Login | Register

আল বিদায়া ওয়ান্নিহায়া - খন্ড ১০

পৃষ্ঠা ৪৪৯ ঠিক করুন


করেন এবং অনতিবিলন্বে তাকে বরখাস্ত করে রবীউল আওয়াল সালে তার স্থানে বিশর ইবন

সাঈদ ইবনুল ওয়ালীদ আল-কিন্দীকে নিযুক্ত করেন ৷ এ বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে মাখয়ুমী কবিতা
রচনা করেন-

র্মী
ঠুৰুৰুশুষ্’ ফুএন্;রুএ ’ ন্াৰুহ্রা৷ ফ্রোষ্ <াৰু :শু১ছু ;১ণ্ষ্ ওঞা ষ্কুট্টশ্ছু
“শুনুন হে সম্রাট, নিজ প্রতিপা ৷লককে এক সাব্যস্তকারী ! আপনার কাযী বিশ ৷র ইবনুল ওয়া ৷লীদ
একটা গাধা ৷ যারা কিতাব (কুরআন) যা বলেছে এবং হাদীস যা বিবৃত করতে তার প্রতি ৩অনুগত

সে তাদের সাক্ষ্য রদ করে দেয় ৷ আর যারা বলে যে, সে একজন শা ৷য়খ দিগ দিগন্ত যাকে বেষ্টন
করে রয়েছে যে তাদের বিশ্বস্ত মনে করে ৷ ”

এ বছর সালিহ ইবন হারুন আর রশীদ ভাই মামুনের আদেশে হাজ্জর নেতৃত্ব প্রদান করেন ৷

এ বছর মৃত্যুবরণকারী বিশিষ্টদের তালিকায় রয়েছেন আসওয়াদ ইবন আমির, সাঈদ ইবন
আমির, অন্যতম শ্া৷য়খুল হাদীস আবদুল্লাহ ইবন বাকর ৷ হাজির (আমীনের সচিব) ফাযল
ইবনুর রাবী, মুহাম্মদ ইবন মুসআব, মুসা ইবন মুহাম্মদ আল-আমীন যাকে আমীন তার পরের
যুবরাজ ঘোষণা করেছিলেন এবং আন-নাতিক উপাধিতেণ্ডু ষি ষিতকরেছিলেন ৷ বিক্ষ্ম তার পিতা
নিহত হয়ে যাওয়ায় তার ক্ষমতা ভাগ্য সুপ্রসন্ন হয়নি (যা পুর্বে বর্ণিত হয়েছে) ৷ ইয়াহ্ইয়া ইবন
আবু বকর, ইয়াহ্ইয়া ইবন হাস্সান, ইয়াকুব ইবন ইব্রাহীম যুহরী এবং ইউনুস ইবন মুহাম্মাদ
আল-মুসাদ্দিব প্রমুখ ৷

সায়িদাে নাফীসা (র)-এর ওফাত

ইনি হলেন নাফীসা বিবৃত আবুঘুহাম্মদ আল-হাসান ইবন যায়দ ইবনুল হাসান ইবন আলী ইবন
আবুতা ৷লিব (রা) কুরায়শী, হাশিমী, তার পিতা (আবু মুহাম্মদ হাসান) মদীনায় পাচ বছর খলীফা
মানসুরের না ৷য়িব ছিলেন ৷ পরে কোন কারণে মানসুর৩ তার প্রতি অসস্তুষ্ট হলে র্ত ৷কে বরখাস্ত করেন
এবং তার যাবতীয় ন্থাবর অন্থাবর সম্পত্তি ও সঞ্চয় বাজেয়াপ্ত করলেন এবং তাকে বাগদাদে
কারারুদ্ধ করে রাখলেন ৷ মানসুরের মৃত্যু পর্যন্ত তিনি কারা রুদ্ধ রইলেন ৷ পরে (পরবর্তী খলীফা)
মাহদী তাকে মুক্তি দিলেন এবং তার সকল সম্পদও তাকে ফিরিয়ে দিলেন এবং একশ আটষট্টি
হিজরীতে তাকে সংে গে নিয়ে হাজ্জর উদ্দেশ্যে রওনা করলেন ৷ হাজির নামক স্থানে পৌছলে তিনি
ইনতিকাল করলেন ৷ খনত তার বয়স হয়েছিল পচাশি বছর ৷ নাস ৷সাঈ ইকরিমা সুত্রে ইবন আব্বাস
(বা) হতে তার এ হাদীস রিওয়ায়াত করেছেন, রাসুলুল্লাহ্ (সা) ইহরাম অবন্থায় শিংগা
লাগিয়েছেন ৷ ইবন মঈন ও ইবন আদী তাকে দুর্বল বলেছেন এবং ইবন হিব্বান তাকে ছিকা
প্রতায়ন করেছেন ৷ যুবায়র ইবন বাক্কার তার কথা আলোচনা করেছেন এবং তার
মাহাত্ম্য-অভিজা ৷ত্যের প্রশংসা করেছেন ৷

এখানে আমাদের মুখ্য বিষয় এই যে, এ আবুঘুহাম্মদের কন্যা নাফীসা তার স্বামী ইসহাক
আল-বিদায়৷ ওয়ান নিহায়৷ ( ১ :ম খণ্ড)-৫ ৭


পৃষ্ঠা ৪৫০ ঠিক করুন


ইবন জাফর আল-মু’তামানের সংগে মিসরে গমন করেছিলেন ৷ তিনি সেখানে বসবাস করতে
থাকেন ৷ তিনি ধনবতী ছিলেন এবং মানুষকে সাহায্য-সহযোগিতা করতেন ৷ কুষ্ঠরোপী ,বিকলাৎগ ,
প্ৰতিবন্ধী রোগাক্রান্ত নির্বিশেষে সাধারণ মানুষের প্ৰতি সাহায্যের হাত প্রসারিত করে রাখতেন ৷
অপরদিকে তিনি ছিলেন অধিক ইবাদা৩ কারিণী, দৃনিয়াত্যাপী ও অধিক পুণ্যবভী ৷ শাফিঈ (র)
মিসরে পৌছলে তিনি তার প্রতি ৩াগ্সহয়ে ৷গিত৷ ৷র হাত প্রসারিত করেন ৷ অনেক সময় শাফিঈ (র)
রমযানে তাকে নিয়ে সাল ৷ত আদায় করতেন ৷শ্ ৷৷ফি ঈ (র) এর ইনতিকা ৷ল হলে সায়িাদা নাফীসা
তার জানাযা নিয়ে আসতে বলেন এবং ত ৷র ৷বাড়িতে নিয়ে যাওয়া ৷হলে৩ তিনি তার জ ৷নায৷ পড়েন ৷
পরে নাফীসা ৷র মৃত্যু হলে৩ তার স্বামী ইসহাক ইবন জা ফর তাকে মদীনা শরীকৃফ নিয়ে দাফন করা
ইচ্ছা করেন ৷ তখন মিসরবাসী তাকে বাধা প্রদান করে এবং সেখানে তাকে দাফন করার আবেদন
করে ৷ তখন তাকে তার বসত বাড়িতেই দাফন করা হয় ৷ এটি মিসর ও কায়রোর মধ্যবর্তী স্থানে
প্রাচীন কাল হতে দারবুস সিবা নামে পরিচিত একটি মহল্লা ৷৩ তিনি এ বছরের রমায৷ নে ইনতিকাল
করেন ৷ এ বর্ণনা ইবন খ ৷ল্লিক৷ ৷নের ৷ তিনি আরো বলেছেন, মিসরবাসীরাও তার ৷প্ৰতি অতিশয় ভক্তি
আপুত ৷ আমার (গ্রস্থুকারের) বক্তব্যং : সাধারণ মানুষ আজ পর্যন্ত তার প্রতি এবং এ ধরনের
অন্যান্য বুযুর্গদের ভক্তি আতিশয্যে সীমালংঘন করে চলছে ৷ বিশেষত মিসরবাসীরা ৷ তারা তার
সম্পর্কে সীমালংঘনকারী অনুমান নির্ত্যা এমন অনেক অলীক কথা বলে যা শিবৃক ও কুফরী পর্যন্ত
পৌছে দেয় ৷ তাদের ব্যবহৃত অনেক শব্দ ও বাক্য জাইয হওয়ার কোন সুত্র নেই ৷
কেউ কেউ তার বংশধা রা যায়নুল আবিদীন (আলী ইবনুল হুসায়ন (বা) এর স০ গে সম্পৃক্ত
করেছেন ; বাস্তবে তিনি এ ব০ শধারার (অর্থাৎ হুসায়নী) নন ৷ (তিনি হাসানী) এবংত র সম্পর্কেও
তেমনই পরিসীমিত সৃধারণ৷ পোষণ করা কর্তব্য বা তবে অনুরুপ অন্যান্য নেক্ক৷ র নারীদের
সম্পর্কে পোষণ করা হয় ৷ কেননা, মুর্তিপুজার মুল সুএই হচ্ছে কবর ও তার বাসিন্দাদের ব্যাপারে
ভজিং আতিশয্য ৷ অথচ নবী করীম (সা) কবর সমতল করে রাখার এবং চিহ্ন বিহীন করে রাখার
আদেশ দিয়েছেন ৷ ছাড়া মানুষের ব্যাপারে অতি ভক্তি ওে ৷ হারাম ৷ আর যে দাবী করে যে, তিনি
কাঠখণ্ডের আবদ্ধত৷ হতে ৩মুক্তি দেয়ার অথবা আল্লাহর ইচ্ছা ও মর্ষী ব্যতীত কে ৷ন লাভক্ষতি

করার ক্ষমতা রাখেন ৷ সে তৌ ঘুশরিক ৷ (আল্লাহ্ এ পুণ্যবভী নারীকে রহম করুন ও মর্যাদা
মণ্ডিত করুন !)

উযীর ফাযল ইবনুর রাবী

বংশধারা : ফাযল ইবনুর রাবী ইবন ইউনুস ইবন মুহাম্মদ ইবন আবদুল্লাহ ইবন আবু
ফারওয়া; কায়সান উছমান ইবন আফ্ফান (রা)-এর মাওল৷ (আযাদকৃত দাস) ৷ ফাযল হারুনুর
রশীদের দৃষ্টিতে যোগ্যত,ার পাত্র ছিলেন ৷ বারমাকীদের প্রতিপত্তি তার হাতেই নিঃশেষ হয়েছিল ৷
কিছু দিন তিনি৷ হ৷ রুনুর রশীদের উযীরও ছিলেন ৷৩ তিনি ও বা ৷রমাকীরা পরস্পরের আচার আচরণের
অনুকরণ ও সাদৃশ্য অর্জনে যত্ববান ছিলেন ৷ তিনি অৰিরাম তাদের হটিয়ে দেয়ার চেষ্টা অব্যাহত
রাখেন এবং এক সময় তারা নিঃশেষ হয়ে যায় (যা পুবে বর্ণিত হয়েছে) ৷ ইবন খাল্লিকান উল্লেখ
করেছেন, একদিন এ ফাযল ইয়াহ্ইয়৷ ইবন খালিদ বারমাকীর কাছে গেলেন ৷ তখন তার পুত্র
জাফর তার সামনে বসে স্বাক্ষর করিয়ে নিচ্ছিলেন ও সীলমােহর করছিলেন ৷ ফাযলের সংগে ছিল
দশটি আবেদন পত্র ৷ তিনি এগুলোর একটিরও কাজ সমাধ৷ করলেন না ৷ তখন ফাযল সেগুলো



Execution time: 0.02 render + 0.00 s transfer.