Login | Register

ফতোয়া: জাকাত

ফতোয়া নং: ৬১০৬
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

আমাদের এক গরীব প্রতিবেশী বিদ্যুতের সাইট লাইন ব্যবহারের দায়ে আটক...

প্রশ্ন

আমাদের এক গরীব প্রতিবেশী বিদ্যুতের সাইট লাইন ব্যবহারের দায়ে আটক হন। পরে তার এবং তার পরিবারের অনুরোধে আমার পিতা তাকে জেল থেকে ছাড়িয়ে আনেন। এবং নিজের যাকাতের টাকা থেকে ঐ ব্যক্তির অনুমতিক্রমে তার জরিমানাসহ বিদ্যুত অফিসের বিল পরিশোধ করেন। এমতাবস্থায় আমার পিতার যাকাত আদায় হয়েছে কি? জানালে উপকৃত হব।

উত্তর

হ্যাঁ, প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে ঐ ব্যক্তির অনুমতিক্রমে তার বিল পরিশোধ করে দেওয়ার দ্বারা আপনার পিতার যাকাত আদায় হয়ে গেছে।

-মুসনাদে আহমদ ৩৪/২০৬; তাফসীরে ইবনে কাসীর ২/৫৬৯; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ৩/২৭২; বাদায়েউস সানায়ে ২/১৪৩; কিতাবুল আসল ২/১১; ফাতহুল কাদীর ২/২০৮

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬০৬৭
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

আমাদের এলাকায় একজন গরীব মহিলা অসুস্থ হয়ে পড়েন। তার স্বামী...

প্রশ্ন

আমাদের এলাকায় একজন গরীব মহিলা অসুস্থ হয়ে পড়েন। তার স্বামী ভালো চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকায় নিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নেয়। তখন আমি আমার যাকাতের টাকা দিয়ে তার অবগতি ছাড়াই অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া পরিশোধ করি। এর দ্বারা কি আমার যাকাত আদায় হয়েছে?

উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে আপনি যদি রোগী বা তার স্বামীর অনুমতি ছাড়াই ঐ বিল পরিশোধ করে থাকেন তবে এ টাকা দেওয়ার দ্বারা আপনার যাকাত আদায় হয়নি। কেননা যাকাত গ্রহণের যোগ্য ব্যক্তির অনুমতি ছাড়া তার পাওনা পরিশোধ করে দিলে যাকাত আদায় হয় না। তবে প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে রোগীর কোনো গরীব আত্মীয়, যে যাকাত গ্রহণ করতে পারে তার অনুমতি নিয়ে যদি তার পক্ষ থেকে বিল পরিশোধ করে দিতেন তাহলেও যাকাত আদায় হয়ে যেত। এক্ষেত্রে যার অনুমতি নেওয়া হয়েছে তাকে যাকাত দেওয়া হয়েছে বলে ধর্তব্য হবে।

-আলবাহরুর রায়েক ২/২৪৩; হেদায়া ২/২০৮; আদ্দুররুল মুখতার ২/৩৪৪, ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ৩/২১২

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬০৫৮
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

আমার স্বামী একজন ব্যবসায়ী। তিনি বছরের বিভিন্ন সময়ে এবং প্রতি...

প্রশ্ন

আমার স্বামী একজন ব্যবসায়ী। তিনি বছরের বিভিন্ন সময়ে এবং প্রতি ঈদে আমাকে দামী দামী অনেক কাপড় চোপড় কিনে দেন। তাছাড়া অনেকে থ্রীপীছ, শাড়ি ইত্যাদি গিফট করে থাকে। ফলে কাপড়ের সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলছে। এখন তো দুই আলমারিতেও জায়গা হয় না। অথচ সেগুলোর মাঝে মাত্র কয়েক সেট নিয়মিত ব্যবহার হয়। প্রশ্ন হচ্ছে, এই কাপড়গুলোর উপর যাকাত আসবে কি? জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

না, ঐ কপড়গুলোর যাকাত দিতে হবে না। কেননা তা ব্যবহারের কাপড়। ব্যবহারের কাপড়চোপড় প্রয়োজনের অতিরিক্ত ও মূল্যবান হলেও তার উপর যাকাত আসে না। কিন্তু স্বর্ণ, রূপার অলংকার ব্যবহারের জন্য হলেও তার যাকাত দিতে হয়।

উল্লেখ থাকে যে, ঐ কাপড়গুলোর উপর যাকাত না আসলেও তা থেকে নফল সাদকা করা যায়। কেননা হাদীস শরীফে ব্যবহৃত কাপড় সদকা করার প্রতি উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে এবং এ ধরনের কাপড় সদকা করার ফযীলতও অনেক। যেমন

উমর রা. বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছি যে, যে ব্যক্তি নতুন কাপড় পরিধান করে

الحمد لله الذي كساني ما أواري به عورتي وأتجمل به في حياتي

এ দুআটি পড়বে অতঃপর পুরাতন কাপড়টি সদকা করে দিবে সে আল্লাহ তাআলার হেফাযত ও নিরাপত্তায় থাকবে এবং জীবনে ও মরণে আল্লাহ তাআলার পথে থাকবে। (জামে তিরমিযী, হাদীস ৩৫৬০)

কিতাবুল আছল ২/৯৭; আদ্দুররুল মুখতার ২/২৬৪; বাদায়েউস সানায়ে ২/৯১; আলবাহরুর রায়েক ২/২০৬; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/১৭২

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬০৪৩
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

আমার ফুফুর চারজন ছোট ছোট সন্তান আছে। তার স্বামী একজন...

প্রশ্ন

আমার ফুফুর চারজন ছোট ছোট সন্তান আছে। তার স্বামী একজন শ্রমিক। তিনি সারাদিন মজদুরি করে যে অর্থ পান তা দিয়ে তাদের সংসারের ব্যয় নির্বাহ করা সম্ভব হয় না। আর ভিটেমাটি ছাড়া তাদের অন্য কোনো সম্পদ নেই এবং আমার ফুফুর ব্যক্তিগতভাবে কোনো অলংকার বা নগদ টাকা-পয়সাও নেই। প্রশ্ন হল, আমি আমার যাকাতের টাকা উক্ত ফুফুকে দিতে পারব কি না?

উত্তর

হ্যাঁ, আপনি ঐ ফুফুকে যাকাত দিতে পারবেন। তাঁকে যাকাত দিলে যাকাত আদায়ের সওয়াব হবে এবং আত্মীয়তার হক আদায়েরও সওয়াব হবে।

-ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/১৯০; আলবাহরুর রায়েক ২/২৪৩; ফাতহুল কাদীর ২/২০৯; হাশিয়াতুত তাহতাবী আলাল মারাকী ৩৯৩

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬০২৪
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

আমাদের দুটি কবুতর ছিল। হঠাৎ একটি কবুতর হারিয়ে যায়। কিছুদিন...

প্রশ্ন

আমাদের দুটি কবুতর ছিল। হঠাৎ একটি কবুতর হারিয়ে যায়। কিছুদিন পর যে কবুতরটি ছিল তার সাথে বাইরের অন্য একটি কবুতর এসে মিলিত হল। এরপর বাইরের কবুতরটি ডিম পেড়ে অনেকগুলো বাচ্চা ফুটিয়েছে। আমরা ঐ বাচ্চাগুলোর কিছু খেয়েছি, কিছু বিক্রি করেছি। এখন আমার জানার বিষয় হল, এ দুটি কবুতরের একটি আমাদের, অন্যটি কার- তা জানা যায়নি। এমন অবস্থায় বাচ্চাগুলি খাওয়া বা বিক্রি করা কি ঠিক হয়েছে? যদি ঠিক না হয়, তাহলে আমরা কী করতে পারি? ঐ কবুতর এবং তার অবশিষ্ট বাচ্চাগুলিই বা কী করব?

বিস্তারিত জানালে খুশি হব।

উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে কবুতরটির মালিক পাওয়া গেলে ঐ কবুতর এবং তার অবশিষ্ট বাচ্চাগুলো মালিককে দিয়ে দিতে হবে। আর যা খাওয়া বা বিক্রি করা হয়েছে সেগুলোর মূল্যও তাকে দিয়ে দিতে হবে। কিন্তু যদি মালিক না পাওয়া যায় এবং ভবিষ্যতেও পাওয়ার সম্ভাবনা না থাকে, আর আপনারা যাকাত গ্রহণের উপযুক্ত গরীব হয়ে থাকেন তাহলে নিজেরাই ঐ কবুতর এবং অবশিষ্ট বাচ্চাগুলো রেখে দিতে পারবেন। আর যা খেয়েছেন বা বিক্রি করেছেন, তার মূল্যও সদকা করতে হবে না।

কিন্তু যদি আপনারা যাকাত গ্রহণের উপযুক্ত দরিদ্র না হয়ে থাকেন তাহলে ঐগুলো মালিকের পক্ষ থেকে সদকা করে দিতে হবে। আর যা বিক্রি করা হয়েছে সেগুলোর মূল্যও সদকা করে দিতে হবে।

-মাবসূত, সারাখসী ১১/১০; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ৭/৪২২; আদ্দুররুল মুখতার ৪/২৮১; বাদায়েউস সানায়ে ৫/২৯৬; ফাতহুল কাদীর ৫/২৫২

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬০১৭
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

এক ব্যক্তির ঢাকা শহরে বেশ কিছু জমি আছে। যার বর্তমান...

প্রশ্ন

এক ব্যক্তির ঢাকা শহরে বেশ কিছু জমি আছে। যার বর্তমান মূল্য কয়েক কোটি টাকা। ঐ জমিগুলো ক্রয় করার সময় তার বিক্রি করা উদ্দেশ্য ছিল না। বরং তিনি সম্পত্তি গড়ার উদ্দেশ্যে ক্রয় করেছিলেন। অবশ্য পাশাপাশি এই নিয়তও ছিল যে, কখনো ভালো দাম পাওয়া গেলে বিক্রি করে দিবেন। তার ঐ জমিগুলোর উপর যাকাত আসবে কি না? জানালে খুশি হব।

উত্তর

প্রশ্নের বর্ণনা অনুযায়ী ঐ ব্যক্তি যেহেতু জমিগুলো মূলত সম্পদ গড়ার উদ্দেশ্যেই ক্রয় করেছে, বিক্রি তার মূল উদ্দেশ্য ছিল না তাই উক্ত জমির উপর তাকে যাকাত দিতে হবে না।

-বাদায়েউস সানায়ে ২/১১১; আদ্দুররুল মুখতার ২/২৭৩; কিতাবুল আছল ২/৯৭

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬০১৬
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

আমার ভগ্নিপতির অস্বচ্ছলতার কারণে ভাগ্নে-ভাগ্নিদের নিয়ে বোন অনেক কষ্টে জীবন...

প্রশ্ন

আমার ভগ্নিপতির অস্বচ্ছলতার কারণে ভাগ্নে-ভাগ্নিদের নিয়ে বোন অনেক কষ্টে জীবন যাপন করছে। পাশাপাশি ভগ্নিপতির মানসিক সমস্যা। এ কারণে আরো জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে। এ অবস্থায় আমি কি আমার বোনকে যাকাতের টাকা দিতে পারব? জানালে উপকৃত হব।

উত্তর

বোন যাকাত গ্রহণের উপযুক্ত হলে তাকেও যাকাত দেওয়া যায়। তাই আপনার বোনের নিকট প্রয়োজনের অতিরিক্ত নেসাব পরিমাণ কোনো সম্পদ (যেমন-টাকা-পয়সা, স্বর্ণ অলঙ্কার কিংবা প্রয়োজন অতিরিক্ত মূল্যবান অন্যান্য সম্পদ) না থাকলে তাকে যাকাত দিতে পারবেন। বরং এমন গরীব নিকটাত্মীয়দেরকে যাকাত দেওয়া উত্তমও বটে। কিন্তু যদি তার নিকট প্রয়োজন অতিরিক্ত নেসাব পরিমাণ কোনো সম্পদ থাকে তাহলে যাকাত দেওয়া যাবে না। বরং সেক্ষেত্রে তাদেরকে নফল দান-সদকা দ্বারা সহায়তা করবেন।

-মুসান্নাফ আবদুর রাযযাক, হাদীস : ৭১৭১; কিতাবুল আছল ২/১৪৮; বাদায়েউস সানায়ে ২/১৬২

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৯৭২
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

আমার স্ত্রীর উপর তার নিজস্ব স্বর্ণালংকারের কারণে যাকাত ফরয। আমাদের...

প্রশ্ন

আমার স্ত্রীর উপর তার নিজস্ব স্বর্ণালংকারের কারণে যাকাত ফরয। আমাদের বিবাহ হয়েছে প্রায় এক বছর হল। বিয়ের পর থেকেই স্ত্রী আমাকে বলছে যে, আমার অলংকারের যাকাত কিন্তু তুমি আদায় করবে।

আমার প্রশ্ন হল, স্ত্রীর অলংকারের যাকাত কার উপর ফরয? স্ত্রীর সম্পদের যাকাত আদায় করা কি স্বামীর দায়িত্ব?

উত্তর

স্ত্রীর অলংকারের যাকাত আদায় করা স্ত্রীর উপরই ফরয। যাকাত সম্পদের মালিকের উপরই ফরয হয়। অবশ্য স্বামী যদি স্ত্রীর অনুরোধে বা অনুমতিক্রমে খুশি মনে স্ত্রীর যাকাত আদায় করে দেয় তবে তা আদায় হয়ে যাবে। এবং স্বামী সওয়াবের ভাগী হবে। বরং সামর্থ্যবান স্বামীর জন্য অর্থের সাথে জড়িত ফরযগুলো আদায়ের ক্ষেত্রে স্ত্রীর সহযোগিতা করাই বাঞ্ছনীয়।

-মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা ৬/৪৭০, ৮/২৩০; আহকামুল কুরআন জাসসাস ৩/১০৭; আদ্দুররুল মুখতার ২/২৯৮; সুনানে আবু দাউদ, হাদীস : ১৫৬০

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৯৭১
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

আমার এক ভাতিজা মাদরাসায় পড়ে। গত রমযানে আমার যাকাত বাবদ...

প্রশ্ন

আমার এক ভাতিজা মাদরাসায় পড়ে। গত রমযানে আমার যাকাত বাবদ পাঁচ হাজার টাকা তাকে দিয়ে বললাম, তুমি এ টাকাটা তোমাদের মাদরাসার যাকাত ফান্ডে আমার নামে জমা করে দিও। কিন্তু ঘটনাক্রমে মাদরাসায় যাওয়ার পথে টাকাসহ তার ব্যাগটা গাড়ি থেকে চুরি হয়ে যায়। সে বিষয়টি আমাকে পরপরই জানায়। সামনে কয়েক মাস পর আবার রমযান মাস আসছে। আমি রমযানে যাকাত আদায় করি। এখন প্রশ্ন হচ্ছে, গত বছরের ঐ যাকাত কি আমার আদায় হয়েছে? নাকি তা পুনরায় আদায় করতে হবে।

উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে প্রতিনিধির নিকট থেকে যাকাতের টাকা হারিয়ে যাওয়ার কারণে যাকাত আদায় হয়নি। সুতরাং আপনাকে পুনরায় ঐ যাকাত আদায় করতে হবে। হাম্মাদ রাহ.কে এক ব্যক্তি সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হল যে, কারো মাধ্যমে নিজের যাকাতের অর্থ যাকাত গ্রহণের উপযুক্ত ব্যক্তির নিকট প্রেরণ করল। কিন্তু ঐ ব্যক্তির নিকট যাকাতের অর্থ পৌঁছার আগেই তা নষ্ট হয়ে গেল। তার সম্পর্কে তিনি বলেন, এটি ঐ ব্যক্তির মতো যে তার পাওনাদারের নিকট ঋণের অর্থ পাঠাল কিন্তু ঐ অর্থ তার কাছে পৌঁছার আগেই তা নষ্ট হয়ে গেল। (তো এক্ষেত্রে যেমনিভাবে এ ব্যক্তির ঋণ আদায় হয়নি। তেমনিভাবে ঐ লোকের যাকাতও আদায় হবে না।)

-মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা ৬/৫৩১; আদ্দুররুল মুখতার ২/২৭০; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ৩/২১২; আলবাহরুর রায়েক ২/২১১

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৯৭০
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

আমার যাকাতের টাকা স্ত্রীর কাছে একসাথে দিয়ে বলে দেই যে,...

প্রশ্ন

আমার যাকাতের টাকা স্ত্রীর কাছে একসাথে দিয়ে বলে দেই যে, যারা বাসায় এসে যাকাত চায় বা কোনো অসহায় লোক আসে তাদেরকে এই টাকা থেকে দিবে। সে এই টাকাগুলো ভিন্ন ব্যাগে সংরক্ষণ করে। এবং সেখান থেকে ফকির মিসকীনকে দিতে থাকে। কিন্তু সে দেওয়ার সময় প্রায়ই যাকাতের নিয়ত করতে ভুলে যায়।

এ ব্যাপারে আমার প্রশ্ন হল, এক্ষেত্রে গরিবকে দেওয়ার সময় আমার স্ত্রীর জন্য যাকাতের নিয়ত করতে হবে? যদি সে নিয়ত ছাড়াই যাকাতের এই টাকা দিয়ে দেয় তাহলে তা আদায় হবে কি?

উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে আপনার যাকাত আদায় হয়ে যাবে। কেননা স্ত্রীর কাছে যাকাতের টাকা দেওয়ার সময় যেহেতু আপনি যাকাতের নিয়তেই দিয়ে থাকেন এবং স্ত্রীও তা পৃথকভাবে রেখে মিসকীনকে দেয় তাই এক্ষেত্রে ফকীর-মিসকীনকে দেওয়ার সময় স্ত্রী নিয়ত না করলেও সমস্যা নেই। যাকাত আদায় হয়ে যাবে।

-ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ৩/১৯৭; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/১৭০-১৭১; আদ্দুররুল মুখতার ২/২৬৮; আলবাহরুর রায়েক ২/২১০

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৯৫৬
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

আমাদের অনেকগুলো হাঁস আছে। গত বর্ষায় অন্যের একটি হাঁস আমাদের...

প্রশ্ন

আমাদের অনেকগুলো হাঁস আছে। গত বর্ষায় অন্যের একটি হাঁস আমাদের হাঁসের সাথে চলে আসে। অনেক খোঁজার পরও হাঁসটির মালিকের সন্ধান পাওয়া যায়নি। এখন ঐ হাঁসটি ডিম দিচ্ছে। প্রশ্ন হল, ঐ হাঁস ও ডিমের ব্যাপারে শরীয়তের বিধান কী?

উত্তর

বাস্তবেই যদি হাঁসটির মালিক পাওয়া না যায় তাহলে ঐ হাঁস ও ডিমগুলো কোনো গরীবকে সদকা করে দিতে হবে। আর যদি আপনারা যাকাত গ্রহণের উপযুক্ত হয়ে থাকেন তাহলে নিজেরাও তা ভোগ করতে পারবেন। তবে উভয় অবস্থাতেই পরবর্তীতে যদি মালিকের সন্ধান পাওয়া যায় এবং সে সদকার বিষয়টি মেনে না নেয়; বরং হাঁস ও ডিম দাবি করে তাহলে তাকে এগুলোর মূল্য দিয়ে দিতে হবে।

-আসসুনানুল কুবরা ৬/১৮৮; বাদায়েউস সানায়ে ৫/৩৯৮; ফাতাওয়া খানিয়া ৩/৩৯৫; আলবাহরুর রায়েক ৫/১৫২; আদ্দুররুল মুখতার ৪/২৮০

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৯৪৫
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

আমার নিকট নগদ বিশ হাজার টাকা আছে। পাশাপাশি পৈত্রিক সূত্রে...

প্রশ্ন

আমার নিকট নগদ বিশ হাজার টাকা আছে। পাশাপাশি পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া জমি আছে, যার মূল্য প্রায় ৩ লক্ষ টাকা। এখন প্রশ্ন হল, এ অবস্থায় আমার উপর যাকাত ওয়াজিব হয়েছে কি? জানার অপেক্ষায় রইলাম।

উত্তর

যদি আপনার নিকট প্রশ্নোক্ত টাকা ছাড়া অন্য কোনো যাকাতযোগ্য সম্পদ না থাকে তবে আপনার উপর যাকাত ফরয হয়নি। কেননা পৈত্রিক সূত্রে প্রাপ্ত জমির মূল্যের উপর যাকাত ফরয নয়। আর নগদ যে বিশ হাজার টাকা আছে তাও বর্তমান বাজারে যাকাতের নেসাব পরিমাণ নয়। তাই সেই টাকারও যাকাত দেওয়া লাগবে না।

-খিযানাতুল ফিকহ ৭২; আদ্দুররুল মুখতার ২/২৬৪, ২৬৫; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/১৭৮; রদ্দুল মুহতার ২/২৬৫

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৯০৯
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

তিন বছর পূর্বে জনৈক দালালের সাথে আমার এই মর্মে চুক্তি...

প্রশ্ন

তিন বছর পূর্বে জনৈক দালালের সাথে আমার এই মর্মে চুক্তি হয়, তিন লক্ষ টাকার বিনিময়ে আমার জন্য মালোশিয়ায় একটি চাকুরির ব্যবস্থা করে দিবে। আর এই চুক্তির ভিত্তিতে আমি তাকে ২৫০০০/- টাকা প্রদান করি। কিন্তু এ পর্যন্ত সে আমার জন্য মালয়েশিয়া যাওয়ার কোনো ব্যবস্থা করেনি। তাই আমি তাকে বললাম আমার বিদেশে যাওয়ার প্রয়োজন নেই, তুমি আমার টাকা দিয়ে দাও। সে এতেও গড়িমসি করে অবশেষে কিছুদিন পূর্বে ঐ ২৫০০০/- টাকা ফেরত দেয়। জানার বিষয় হল, ঐ টাকা যে তিন বছর দালালের নিকট ছিল সে বছরগুলোর কি যাকাত আমাকে আদায় করতে হবে?

উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে আপনাকে বিগত বছরগুলোর জন্য ঐ টাকার যাকাত আদায় করতে হবে না। কেননা এতদিন ঐ টাকাগুলোর উপর আপনার মালিকানা ছিল না, ঐ টাকাগুলো আপনি বিদেশ যাওয়া খরচ বাবদ লোকটিকে অগ্রিম প্রদান করেছিলেন। অবশ্য ঐ টাকাগুলো হস্তগত হওয়ার পর তাকে সামনের জন্য যাকাতের হিসাবে ধরে নিতে হবে।

-ফাতাওয়া খানিয়া ১/২৫৩; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ১/২৩৯; ফাতহুল কাদীর ২/১২১

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৯০৮
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

আমার এক গরিব প্রতিবেশীর পরিবারের সদস্য সংখ্যা বেশি। অথচ তিনি...

প্রশ্ন

আমার এক গরিব প্রতিবেশীর পরিবারের সদস্য সংখ্যা বেশি। অথচ তিনি একাই উপার্জন করেন। গত রমযানে তার ঘরে একদিন চাল ছিল না। তখন আমি সাড়ে তিন সের চাল দুজনের পক্ষ থেকে ছদকায়ে ফিতরের নিয়তে তাকে দেই। প্রশ্ন হল, এতে কি আমার ছদকায়ে ফিতর আদায় হয়েছে?

উত্তর

সদকা ফিতর এমন ব্যক্তিকে দেওয়া যাবে যে যাকাত গ্রহণ করতে পারে। প্রশ্নোক্ত ব্যক্তি যদি যাকাত গ্রহণের যোগ্য হয়ে থাকে তবে তাকে সদকা ফিতর দেওয়া ঠিক হয়েছে। আর ছদকায়ে ফিতর আদায়ের নিয়ম হল, একজন ব্যক্তির পক্ষ থেকে কমপক্ষে ১.৬৫ কেজি গম অথবা তার মূল্য আদায় করা। অবশ্য ঐ সমমূল্যের প্রয়োজনীয় কোন পণ্য দিলেও ছদকায়ে ফিতর আদায় হয়ে যাবে।

বর্তমানে যেহেতু চালের মূল্য গমের মূল্য থেকে কিছুটা বেশি তাই সাড়ে তিন কেজি চাল দেয়ায় উভয়ের ফিতরা আদায় হয়ে গেছে।

-সহীহ বুখারী ১/২০৪; সহীহ মুসলিম ১/৩১৭; সুনানে আবু দাউদ ১/২২৯; আলমাবসূত, মুহাম্মাদ ২/২৪৬; বাদায়েউস সানায়ে ২/২০৫; মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা ৬/৫২২; ফাহমুর রিয়াজী, শাববীর আহমদ কাকাখেল

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৮৯২
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

যাকাত ইংরেজি মাস হিসেবে, না চন্দ্র মাস হিসেবে, নাকি বাংলা...

প্রশ্ন

যাকাত ইংরেজি মাস হিসেবে, না চন্দ্র মাস হিসেবে, নাকি বাংলা মাস হিসেবে দিতে হবে? জানালে উপকৃত হব।

উত্তর

যাকাত চন্দ্রবর্ষ অনুযায়ী আদায় করা জরুরি। বাংলা বা ইংরেজি বর্ষের হিসাব এক্ষেত্রে গ্রহণযোগ্যনয়। কারো যদি চন্দ্রবর্ষের হিসাব রাখতে অসুবিধা হয় তবে প্রত্যেক ইংরেজি বর্ষের ১১ দিন পূর্বেইচন্দ্রবর্ষ পূরণ হয়েছে বলে ধরে নিবে এবং সে অনুযায়ী যাকাত আদায় করবে এবং পরের বছরেরহিসাব ঐ ১১ দিন পূর্ব থেকেই শুরু করবে। কারণ হিজরী সন ইংরেজি সন থেকে ১১দিন কম হয়েথাকে।

-আলবাহরুর রায়েক ২/২০৩; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/১৭৫; আলমুহাল্লা ৪/৭৫; আততাওকীতুল হাওলী ফিয যাকাত ২৫

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৮৯১
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

ব্যবসা করার জন্য যে মাল ক্রয় করা হয় তার যাকাত...

প্রশ্ন

ব্যবসা করার জন্য যে মাল ক্রয় করা হয় তার যাকাত দিতে হবে কি না? ক্রয়কৃত মাল সারা বছরব্যাপী মজুত থাকবে না। তবে সারা বছরব্যাপী মাল ক্রয়-বিক্রয় চলতে থাকবে।

উত্তর

ব্যবসাপণ্য যাকাতযোগ্য সম্পদ। ব্যবসায়ীর যে দিন যাকাত-বর্ষ পূর্ণ হবে সেদিন তার নিকট বিক্রয়েরজন্য যেসব মালামাল থাকবে সেগুলোর মূল্য হিসাব করে যাকাত দিতে হবে। বছরের মাঝে মালামালকমবেশি যাই থাকুক তা ধর্তব্য নয়।

-মুখতাছারুত তাহাবী ৫০; রদ্দুল মুহতার ২/৩০২; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/১৭৯

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৮৯০
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

যদি একই দেশের বিভিন্ন স্থানে স্বর্ণ-রূপার বিভিন্ন দর প্রচলিত থাকে...

প্রশ্ন

যদি একই দেশের বিভিন্ন স্থানে স্বর্ণ-রূপার বিভিন্ন দর প্রচলিত থাকে তাহলে টাকা-পয়াসা ও ব্যবসার সম্পদের যাকাতের নিসাব নির্ধারণের ক্ষেত্রে কোন স্থানের দর ধর্তব্য হবে? জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

আমাদের দেশে রূপার ক্ষেত্রে সরকার কর্তৃক কোনো একক দর নির্ধারিত থাকে না। তাই যদিদেশের বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন দরে রূপার লেনদেন হয় তাহলে সেক্ষেত্রে যাকাতদাতার সম্পদ যে স্থানেরয়েছে সে স্থানের কাঁচা রূপার দর অনুযায়ী নিসাব নির্ধারণ করতে হবে।

-আলমুহীতুল বুরহানী ৩/১৬৪; আদ্দুররুল মুখতার ২/২৮৬; ফাতহুল কাদীর ২/১৬৭; আলবাহরুর রায়েক ২/২২৯; আলফিকহুল ইসলামী ও আদিল্লাতুহু ২/৭৬০; মাজমূআতুল ফাতাওয়াশ শারইয়াহ ৭/৭৪

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৮৪৭
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

আমি আমাদের দেশের এক অসহায় ব্যক্তিকে মুসলিম মনে করে যাকাতের...

প্রশ্ন

আমি আমাদের দেশের এক অসহায় ব্যক্তিকে মুসলিম মনে করে যাকাতের কিছু অর্থ দিয়েছি। পরে জানতে পারলাম যে, সে অমুসলিম। এখন জানার বিষয় হল, আমার যাকাত কি আদায় হয়েছে, না পুনরায় তা আদায় করতে হবে?

উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে আপনার যাকাত আদায় হয়ে গেছে। কেননা কাউকে যাকাতের উপযুক্ত মুসলমান মনে করে যাকাত দেওয়ার পর পরর্বতীতে লোকটি অমুসলিম বলে প্রকাশ পেলেও যাকাত আদায় হয়ে যায়। ঐ যাকাত পুনরায় আদায় করতে হয় না। কিন্তু জেনেশুনে কোনো অমুসলিমকে যাকাত দেওয়া জায়েয নয়। জেনে শুনে দিলে যাকাত আদায় হবে না।

-হিদায়া ১/২০৭; ইনায়াহ ২/২১৪; রদ্দুল মুহতার ২/৩৫২; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ১/২৪২

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৮৪৬
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

আলহামদুলিল্লাহ, আমি প্রতি বছর দুই-তিন লক্ষ টাকা যাকাত দিয়ে থাকি।...

প্রশ্ন

আলহামদুলিল্লাহ, আমি প্রতি বছর দুই-তিন লক্ষ টাকা যাকাত দিয়ে থাকি। আমি কি যাকাতের টাকা মসজিদ নির্মাণ বা কোনো জনকল্যাণমূলক কাজে যেমন-সেতু নির্মাণ, নদী খনন, রাস্তা মেরামত, নলকূপ স্থাপন ইত্যাদি কাজে ব্যয় করতে পারব? জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

যাকাতের টাকা দরিদ্রের হক। তাদেরকে এ টাকার নিরঙ্কুশ মালিক বানিয়ে দেওয়া জরুরি। কাউকে মালিক না বানিয়ে জনকল্যাণমূলক খাতে খরচ করলে তা দ্বারা যাকাত আদায় হবে না। সুতরাং মসজিদ নির্মাণ, সেতু নির্মাণ, নদী খনন, রাস্তা মেরামত, নলকূপ স্থাপন ইত্যাদি জনকল্যাণমূলক কাজে যাকাতের অর্থ ব্যয় করা যাবে না।

-সূরা বাকারা (২) : ৬০; তাবয়ীনুল হাকায়েক ২/১২০; তুহফাতুল ফুকাহা ১/৩০৭; আলমুহীতুল বুরহানী ৩/২১২

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৮৩৮
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

এক লোকের কাছে আমার কিছু টাকা পাওনা আছে। তবে তা...

প্রশ্ন

এক লোকের কাছে আমার কিছু টাকা পাওনা আছে। তবে তা পাওয়ার তেমন আশা নেই। জানতে পেরেছি, লোকটি গরীব। যাকাতগ্রহণের উপযুক্ত। এখন ঐ টাকা যদি যাকাত আদায়ের নিয়তে ক্ষমা করে দিই তাহলে আমার যাকাত আদায় হবে কি না।

উত্তর

না, এভাবে আপনার যাকাত আদায় হবে না। কেননা যাকাত আদায়ের জন্য শর্ত হল, যাকাত গ্রহণের যোগ্য ব্যক্তিকে দেওয়ার সময়ই যাকাতের নিয়ত করা। প্রথমে অন্য নিয়তে দিয়ে পরে তা যাকাত হিসেবে ধরে নিলে এতে যাকাত আদায় হয় না। তাই প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে ঐ ব্যক্তিকে যাকাত দিতে হলে সরাসরি তাকে যাকাতের অর্থ প্রদান করতে হবে। এরপর তার থেকে নিজের পাওনা উসূল করে নিতে পারবেন।

-রদ্দুল মুহতার ২/২৭০-২৭১; আলবাহরুর রায়েক ২/২১১

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৮১৭
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

আমি মোহর বাবদ ৪ ভরি স্বর্ণালংকারের মালিক। যার বর্তমান বাজারমূল্য...

প্রশ্ন

আমি মোহর বাবদ ৪ ভরি স্বর্ণালংকারের মালিক। যার বর্তমান বাজারমূল্য প্রায় আড়াই লক্ষ টাকা। এছাড়া যাকাতযোগ্য অন্য কোনো সম্পদ আমার নেই। আমার স্বামী তার বেতন থেকে প্রতি মাসে হাত খরচের জন্য ১০০০/-টাকা দিয়ে থাকেন, যা আমার ব্যক্তিগত কাজে ব্যয় হয়ে যায়। মাস শেষে আর কোনো টাকা অবশিষ্ট থাকে না। প্রশ্ন হল, আমাকে কি ঐ অলংকারের যাকাত আদায় করতে হবে?

উত্তর

আপনার কাছে যেহেতু ঐ স্বর্ণালংকার ব্যতীত রূপা, টাকা-পয়সা বা ব্যবসার সম্পদ নেই এবং আপনার মালিকানাধীন স্বর্ণও নেসাব পরিমাণ নয় তাই আপনাকে ঐ অলংকারের যাকাত আদায় করতে হবে না।

-মাবসূত সারাখসী ২/১৯০, ১৯৪; বাদায়েউস সানায়ে ২/১০৫; ফাতাওয়া খানিয়া ১/২৪৯; আলমুহীতুল বুরহানী ৩/১৫৬-১৫৭; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ৩/১৫৪

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৮১৬
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

রশীদ আহমদ নগদ এক কোটি টাকার মালিক। এখন সে ব্যবসায়...

প্রশ্ন

রশীদ আহমদ নগদ এক কোটি টাকার মালিক। এখন সে ব্যবসায় বিনিয়োগ করার জন্য ব্যাংক থেকে এক কোটি টাকা লোন নিয়ে ৫০ লক্ষ টাকার মেশিনারিজ এবং ৫০ লক্ষ টাকার কাঁচামাল কিনেছে। যখন তার যাকাতবর্ষ পূর্ণ হয়েছে তখন তার কাছে নগদ এক কোটি টাকা, ৫০ লক্ষ টাকার মেশিনারিজ ও ৫০ লক্ষ টাকার তৈরি মাল এবং ৩০ লক্ষ টাকার কাঁচামাল ছিল। জানার বিষয় হলর, প্রশ্নোক্ত অবস্থায় রশীদ আহমদ উক্ত সম্পদের মোট কত টাকার যাকাত আদায় করবেন।

উত্তর

প্রশ্নের বর্ণনা অনুযায়ী রশীদ আহমদের সম্পদের মধ্যে যাকাতযোগ্য সম্পদ হল নগদ এক কোটি টাকা এবং ৫০ লক্ষ টাকার তৈরি মাল ও ৩০ লক্ষ টাকার কাঁচামালসহ মোট এক কোটি ৮০ লক্ষ টাকা। সে ঋণ নিয়ে যে ৫০ লক্ষ টাকার কাঁচা মাল কিনেছে তা এসব যাকাতযোগ্য সম্পদ থেকে বাদ দিয়ে অবশিষ্ট এক কোটি ৩০ লক্ষ টাকার শতকরা আড়াই ভাগ যাকাত আদায় করতে হবে। আর ঋণের যে ৫০ লক্ষ টাকা দিয়ে মেশিনারিজ কিনেছে সে টাকা উন্নয়নধর্মী ঋণ হওয়ায় যাকাতযোগ্য টাকা থেকে বাদ যাবে না।

-ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ৩/২৩৫; বাদায়েউস সানায়ে ২/৮৪; আবহাছু ফিকহিয়্যাহ ফী কাযায়ায যাকাতিল মুআসিরা ১/৩১৭-৮, ৩২১; ফিকহুন নাওয়াযিল ২/২৪৬; যাকাতুদ দুয়ূন ৬০; জাদীদ ফিকহী মাকালাত ৩/৫৫-৫৬

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৭৯৭
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

আমার স্ত্রীর কাছে আমার শ্বশুরের দেওয়া ১ ভরি স্বর্ণ আছে।...

প্রশ্ন

আমার স্ত্রীর কাছে আমার শ্বশুরের দেওয়া ১ ভরি স্বর্ণ আছে। এছাড়া তার কাছে নগদ টাকা বা যাকাতযোগ্য অন্য কোনো সম্পদ নেই। জানতে চাই, আমার যাকাত হিসাব করার সময় ঐ ১ ভরি স্বর্ণের দাম ধরতে হবে কি না।

উত্তর

আপনার যাকাত শুধু আপনার নিজস্ব মালিকানাধীন সম্পদের উপর আসবে। স্ত্রীর স্বর্ণ এবং তার মালিকানাধীন অন্য কোনো সম্পদ আপনার যাকাতের হিসাবে ধর্তব্য হবে না। আর তার স্বর্ণও যেহেতু যাকাতের নেসাব পরিমাণ নয় তাই তাকেও ঐ স্বর্ণের যাকাত আদায় করতে হবে না।

-আদ্দুররুল মুখতার ২/২৫৯; হেদায়া ২/১১৩; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/১৭২; আলবাহরুর রায়েক ২/২০৩; ফাতহুল কাদীর ২/১১৩; বাদায়েউস সানায়ে ২/৯৯

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৭৮৮
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

বর্তমানে স্বর্ণের ক্রয়মূল্য ৬৪ হাজার টাকা আর বিক্রয়মূল্য ৪০ হাজার...

প্রশ্ন

বর্তমানে স্বর্ণের ক্রয়মূল্য ৬৪ হাজার টাকা আর বিক্রয়মূল্য ৪০ হাজার টাকা। এখন আমার প্রশ্ন হল, আমার স্বর্ণের যাকাত প্রদান করব ক্রয়মূল্যে নাকি বিক্রয়মূল্যে? বিস্তারিত জানাবেন।

উত্তর

যাকাত আদায়ের ক্ষেত্রে নিজের মালিকানাধীন স্বর্ণ-রূপার বর্তমান বাজার দর ধর্তব্য। অর্থাৎ নিজের অলংকারাদি বিক্রি করলে যত টাকা পাওয়া যাবে তার যাকাত আদায় করতে হবে।

উল্লেখ্য যে, ভালো মানের স্বর্ণের ক্রয় ও বিক্রয় মূল্যে এত বেশি তফাৎ হওয়ার কথা নয়। বিষয়টি ভালোভাবে যাচাই করে নেওয়া উচিত।

-কিতাবুল আমওয়াল, আবু উবায়েদ কাসিম ইবনে সাল্লাম পৃ. ৫২১; আবহাছুন ফিকহিয়্যাহ ১/৪২-১৪৩; ফিকহী মাকালাত ৩/১৫০

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৭৭১
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

যাকাত পাওয়ার উপযুক্ত হওয়া সত্ত্বেও আত্মীয়-স্বজনদের মধ্যে কারা যাকাত পাবে...

প্রশ্ন

যাকাত পাওয়ার উপযুক্ত হওয়া সত্ত্বেও আত্মীয়-স্বজনদের মধ্যে কারা যাকাত পাবে না। জানালে কৃতজ্ঞ হব।

উত্তর

যাকাতদাতার সরাসরি উর্ধ্বতন যেমন-পিতা-মাতা, দাদা-দাদি, নানা-নানি উপরের দিকে ও অধস্তন যেমন-পুত্র-কন্যা, পৌত্র-পৌত্রী, দোহিত্র-দোহিত্রী, এভাবে নীচের দিকের কেউ যাকাত নিতে পারবে না। এবং স্বামী-স্ত্রী একে অপরকে যাকাত দিতে পারবে না। এ ছাড়া অন্যান্য আত্মীয়-স্বজন যেমন, ভাই-বোন, চাচা-চাচি, মামা-মামি, খালা-খালু, ফুফা-ফুফু ইত্যাদি যাকাত পাওয়ার উপযুক্ত দরিদ্র হলে তাদেরকে যাকাত দেওয়া যাবে।

-সুনানে বায়হাকী ৭/২৮; ফাতাওয়া খানিয়া ১/২৬৭; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ৩/২০৬-২০৭; বাদায়েউস সানায়ে ২/১৬২; আদ্দুররুল মুখতার ১/৪২৬

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৬৯৬
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

যাকাত-সদকাতুল ফিতরজনৈক ব্যক্তির উপর দশ হাজার টাকা যাকাত ওয়াজিব হয়েছে।...

প্রশ্ন

যাকাত-সদকাতুল ফিতর

জনৈক ব্যক্তির উপর দশ হাজার টাকা যাকাত ওয়াজিব হয়েছে। সে এ টাকা দিয়ে কিতাব ক্রয় করে মাদরাসার কুতুবখানায় ওয়াকফ করতে চায়। আর কুতুবখানার কিতাব পড়ে যে কেউ-ই উপকৃত হতে পারে, কিন্তু কিতাব কেউ অন্যত্র নিতে পারে না। এখন প্রশ্ন হল, যাকাতের টাকা দিয়ে কিতাব ক্রয় করে কুতুবখানায় ওয়াকফ করলে যাকাত আদায় হবে কি না?

উত্তর

যাকাত আদায়ের জন্য শর্ত হল যাকাত গ্রহণের উপযুক্ত ব্যক্তিকে তার মালিক বানিয়ে দেওয়া।

আর কিতাব ক্রয় করে কুতুবখানায় ওয়াকফ করলে যেহেতু এ শর্তটি পাওয়া যায় না তাই এভাবে কিতাব কিনে দেওয়ার দ্বারা যাকাত আদায় হবে না।

অবশ্য যাকাতদাতা যাকাত গ্রহণের যোগ্য ছাত্রদেরকে যাকাতের নিয়তে কিতাব দিয়ে দিলে এবং মালিক বানিয়ে দিলে যাকাত আদায় হয়ে যাবে।

-সূরা তাওবা : ৬০; আদ্দুররুল মুখতার ২/৩৩৯; হেদায়া, ফাতহুল কাদীর ২/২০৭-২০৮; বাদায়েউস সানায়ে ২/১৪২,২৪৯; ফাতাওয়া খানিয়া ১/২৬৮; আলবাহরুর রায়েক ২/৪১৯

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৬৯৪
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

আমার কয়েকটি মাইক্রোবাস আছে। এগুলো ভাড়ায় খাটাই। জানতে চাই, বছর...

প্রশ্ন

আমার কয়েকটি মাইক্রোবাস আছে। এগুলো ভাড়ায় খাটাই। জানতে চাই, বছর শেষে ঐ গাড়িগুলোর কি যাকাত দিতে হবে?

উত্তর

না। ঐ গাড়ির যাকাত দিতে হবে না। কেননা এগুলো যাকাতযোগ্য সম্পদ নয়। হযরত আবদুল্লাহ ইবনে উমর রা. বলেছেন, যে সকল আসবাবপত্র বিক্রির জন্য কেনা হয় শুধু সেগুলোতেই যাকাত ফরয হয়। অন্যান্য আসবাবপত্রে যাকাত ফরয হয় না। (মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা, হাদীস : ১০৫৬০) তবে ভাড়া বাবদ যে অর্থ আসে তা যাকাতযোগ্য সম্পদ।

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৬৬৩
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

আমি হজ্বে যাওয়ার জন্য ব্যাংকে ৩ লক্ষ টাকা জমা করেছি।...

প্রশ্ন

আমি হজ্বে যাওয়ার জন্য ব্যাংকে ৩ লক্ষ টাকা জমা করেছি। ভিসার কাগজপত্রে সমস্যার কারণে এ বছর হজ্বে যাওয়া হয়নি। আগামী বছর যাওয়ার নিয়ত করেছি। আমার জানার বিষয় হল, বছর অতিবাহিত হলে হজ্বে যাওয়ার জন্য ব্যাংকে জমাকৃত টাকার যাকাত আদায় করতে হবে কি? জানালে উপকৃত হব।

উত্তর

হ্যাঁ, বছর অতিবাহিত হলে উক্ত টাকার যাকাত আদায় করা ফরয হবে। হজ্বের উদ্দেশ্যে জমা করা হলেও যেহেতু তা খরচ হয়নি এবং পুরো বছর জমা ছিল তাই ঐ টাকার যাকাত দিতে হবে।

উল্লেখ্য, যদি টাকাগুলো কোনো হজ্ব এজেন্সিকে খরচ বাবদ অগ্রিম দিয়ে দেওয়া হত সেক্ষেত্রে এ টাকার যাকাত দিতে হত না।

সুনানে আবু দাউদ ১/২২১; ফাতাওয়া বাযযাযিয়া ৪/৮৪; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ১/২৪০; আলবাহরুর রায়েক ২/২০৪; আদ্দুররুল মুখতার ২/২৬১-২৬২

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৬৪০
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

আমার উপর দুই হাজার টাকা যাকাত আসে। এখন আমার হাতে...

প্রশ্ন

আমার উপর দুই হাজার টাকা যাকাত আসে। এখন আমার হাতে নগদ টাকা নেই। তবে আমার দোকানে কিছু কাপড় আছে যেগুলোর বর্তমান বাজারমূল্য দুই হাজার টাকা হবে। এখন জানতে চাই, এগুলো দ্বারা যাকাত দিলে যাকাত আদায় হবে কি?

উত্তর

যাকাত নগদ অর্থ দ্বারা আদায় করা উচিত। যেন যাকাত গ্রহণকারী তার প্রয়োজন অনুযায়ী তা ব্যয় করতে পারে। অবশ্য নতুন কাপড় এবং দরিদ্রের প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র দ্বারাও যাকাত আদায় করা জায়েয।

-ইলাউস সুনান ৯/৪৫; আলমুহীতুল বুরহানী ৩/২১৫; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ১/২৪২; আলবাহরুর রায়েক ২/২০১

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৬২৬
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

এক ব্যক্তির সম্পদ অনেক বেশি তাই সে অনুমান করে যাকাত...

প্রশ্ন

এক ব্যক্তির সম্পদ অনেক বেশি তাই সে অনুমান করে যাকাত আদায় করে। যে পরিমাণ যাকাত আসবে বলে মনে হয় সব সময় এর বেশি আদায় করে থাকে, কম আদয় করে না। কিন্তু সে কখনোই সম্পদের সঠিক হিসাব বের করে না। জানার বিষয় হল, এভাবে অনুমান করে যাকাত দিলে এবং কিছু বেশি দিয়ে দিলে তা আদায় হবে কি?

উত্তর

উত্তর : সকল সম্পদের যাকাত যেন নিশ্চিতভাবে আদায় হয় এজন্য যাকাত বর্ষ পূর্ণ হওয়ার পর পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে সকল সম্পদের হিসাব করা জরুরি। পুরো হিসাব না করে শুধু অনুমানের ভিত্তিতে যাকাত দেওয়া জায়েয নয়। কেননা অনুমান করে দিলে কম হওয়ার আশঙ্কা থাকে এবং ফরয আদায়ের বিষয়টি অনিশ্চিত থেকে যায়। তবে এভাবে আদায় করার দ্বারা বাস্তবেই যদি যাকাতযোগ্য সকল সম্পদের শতকরা আড়াইভাগ বা এর চেয়ে বেশি আদায় হয়ে যায় তবে তো যাকাত আদায় না করার গুনাহ থেকে বেঁচে যাবে। কিন্তু যদি অনুমান করে দেওয়ার কারণে এক টাকাও যাকাত কম আদায় হয় তাহলে ঐ পরিমাণ সম্পদের যাকাত তার যিম্মায় থেকে যাবে এবং পরিপূর্ণ যাকাত আদায় না করার গুনাহ হবে।

অতএব ঐ ব্যক্তির অনুমান করে যাকাত আদায় করা বৈধ হয়নি। সামনে থেকে পুঙ্খানুপুঙ্খ হিসাব করেই যাকাত দিতে হবে। আর বিগত বছরগুলোর যাকাতের যথাযথ হিসাব বের করতে চেষ্টা করবে। অনিয়ম এবং ফরয আদায়ে শৈথিল্যের কারণে আল্লাহ তাআলার দরবারে ইস্তিগফার করবে।

-শরহু মাআনিল আছার ১/৩৪৯; নুখাবুল আফকার ৫/১৮৮; ফিকহী মাকালাত ৩/১৪৩-১৪৪

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৬১৮
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

এক ব্যক্তির মুদীখানার দোকান আছে। তার এই ব্যবসার যাকাত এসেছে...

প্রশ্ন

এক ব্যক্তির মুদীখানার দোকান আছে। তার এই ব্যবসার যাকাত এসেছে ১০ হাজার টাকা। সে এক গরীব লোকের নিকট ৫ হাজার টাকা পাবে। এখন যদি ঋণগ্রহিতাকে ঐ টাকাগুলো মাফ করে দেয় তাহলে ঐ ব্যক্তির যাকাত আদায় হবে কি?

উত্তর

না। এভাবে পাওনা টাকা মাফ করে দিলে যাকাত আদায় হবে না। এক্ষেত্রে করণীয় হল, ঋণী ব্যক্তি যদি যাকাত গ্রহণের যোগ্য হয় তাহলে তাকে প্রথমে যাকাতের টাকা দিয়ে দিবে। এরপর তার থেকে নিজের ঋণ উসূল করে নিবে। এ পন্থায় নিজের যাকাতও আদায় হয়ে যায় আবার ঋণও উসূল হয়ে যায়।

-আলমুহীতুল বুরহানী ৩/২০৬; রদ্দুল মুহতার ২/২৭০; আলমাবসূত, সারাখসী ৩/৩৫; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ১/২৪৪; ফাতাওয়া খানিয়া ১/২৬৩

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৬১৭
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

হামীম বিয়ের সময় মহর দেয়নি। এখনো মহর বকেয়া রয়েছে। ইতোমধ্যে...

প্রশ্ন

হামীম বিয়ের সময় মহর দেয়নি। এখনো মহর বকেয়া রয়েছে। ইতোমধ্যে স্ত্রীর সাথে তার বিবাহ-বিচ্ছেদ ঘটে গেছে। এখন স্ত্রীকে তার প্রাপ্য মোহর আদায় করে দিতে হবে। আর এদিকে তার যাকাত বর্ষ দুই দিন পর শেষ হবে। মোহর আদায় করে দিলে তার সম্পদ যাকাতের নেসাবের চেয়ে কম হয়ে যাবে। প্রশ্ন হল, এমতাবস্থায় তার উপর কি যাকাত ফরয হবে?

উত্তর

বাস্তবেই যদি মোহর আদায় করলে হামীমের নিকট বছর শেষে নেসাব পরিমাণ সম্পদ না থাকে তবে তার উপর যাকাত ফরয নয়। কেননা, বিবাহ-বিচ্ছেদের কারণে হামীমের উপর নগদে মোহর আদায় করা অপরিহার্য হয়ে গেছে। এখন তার কর্তব্য হল অবিলম্বে দেন মোহর আদায় করে দেওয়া।

-বাদায়েউস সানায়ে ২/৮৪; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ১/২৪০; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ২/২৮৭; হাশিয়াতুত তাহতাবী আলালমারাকী ৩৮৯

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৫৭৬
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

জনৈক ব্যক্তি যাকাতের টাকা থেকে একটি কাপড় ক্রয় করে তার...

প্রশ্ন

জনৈক ব্যক্তি যাকাতের টাকা থেকে একটি কাপড় ক্রয় করে তার সৎ মাকে দিয়েছে। জানতে চাই যে, সৎ মাকে যাকাত দেওয়া জায়েয কি না এবং দিলে যাকাত আদায় হবে কি না?

উত্তর

হ্যাঁ, সৎ মা যদি যাকাত গ্রহণের উপযুক্ত হন তাহলে তাকে যাকাত দেওয়া যাবে। যাকাত ও অন্যান্য ওয়াজিব সদকা দরিদ্র আত্মীয়দেরকে দেওয়া অধিক সওয়াবের কাজ।

-ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ২/২৭৩; তাবয়ীনুল হাকায়েক ২/১২২; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/১৯০

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৫৭৫
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

ক) এক এলাকায় ফসলী জমি ভাগে দেওয়ার একটি পদ্ধতি চালু...

প্রশ্ন

ক) এক এলাকায় ফসলী জমি ভাগে দেওয়ার একটি পদ্ধতি চালু আছে। তা এই যে, জমির মালিক কৃষককে ১০ কাঠা জমি চাষ করতে দিলে এক মওসুমে মালিককে ১৫ মণ ধান দিতে হবে। আর জমিটি কৃষক নিজের খরচে চাষ করবে।

এভাবে জমি ভাগে দেওয়া জায়েয হবে কি না? উল্লেখ্য, ধান দেওয়ার ক্ষেত্রে কৃষকের ইচ্ছা। যে কোনো ক্ষেতের ধান সে দিতে পারে। নির্ধারিত কোনো ক্ষেতের ধান দেওয়ার শর্ত থাকে না।

খ) জনৈক প্রাইভেটকার ব্যবসায়ী ৮ লক্ষ টাকা মূল্যে একটি প্রাইভেটকার বিক্রি করেছেন। ক্রেতা নগদ ৪ লাখ টাকা পরিশোধ করেছেন। আর চুক্তি করেছেন যে, বাকি ৪ লাখ টাকা ৬ মাস পর পর ১ লাখ টাকা করে দিয়ে ২ বছরে পরিশোধ করবে। প্রশ্ন হল, এ ব্যবসায়ীকে বাকি ৪ লাখ টাকার যাকাত আদায় করতে হবে কি না।

গ) আমাদের এলাকার এক ব্যক্তি ধানের ব্যবসা করেন। তিনি নগদ ও বাকিতে ধান বিক্রি করে থাকেন। বাকিতে বিক্রির একটি পদ্ধতি হল, তিনি জ্যৈষ্ঠ মাসে ক্রেতাকে ৫ মণ ধান দিয়ে দিলেন এবং বলে দিলেন যে, কার্তিক মাসে এ ধরনের ধানের যা মূল্য হবে তা পরিশোধ করতে হবে। এ পদ্ধতিতে ধান বিক্রি করা জায়েয হবে কি না?

ঘ) অপারেশনের মাধ্যমে সন্তান হওয়ার পর যে স্রাব নির্গত হয় তা নেফাসের রক্ত বলে গণ্য হবে কি না?

উত্তর

ক) প্রশ্নোক্ত পদ্ধতিতে চাষের জন্য জমি দেওয়া জায়েয। এই লেনদেনটি হচ্ছে জমি ভাড়া বা লিজ দেওয়া, ভাগে দেওয়া নয়। এক্ষেত্রে জমির মালিককে যে ১৫ মণ ধান দেওয়ার কথা হয়েছে তা জমির ভাড়া। ভাড়া যেমন টাকা হতে পারে তেমনি কোনো পণ্যও হতে পারে। পণ্য দ্বারা ভাড়া আদায় করলে কোন ধরনের পণ্য এবং তার পরিমাণ কি তা চুক্তির সময় নির্ধারণ করে নিতে হবে। কিন্তু এ জমির বা কোনো নির্দিষ্ট জমির ফসল থেকে দেওয়ার শর্ত করলে তা জায়েয হবে না। বরং কোন প্রকারের ধান দিবে তা নির্ধারিত করতে হবে।-হেদায়া ৪/৩০৬, ২৯৩; রদ্দুল মুহতার ৬/৪, ৬০; মাজাল্লাহ, মাদ্দাহ : ৪৫১-৪৫৩, ৪৬৪, ৪৬৫; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ৫/২৩৫; বাদায়েউস সানায়ে ৫/২৫৪, ২৫৮

খ) হ্যাঁ, ঐ ব্যবসায়ীকে গাড়ির বাকি মূল্য ৪ লক্ষ টাকারও যাকাত দিতে হবে। বছর শেষে ইচ্ছা করলে অন্যান্য সম্পদের যাকাত আদায় করার সময় ঐ ৪ লক্ষ টাকার যাকাতও আদায় করে দিতে পারবে। অথবা প্রতি কিস্তি হস্তগত হওয়ার পর ঐ কিস্তির বর্তমান ও বিগত বছরের যাকাতও আদায় করতে হবে।

উল্লেখ্য, ব্যবসার সম্পদ এমনিতেই যাকাতযোগ্য। তাই কারটি যদি বিক্রি না হয়ে দোকানে পড়েও থাকত তবুও তার যাকাত দিতে হত।-মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা ৬/৪৮৪, ৪৮৬; ফাতাওয়া খানিয়া ১/২৫২; বাদায়েউস সানায়ে ২/৯০-৯১; মাবসূত সারাখসী ২/১৯৭; ফাতহুল কাদীর ২/১২৩; আলবাহরুর রায়েক ২/২০৭; রদ্দুল মুহতার ২/৩০৫

গ) বাকি ক্রয়-বিক্রয়ের একটি শর্ত হল, বেচা-কেনার সময়ই পণ্যের মূল্য চূড়ান্ত করে নেওয়া। অন্যথায় লেনদেন নাজায়েয হয়ে যায়। প্রশ্নোক্ত লেনদেনে বিক্রয়ের সময় ধানের মূল্য যেহেতু নির্দিষ্ট করা হয় না তাই এ পদ্ধতিতে বেচাকেনা জায়েয হবে না।-বাদায়েউস সানায়ে ৪/৩৫৫; হেদায়া ৩/২০; ফাতহুল কাদীর ৫/৪৬৭; আলবাহরুর রায়েক ৫/২৭৩; রদ্দুল মুহতার ৪/৫২৯; মাজাল্লাহ ২৩৭-২৩৯; শরহুল মাজাল্লাহ ২/১৫৮-১৫৯

ঘ) হ্যাঁ, অপারেশনের মাধ্যমে সন্তান হওয়ার পরও রক্তস্রাব চালু হলে তা নেফাস হিসেবে গণ্য হবে।-ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/৩৭; রদ্দুল মুহতার ১/২৯৯; আলবাহরুর রায়েক ১/২১৮; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ১/৩৮৯

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৫৭১
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

জনৈক ব্যক্তির কাছ থেকে এক ব্যক্তি যাকাতের নেসাবের চেয়ে অধিক...

প্রশ্ন

জনৈক ব্যক্তির কাছ থেকে এক ব্যক্তি যাকাতের নেসাবের চেয়ে অধিক টাকা-পয়সা ঋণ নিয়েছে। নির্দিষ্ট সময়ে আদায় করার কথা থাকলেও সে আদায় করেনি। ঋণগ্রহীতা ঋণ পরিশোধ করতে অস্বীকারও করেনি, আবার সে গরীবও নয়। আমার জানার বিষয় হল, উক্ত সম্পদের উপর যাকাত ফরয হবে কি না? আর যদি ঋণ গ্রহীতা তা পরিশোধ করে দেয় তাহলে বিগত বছরগুলোর অনাদায়ী যাকাত আদায় করতে হবে কি না?

উত্তর

প্রশ্নের বর্ণনা অনুযায়ী ঋণদাতাকে উক্ত সম্পদের যাকাত আদায় করতে হবে। তবে ঋণ উসুল হওয়ার আগে ঐ টাকার যাকাত আদায় করা জরুরি নয়। পাওনা হস্তগত হওয়ার পর যাকাত আদায় করলেই চলবে। তবে কোনো যাকাতবর্ষ পার হয়ে যাওয়ার পর হস্তগত হলে অনাদায়ী বছরেরও যাকাত আদায় করতে হবে। এক্ষেত্রে নিয়ম হল, প্রথম বছরের যাকাত গোটা সম্পদ থেকে আদায় করবে। দ্বিতীয় বছরে প্রথম বছরের যাকাতের পরিমাণ বাদ দিয়ে অবশিষ্টকে মূল সম্পদ ধরে যাকাত আদায় করবে।

-খুলাসাতুল ফাতাওয়া ১/২৩৮; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ২/২৯৯; বাদায়েউস সানায়ে ২/৮৮; আদ্দুররুল মুখতার ২/৩০৫; আলবাহরুর রায়েক ২/২০৭; আলমুহীতুল বুরহানী ৩/২৮৪; ফাতহুল কাদীর ২/১২৩; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/১৭৪-১৭৫; ফাতাওয়া খানিয়া ১/২৪৫; মাবসূত, সারাখসী ২/১৯৪

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৫৩৪
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

(ক) আমার আম্মা আমার মরহুম পিতার মীরাসসূত্রে বাড়ির জমির ১১...

প্রশ্ন

(ক) আমার আম্মা আমার মরহুম পিতার মীরাসসূত্রে বাড়ির জমির ১১ কড়া (২২ শতাংশ) জমির মালিক হয়েছেন। জায়গাটির বর্তমান মূল্য ৬-৭ লক্ষ টাকা। এছাড়া আম্মার আর কোনো সম্পদ, অলংকারাদি বা নগদ অর্থ নেই। আম্মার ভরণ-পোষণ আমরা ছেলেরাই করি। উপরোক্ত জায়গাটি বর্তমানে খালি পড়ে আছে। চারদিকে দেয়াল দিয়ে ঘেরাও করে রাখা হয়েছে। জানার বিষয় এই যে, আমার আম্মার উপর কি হজ্ব করা ফরয?

(খ) আমি আমার পিতার মীরাসসূত্রে ৫ কাঠা জমির মালিক হয়েছি। জমিটি আমি ৯ লক্ষ টাকায় বিক্রি করে দিয়েছি। চুক্তি হয়েছিল, ৫ মাসের মধ্যে সম্পূর্ণ টাকা পরিশোধ করবে। কিন্তু ৪ মাসে ৬ লক্ষ টাকা পরিশোধের পর বাকি টাকা এখনও পরিশোধ করেনি। এক বছরেরও বেশি সময় দিচ্ছি-দিব বলে পার করে দেয়।

এখন জিজ্ঞাসার বিষয় হল, আমাকে উক্ত বকেয়া ৩ লক্ষ টাকার যাকাত আদায় করতে হবে কি না? দিলে কখন আদায় করব? উসূল হওয়ার পর বিগত সময়ের যাকাত দিতে হবে কি?

উত্তর

(ক) প্রশ্নপত্রের বিবরণ ও মৌখিক বর্ণনা অনুযায়ী আপনার আম্মার উপর হজ্ব ফরয হয়েছে। কারণ মীরাসসূত্রে পাওয়া জমিটি প্রয়োজনের অতিরিক্ত, তার বসবাস ও ভরণ-পোষণে লাগছে না। আর সেটির মূল্যও হজ্ব আদায়ের জন্য। সুতরাং আপনার আম্মাকে ফরয হজ্ব আদায় করতে হবে।

(খ) প্রশ্নে বর্ণিত ক্ষেত্রে জমির মূল্য বাবদ বকেয়া ৩ লক্ষ টাকা হাতে পাওয়ার আগে তার উপর যাকাত ফরয নয়। হস্তগত হওয়ার পর এক বছর অতিবাহিত হলে তার যাকাত দিতে হবে। তবে আপনি যদি পূর্ব থেকে যাকাতের নেসাবের মালিক হয়ে থাকেন তাহলে আপনার যাকাত-বর্ষ শেষ হওয়ার পর অন্যান্য সম্পদের সাথে মিলিয়ে ঐ টাকারও যাকাত আদায় করতে হবে। এক্ষেত্রে ঐ টাকার উপর আলাদাভাবে এক বছর অতিবাহিত হওয়া লাগবে না।

(ক) বাদায়েউস সানায়ে ২/২৯৮; ফাতহুল কাদীর ২/৩২২; আলমুহীতুল বুরহানী ৩/৩৯৩; মানাসিক মোল্লা আলী কারী ৪৪; আলমাসালিক ১/২৬৩; আলবাহরুল আমীক ১/৩৮৪; গুনইয়াতুন নাসিক ২০; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/২১৭ (খ) শরহু মুখতাছারিত তাহাবী ২/৩৪১; বাদায়েউস সানায়ে ২/৯০; আততাজরীদ ৩/১২৬২; তুহফাতুল ফুকাহা ১/২৯৪; ফাতাওয়া দারুল উলূম ৬/১৩৫; আহসানুল ফাতাওয়া ৪/২৭১

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৫২৩
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

আমার উপর যাকাত ফরয হওয়ার পর থেকে প্রতি বছর যথাযথভাবে...

প্রশ্ন

আমার উপর যাকাত ফরয হওয়ার পর থেকে প্রতি বছর যথাযথভাবে তা আদায় করে আসছি। কিন্তু আমার জানা ছিল না যে, স্বর্ণালংকারেরও যাকাত দিতে হয়। অথচ আমার কাছে প্রায় আট ভরি স্বর্ণের অলংকার আছে। এখন কীভাবে এ অলংকারগুলোর যাকাত আদায় করব? প্রতি বছরই তো স্বর্ণের মূল্য পরিবর্তন হচ্ছে। এখন কোন মূল্য হিসেবে তা আদায় করব?

উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে ঐ অলংকারের বর্তমান বাজারদর ধরেই পিছনের যাকাত আদায় করতে হবে। কেননা, প্রতি বছর ঐ অলংকারের শতকরা আড়াই ভাগ যাকাত আদায় করা আপনার উপর ফরয ছিল। তা যেহেতু আদায় করা হয়নি তাই এখন এ পরিমাণ স্বর্ণ কিংবা তার বর্তমান বাজার দর আদায় করতে হবে।

উল্লেখ্য, বিগত বছরগুলোর যাকাত আদায়ের সময় প্রত্যেক বছরের যাকাত বাদ দিয়ে যে সম্পদ/অলংকার থাকবে তা পরবর্তী বছরের যাকাতযোগ্য সম্পদ বলে বিবেচিত হবে। যেমন কারো কাছে ৪০ ভরি অলংকার আছে। সে দুই বছর যাকাত দেয়নি। এক্ষেত্রে তাকে প্রথম বছরের জন্য ১ ভরি স্বর্ণ বা তার মূল্য যাকাত দিতে হবে। আর দ্বিতীয় বছরের যাকাতযোগ্য সম্পদ ৩৯ ভরি। তাই এ থেকে যাকাত দিতে হবে ০.৯৭৫ ভরি স্বর্ণ বা তার মূল্য।

বাদায়েউস সানায়ে ২/১১১; ফাতহুল কাদীর ২/১১৮; আলমাবসূত, সারাখসী ৩/১৫; আলমুহীতুল বুরহানী ৩/১৬৭; আলবাহরুর রায়েক ২/২২৯

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৫১৪
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

ইসলামী ব্যাংকে টাকা রাখলে যাকাত দিতে হবে কি?

প্রশ্ন

ইসলামী ব্যাংকে টাকা রাখলে যাকাত দিতে হবে কি?

উত্তর

হ্যাঁ, যেকোনো ব্যাংকে টাকা রাখা হোক জমা টাকার যাকাত দিতে হবে।

হবে।-আলমুহীতুল বুরহানী ৩/১৫৬; বাদায়েউস সানায়ে ২/১০০; আদ্দুররুল মুখতার ২/২৫৯

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৪৪৮
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

আমার কাছে নগদ ১ লক্ষ টাকা ২ বছর যাবত আছে।...

প্রশ্ন

আমার কাছে নগদ ১ লক্ষ টাকা ২ বছর যাবত আছে। তবে তার যাকাত আদায় করা হয়নি। জানতে চাই, দ্বিতীয় বছর কত টাকার যাকাত আদায় করতে হবে, সাড়ে সাতানব্বই হাজার টাকার, নাকি পুরো ১লক্ষ টাকার?

উত্তর

আপনি দ্বিতীয় বছরে সাড়ে সাতানব্বই হাজার টাকার যাকাত আদায় করবেন। উল্লেখ্য, ওযর ব্যতীত যাকাত আদায়ে এমন বিলম্ব করা ঠিক নয়।

-বাদায়েউস সানায়ে ২/৮৪; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ২/২৮৭; আদ্দুররুল মুখতার ২/২৬০; আলবাহরুর রায়েক ২/২০৪; হেদায়া (ফাতহুল কাদীর) ১২/১১৮; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/১৭২-১৭৩

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৪১৩
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: জাকাত

খলীফাতুল মুসলিমীন হযরত আলী রা.-এর জানাযা কে পড়িয়েছিলেন? তিনি কার...

প্রশ্ন

খলীফাতুল মুসলিমীন হযরত আলী রা.-এর জানাযা কে পড়িয়েছিলেন? তিনি কার হাতে শাহাদাত বরণ করেন? তিনি তার পুত্রদ্বয়কে যে নসীহত করেছিলেন তা কী ছিল? সঠিকভাবে উল্লেখ করে বাধিত করবেন।

উত্তর

হযরত আলী রা. ৪০ হিজরী ১৭ রমযান আবদুর রহমান বিন মুলজিম খারেজীর আক্রমণের শিকার হন। অতঃপর তিন দিন পর শাহাদাত বরণ করেন। তার জানাযা হযরত হাসান রা. পড়িয়েছেন। তিনি হযরত হাসান ও হুসাইন রা.কে যে গুরুত্বপূর্ণ ওসীয়ত করেছিলেন তা হল নিম্নরূপ

অর্থ, আল্লাহকে ভয় করা, নামায কায়েম করা, যাকাত প্রদান করা, ক্রোধ সংবরণ করা, আত্মীয়দের সাথে সুসম্পর্ক বজায় রাখা, অজ্ঞ ও জাহেল লোকদের সাথে বুদ্ধিমত্তার সাথে চলা, দ্বীনী বুঝ সৃষ্টি করা। দ্বীনের প্রতিটি মাসআলার উপর অটল ও অবিচল হয়ে আমল করা। কুরআন মজীদের হেফাযত করা, ভালোর আদেশ এবং মন্দের প্রতি বাধা প্রদান করা, অশ্লীলতা থেকে দূরে থাকা।

আলবিদায়া ওয়াননিহায়া ৫/৪৩৭; তবাকাতে সা’দ ৩/২২

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার

Execution time: 0.07 render + 0.01 s transfer.