Login | Register

আল বিদায়া ওয়ান্নিহায়া - খন্ড ৪

পৃষ্ঠা ২৬৪ ঠিক করুন

আমি বলি, হতে পারে আবন্মোহ্ ইবন আতীক যখন সিড়ি থেকে পড়ে যান তখন তার পায়ের
জোড়া স্থানচ্যুত হয় , গোড়ালি ভেঙ্গে যায় এবং পায়েও মােচড় লাগে; কিন্তু যখন তা বেধে দেয়া
হয় তখন ব্যথা দুর হয়ে যায় এবং চলাচলে আর কোন কষ্ট অবশিষ্ট থাকেনি ৷ কারণ , ব্যাপারটি
খুবই স্বাভাবিক এবং অতি স্পষ্ট ৷ তিনি যখন হীটা-চলার অভিপ্রায় করেন তখন এজন্য তাকে
সাহায্য করা হয় ৷ কারণ, এর মধ্যে নিহিত রয়েছে কল্যাণকর জিহাদ ৷ তারপর তিনি যখন রাসুল
করীম (না)-এর নিকট পৌছেন এবং তিনি স্বস্থি ফিরে পান তখন পুনরায় ব্যথা ফিরে আসে এবং
তিনি পা ছড়িয়ে দিলে রাসুল করীম (না) তাতে হাত বুলিয়ে দেন ৷ ফলে অসুবিধা দুর হয়ে যায়
এবং ভবিষ্যতে দেখা দিতে পারে এমন বথােও আর অবশিষ্ট জ্জি না ৷ এভা৷:ব উভয় বর্ণনার মধ্যে
সামঞ্জস্য সাধিত হয় ৷ আল্লাহ-ই ভাল জানেন ৷ মুসা ইবন উক্বা তদীয় মগাষী’ গ্রান্থ ইবন
ইসহাক অনুরুপ বর্ণনা করেছেন এবং ইব্রাহীম ও আবু উবায়দের মড়াতা তিনিও তাদের এ
অভিযানে অংশ গ্রহণকারী সাহাবীগা;ণর নাম উল্লেখ করেছেন ৷

খালিদ ইবন সুফিরান হুযালনী হত্যার ঘটনা

হাফিয বায়হাকী (র) দালাইল গ্রন্থে আবু রাফি এর হত্যার ঘটনা উল্লেখ করার পর ইমাম
আহমদ (র)-এর বরাতে ইয়াকুব আবদুল্লাহ ইবন উনাইস তদীয় পিতা সুত্রে বর্ণনা করে
বলেন

রাসুল করীম (সা) আমাকে ডেকে বললেন : আমি জানতে পেয়েছি যে, খালিদ ইবন
সুফিয়ান ইবন নাবীহ্ হুযালী আমাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে প্রবৃত্ত হওয়ার জন্য লোকজনকে সমবেত
করেছে ৷ এখন সে উরানা’ নামক স্থানে অবস্থান করছে ৷ তুমি সেখানে গিয়ে তাকে হত্যা কর ৷
তিনি নিবেদন করলেন, ইয়া রাসুলাল্লাহ্ ! আমার জন্য তার কিছু বৈৰিষ্ট্য উল্লেখ করুন যাতে আমি
তাকে চিনতে পারি ৷ তিনি বললেন, তুমি যখন তাকে দেখবে, তখন লক্ষ্য করবে যে, সে কম্পন
ব্যাধিতে আক্রান্ত আছে ৷ তিনি বলেন, আমি তলওয়ার কােষবদ্ধ করে উরানায় তার কাছে গিয়ে
পৌছি ৷ তখন ছিল আসরের নামায়ের সময় ৷ রাসুল (না) তার কম্পনের যে বর্ণনা দেন, আমি
তাকে তেমনটিই পেলাম ৷ তখন যে স্তীদেরকে নিয়ে বাসন্থানের সন্ধানে ছুটাছুটি করছিল ৷ আমি
তার দিকে এগিয়ে যাই ৷ আমার আশংকা হয় যে, আমার এবং তার মধ্যে ধস্তাধ্স্তি হতে পারে ৷
যা আমাকে যথাসময়ে সালাত আদায় থেকে বিরত রাখতে পারে ৷ তাই আমি তার দিকে হাটতে
হাটতে ইশাৱায় সালাত আদায় করলাম ৷ মাথার ইশাৱায় আমি রুকু সিজদা আদায় করছিলাম ৷
আমি তার কাছে পৌছলে সে জিজ্ঞেস করলো কে ৷ আমি বললাম, আমি একজন আরব ৷ এ
ব্যক্তির উপর হামলা চালানোর উদ্দেশ্যে আপনার লোকজন সমবেত করার কথা শুনতে পেয়ে এ
উদ্দেশ্যে আপনার কাছে এসেছি ৷ সে বললো, হ্যা, আমিতো সে চেষ্টায় প্রবৃত্ত আছি ৷ আমি কিছু
দুর তার সঙ্গে অগ্রসর হই ৷ সুযোগ বুঝে আমি তরবারি চালিয়ে তাকে হত্যা করি এবং তার
ত্রীদেরকে সেখানে ফেলে রেখে বেরিয়ে আসি ৷ তার ত্রীরা তার জন্য বিলাপ করছিল ৷ আমি রাসুল
করীম (সা)এর নিকট এগিয়ে গেলে আমাকে দেখে তিনি বলেন : ৰুৰু,পু ৷ াদ্বু ৷ চেহারা এতো
দেখছি সফল হোক ৷ কর্ম সিদ্ধ হয়েছেত ? তিনি বলেন, আমি বললাম , ইয়া রাসুলাল্লাহ্ ৷ আমি
তাকে হত্যা করেছি ৷ তিনি বললেন, সত্য বলছ ৷ এরপর রাসুলুল্লাহ্ আমার পাশে দাড়ালেন এবং


পৃষ্ঠা ২৬৫ ঠিক করুন

আমাকে সঙ্গে নিয়ে তিনি গৃহে প্রবেশ করলেন ৷ আমার হাতে একটা লাঠি দিয়ে বললেন : হে
আবদুল্লাহ্ ইবন উনাইস! এটি তোমার কাছে রাখবে ৷ তিনি বলেন, লাঠিটি নিয়ে জনসমক্ষে
উপস্থিত হলে লোকজন জিজ্ঞেস করে , এ লাঠির ব্যাপারটি কি ? আমি বললাম : রাসুল (সা)
আমাকে এটি দিয়ে বলেছেন যে, এটি তোমার কাছে রাখবে তারা বললো : তুমি কি রাসুল
করীম (না)-এর কাছে ফিরে নিয়ে এ সম্পর্কে তাকে জিজ্ঞেস করবে না ? তিনি বলেন, আমি
রাসুল করীম (সা)-এর নিকট ফিরে গিয়ে আরয করলাম : ইয়া রাসুলাল্লাহ্ ! আমাকে কেন এটি
দিয়েছেন ? তিনি বললেন, কিয়ামতের দিন এ লাঠি তোমার আর আমার মধ্যে নিদর্শন হবে,
সেদিন খুব কম লোকই এমন সৌভাগ্য লাভ করবে ৷ যারা এরুপ লহৃঠির উপর ভর করে আসবে ৷
তিনি বলেন, আবদুল্লাহ এ লাঠিটি আমৃভ্যু তার তরবারির সঙ্গে রাখেন ৷ এটি কাফনের সঙ্গে যুক্ত
করা হয় এবং একই সাথে দুটিই দাফন করা হয় ৷ ইমাম আহমদ (র) ইয়াহ্ইয়া ইবন আদম —
আবদুল্লাহ ইবন উনাইস সুত্রে হাদীছটি বনাি করেছেন ঞান্; ইমাম আবু দাউদ (র) আবুমামার
আবদুল্লাহ ইবন উমাইস তদীয় পিতার সুত্রে অনুরুপভাবে হাদীসটি বর্ণনা করেছেন ৷
অনুরুপভাবে হাকিম বায়হাকী (র) ও মুহাম্মাদ ইবন সালামা আবদুল্লাহ ইবন উনইিস সুত্রে
হাদীছটি বর্ণনা করেন ৷ উপরন্তু উরওয়া ইবন যুবায়র এবং মুসা ইবন উকবাও তদীয় মাগাযী গ্রন্থে
মুরসালভাবে ঘটনাটি বর্ণনা করেছেন ৷ আল্লাহ্ই ভাল জানেন ৷

ইবন হিশামের বর্ণনা মতে আবদুল্লাহ্ ইবন উনাইস খালিদ ইবন সুফিয়ানের হত্যা সম্পর্কে
নিম্নোক্ত কবিতা আবৃত্তি করেন :



ঞ-এে প্রুএ্যা ;)ৰুএ ষ্া এ্যা১

আমি ইবন ছাওরকে উদ্রী শাবকের ন্যায় পতিত ছেড়ে এসেছি, আর তার চার পাশে

বিলাপরতা নারীরা বস্ত্র বিদীর্ণ করছিল ৷

আমি তার উপর হামলা চালাই হিন্দুস্তানী চকচকে তরবারি দ্বারা তার আর আমার পশ্চাতে

ছিল রমণীকুল ৷

আমি তাকে বলছিলাম যখন তরবারি তার মস্তক চুর্ণ করছিল, আমি হলাম উনাইস তনয়,

অশ্বারোহী কুলীন বংশের সন্তান ৷

আমি এমন লোকের সন্তান, যাকে মর্যাদা দানে কালের প্রবাহ কোন কার্পণ্য করেনি, আমি

ণ্এষ্এ-ষ্ন্
হুব্রা;প্রু
শ্রো
;এস্ত,

প্রশস্ত আঙ্গিনা বিশিষ্ট ঘরের সন্তান আমি নই কৃপণ ৷




পৃষ্ঠা ২৬৬ ঠিক করুন

আমি তাকে বললাম, মর্যাদাবানেৱ আঘাত গ্রহণ কর ৷

যে নবী মুহাম্মাদ (না)-এর দীনের জন্য সদা প্রন্তুত ৷

নবী যখন কোন কাফিরকে হত্যার সং কল্প করেন;

তখন আমি আর যবান তথা কাজেও কথায় তার দিকে এগিয়ে যাই ৷

আমি বলি, আবদুল্লাহ ইবন উনইিস ইবন হারাম আবু ইয়াহ্ইয়া আল-জুহানী ছিলেন মহান
মর্যাদার অধিকারী মশহুর সাহাবী ৷ যেসব সাহাবী আকাবার বায়আত, উহুদ খন্দক ও পরবর্তী
যুদ্ধসমুহে অংশ গ্রহণ করেছিলেন, ইনি ছিলেন তাদের অন্যত তম ৷ প্রসিদ্ধ উক্তি অনুযায়ী ৮০
হিজরীতে সিরিয়ার তিনি ইনতিকাল করেন ৷ অবশ্য কারো কারো মতে তিনি ৫৪ হিজরীতে
ইনতিকাল করেন ৷ আল্লাহ্ তাআলাই ভাল জানেন ৷ আলী ইবন যুবায়র এবং খলীফা ইবন
খাইয়্যাত পুর্বোক্ত আবদুল্লাহ ইবন উনইিস আবু ইয়াহ্ইয়া এবং আবদুল্লাহ ইবন উনইিস আবু ঈসা
আনসারীর মধ্যে পার্থক্য করেছেন ৷ আর এই আবুঈসা আনসারী সেই সাহাবী যিনি রাসুল (সা)
থেকে এ মর্মে হাদীছ বর্ণনা করেন যে, রাসুল করীম (সা) উহুদ যুদ্ধের দিন একটি পাত্রে পানি
আনতে বলেন ৷ তিনি পাত্রের মুখ খুলে পানি পান করেন ৷ ইমাম আবু দাউদ (র) এবং ইমাম
তিরমিযী (র) হাদীছটি আবল্লোহ্ আল উমরী সুত্রে ঈসা ইবন আবদুল্লাহ ইবন উনইিস তদীয় পিতার
বরাতে বর্ণনা করেছেন ৷ অবশ্য ইমাম তিরমিষীর মতে এ হাদীছের সনদ বিশুদ্ধ নয় এবং
আবদুল্লাহ আল-উমরী স্মৃতি তশক্তির দিক থেকে একজন দুর্বল রাবী ৷

হাবশা অধিপতি নাজাশীর সঙ্গে আমর ইবনুল আসের ঘটনা

আবু রাফি ইয়াহুদীর হত্যার ঘটনার পর মুহাম্মাদ ইবন ইসহাক আমর ইবন আস এর
য়বানীতে উদ্ধৃত ৩করে বলেন : খন্দক যুদ্ধের দিন আমরা যখন প্রতাবর্তন করি তখন আমি
কুর৷ ৷ইশের কতিপয় সমমনা ব্যক্তিকে সমবেত করে বললাম , আল্লাহর শপথ, তোমরা জানলে,
মুহাম্মাদের অনাকা ৷গ্রিত উন্নতি লাভ করছে ৷ আর এ ব্যাপারে আমি একটা বিষয় স্থির করেছি: যে
বিষয়ে ওে ৷মাদের মতামত কী ? তারা জা নতে চাইলো; তৃমি কী স্থির করেছ ? তিনি বললেন যে,
আমরা নাজাশীর কাছে গিয়ে সেখানে অবস্থান করবো, মুহাম্মাদ (সা) আমাদের জাতির উপর
জয়লাভ করলে আমরা নাজাশীর নিকটেই থেকে যাবো ৷ আর আমাদের জন্য মুহাম্মাদের অধীনে
থাকার চেয়ে নাজাশীর অধীনে থাকা অধিকতর প্রিয় আর যদি আমাদের জাতি জয়ী হয় তবেতাে
সকলেই জানবে যে, আমরা কারা ৷ এমতাবস্থায় তাদের পক্ষ থেকে আমাদের কল্যাণ ছাড়া
অকল্যাণ হবেন৷ ৷ একথা শুনে সকলেই বলে উঠলো; এটা হলো একটা কথার মত কথা ৷ আমি
বাংলায় : তাহলে নাজাশীকে উপচৌকন সামগ্রী সংগ্নহ কর ! আমাদের দেশ থেকে সবচেয়ে প্রিয়
যে বন্তুটা উপহার হিসাবে দেয়৷ যায়, তা হলো চামড়া, আমরা তার জন্য অনেক চামড়া সংগ্রহ
করলাম ৷ আমরা এসব উপহার সামগ্রী নিয়ে যখন তার দরবারে পৌছি যেমন সেখানে উপস্থিত
ছিলেন আমর ইবন উমাইয়৷ দিসারী ৷ রাসুল (সা) জাফর এবং তীর সঙ্গীদের ব্যাপারে একে
নাজাশীর দরবারে প্রেরণ করেন ৷ তিনি দরবারে প্রবেশ করে বেরিয়ে গেলে আ ৷মি আমার সঙ্গীদের
বললামচ এ হচ্ছেন আমর ইবন উমাইয়৷ ৷ আ ৷মি যদি নাজ৷ ৷শীব দরবারে উপস্থিত হয়েও তার নিকট
চেয়ে নেই ৷ আর তিনি তাকে আমার হাতে অর্পণ করেন তাহলে আমি তার গ্বার্দান উড়িয়ে দোবা ৷



Execution time: 0.03 render + 0.00 s transfer.