Login | Register

আল বিদায়া ওয়ান্নিহায়া - খন্ড ৪

পৃষ্ঠা ১৪৭ ঠিক করুন

হে আমার চোখ! অশ্রু বিসর্জন করে শোক প্ৰকাশ কর বি র-ই-মাউনার ঘটনায় নিহত
সাহাবীদের জন্যে ৷ অশ্রু ঝরাও প্রবল বেগে, একটুও কমতি করোনা ৷

অশ্রু বিসর্জন দাও রাসুলুল্লাহ্ (সা) এর প্রেরিত অশ্বারোহী বাক্ট্রলীর জন্যে যারা ভোরবেলায়

শত্রুপক্ষের মুখোমুখি হয়েছিলেন ৷ আর তখনই তাদের জন্যে নিংারিত মৃত্যু তাদেরকে পেয়ে
বসে ৷

; র্গোন্ং ৰু)ৰুট্রুছু ণ্ টুদ্বুৰু হুএে ৷ ’ ছু,ঠুাট্রুৰু
এমন এক সম্প্রদায়ের কারণে তাদের উপর মৃত্যু নেমে আ স যারাসম্পাদিত চুক্তিকে ওয়াদা
তলের মাধ্যমে বিশ্বাস ঘা৩ কতায় পরিণত করেছে ৷


আহ্ ৷ আমার দুঃখ হয়, যুনযিরের জন্যে ৷ তিনি দলের (নতৃতৃ গ্রহণ করেছিলেন এবং ভৈধর্যের
সাথে মৃত্যুকে আলিঙ্গন করেছিলেন ৷


আমার দুঃখ ওই দিন সকা ল যেলার ঘটনার জন্যে ৷ তিনি আ ক্রাম্ভ হয়েছিলেন ৷ তিনি সুদর্শন,
শ্রদ্ধাভা জন এবং আমর (রা) এর অম্ভরঙ্গ ৷

বনু নাযীরের যুদ্ধ
এ প্ৰসংগে সুরা হাশর নাযিল হয় ৷

সহীহ্ বুখারীতে ইবন আব্বাস (রা) থেকে বর্ণিত যে, তিনি এই সুরাকে সুরা বনু নাযীর নামে
আখ্যায়িত করতেন ৷ বুখারী (বা) যুহরী সুত্রে উরওয়া থেকে বর্ণনা করেছেন, তিনি বলেছেন যে ,
বদর যুদ্ধের ছয় মাস পরে এবং উহুদ যুদ্ধের পুর্বে বনুনাযীর যুদ্ধ অনুষ্ঠিত ৩হয় ৷ ইবন আবু হাতিম
তারাতাফসীর গ্রন্থে৩ার পিতা যুহরী থেকে অনুরুপ বর্ণনা করেছেন ৷ হাম্বল ইবন ইসহাক
যুহরী থেকে অনুরুপ বর্ণিত হয়েছে ৷ যুহরী বলেছেন যে, ২য় হিজরীর ১ ৭ই রমযান বদর যুদ্ধ
সংঘটিত হয় ৷ তারপর বনুনাযীর যুদ্ধ ৷ তারপর তৃতীয় হিজরীর শাওয়াল মাসে উহুদ যুদ্ধ সংঘটিত
হয় ৷ তারপর ৪র্থ হিজরীর শাওয়াল মাসে খন্দকের যুদ্ধ সংঘটিত হয় ৷ বায়হাকী (র) বলেন যে ,
যুহরী বলতেন, বনুনাযীর যুদ্ধ সংঘটিত হয় উহুদ যুদ্ধের পুর্বে ৷ অপর একদল ঐতিহাসিক বলেন
যে, বনু নাযীর যুদ্ধ অনুষ্ঠিত হয় উহু দ যুদ্ধের এবং বির-ই মাউনা অভিযানের পর ৷
আমি বলি, ঐতিহাসিক ইবন ইসহাকতাই উল্লেখ করেছেন যে, বনু নাযীর যুদ্ধ সংঘটিত
হয়েছে উহুদ যুদ্ধ ও ৰি র-ই-মাউনা অভিযানের পর ৷ করণ, বি র-ই মাউনার ঘটনা, সেখান
থেকে আমর ইবন উমাইয়া দিমারীর পালিয়ে আসা, আমর গোত্রের দুজন লোককে হত্যা করা


পৃষ্ঠা ১৪৮ ঠিক করুন

যাদের সাথে রাসুলুল্লাহ্ (না)-এর নিরাপত্তা চুক্তি ছিল অথচ আমর ইবন উমাইয়ার তা জানা ছিল
না, তাই রাসুলুল্লাহ্ (সা) বলেছিলেন “আমাকে তো ওদের রক্তপণ পরিশোধ করতে হবে” ৷ এ
সব ঘটনা উল্লেখ করার পর ইবন ইসহাক বলেছেন যে, এরপর রাসুলুল্লাহ্ (সা) বনুনাযীর গোত্রের
নিকট গেলেন ৷ তীর উদ্দেশ্য ছিল আমব ইবন উমাইয়া নিরাপত্তা চুক্তিপ্রাপ্ত আমির গোত্রের যে
দু’জন লোককে হত্যা করেছে তাদের রক্তপণ পরিশোধে বনু নাযীর ণ্:গাত্রের সহায়তা কামনা
করা ৷ বনু নাযীর ও বনু আমির গোত্রের মধ্যে পরস্পর মৈত্রীও নিরাপত্তা চুক্তি ছিল ৷ রাসুলুল্লাহ্
(না)-কে তারা আশ্বস্ত করল যে, আমরা ওই রক্তপণ পরিশোধে আপনাকে সাহায্য করব ৷ এরপর
তারা একাম্ভে মিলিত হল, এবং নিজেরা পরামর্শ করল যে, মুহাম্মাদ (সা ) কে হত্যা করার এমন
সুবর্ণ সুযোগ আর আমরা পাব না ৷ রাসুলুল্লাহ্ (সা) তখন তাদের একটি ঘরের দেয়ালের পাশে
বসা ছিলেন ৷ তারা বলল, কে আছে যে, ছাদে উঠে ওখান থেকে একটি পাথর ফেলে দিয়ে
মুহাম্মাদকে হত্যা করে আমাদেরকে তীর হাত থেকে নিকৃতি দেবে :ণ্ আমর ইবন জাহ্হাশ এগিয়ে
এসে বলল, আমি এ জন্যে প্রস্তুত আছ ৷ সে মতে পাথর নিক্ষেপের উদ্দেশ্যে সে ছাদে উঠে ৷
রাসুলুল্লাহ্ (সা) তখনও সেখানে একদল সাহাবীসহ বসা ছিলেন ৷ তাদের মধ্যে ছিলেন হযরত আবু
বকর (রা) উমর (রা) এবং আলী (রা) ৷ ওদের দুরভিসন্ধি সম্পর্কে রাসুলুল্লাহ্ (না)-এর নিকট
আসমানী সংবাদ এসে যায় ৷ তিনি কাউকে কিছু না বলে উঠে পড়েন এবং মদীনায় উদ্দেশ্যে যাত্রা
করেন ৷ দীর্ঘক্ষণ ঘটনাস্থলে ফিরে না আসার সাহাবীগণ তার খোজে বের হয়, মদীনায় দিক থেকে
আগত এক লোককে দেখে তারা রাসুলুল্লাহ্ (সা)-এর কথা তাকে জিজ্ঞেস করে ৷ যে ব্যক্তি
বলেছিল যে, আমি তো র্তাকে মদীনায় প্রবেশ করতে দেখেছি ৷ এ সংবাদ পেয়ে সাহাবীগণ
সকলে মদীনায় ফিরে এলেন এবং রাসুলুল্লাহ্ (সা) এর নিকট সমবেত হলেন ৷ তিনি ইয়াহুদীদের
বিশ্বাসঘাতকতার কথা তাদেরকে অবহিত করলেন ৷

ওয়াকিদী বলেন, এ ঘটনার পর বাসুলুল্লাহ্ (সা) মুহাম্মাদ ইবন যাসলামড়াকে এ বার্তাসহ বনু
নাযীর গোত্রের নিকট প্রেরণ করেন যে, তারা যেন তার নিকটস্থ এলাকা এবং র্তাব শহর ছেড়ে
চলে যায় ৷ অন্যদিকে মুনাফিকরা ওদের নিকট এ সংবাদ পাঠায় যে, তারা যেন কােনক্রমেই ওই
স্থান ত্যাগ না করে ৷ ওখানে অবস্থান করার জন্যে তারা ইয়াহুদীদেরকে উৎসাহিত করে , এবং
তাদেরকে সাহায্যের প্রতিশ্রুতিও দেয় ৷ মুনাফিকদের প্ৰরোচণার কারণে তাদের শক্তি বৃদ্ধি পায় ৷
ইয়াহুদী নেতা হুয়াই ইবন আখতার আত্ম-অহমিকায় স্ফীত হয়ে উঠে ৷ তারা রাসুলুল্লাহ্ (সা) এর
নিকট খবর পাঠায় যে, তারা ওই স্থান ছেড়ে যাবে না ৷ তারা এও জানায় যে, রাসুলুল্লাহ্ (না)-এর
সাথে তাদের সম্পাদিত চুক্তি তারা প্রত্যাহার করেছে ৷

এ অবস্থায় তিনি তাদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনার জন্যে ঘুসলমানদেরকে নির্দেশ দেন ৷
ওয়াকিদী বলেন, মুসলিম বাহিনী বনুনাযীর গোত্রকে একাধারে পনের দিন অবরুদ্ধ করে রাখেন ৷

ইবন ইসহাক বলেন, বাসুলুল্লাহ্ (সা) বনুনাযীর গোত্রের বিরুদ্ধে যুদ্ধ প্রস্তুতি গ্রহণ এবং যুদ্ধ
যাত্রার নির্দেশ দিলেন ৷ ইবন হিশাম বলেন, ওই সময় রাসুলুল্লাহ্ (সা) (আবদৃল্লাহ্) ইবন উম্মি
যাকতুম (রা) কে মদীনায় তার স্থলাভিষিক্ত করে যান ৷ এ ঘটনা ঘটেছিল রবীউল আওয়াল মাসে ৷
ইবন ইসহাক বলেন, মুসলিম বাহিনী যাত্রা শুরু করে ওদের নিকট পৌছেন ৷ র্তারা ওদেরকে


পৃষ্ঠা ১৪৯ ঠিক করুন

ছয়দিন অবরুদ্ধ করে রাখেন ৷ এ সময়ে মদ পান হারাম হওয়ার বিধান নাযিল হয় ৷ ইয়াহুদীরা
তাদের সুরক্ষিত দৃর্গে আশ্রয় নেয় ৷ রাসুলুল্লাহ্ (সা) মুসলিম বাহিনীকে ওদের থেজুর বাগান কেটে
ফেলার এবং তা পুড়িয়ে দেয়ার নির্দেশ দেয় ৷ এ সব দেখে ওরা দুর্গের ভেতর থেকে ডেকে
ডেকে বলে, হে মুহাম্মাদ (সা) ! আপনি (তা ফাসাদ ও ৰিশৃৎখল৷ সৃষ্টিতে ধারণ করেন, যে ব্যক্তি
তা করে তাকে দোষারোপ করেন এখন দেখি আপনিই খেজুর বাগান কেটে ফেলছেন এবং তা
পুড়িয়ে দিচ্ছেন, ব্যাপার কী ?

বর্ণনাকাৰী বলেন, বনুআওফ গোত্রের আবদুল্লাহ ইবন উবাই, ওয়াদিআহ, মালিক, সুওয়াইদ
ও দাইস সহ একদল লোক ইয়াহুদীদের নিকট এ বলে সংবাদ পাঠায় যে, তারা যেন ওখানে থেকে
যায় ৷ অন্যত্র না যায় ৷ নিজ নিজ বাসন্থানে থেকে আত্মরক্ষ৷ করে ৷ তারা এ-ও বলে যে, আমরা
তােমাদেরকে অসহায় অবস্থায় ফেলে রাখব না ৷ তোমরা যদি যুদ্ধের মুখোমুখি হও তবে আমরা
তোমাদের সাথী হয়ে মুসলিম বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করব ৷ ভোচ্;শ্দেয় যদি বহিষ্কার করা হয় তবে
আমরাও তোমাদের সাথে এ অঞ্চল ত্যাগ করে বেরিয়ে যাব ৷ অবরুদ্ধ অবস্থায় থাকাকালে
ইয়াহুদীপণ প্রতিশ্রুত সাহায্যের অপেক্ষায় ছিল ৷ কিন্তু মুনাফিকরা তাদের সাহায্যে এগিয়ে
আসেননি ৷ আল্লাহ্৩ তা আল৷ ইয়াহুদীদের অন্তরে ভীতিরও সঞ্চার করে দিলেন ৷ তারা রাসুলুল্লাহ্
(না)-এর নিকট দেশ ত্যাগের সুয়োগদানের অনুরোধ জানাল এবং এ আবেদন করল যেন
তাদেরকে প্রাণে মার৷ না হয় ৷ তারা প্রস্তাব পেশ করে যে, যাওয়ার সময় তারা উটের পিঠে যতটুকু
মালামাল বহন করা যায় শুধু ততর্টুকু নিয়ে যাবে, তবে কোন অস্ত্র শস্ত্র নিয়ে যাবে না ৷

আওফী বর্ণনা করেছেন ইবন আব্বাস (রা) থেকে যে, রাসুলুল্লাহ্ (সা) ওদের প্রতি
তিনজনকে একটি করে উট বরাদ্দ করেছিলেন যে, ওরা পালাক্রমে ওই উঠের পিঠে মাল বহন
করবে ৷ বায়হাকী এটি বর্ণনা করেছেন ৷ ইয়াকুব ইবন মুহাম্মাদ — মুহাম্মাদ ইবন মাসলামা
থেকে বর্ণিত যে, রড়াসুলুল্লাহ্ (সা) তাকে বনুনাযীর গোত্রের নিকট পাঠিয়েছিলেন এ নির্দেশ দিয়ে
যে, ওরা যেন তিন দিনের মধ্যে দেশত্যাগ করে ৷ বায়হাকী প্রমুখ উল্লেখ করেছেন যে, ওদের কিছু
মেয়াদী ঋণ বিভিন্ন জনের কাছে পা ওন৷ ছিল ৷ রাসুলুল্লাহ্ (সা) বলেন, ওগুলো ছেড়ে দাও এবং
তা ৷ ৩াড়ি দেশতাপ কর ৷ অবশ্য এই বর্ণনা টির বিশুদ্ধত৷ প্ৰশ্ন৷ ৷ডীত নয় ৷ আল্লাহ্ইতা ৷ল জা নেন ৷

ড়ইবন ইসহাক বলেন, উটের পিঠে যে পরিমাণ বহন করা সম্ভব ছিল ওই পরিমাণ মালামাল
নিয়েই তার৷ চলে যায় ৷ তাদের কেউ কেউ নিজ গৃহের দরজার চৌকাঠ ভেঙ্গে উটের পিঠে তুলে
নেয় ৷ এরপর তাদের কিছু সং ×খ্যক খায়বারে এবং কিছু সং ×খ্যক সিরিয়ায় চলে যায় ৷ যারা খায়বারে
গিয়েছিল তাদের মধ্যে ছিল নেত তৃন্থানীয় ব্যক্তি সালাম ইবন আবুল হুকায়ক কিনানা ইবন রাবী
ইবন আবু হুকায়ক, হ্য় ই ইবন আখতার প্রমুখ ৷ এরা খায়বরে গিয়ে পৌছলে সেখানকার
অধিবাসীরা এদেরকে নেতারুপে বরণ করে নেয় ৷ আবদুল্লাহ ইবন আবু বকর বলেছেন
যে, সেখানকার মহিলা, শিশু সহ সর্বস্তরের লোকজন হাতি-ঘোড়া, (ঢাল-তবলা বাশী-গায়িকা
সহকারে ওদেরকে অভ্যর্থ্যন৷ জানায় ৷ গৌরব ও অহংকার, আনন্দ ও খুশীতে ওরা সদ্যাগত ইয়াহ্রদী
নেতাদেরকে যেভাবে সম্বর্ধন৷ জানিয়েছিল সে যুগে কোন ব্যক্তি ও গোত্রের প্রতি তেমন সম্বর্ধনা
দেয়৷ হয়নি ৷ বংনািকারী বলেন, ওরা নিজেদের ধন-সম্পদ তথা খেজুর বাগান ও ফসলাদি


পৃষ্ঠা ১৫০ ঠিক করুন

রাসুলুল্লাহ (সা ) এর হাতে ছেড়ে যায় ৷ সুতরাং এটি ছিল তার এক ম্ভই নজ সম্পদ ৷ নিজ
ইচ্ছামত তিনি তা ব্যয় করার অধিকারী ছিলেন ৷ তিনি ওই ধন সম্পদ প্রথম স্তরের মুহাজিরদের
মধ্যে বন্টন করে দেন ৷ আনসারদেরকে এ যাত্রার কিছু দেননি ৷ তবে সাহ্ল ইবন হুনায়ফ এবং
আবু দুজ৷ ন৷ আনসাবী ছিলেন ব্যতিক্রম ৷৩ তারা দুজনে নিজনিজ অভাব ও দ্য ৷রিদ্রোর কথা রাসুলুল্লাহ্
(সা) কে ইতিপুর্বে জা ৷নিয়েছিলেন ৷ সে প্রেক্ষিতে রাসুলুল্লাহ্ (সা)ত তাদেরকে এ থেকে কিছুটা দান
করেন ৷ (কেউ কেউ এ দুজনের সাথে হারিছ ইবন সাম্মাহ এর নামও অন্তর্ভুক্ত করেছেন ৷ এটি
বংনাি করেছেন সুহায়লী) ৷

ইবন ইসহাক বলেন, বনুনাযীর গোত্রের দুজন লোক ব্যতীত কেউই ইসলাম গ্রহণ করেনি ৷
ইসলাম গ্রহণক৷ ৷রী দু’জন হলেন ইয়ামীন ইবন উমায়র ইবন বার এবং ন্মবুসাদ ইবন ওয়াহব ৷

ইয়ামীন হলেন আমর ইবন জাহ্হাদ্বশর চাচাত ভাই ৷৩ তারা নিজ নিজ ধন সম্পদ নিজ দখলে
রেখেছিলেন ৷

ইবন ইসহাক বলেন, ইয়ামীনের পরিবারের জনৈক ব্যক্তি আমাকে জানিয়েছে যে , রাসুলুল্লাহ
(সা) ইয়ামীনকে বলেছিলেন তোমার চাচাত ভাই আমর ইবন জাহ্হাশের পক্ষ থেকে আমি
কেমন কষ্টের মুখোমুখি হচ্ছি এবং আমার সাথে যে কী আচরণ করছে তা কি তুমি দেখছ না ?
ইয়ামীন জনৈক লোককে কিন্তু পা ৷বিশ্রমিকের বিনিময়ে আমর ইবন জাহহাশকে হত্যা করার জন্যে
নিযুক্ত করেন ৷ যে ঐ অভিশপ্ত ব্যক্তিটিকে হত্যা করল ৷
ইবন ইসহাক বলেন বনু নাষীর পােত্রকে উপলক্ষ করে আল্লাহ তাআলা পুর্ণ সুরা হাশর
নাযিল করেন ৷ ওদের বিরুদ্ধে আল্লাহ্৩ তা আল৷ কিভাবে প্ৰতিশোধ নিলেন কেমন শাস্তি দিলেন
রাসুলুল্লাহ্ (সা )-কে কেমন করে বিজয়ী করলেন এবং তিনি ওদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নিলেনত
সবই আল্লাহ তাআল৷ উক্ত সুরাতে ৩উল্লেখ করেছেন ৷ এরপর ইবন ইসহাক উক্ত সুরাবত তাফসীর
করেছেন ৷ আমরা তাফসীর গ্রন্থে ওই সুরার বিস্তারিত ব্যাখ্যা উল্লেখ করেছি ৷
বস্তুতঃ আল্লাহ তাআলা বলেন : এ;>ট্রু১া৷ শুওন্ ৷ৰুৰু টু ন্১ প্রুাগুশ্থ্এ ৷ ৰুস্দ্বু ৷ৰুৰু এ৷ ’৫র্দু ট্রু
ড্রুর্দু রুন্নুন্াব্লুং৷ ৷ মণ্ডলী ও পৃথির্বীর্তে যা কিছু আছে সবগুলোই আল্লাহ
তাআলার পর্বিত্রতা ও মহিম৷ ঘোষণা করে ৷ তিনি পরাক্রমশালী, প্ৰজ্ঞাময় ৷ তিনিই কিতাবীদের
মধ্যে যারা কাফির তাদেরকে প্রথম সমাবেশেই তাদের আবাসভুমি হতে বিতাড়িত করেছেন ৷
তোমরা কল্পনাও করনি যে, ওরা নির্বাসিত হবে এবং ওরা মনে করেছিল ওদের দুণ্ডে র্ভদ্য দৃর্গগুলো
আল্লাহর শাস্তি থেকে ওদেরকে রক্ষা করবে ৷ কিন্তু আল্লাহর শাস্তি এমন একদিক হতে আসল যা
ছিল ওদের ধারণাতীত এবং তাদের অম্ভরে তা ত্রাস সৃষ্টি করল ৷ ওরা ধ্বংস করে ফেলল
নিজেদের বা ৷ড়ীঘর নিজেদের হাতে এমনকি যুমিনদের হা তেও ৷ অতএব হে চক্ষুষ্ম ৷নরা ! তোমরা
উপদেশ ৷গ্রহণ কর ৷ আল্লাহ ওদের নির্বাসনের সিদ্ধান্ত না নিলে ওদেরকে পৃথিবীতে অন্য শাস্তি
দিতেন ৷ পরকালে ওদের জন্যে রয়েছে জাহান্নামের শাস্তি ৷ তা এ জন্যে যে, ওরা আল্লাহ ও তার
রাসুলের বিরুদ্ধাচরণ করেছিল ৷ এবং কেউ আল্লাহর বিরুদ্ধাচরণ করলে আল্লাহ তো শাস্তি দ৷ নে
কঠোর ৷ তোমরা যে খেজুর বৃক্ষগুলাে কর্তন করেছ এবং যেগুলো কাণ্ডের উপর স্থির রেখেছত
তা আল্লাহরই অনুমতিক্রমে; তা এজন্যে যে, আল্লাহ পাপাচ৷ ৷রীদের লাঞ্ছিত করবেন ৷ উক্ত আয়াত


পৃষ্ঠা ১৫১ ঠিক করুন

সমুহে মহান আল্লাহ নিজে নিজের পবিত্রতা ও মহিমার কথা জানিয়ে দিয়েছেন ৷ তিনি ঘোষণা
করেছেন যে, উর্ধ্বড়াকাশ ও পাতালে অবস্থানকারী তথা সকল সৃষ্টিকুল তার পবিত্রতা ও মহিমা
ঘোষণা করে ৷ তিনি অপ্রতিরােধ্য, পরাক্রমশালী ৷ তিনি স্ব-রক্ষিত ৷ তার সম্মান ও মর্যাদা বিনষ্টের
কথা কেউ কল্পনড়াও করতে পারে না ৷ তিনি যা সৃষ্টি করেছেন এবং যা বিধি বিধান জারী করেছেন
তার সর্বক্ষেত্রেই তিনি প্রজ্ঞার প্রকাশ ঘটিয়েছেন ৷ তিনি প্রজ্ঞামর ৷ তার প্রজ্ঞার অনন্য উদাহরণ
যে, তিনি রাসুলুল্লাহ্ (মা) ও ঈমানদার বান্দাদেরকে তাদের শত্রু ইয়াহুদীদের বিরুদ্ধে বিজয়
দান করেছেন ৷ ইয়াহ্রদীরা তো আল্লাহ্ ও তার রাসুলের বিরুদ্ধাচরণ করেছিল ৷ তারা রাসুলুল্লাহ্
(না) ও তার শরীআত প্রত্যাখ্যান করেছিল ৷ ওদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ণ্’ঘার্ষণার যে প্রেক্ষাপট সেটি
সৃষ্টিতেও মহান আল্লাহ্র হিকমতের পরিচয় পাওয়া যায় ৷ মহান অল্লোহ্র হিকমত ও প্রজ্ঞার
প্রেক্ষিতে রাসুলুল্লাহ্ (সা) ও তার সাথিগণ ইয়ড়াহুদীদেরকে অন্ন্ত্ত্বরুদ্ধ করে রাখেন ৷ সেখানে
আল্লাহর পক্ষ থেকে ভয়-ভীতি জারী করে দেয়া হয় ৷ বস্তুতঃ সৃ: লুল্লাহ্ (সা) কে আল্লাহ তা আলা
এক মাসের অতিক্রমযোগ্য দুরতু থেকে ডীতি সৃষ্টির ক্ষমতা দিয়ে সাহায্য করেছেন ৷ এতদ্সবুত্ত্বও
ঘটনস্থেলে গিয়ে রাসৃলুল্লাহ্ (সা) সশরীরে এবং সাহাবীগণকে নিয়ে ওদেরকে একাধারে ছয়দিন
অবরোধ করে রাখেন ৷ এর ফলে তাদের পক্ষ থেকে আক্রমণ আমার আশংকা পুরোপুরিই দুর
হয়ে গেল ৷ তারা উপড়ায়াম্ভর না দেখে সন্ধি সম্পাদনে বাধ্য হল জান বাচানাের জন্যে ৷ তারা চুক্তি
করল যে, এই শর্তে তারা প্রড়াণে রক্ষা পারে যে, যাবার সময় শুধু ততটুকু মালামালই নিয়ে
যাবে যতটুকু উটের পিঠে করে নেয়া সম্ভব ৷ তবে কোন অস্ত্র শস্ত্র তারা নেবে না ৷ এই চুক্তি
তাদের জন্যে অবমাননত্ত্বকর ও লাঞ্চুনাদায়ক বটে ৷ এরপর তারা নিজেদের হাতে এবং মুমিনদের
হাতে নিজেদের ঘর-রাড়ী ভেঙ্গে ফেলা শুরু করে ৷ সুতরাং হে দুরদৃষ্টিসম্পন্ন ব্যক্তিগণ ! তোমরা
শিক্ষা গ্রহণ কর ৷

এরপর আল্লাহ্ তাআলা উল্লেখ করেছেন যে, ওরা যদি নিবাসনে না যেত অর্থাৎ রাসুলুল্লাহ্
(না)-এর প্রতিবেশীতৃ ছেড়ে মদীনা ছেড়ে চলে না যেত তবে তারচেয়ে কঠিন শাস্তি অর্থাৎ
দুনিয়াতে খুন ও হত্যার শাস্তি তাদেরকে ভোগ করতে হত ৷ পরকালীন শাস্তি নির্ধারিত যন্ত্রণাদায়ক
আমার তো থাকবেই ৷

এরপর আল্লাহ্ তাঅড়ালা ওদের খেজুর বাগান জ্বালিয়ে দেয়া এবং কতক খেজুর বৃক্ষ অক্ষত
রাখার বিষয় উল্লেখ করেছেন ৷ তিনি বলেছেন যে, উৎকৃষ্ট খেজুর বৃক্ষের যেগুলো তোমরা কেটে
ফেলেছ এবং যেগুলো দন্ডায়মান রেখেছ তার সবইতাে আল্লাহ্র অনুমোদনক্রমে হয়েছে ৷ আল্লাহ্
তাআলা ভাগ্য নিধরিণ এবং নির্দেশ প্রণয়নের মাধ্যমে এ কাজ করার অনুমতি প্রদান করেছেন ৷
তাই এ কাজে তোমাদের কোন দোষ নেই ৷ এ ক্ষেত্রে তোমরা যা করেছ তা ফাসাদ বা
বিশৃৎখলার পর্যায়ে পড়ে না ৷ দুষ্ট লোকেরা অবশ্য এটাকে ফাসাদ বলেই গণ্য করে ৷ এটি ছিল
বরং মুসলিম বাহিনীর শক্তির বহিঃপ্রকাশ এবং কাফিরদের লাঞ্চুন৷ ও অবমাননার নিদর্শন স্বরুপ ৷

বুখারী ও মুসলিম দু’জনে কুতায়বা — ইবন উনার (রা) থেকে বর্ণনা করেছেন যে,
রাসুলুল্লাহ্ (সা) বনু নাযীর গোত্রের খেজুর বাগান জ্বালিয়ে দিয়েছেন এবং কতগুলো গাছ কেটে
ফেলেছেন ৷ ওই বাগানের নাম ছিল বুয়ায়রা ৷ এ প্রসংগে আল্লাহ্ তাআলা বলেন :


পৃষ্ঠা ১৫২ ঠিক করুন

শ্

“তোমরা যে খেজুর বৃক্ষগুলাে কেটেছ এবং যেগুলো কাণ্ডের উপর স্থির রেখে দিয়েছ তাতাে
আল্লাহ্রই অনুমতিত্রুমে; তা এজন্যে যে, আল্লাহ্ পাপাচারীদেরকে লাঞ্ছিত করবেন ৷ (৫৯-
হাশব : ৫)

বুখাবী জুওয়াইরিয়া ইবন আসৃমা সুত্রে ইবন উমার (রা) থেকে বংনিা করেছেন যে, রাসুলুল্লাহ্
(সা) বনু নাযীর গোত্রের এবং বুওয়াইরা খেজুর বাগান পুড়িয়ে দেন যা কেটে ফেলেছেন ৷ এ
প্রসৎরু গ হযরত হাসৃসান ইবন ছাবি৩ তার কবিতায় বলেন০ ং

ষ্

এশুট্রিপুষ্
বুওয়াযরা বাগান পুড়ে যাওয়া এবং বৃক্ষ গুলো ছাই হয়ে যাওয়াগুক কবনু লুওয়াই গোত্রের
নেতৃস্থানীয় লোকেরা নিতাম্ভ হাল্ক ল্কাভাবে গ্রহণ করেছে ৷

হযরত হাস্সানের উপরোক্ত কবিতার উত্তরে তৎকালীন কাফির নেতা আবু সুফিয়ান ইবনুল
হারিছ বলেছিল :


স্পো
আল্লাহ্ তা আলা এই অপকর্ম দীর্ঘস্থায়ী রাখতেন এবং বুওয়ায়রা বাগানের আশে পাশের
এলাকা য় স্থায়ী জ্বালানাে ডপাোনে র ব্যবস্থা করবেন ৷

অতি সতৃরতু মি জ নতে পারবে যে, আমাদের মধ্যে কে রক্ষা পাবে এবং তুমি আরো
জানতে পারবে আমাদের কােনৃ অঞ্চলে আমরা ধ্বংস সৃষ্টি করি ৷
ইবন ইসহাক বলেন, বনু নাযীর গোত্রকে বহিষ্কার এবং কবি ইবন আশরনাযীর হত্যার কথা
উল্লেখ করে তার ইবন যালিক কবিতায় বলেন :

; : ) ৷ : স্


বিশ্বাসঘাতকতার কারণে ইয়াহুদী পণ্ডি৩ রা অপমানিত হয়েছে ৷ যুগ এ রকমই পরিবর্জাশীল
যা চক্রাকারে আবাতত হয়

;

) :

তাএ জন্যে হল যে, তারা মহান প্রতিপালকের প্ৰতি কুফরী করেছে ৷ তারা অমান্য করেছে
তীর নির্দেশ ৷ অথচ তার নিদোা হল অত্যন্ত গুরুতুপুর্ণ নির্দেশ ৷

!০ স্ ণ্শ্ শ্ :৷ শ্ণ্ ব্লষ্ শ্ £ান্প্ £শ্ ষ্)ং)০
অথচ তাদেরকে দেয়া হয়েছিল বোধশক্তি ও জ্ঞান ৷ আর তাদের নিকট এসেছিলেন মহান
সতর্ককারী (মুহাম্মাদ মুস্তাফা (সা) ৷


পৃষ্ঠা ১৫৩ ঠিক করুন

) : )


তাদের নিকট এসেছেন সত্যবাদী সতর্ককা ৷রী ৷ তিনি পৌছিয়েছেন একটি কিতাব এবং সুস্পষ্ট
আয়াতসমুহ ৷ এগুলো আলো ঝলমল দেদীপ্যমান ৷

াংএট্রাছুট্র
তারা তাকে বলেছিল, আপনি কোন স৩ বিষয় নিয়ে আয়ুন্ন্ননি ৷ আমাদের পক্ষ থেকে
আপনি প্রত্যাখ্যা ৷ত হওয়ারই উপযুক্ত ৷
স্পো
তিনি বললেন, আমি বরং সত্য এবং হক নিষয়ই প্রচার করেছি পৌছিয়ে দিয়েছি ৷
ওয়াকিফহাল ও বুদ্ধিমান ব্যক্তিবর্গ সর্ব অবগত মহান আমার সত্যাফন করেন ৷

যে ব্যক্তি তার অনুসরণ করবে সে সকল প্রকারের হিদায়াতও সত্য পথের দিশা পাবে ৷ আর
যে ব্যক্তি ত ৷কে প্রত্যাখ্যান করবে তবে কা ৷ফিরের৷ তাে লাঞ্ছিতই হবে ৷

এংএছুটুএ ৷ এএ ৷ এ; ট্রুপ্রুসুণ্এ ৷ ৮ল্কির্ন্তটু ৷ & ৷এট্রুএটুদ্বু’৷ ৷ট্রুা৯
বিশ্বাসঘা৩ কত৷ ও কুফরী যখন তাদের স্বভাবে প্রকৃতিতে মিশে গিয়েছে এবং সতাচ্যুতি ও
সত্য থেকে পলায়ন যখন তাদের স্থায়ী অভ্যাসে পরিণত হয়েছে ৷


এএা
তখন আল্লাহ তা আল ৷নবী (সা) কে সত্য সিদ্ধান্ত গ্রহণের ৷ ওফীক প্রদ৷ ৷ন করলেন ৷ আল্লাহ্
তা আলা মীমাৎসা করেন এমন যীমাৎসা যাতে কোন প্রকারের যুলুম ও অবিচ৷ ৷র থাকে না ৷
আল্লাহ তাআলা তাকে সাহায্য করলেন এবং ওদের উপর বিজয়ী করলেন ৷ আল্লাহ যাকে
সাহায্য করেন যে অন্যতম উৎকৃষ্ট সাহায্যপ্রাপ্ত ৷

তাদের মধ্যে কা ’ব ইবন আশরাফ জঘন্যভ৷ বে বিশ্বাসঘাতকতা করেছিল ৷ এরপর তার মৃত্যুর
পরে বনু নাযীর গো ৷ত্র একেবারেই লাঞ্ছিত হয়ে পড়ে ৷
৷ শ্হ্নি
তারা দৃহাত জোড় করে আত্মসমর্পণ করে ৷ কাব-এর উপর আমাদের প্রসিদ্ধ বীর পুরুষগণ
বিজয়ী হন ৷

মুহাম্মাদ (সা) এর নিদােশ ক৷ ’ব এর ভাই রাণ্ডে তর বেলা তার নিকট যায় (হ৩া৷ করার জন্যে) ৷

২০মু —

পৃষ্ঠা ১৫৪ ঠিক করুন

) : ) শ্শ্শ্শ্শ্

সে তার সাথে কুট কৌশল অবলম্বন করে ৷৩ তাকে নীচে নামিয়ে আনে ৷৩ তার সাথে ছিল
সাহসী ও রিশ্বস্ত স৷ ৷থী মাহমুদ ৷

) :

স্পো ৷ ঞ

এই বনু নাযীর গোত্র অবস্থান গ্রহণ করছিল মন্দ অবস্থানে ৷ তাদের অপরাধের কারণে
সকারী তাদেরকে ধ্বংস করেছে ৷

একদিন সকাল বেলা ৷ সশস্ত্র মুজাহিদ বাহিনী নিয়ে ধীর পদক্ষেপে তাদের নিকট উপ
হলেন রাসুলুল্লাহ্ (সা) ৷ তাদের সকল কর্মকাণ্ড তার গোচরীভুত ছিল ৷


সাহসী পাসসান গোত্র শত্রুর বিরুদ্ধে তার সহযোগিতাকারী ছিল ৷ (উপস্থিত হল তারাও) তারা
ছিল গাসসান গোত্রের পরামর্শদাতা ৷

! : ! স্ ’; : শ্শ্শ্শ্শ্

তিনি গিয়ে বললেন, সাবধান! তোমরা আত্মসমর্পণ কর ৷ কিন্তু তারা উন্টোপথ অনুসরণ
করল ৷ মিথ্যা ও অসারতা ৩াদের কর্মকাণ্ডকে তুলপথে পরিচালিত করল ৷

ফলে তারা তাদেরকে ভুল পদক্ষেপের জন্যে থেসারত দিতে হল ৷ বেরিয়ে (গল প্ৰতি
তিনজনে একটি করে উট নিয়ে ৷

বুাণ্
তারা স্বেচ্ছায় দেশ ছেড়ে চলে গেল কায়নুক৷ গোত্রের সাথে মিলিত হওয়ার উদ্দেশ্যে ৷ তারা
রেখে গিয়েছিল খেজুর বাগান ও বহু ঘর-বাড়ী ৷

উপরোক্ত কবিতার প্ৰত্যুত্তরে সিমাল ইয়াহ্রদী যে করি৩ ৷ আবৃত্তি করেছিল ইবন ইসহাকত
উল্লেখ করেছিলেন ৷ আমরা ইচ্ছা ৷কৃতভ৷ বে তা বাদ দিয়েছি ৷ ইবন ইসহাক বলেন, বনু নাযীর যুদ্ধ
সম্পর্কে ইবন লুকায়ম আল আবাসী নিম্নের কবিতা আবৃত্তি করেন ৷ কেউ কেউ বলেছেন যে এটি
কায়স ইবন বাহ্র ইবন৩ ৷রীক আ ৷শজ৷ ৷-ঈ এর কবিতা ৷

ঝুহু;ৰু৷ ৷ এা৷া৷ ৷
আমার পরিবার কুরবানী হউক এমন এক লোকের জন্যে যিনি ধ্বংস হবার নন ৷ যিনি
ইয়াহুদীদেরকে জোরপুর্বক অপরিচিত স্থানে যেতে বা ব করেছেন ৷

) :

ন্শ্)০ র্চ শ্০
ট্রৰ্বাহ্র৫া


পৃষ্ঠা ১৫৫ ঠিক করুন

ইয়াহুদীগণ এখন উচু নীচু অমসৃণ পাথুরে অঞ্চলে শয়ন করে ৷ আর ফলদার খেজুর গাছের
পরিবর্তে তারা পেয়েছে কচি কচি থেজুরের চা ৷রা ৷

মুহাম্মাদ (সা) সম্পর্কে আমার যে ধারণা তা যদি সত্যি হয় তবে তোমরা দেখতে পারে যে,
তার অশ্ববাহিনী সালা ও ইয়৷ ৷রামরাম অঞ্চল পর্যন্ত পৌছে গিয়েছে ৷


ওই অশ্বারোহী দিয়ে তিনি আমর ইবন বাহছুাহকে পরাজিত ব ণ্বেন ৷ ওরা তো শত্রু পক্ষ ৷
বন্ধু গোত্র কখনো শত্রু ও অপরাধী গোত্রের ন্যায় হয় না ৷

টু১টুএ ৷ প্রু৷ ৷ ১১ ৷ ঐা১ ৷ ;)ং;);; হু; প্রু৷ ৷ ১ ৰু১ঢ়১’ ধ্া৷া ১ ৷ ঞা১া১
ওই অশ্বারাে ৷হীর নেতৃত্বে থাকবে সাহসী বীর পুরুষণণ, যাণ্ ৷ভ্রা৷ ৱহু৷ দ্ধর ময়দানে অগ্নিস্ফুলিঙ্গ সৃষ্টি
করেন ৷ শত্রুপক্ষের মযবুত ও কঠিন বশণ্ডিলোাক ৷ ৷ অনায়াসে ভেঙ্গে খান খান করে ফেলেন ৷

হু , : : এ » ! :০০০০

ড্রুহ্রপুষ্
ওই বীরদের হাতে ৩থাকবে দৃধার ভীক্ষ্ণ৩ রাভীয় তরব৷ ৷বি ৷ আ দ ও জুরহুম গোত্র থেকে বংশ্
পরম্পরায় তারা ওগুলাের ম৷ ৷লিক হয়েছে ৷

আমার পক্ষ থেকে কুরায়শদেরকে একটি বাণী পৌছিয়ে দেয়ার কেউ আছে কি ? আমি
ওদেরকে বলি যে, ওদের জন্যে মযদাি ও সম্মানের আর কিছু কি অবশিষ্ট আছে ?

৩ার৷ জেনে রাখুক যে, তাদের ভাই মুহাম্মাদ (সা)৩ ৷ তার উছিলায় হাজুন ও যামযাম এলাকা
বৃষ্টিস্নাত হয়ে উঠবে ৷


তোমরা যথার্থভ৷ ৷বে তার অনুসরণ কর ৷ তাহলে তোমাদের সকল কাজ কম সু সংগঠিত
সুন্দর হয়ে ৷ দৃনিয়াতে সকল উচ্চ ও মযাদ৷ ৷র স্থানে তোমরা আরোহণ করতে পারবে ৷

’ #

),;’,, ১১ ,;’ ংটুব্রর্দুট্রু১র্চুও ১াট্রু ৰু১১, ধ্া৷ ণ্১ ছুদ্বু১ ১াছু
তিনি এমন এক নবী যিনি সার্বক্ষণিক আল্লাহর পক্ষ থেকে রহমত প্রাপ্ত হন ৷ তবে কোন
অদৃশ্য বিষয় সম্পর্কে তােমরা তাকে জিজ্ঞেস করে৷ না ৷
ব্লুস্পো fl; ১ ৰু;াদ্বু ১১১
হে কুরায়শ গোত্র ! তোমাদের জন্যে তো শিক্ষা রয়েছে বদর যুদ্ধের মধ্যে এবং গোলাকার
কুয়ােগুলোর মধ্যে ৷


পৃষ্ঠা ১৫৬ ঠিক করুন

ব্লুষ্টুবুএ
স্মরণ কর সেই সকালের কথা যখন তিনি এলেন খায়রাজ গোত্রে ৷ তােমাদেরকে হিদায়াত
করার উদ্দেশ্যে ৷ মহান ও মযাদাবান আল্লাহ্ তাআলার অনুগত হয়ে ৷
ঝুর্দুছু;ছুন্ র্মুম্বু১ ৰু)ঠুছুন্ষ্টু৷ ৷ ট্রুস্পে ৰুাটুৰু) হুষ্টুৰুৰু; )“ €fl ৰুট্রুৰু ৷র্দুাছুপু
তিনি এলেন পবিত্র আত্মা জিবরাঈল (সা) এর সহযোগিতা পুষ্ট হন্;য় ৷ শত্রুর ষড়যন্ত্র ব্যর্থ
করে দিয়ে এবং বিভিন্ন নিদর্শনে সমুজ্জ্বল হয়ে দয়াময় আল্লাহর সত্য রাসুল রুপে ৷

৷ ট্রুধ্ন্ ৰুটুটু)
তিনি এসেছেন দয়াময় আল্লাহ্র রাসুল হিসেবে ৷ আল্লাহর কিতাব তিলৰ্ওয়াত করেন তিনি ৷
সত্য যখন উদ্ভাসিত ও আলোকময় হয়ে ছড়িয়ে পড়ে তখন সর্বত্র পৌছভে আর সময় লাগে না ৷
র্জুন্নু১এ র্চো)
আমি মনে করি৩ ৷ ৩ার বিষয়টি সর্বক্ষেত্রে প্রসারিত ও বর্ধিত ৩হবে ৷ মহান আল্লাহ্ যেটিকে হক
ও সতব্ররুপে প্রেরণ করেছেন সেটিকে বিজয়ী করার জন্যে ৷
ইবন ইসহ৷ ৷ক বলেন, আলী ইবন আবু তালিব এ প্রসৎগে নিম্নের কবিতা আবৃত্তি করেছেন ৷
ইবন হিশাম বলেনৰু এটি অন্য কো ন মুসলমানের কবিতা ৷ এটিকে আলী (বা ) এর কবিতারুপে
অভিহিত করেন এমন কাউকে আমি পাইনি ৷
ঠুদ্বুএ্ট্রুশ্১৷ ণ্পুট্রু ;ন্ট্রঠুছু
আমি উপলব্ধি করেছি ৷ যে কেউ নিরপেক্ষ দৃষ্টিতে দেখবে সেই উপলব্ধি করতে পারবে ৷
আমি সত্যরুপে বিশ্বাস করেছি ৷ আমি সত বিমুখ হইনি ৷

এ্ ৷ ) ১৷ ৷ রুব্লুাট্রু৷ ৷ ;১ ৰুা৷ ৷ প্রুএ টুস্পে ৰুা৷ ৷ ব্লুবুহ্রঠুএ ৷ ঝুাব্র ৷ ং ,;
আমি ময়বুত ও সুদৃঢ় বাণীগুলে৷ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিইনি ৷ এগুলে৷ তো এসেছে পরম
দয়াময় আল্লাহর পক্ষ থেকে ৷
ণ্ড্র ’াংং ং’ণ্ং৷ ৷ ’ণ্াছুন্ছু৷ ’ ং ৰু ১ ৷ টুৰুপ্রু ট্রু)ট্রুন্ৰুন্ন্টুৰুদ্বু ৷ ৰুন্;৷ ৰু,ৰুঠুণ্; ৰুান্;াঠু)
এগুলো আল্লাহর বাণী ৷ ঘু’মিনদের মধ্যে এগুলো পাঠ ও আলোচনা করা হয় ৷ এগুলো দিয়েই
আহমদ (না)-কে মনো ত করা হয়েছে ৷
এৰুগ্লু৷ ৷ট্রু রুছুাছুৰুট্রু৷ ৷ )ট্রুদ্বু;
তাই আহমদ (সা) আমাদের মধ্যে প্রিয় পাত্রে পরিণত হলেন ৷ তিনি সকল স্থানে প্রিয় ও
শক্তিমান ব্যক্তিরুপে আবির্ভুত হলেন ৷

শ্শ্শ্শ্শ্শ্শ্শ্শ্শ্শ্

সুতরাং হে লোক সকল যারা তাকে ভয় দেখাতে চাও অজ্ঞতারশত ৷ অথচ তিনি কখনো
কে কান অন্যায় করেননি এরংক কারো সাথে কঠোর আচরণ ৷করেননি ৷



Execution time: 0.05 render + 0.01 s transfer.