Login | Register

আল বিদায়া ওয়ান্নিহায়া - খন্ড ৩ : পৃষ্ঠা ১৫৫

আল বিদায়া ওয়ান্নিহায়া খন্ড ৩: পৃষ্ঠা - ১৫৫


গিট ধরে তিনি সজেড়ারে এক বাড়াকুনি দিলেন ৷ তারপর বললেন, “খাত্তাব তনয় ৷ কি উদ্দেশ্যে
এসেছ ? আল্লাহর কসম, তুমি এ মন্দ পথে থেকে যাও আর শেষ পর্যন্ত তোমার উপর আল্লাহর
গযব নাযিল হোক তা আমি চাই না ৷ এবার উমর বললেন ইয়া রাসুলাল্পাহ্! আমি এসেছি
আল্লাহ ও তার রাসুলের প্রতি ঈমান আনয়ন করার জন্যে এবং তার প্ৰতি আল্লাহর পক্ষ থেকে
নাযিলকৃত বিষয়ের প্রতি ৷ বর্ণনাকারী বলেন, একথা শুনে রাসুলুল্লাহ্ (সা) সজােরে তাকবীর
বলে উঠলেন ৷ তাতে ঐ ঘরে অবস্থানকারী সকলে বুঝে নিলেন যে, হযরত উমর (রা) ইসলাম
গ্রহণ করেছেন ৷ তখন থেকে সাহাবায়ে কিরড়াম (বা) ছেড়ে চারিদিকে ছড়িয়ে পড়েন এবং হযরত
হামযা (রা) এর ইসলাম গ্রহণের পর হযরত উমর (রা) বাড়ি ইসলাম গ্রহণ করায় মুসলমানদের
মনােবল বহুলাংশে বৃদ্ধি পায় ৷ তারা আশ্বন্ত হন যে, এরা দু’জনে এখন রাসুলুল্লাহ্ (না)-এর
পক্ষ থেকে প্রতিরোধ করবেন এবং এদের সাহায্যে মুসলমানগণ শক্রদের অত্যাচারের মুকাবিলা
করবেন ৷

ইবন ইসহাক বলেন, মদীনায় অবস্থানকারী বর্ণনাকায়িপণ হযরত উমর (রা) এর ইসলাম
গ্রহণ সম্পর্কে এরুপ বর্ণনা করেছেন ৷ ইবন ইসহাক বলেন, আবদুল্লাহ ইবন আবু নাজীহ মকী
তার সমসাময়িক আতা’ , মুজাহিদ এবং অন্যান্য বর্ণনাকারী থেকে হযরত উমরের ইসলাম গ্রহণ
সম্পর্কে তার নিজের বর্ণনা এভাবে উদ্ধৃত করেছেন যে, তিনি বলতেন আমি ইসলাম থেকে
বহুদুরে অবস্থান করছিলাম ৷ জাহিলী যুগে আমি মদ পানে আসক্ত ছিলাম ৷ মদ ছিল আমার প্রিয়
বন্তু ৷ আমি রীতিমত মদপান করতাম ৷ হাঘুরা নামক স্থানে আমাদের এক মদপানের আসর
বসত ৷ কুরড়ায়শের অভিজাত লোকজন সেখানে সমবেত হত ৷ এক রাতে আমি সাথীদের সঙ্গে
সাক্ষাতের জন্যে সেখানে যাই ৷ কিন্তু ওদের কাউকেই সেখানে পেলাম না আমি মনে মনে
বললাম , তাহলে অমুক মদ্যপের নিকট যাই আশা করি তার নিকট মদ পাব এবং সেখানে মদ
পান করব ৷ আমি তার বাড়ি পৌছি কিত্তু তাকেও পেলাম না ৷ এবার মনে মনে বললাম , এখন
যদি কাবাগৃহে গিয়ে সাতবার কিৎবা সত্তরবার তাওয়াফ করি , তবে তাওতো ভাল হয় ৷

হযরত উমর (রা) বলেন, এরপর আমি মাসজিদুল হারামে আসি ৷ হঠাৎ দেখতে পাই
রাসুলুল্লাহ্ (সা) দাড়িয়ে নামায আদায় করছেন ৷ তিনি তখন সিরিয়ার দিকে মুখ করে নামায
আদায় করতেন ৷ তার এবং সিরিয়ার মধ্যখানে থাকত কাবাগৃহ ৷ রুকন-ই-আসওয়াদ এবং
রুকন-ই-ইয়ামানীর মধ্যবর্তী স্থান ছিল তার নামাযের স্থান ৷ উমর (রা) বলেন, তাকে দেখে
আমি মনে মনে বললাম, আজ রাতে আমি যদি মুহাম্মদের কথাবার্তা ওনি, তাহলে আমি বুঝতে
পারব যে, তিনি কী বলেন ? আমি মনে মনে বললাম, তার কাছে গিয়ে আমি যদি শুনি, আহলে
তিনি আমাকে দেখে ফেলবেন এবং তাতে তার একাগ্রতা বিব্লিত হবে ৷ তাই আমি হড়াজারে
আসওয়ড়াদের দিকে আসি এবং কাবার গিলাফের মধ্যে ঢুকে পড়ি ৷ তারপর ধীরে ধীরে অতি
সন্তর্পণে অগ্রসর হই ৷ গিলাফের ভিতর দিয়ে যেতে যেতে আমি ঠিক তার সম্মুখে গিয়ে তার
দিকে মুখ করে দাড়িয়ে যাই ৷ তার মাঝে আর আমার মাঝে ব্যবধান শুধু কাবার পিলাফ টুকু ৷
তার কুরআন পাঠ শুনে আমার মন বিচলিত হয় ৷ আমার কান্না এসে পড়ে এবং ইসলাম আমার
অস্তরে স্থান করে নেয় ৷ রাসুলুল্লাহ্ (না)-এর নামায শেষ না হওয়া পর্যন্ত আমি ওখানে দাড়িয়ে



Execution time: 0.12 render + 0.00 s transfer.