরিবার-পরিজনের মধ্যে হৈ চৈ শ্রবণ করে তাদের ধারণা জানা
যে, মুসলমানরা পেছন থেকে তাদের উপর হামলা চালাচ্ছে ৷ তাই তারা পেছনে ফিরে এসে
নিজেদের সহায় সম্পদ আর পব্লিবার-পরিজ্যনর মধ্যে অবস্থান গ্রহণ করে এবং রহ্সুলুল্লাহ্ (না) ও
খায়বরের মধ্যে অতরায় হয়ে দাড়ায়নি ৷

ইমাম বুখারী (র) আবদৃল্লাহ্ ইবন মাসলামা বুশায়র সুত্রে বর্ণনা করেন যে, সৃওয়ায়দ
ইবন নৃমান তাকে জানান যে, খায়বরের বছরে তিনি রাসুলুল্লাহ্ (সা)এর সঙ্গে বের হন ৷ এমন
কি খায়বরের নিকটবর্তী ’সাহ্বা নামক স্থানে পৌছে আসরের সালতে আদায় করে খাবার আমার
জন্য বললে কেবল ছাতৃ আনা হলো তিনি তা ভিজাতে বলেন ৷ তা ভিজানো হলে তিনি আহার
করেন এবং তার সঙ্গে আমরাও আহার করি ৷ এরপর মাগরিবের নমােয়ের জন্য দাড়িয়ে কুলি করে
ালাত আদায় করেন ৷ এজন্যে তিনি আর নতুন করে উয়ু করেননি ৷



Execution time: 0.04 render + 0.00 s transfer.