Login | Register

ফতোয়া: তাবলীগ

ফতোয়া নং: ৪৯৩৫
তারিখ: ২৭/৬/২০১৭
বিষয়: তাবলীগ

ইতিকাফকারী মসজিদ থেকে কখন বের হতে পারবে এবং কখন পারবে না?

প্রশ্ন
হযরত ইতিতকাফকারী কিতাবলীগের গাশতের জন্য, জানাযা পড়ার জন্য মসজিদের বাইরে যেতে পারবে? এতে কি তার এতেকাফ নষ্ট হয়ে যাবে? আর কখন বের হতে পারবে এবং কখন পারবে না? এ বিষয়ে যদি বিস্তারিত বলতেন ৷
উত্তর
ইতিকাফকারী ইতিকাফ অবস্থায় আবশ্যকীয় প্রয়োজন ছাড়া মসজিদ থেকে বাইরে বের হতে পারবে না ৷ অতএব অযু ইস্তিঞ্জা ও ফরজ গোসলের জন্য বের হতে পারবে ৷ বাসা থেকে খানা আনার কেউ না থাকলে বাসায় খানা খেতে যেতে পারবে ৷ তবে খানা খেতে যতটুকু সময় লাগে এর চেয়ে বেশি সময় অবস্থান করতে পারবে না ৷ আর তাবলীগের গাশত, জানাযা পড়া ও সাধারন গোসলের জন্য মসজিদের বাইরে যেতে পারবে না। এবং অন্যান্য অপ্রয়োজনীয় কাজে মসজিদ থেকে বের হতে পারবে না ৷ এসব কারণে বাইরে বের হলে এতেকাফ নষ্ট হয়ে যাবে।
-সহীহ বুখারী, হাদীস: ২০২৯; সুনানে আবু দাউদ, হাদীস ২৪৭৩; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ৩/৪৪৫; মারাকিল ফালাহ, ৩৮৩; ফতওয়ায়ে খানিয়া, ১/২২৩; খুলাসাতুল ফতওয়া, ১/২৬৮৷
উত্তর প্রদানে মুফতী মেরাজ তাহসীন মুফতীঃ জামিয়া দারুল উলুম দেবগ্রাম ব্রাহ্মণবাড়িয়া ৷

ফতোয়া নং: ৪৮৪৬
তারিখ: ১৪/৪/২০১৭
বিষয়: তাবলীগ

হারাম উপার্জন কারীর নিকট মেয়ে বিয়ে দেওয়া ৷

প্রশ্ন
আমি তাবলীগ করি মেয়েকে মাদরাসায় পড়িয়ে দাওরা পাশ করিয়েছি। বিভিন্ন জায়গা থেকে তার বিয়ে আসতেছে ৷ একটি বিয়ে আসছে, ছেলেটি উত্তরা ব্যাংকে চাকুরী করে ৷ জানার বিষয় হলো, তার কাছে আমার মেয়ে বিয়ে দেওয়া জায়েয হবে কিনা ?
উত্তর
প্রতিটি বাবার জন্য উচিত নিজ মেয়েকে একজন ধার্মিক পাত্রের নিকট পাত্রস্ত করা ৷ আর ধার্মিক মেয়েকে ধার্মিক পাত্রের কাছে পাত্রস্ত করলেই সংসারে শান্তি আসে সাধারণতঃ। কেননা আল্লাহ তায়ালা কুরআনে ইরশাদ করে বলেন, দুশ্চরিত্রা নারীকূল দুশ্চরিত্র পুরুষকুলের জন্যে এবং দুশ্চরিত্র পুরুষকুল দুশ্চরিত্রা নারীকুলের জন্যে। সচ্চরিত্রা নারীকুল সচ্চরিত্র
পুরুষকুলের জন্যে এবং সচ্চরিত্র পুরুষকুল সচ্চরিত্রা নারীকুলের জন্যে। তাদের সম্পর্কে লোকে যা বলে,
তার সাথে তারা সম্পর্কহীন। তাদের জন্যে আছে ক্ষমা ও সম্মানজনক জীবিকা।
সূরা নূর, আয়াত নং-২৬
এসব ব্যাংকের চাকুরীজীবীরা সাধারণতঃ সুদী কারবারের সাথে জড়িত। আর সুদের সাথে জড়িত ব্যক্তির সাথে আত্মীয়তা করা থেকে প্রতিটি মুমিনের জন্যই বিরত থাকা কর্তব্য । কেননা হযরত আবূ হুরায়রা রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, যখন তোমাদের কাছে এমন লোক বিবাহের প্রস্তাব দেয়, যার দ্বীনদারী ও চরিত্র তোমরা পছন্দ কর, তখন বিবাহ দিয়ে দাও ( মাল-সম্পদের দিকে লক্ষ্য করো না )। যদি তা না কর তবে দেশে ফিতনা ও ব্যাপক ফাসাদ দেখা দেবে।
সুনানে তিরমিজী, হাদীস নং-১০৮৪৷
অতএব প্রশ্নে বর্নিত সুরতে আপনার মেয়ে যেহেতু একজন আলেমা তাই উক্ত ব্যাংকারের নিকট বিবাহ না দিয়ে, একজন আলেম বা দ্বীনদার পাত্র দেখে পাত্রস্ত করা যথাসম্ভব চেষ্টা করুন ৷
মুফতী মেরাজ তাহসীন মুফতীঃ জামিয়া দারুল উলুম দেবগ্রাম ব্রাক্ষণবাড়িয়া ৷

ফতোয়া নং: ৪৭৩৩
তারিখ: ১/১১/২০১৬
বিষয়: তাবলীগ

দ্বীনি উদ্দেশ্যে অমুসলিমকে মসজিদে নিয়ে আসা৷

প্রশ্ন
আমাদের মসজিদে তাবলীগ জামাতের গাস্তের দিন এক ব্যক্তি ঈমান-একিনের কথা শুনার জন্য এক হিন্দু ব্যক্তিকে মসজিদে নিয়ে আসে এবং সে দীর্ঘ সময় মসজিদে বসে দ্বীনী কথা শুনে। এখন আমার জানার বিষয় হল, অমুসলিম ব্যক্তির জন্য কি মসজিদে প্রবেশ করা জায়েয আছে? এবং উক্ত ব্যক্তি জেনেশুনে অমুসলিম ব্যক্তিকে মসজিদে এনে কি ঠিক কাজ করেছেন? জানিয়ে উপকৃত করবেন।
উত্তর
দ্বীনী উদ্দেশ্যে হিন্দু বা বিধর্মীকে মসজিদে নিয়ে আসা জায়েয। হাদীস শরীফে এসেছে,‘রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বনু ছাকিফ গোত্রের কাফের প্রতিনিধি দলকে মসজিদে রেখেছিলেন, যাতে তারা কুরআন শুনে দ্বীনের দিকে ধাবিত হয়। অতএব ঐ হিন্দু লোকটিকে মসজিদে নিয়ে এসে সে কোনো অন্যায় করেনি। -শরহুস সিয়ারুল কাবীর ১/৯৬; বাদায়েউস সানায়ে ৪/৩০৭; আহকামুল কুরআন জাসসাস ৩/৮৮৷ উত্তর প্রদানে মুফতী মেরাজ তাহসীন
01756473393

Execution time: 0.01 render + 0.00 s transfer.