Login | Register

ফতোয়া: কসম-মান্নত

ফতোয়া নং: ৬২৫৬
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

এক ব্যক্তি বাইতুল মুকাররম মসজিদে দুই রাকাত নামায আদায় করার...

প্রশ্ন

এক ব্যক্তি বাইতুল মুকাররম মসজিদে দুই রাকাত নামায আদায় করার মান্নত করেছে। অতপর সেখানে আদায় না করে অন্য মসজিদে আদায় করেছে। প্রশ্ন হল, তার মান্নত কি আদায় হয়েছে?

উত্তর

হ্যাঁ, তার মান্নত আদায় হয়ে গেছে। কেননা কোনো নির্ধারিত মসজিদে নামায আদায়ের মান্নত করলে সেখানেই তা আদায় করা জরুরি হয় না। বরং অন্য মসজিদে আদায় করলেও ঐ মান্নত পূর্ণ হয়ে যায়।

-মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা ৭/৫৮৯, হাদীস : ১২৫৮০; আততাজরীদ ১২/৬৫১৬; আলবাহরুর রায়েক ২/৫৮; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ২/১২৯; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/১১৫; রদ্দুল মুহতার ৩/৭৪১

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬১৮৩
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

জনৈক দরিদ্র মহিলা কসমের কাফফারা হিসাবে তিন দিন রোযা রাখে।...

প্রশ্ন

জনৈক দরিদ্র মহিলা কসমের কাফফারা হিসাবে তিন দিন রোযা রাখে। তৃতীয় দিন রোযা অবস্থায় তার অপবিত্রতা শুরু হয়। ফলে পবিত্র হওয়ার পর সে আরো একদিন রোযা রাখে। জানতে চাই, তার কসমের কাফফারা কি আদায় হয়েছে?

উত্তর

না, মহিলাটির কসমের কাফফারা আদায় হয়নি। কেননা রোযার মাধ্যমে কসমের কাফফারা আদায়ের জন্য তিন দিন লাগাতার রোযা রাখা শর্ত। মাঝে বিরতি হলে তা দ্বারা কাফফারার রোযা আদায় হয় না।

মহিলাটি বাস্তবেই যদি দশজন মিসকীনকে দুই বেলা পেট ভরে খানা খাওয়ানোর অথবা তাদেরকে এক জোড়া করে বস্ত্র দান করার সামর্থ্য না রাখে তাহলে পুনরায় তাকে লাগাতার তিনটি রোযা রাখতে হবে।

-সূরা মায়েদ : ৮৯; তাফসীরে রূহুল মাআনী ৭/১৪; কিতাবুল আছার ২/৬০০; কিতাবুল আছল ২/২৯৫; আলমাবসূত, সারাখসী ৮/১৫৫; আদ্দুররুল মুখতার ৩/৭২৭; আলমুহীতুল বুরহানী ৬/৩৭৩

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬১৭২
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

আমার পিতার উপর হজ্ব ফরয ছিল। তিনি হজ্ব না করেই...

প্রশ্ন

আমার পিতার উপর হজ্ব ফরয ছিল। তিনি হজ্ব না করেই মৃত্যুবরণ করেছেন। তিনি হজ্ব করার অসিয়ত করে যাননি। তার মৃত্যুর পর আমরা তার সম্পদ ভাগ করে নিয়েছি। আমার পিতা যেহেতু হজ্ব করেননি তাই আমি তার পক্ষ থেকে বদিল হজ্ব করার জন্য টাকা জমা করতে থাকি। চাকরির টাকা ও কিছু জমি বিক্রি করে হজ্ব করার মতো টাকা জমা করেছি। ইতিপূর্বে আমার উপর হজ্ব ফরয ছিল না। একজন আলেম বলেছেন, এই সম্পদ জমা করার কারণে তোমার উপর হজ্ব ফরয হয়ে গেছে। তুমি নিজের হজ আদায় করে নাও। তোমার পিতার বদলি হজ্ব করা তোমার উপর জরুরি নয়। এখন আমি আমার নিজের হজ্ব আদায় করব নাকি পিতার বদলি হজ্ব আদায় করব? দয়া করে জানাবেন।

উত্তর

উক্ত আলেম ঠিকই বলেছেন। আপনার গচ্ছিত ঐ টাকার কারণে আপনার নিজের উপরই হজ্ব ফরয হয়ে গেছে। তাই আগে আপনার নিজের হজ্ব আদায় করা জরুরি।

প্রকাশ থাকে যে, আপনার পিতা যদিও তার পক্ষ থেকে হজ্ব করার অসিয়ত করে যাননি। কিন্তু যেহেতু তার উপর হজ্ব ফরয ছিল আর তিনি ফরয হজ্ব আদায় না করেই ইন্তিকাল করেছেন এবং পর্যাপ্ত সম্পদও রেখে গেছেন তাই তার ওয়ারিসদের কর্তব্য হবে তার পক্ষ থেকে বদলি হজ্ব আদায় করানো। বালেগ ওয়ারিসদের স্বতঃস্ফূর্ত ব্যয়ের মাধ্যমে এই হজ্ব করানো উচিত। হাদীস শরীফে এসেছে, আবদুল্লাহ ইবনে আববাস রা. বলেন, এক মহিলা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর নিকট এসে বলল, আমার মা মান্নত করেছিলেন যে, তিনি হজ্ব করবেন। কিন্তু তা পূর্ণ করার আগেই তিনি মারা গেছেন। (এখন আমার করণীয় কী?) রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, অর্থ : তুমি তার পক্ষ থেকে হজ্ব আদায় করে নাও। বল তো, যদি তোমার মা কারো নিকট ঋণী হতেন তুমি কি তার ঋণ পরিশোধ করতে না? মহিলাটি বলল, হ্যাঁ। আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, তোমরা আল্লাহর ঋণ পরিশোধ কর। কেননা তিনি প্রাপ্য পাওয়ার অধিক হকদার।

-সহীহ বুখারী ১/২৪৯; আলমানাসিক ৪২, ৪৩২; গুনইয়াতুন নাসিক ২০

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬১৫৬
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

আমি একটি গুনাহের কাজ থেকে তাওবার নিয়তে এভাবে কসম করি...

প্রশ্ন

আমি একটি গুনাহের কাজ থেকে তাওবার নিয়তে এভাবে কসম করি যে, আল্লাহর কসম আমি আর এই কাজ করব না। কখনো বলি, আল্লাহর কসম আমি আর করব না। কখনো বলি, আল্লাহর জালালিয়াতের কসম, আমি আর এই কাজ করব না। তবে কি করব না তা মুখে উল্লেখ করিনি। কিন্তু অন্তরে ঐ কাজের নিয়ত ছিল। শয়তানের প্ররোচনায় পড়ে প্রতি বারই আমার দ্বারা ঐ কাজ সংঘটিত হয়ে যায় এবং একবার কসম করে ভঙ্গ করার মাঝে কয়েকবার এভাবে কসম করি।

এখন প্রশ্ন হল, আমি কসম ভঙ্গকারী হয়েছি কি না? হলে কয়টি কাফফারা আদায় করতে হবে? যে কয়বার ভঙ্গ হয়েছে সে কয়টি নাকি যে কয়বার কসম করেছি সে কয়টি। জানিয়ে বাধিত করবেন।

উল্লেখ্য, আমি এভাবে কতবার যে কসম করে ভঙ্গ করেছি তা জানা নেই। এখন কী করতে পারি? সুপরামর্শ চাই।

উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে কসম ভঙ্গ করার কারণে আপনাকে কাফফারা আদায় করতে হবে। এক্ষেত্রে একবার কসম করে তা ভাঙ্গার পূর্বে সেই বিষয়ের কসম বারবার পুনরাবৃত্তি করার দ্বারা যদি আপনি ভিন্ন করে কসমের উদ্দেশ্য না নিয়ে থাকেন; বরং পূর্বের কসমেরই পুনরাবৃত্তি করা এবং তা দৃঢ় করা উদ্দেশ্য হয়ে থাকে তাহলে এক্ষেত্রে প্রতি কসমের উপর কাফফারা আসবে না। বরং এভাবে কসমগুলো করার পর যখন কসম ভঙ্গ হয়েছে তখন একটি কাফফারা দিতে হবে। এরপর যদি আবার কসম করা হয় এবং তা ভঙ্গ করা হয় তাহলে পুনরায় কাফফারা দিতে হবে।

একটি কসমের কাফফারা হল, দশজন গরীব মিসকীনকে দু বেলা তৃপ্তিসহ খানা খাওয়ানো। অথবা তাদের প্রত্যেককে এক জোড়া করে কাপড় দেওয়া। এ দুটির সমার্থ্য না থাকলে এক নাগাড়ে তিনটি রোযা রাখা।

এখন আপনার কর্তব্য হল, উপরোক্ত মাসআলা অনুযায়ী কতবার কসম ভঙ্গ করেছেন যথাসম্ভব তার সঠিক হিসাব বের করার চেষ্টা করা। সঠিক হিসাব বের করা না গেলে প্রবল ধারণার ভিত্তিতে কাফফারার সংখ্যা নির্ধারণ করে তা আদায় করবেন এবং আল্লাহ তাআলার নিকট ভুলভ্রান্তির জন্য ইস্তিগফার করবেন।

প্রকাশ থাকে যে, গুনাহ থেকে বেঁচে থাকার সংকল্পের ক্ষেত্রে বান্দার দায়িত্ব হল বারবার কসম না করে বরং আল্লাহ তাআলার প্রতি মুতাওয়াজ্জেহ হওয়া এবং তার তাওফীক কামনা করা এবং কোন আল্লাহওয়ালা বুযুর্গের সংশ্রব অবলম্বন করা ও বেশি বেশি দুআ করতে থাকা

।-সূরা মায়েদা : ৮৯; কিতাবুল আসল ৩/২৩৮, ৩/১৯৬; আলমাবসূত, সারখসী ৮/১৫৭; ইলাউস সুনান ১১/৪২৬; রুহুল মাআনী ৭/১৪

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬১৪৮
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

জনৈক ব্যক্তির দুই মেয়ে। বড় জনের নাম আয়েশা। ছোটজনের নাম...

প্রশ্ন

জনৈক ব্যক্তির দুই মেয়ে। বড় জনের নাম আয়েশা। ছোটজনের নাম হালীমা। আয়েশার তুলনায় হালীমা সুন্দরী। আয়েশার বিয়ের কথাবার্তা চলছে। মেয়ের আত্মীয় স্বজন পাত্রী দেখানোর সময় আয়েশাকে না দেখিয়ে হালীমাকে দেখায়। পাত্র জানতে পারে যে, সে আয়েশাকেই দেখছে। পরবর্তীতে বিয়ের তারিখ ধার্য হয় এবং আয়েশার সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের সময় পাত্রকে বলা হয় যে, অমুকের মেয়ে আয়েশাকে তোমার বিবাহে এত দেন মোহরের এওয়াজে দিলাম। তখন পাত্র কবুল করে। পরবর্তীতে যখন তাদের সাক্ষাত হয় তখন দেখা গেল যে, যেই মেয়েকে সে দেখেছিল সেই মেয়ের সাথে তার বিবাহ হয়নি। ধীরে ধীরে মেয়ে পক্ষের কারসাজি সম্পর্কে ছেলে সবই অবগত হয়। এখন পাত্র জানতে চায়, তার এ বিবাহ সহীহ হয়েছে কি? আয়েশার সাথেই বিয়ে হয়েছে? না কি তার ছোট বোন, যাকে সে দেখেছিল তার সাথে বিবাহ হয়েছে। কেননা সে তো হালীমাকেই দেখেছে এবং সে তাকেই বিয়ে করছে। পাত্র যদি আয়েশাকে মেনে নিতে না পারে তবে তার তালাক দেওয়া কি বৈধ হবে?

উত্তর

প্রশ্নের বর্ণনা অনুযায়ী বিয়ের আকদের সময় যেহেতু আয়েশার নাম উল্লেখ করে প্রস্তাব করা হয়েছে এবং এই প্রস্তাবের উপরই পাত্র কবুল বলেছে তাই আয়েশার সাথেই তার বিবাহ সংঘটিত হয়েছে। এক্ষেত্রে মনে অন্য মেয়ের কথা থাকলেও সেটা ধর্তব্য হবে না। কেননা যার নাম উল্লেখ করে প্রস্তাব ও কবুল করা হয় তার সাথেই বিবাহ হয়ে যায়। তবে পাত্রী পক্ষের এহেন ধোঁকাপূর্ণ আচরণ মারাত্মক অন্যায় হয়েছে। এ জন্য তাদের উচিত পাত্রের কাছে ক্ষমা চাওয়া। প্রকাশ থাকে যে, এ অবস্থায় পাত্র যদি উক্ত ভুলকে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখে আয়েশাকে স্ত্রী হিসেবে মেনে নিয়ে দাম্পত্য জীবন চালিয়ে যায় তবে সে সওয়াবের অধিকারী হবে। অবশ্য সে যদি মানতে না পারে তবে তার জন্য আয়েশাকে তালাক দেওয়াও বৈধ হবে।

-রদ্দুল মুহতার ৩/২৬; ফাতাওয়া খানিয়া ১/৩২৪; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ৪/৩৫; আলমুহীতুল বুরহানী ৪/২৫

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬০৭৭
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

আমার ছোটভাই একবার গুরুতর অসুস্থ হয়ে গেলে আমার মা কুতুববাগ...

প্রশ্ন

আমার ছোটভাই একবার গুরুতর অসুস্থ হয়ে গেলে আমার মা কুতুববাগ দরবার শরীফে গিয়ে মানত করেছিলেন যে, যদি আমার ছেলে সুস্থ হয় তাহলে পীর কেবলার নামে একটা ছাগল দিব। আমার ভাই এখন পূর্ণ সুস্থ। জানার বিষয় হল, এ মানত কি সহীহ হয়েছে এবং তা পূর্ণ করা কি জরুরি? জানালে উপকৃত হব।

উত্তর

মানত একটি ইবাদত। যা একমাত্র আল্লাহরই হক। কোনো মাজার বা পীরের নামে মানত করা হারাম ও শিরক। তাই আপনার মার প্রশ্নোক্ত মানত সম্পূর্ণ হারাম ও শিরকি কাজ হয়েছে। এ জন্য তাকে সকল প্রকার আকিদাগত ও আমলী শিরক পরিহার করে পূর্ণ তাওহীদের আকিদা ও আমল গ্রহণ করতে হবে এবং খালেছ দিলে তওবা ও ইস্তিগফার করতে হবে। আর ঐ মানত যেহেতু সহীহ হয়নি তাই ছেলে সুস্থ হলেও এখন ঐ মানতের কারণে তাকে কিছুই করতে হবে না। হ্যাঁ, আপনার মা যদি এ উপলক্ষে সদকা করতেই চান তবে গরীব-মিসকিনকে সদকা করবেন, মাজারে দিবেন না।

-তাফসীরে রূহুল মাআনী ১৭/২১২; আলবাহরুর রায়েক ২/২৯৮; আদ্দুররুল মুখতার ২/৪৩৯

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬০৬৮
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

আমি নির্দিষ্ট একটি মোরগ গরিব-মিসকিনকে দিয়ে দেওয়ার মানত করেছি। কিন্তু...

প্রশ্ন

আমি নির্দিষ্ট একটি মোরগ গরিব-মিসকিনকে দিয়ে দেওয়ার মানত করেছি। কিন্তু মানত করার এক দিনের মধ্যেই সেই মোরগটা রোগাক্রান্ত হয়ে মারা যায়। এক্ষেত্রে আমার করণীয় কী? জানালে কৃতজ্ঞ হব।

উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে মানতকৃত মোরগটি যেহেতু মরে গেছে তাই এর পরিবর্তে কিছুই দিতে হবে না।

-রদ্দুল মুহতার ৬/৩২৫; বাদায়েউস সানায়ে ৪/১৯৯

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬০২৬
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

শুনেছি, মাখলুকের নামে কসম করা জায়েয নয়। অথচ কুরআন মজীদে...

প্রশ্ন

শুনেছি, মাখলুকের নামে কসম করা জায়েয নয়। অথচ কুরআন মজীদে আল্লাহ তাআলা বিভিন্ন জিনিসের নামে কসম করেছেন। এর দ্বারা কি মাখলুকের নামে কসম করার বৈধতা প্রমাণিত হয় না? তাছাড়া এ সকল জিনিস দ্বারা কসম করার কারণই বা কী? যদি মাখলুকের নামে কসম করা হারাম হয় তাহলে তার দলিল কী? বিস্তারিত জানালে উপকৃত হব।

উত্তর

মানুষের জন্য কোনো মাখলুকের নামে কসম করা সম্পূর্ণ নাজায়েয। এ ব্যাপারে হাদীস শরীফে সুস্পষ্ট নিষেধাজ্ঞা এসেছে। এবং এটাকে শিরকতুল্য গুনাহ বলা হয়েছে।

আর আল্লাহ তাআলা মাখলুকের নামে কসম করেছেন-এর দ্বারা মানুষের জন্য মাখলুকের নামে কসম করা জায়েয প্রমাণিত হয় না। কেননা আল্লাহ তাআলা শরীয়তের বিধানদাতা। তার দেওয়া বিধান মানুষের জন্যই প্রযোজ্য। আল্লাহ তাআলার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়। তিনি মাখলুকের নামে কসম করতে পারেন। এটা তার ইচ্ছাধীন। যেমন অহংকার তার বৈশিষ্ট্য। কিন্তু মানুষের জন্য তা হারাম।

মানুষের জন্য মাখলুকের নামে কসম করা হারাম হওয়া সম্পর্কে কিছু দলিল নিম্নে পেশ করা হল।

১. হাদীস শরীফে এসেছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, (অর্থ) নিশ্চই আল্লাহ তাআলা তোমাদেরকে তোমাদের পূর্বপুরুষের নামে (সুনানে আবু দাউদের বর্ণনা অনুযায়ী, মাতা ও মূর্তির নামেও) কসম করতে নিষেধ করেছেন। সুতরাং কসম করতে হলে কেবল আল্লাহ তাআলার নামে করবে, অন্যথায় চুপ থাকবে।-সহীহ মুসলিম ১/৪৬

২. আবদুল্লাহ ইবনে উমর রা. এক ব্যক্তিকে কাবা শরীফের নামে কসম করতে শুনে বললেন, আল্লাহ তাআলার নাম ব্যতীত কারো নামে কসম করার অবকাশ নেই। আমি নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছি, যে ব্যক্তি আল্লাহ তাআলার নাম ব্যতীত অন্য কারো নামে কসম করল সে নির্ঘাত একটি কুফরী বা শিরকী কাজ করল।-জামে তিরমিযী, হাদীস : ১৫৩৫

আর মাখলুকের নামে আল্লাহ তাআলার কসম করার মাঝে কী রহস্য ও তাৎপর্য নিহিত আছে, তা তিনিই ভালো জানেন। অবশ্য মুহাদ্দিস ও মুফাসসিরগণ কিছু কিছু হেকমত বয়ান করেছেন। যেমন, একটি হেকমত হল, কসমকৃত বস্ত্তর গুরুত্ব ও মহত্ব বুঝানো। উদারহণ স্বরূপ, আল্লাহ তাআলা কুরআন মজীদে সময়ের কসম করেছেন। এর দ্বারা সময়ের মূল্য ও গুরুত্ব বুঝানো উদ্দেশ্য।

-তাফসীরে কুরতুবী ২০/১২২; রূহুল মাআনী ৩০/২২৮; ফাতহুল বারী ১১/৫৪৪; উমদাতুল কারী ২৩/১৭৫; আলইসতিযকার ৪/২০৩

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬০২৫
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

এক ব্যক্তি তার স্ত্রীকে পাশের বাড়িতে এক মহিলার সাথে কথা...

প্রশ্ন

এক ব্যক্তি তার স্ত্রীকে পাশের বাড়িতে এক মহিলার সাথে কথা না বলার জন্য কসম করতে বলে। স্বামীর আদেশ পালনার্থে মহিলাটি বলে যে, আল্লাহর কসম, আমি ঐ মহিলার সাথে কোনো কথা বলব না।

দুদিন পর পাশের বাড়ির ঐ মহিলা তার কাছে আসলে সে বলে যে, আমার স্বামী তোমার সাথে কথা বলতে নিষেধ করেছে। তাই আমি তোমার সাথে কোনো কথা বলতে পারব না।

একথা শুনে ঐ মহিলাটি কোনো কথা না বলে চলে যায়। এখন ঐ কথা বলার দ্বারা তার কসম কি ভঙ্গ হয়ে গেছে?

উত্তর

প্রশ্নের বর্ণনা অনুযায়ী ঐ মহিলাকে সম্বোধন করে উক্ত কথা বলার কারণে কসমটি ভঙ্গ হয়ে গেছে। কেননা কাউকে সম্বোধন করে কিছু বলাই তার সাথে কথা বলার অন্তর্ভুক্ত। সুতরাং তাকে কসমের কাফফারা আদায় করতে হবে।

কসমের কাফফারা হল, দশজন মিসকীনকে তৃপ্তিসহকারে দু বেলা খানা খাওয়ানো। অথবা প্রত্যেককে এক জোড়া করে কাপড় দেওয়া। আর এ দুটির সামর্থ্য না থাকলে এক নাগাড়ে তিনটি রোযা রাখতে হবে।

-আরবাহরুর রায়েক ৪/৩৩২; মাবসূত, সারাখসী ৯/২২; ফাতহুল কাদীর ৪/৪১৭

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৯৭৮
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

কয়েক মাস আগে আমি অসুস্থ ছিলাম। তখন মানত করেছি, সুস্থ...

প্রশ্ন

কয়েক মাস আগে আমি অসুস্থ ছিলাম। তখন মানত করেছি, সুস্থ হলে আমাদের বাজার মসজিদে একটি আইপিএস কিনে দিব। আলহমাদুলিল্লাহ, আমি এখন সুস্থ হয়েছি। কিছুদিন পূর্বে আমাদের মসজিদে আইপিএস কেনা হয়েছে। এখন আমি অন্য কোনো মসজিদে আইপিএস কিনে দিলে ঐ মানত পুরা হবে কি? দয়া করে জানাবেন।

উত্তর

প্রশ্নের বর্ণনা অনুযায়ী আপনার ঐ কথা মূলত নফল দানের ওয়াদা। নির্দিষ্ট মসজিদে না দিয়ে অন্য মসজিদে আইপিএস দিলেও ঐ ওয়াদা পূর্ণ হয়ে যাবে। এতে কোনো অসুবিধা হবে না।

-বাদায়েউস সানায়ে ৪/২২৮; রদ্দুল মুহতার ৩/৭৩৫; ফাতহুল কাদীর ৪/৩৭৪

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৯৭৭
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

আমার মরহুম পিতার উপর হজ্ব ফরয ছিল। তিনি প্রচুর সম্পত্তি...

প্রশ্ন

আমার মরহুম পিতার উপর হজ্ব ফরয ছিল। তিনি প্রচুর সম্পত্তি রেখে মারা যান। নিজের ফরয হজ্বটা করে যেতে পারেননি। এবং বদলি হজ্ব করার অসিয়তও করে যাননি। ফলে তাঁর পক্ষ থেকে হজ্বের ব্যবস্থা না করেই সকল সম্পত্তি ভাগ করে নিয়েছি। এখন আমি একা তার পক্ষ থেকে বদলি হজ্ব করার জন্য চাকরির টাকা ও কিছু জমি বিক্রি করে হজ্ব করার মতো টাকা জমা করেছি। আমার নিয়ত হল, আগে পিতার হজ্ব করব এরপর আমার নিজের হজ্ব করব। কেননা আমার ধারণা যে আমার উপর হজ্ব ফরয হয়নি, কিন্তু একজন আলেম বললেন, আমার উপরও হজ্ব ফরয। তাই আগে নিজের হজ্ব আদায় কর। এরপর সম্ভব হলে তোমার পিতার বদলি হজ্ব আদায় করবে।

এখন আমি আমার নিজের হজ্ব আদায় করব নাকি পিতার বদলি হজ্ব আদায় করব? দয়া করে জানাবেন।

উত্তর

ওই আলেম ঠিকই বলেছেন। প্রশ্নোক্ত অবস্থায় আপনার নিজের উপরই হজ্ব ফরয। তাই আগে আপনার নিজের হজ্ব আদায় করা জরুরি। এরপর কখনো সম্ভব হলে পিতার বদলি হজ্ব করবেন। আর আপনার পিতা যদিও বদলি হজ্বের অসিয়ত করে যাননি, কিন্তু তিনি যেহেতু ফরয হজ্ব আদায় না করে ইন্তেকাল করেছেন এবং পর্যাপ্ত সম্পদও রেখে গেছেন তাই তার ওয়ারিশদের উচিত হবে তার পক্ষ থেকে বদলি হজ্ব করানো। বালেগ ওয়ারিশদের স্বতঃস্ফূর্ত ব্যয়ের মাধ্যমে তার বদলি হজ্ব করানো উচিত। হাদীস শরীফে এসেছে, আবদুল্লাহ ইবনে আববাস রা. বলেন, এক মহিলা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর নিকট এসে বলল, আমার মা হজ্বের মানত করেছিলেন। তিনি হজ্ব না করেই মৃত্যুবরণ করেছেন। আমি কি তাঁর পক্ষ থেকে হজ্ব করব?

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, তুমি তাঁর পক্ষ থেকে হজ্ব কর। তোমার কী ধারণা, যদি তোমার মা কারো নিকট ঋণী হতেন তুমি কি তার ঋণ পরিশোধ করতে না? তোমরা আল্লাহর হক আদায় করে দাও। কেননা আল্লাহর হক তো আদায়ের বেশি উপযুক্ত।

-সহীহ বুখারী ১/২৪৯; মানাসিক, পৃ. ৪৩৬; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ১৮/১৭৬

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৯৬২
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

আমি মানত করেছিলাম, যদি আমি এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ ৫ পাই...

প্রশ্ন

আমি মানত করেছিলাম, যদি আমি এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ ৫ পাই তাহলে কিশোরগঞ্জ পাগলা মসজিদে দু রাকাত নামায পড়ব। আল্লাহর রহমতে ঐ নাম্বারই পেয়েছি। এবং পরবর্তীতে আমি দু রাকাত নামায পাগলা মসজিদে না পড়ে শহীদী মসজিদে পড়ে নিয়েছি। এখন আমার জানার বিষয় হল, আমার মানত কি আদায় হয়েছে? যদি না হয়ে থাকে তাহলে কি পুনরায় আদায় করতে হবে?

উত্তর

শহিদী মসজিদে দু রাকাত নামায পড়ার দ্বারা আপনার মানতটি আদায় হয়ে গেছে। কারণ কোনো নির্দিষ্ট মসজিদে নামায পড়ার মানত করলে সে মসজিদে পড়া জরুরি হয়ে যায় না। অন্য মসজিদে কিংবা অন্য কোথাও পড়ে নিলেও তা আদায় হয়ে যায়। তাই নির্দিষ্ট মসজিদে গিয়ে পুনরায় তা আদায় করতে হবে না।

-আলমুহীতুল বুরহানী ৬/৩৫৯; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ৬/২৮৫; ফাতাওয়া খানিয়া ২/১৬

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৮৮৫
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

আমাদের এক দূর-সম্পর্কের আত্মীয় কয়েকদিন আগে মারা গেছেন। মারা যাওয়ার...

প্রশ্ন

আমাদের এক দূর-সম্পর্কের আত্মীয় কয়েকদিন আগে মারা গেছেন। মারা যাওয়ার অনেক আগে থেকেই তার অসিয়ত ছিল যে, তাকে যেন তার গ্রামের বাড়ি বরিশালে তার মায়ের কবরের পাশে দাফন করা হয়। কিন্তু তিনি মারা যাওয়ার পর তার ছেলেরা যাতায়াত সমস্যাসহ বিভিন্ন কারণে তাকে ঢাকাতেই দাফন করে। এখন এ নিয়ে মৃতের ভাই-বোনদের সাথে তার ছেলেদের গন্ডগোল হচ্ছে। তারা বলছেন যে, অসিয়ত পূরণ না করাটা অনেক বড় অন্যায় হয়েছে। ছেলেরা তা মানতে নারাজ। দয়া করে সঠিক বিষয়টি জানালে কৃতজ্ঞ হব।

উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে তাকে ঢাকায় দাফন করা ঠিক হয়েছে। কেননা মানুষ যে এলাকায় মারা যায়তাকে ঐ এলাকার বা পার্শ্ববর্তী এলাকার কবরস্থানে দাফন করা উত্তম। আর বরিশালে দাফন নাকরাটা অন্যায় হয়নি। কারণ মৃতের এই অসিয়তটি শরীয়তের দৃষ্টিতে গ্রহণযোগ্য নয়। তাইওয়ারিসদের জন্য তা পূর্ণ করাও জরুরি নয়।

-আলমুহীতুল বুরহানী ২৩/৪০; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ৪/২৩৫; রদ্দুল মুহতার ২/২২১; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ৩/৮১

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৮৭৭
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

কোনো ব্যক্তি নির্দিষ্ট কোনো মাসের, যেমন মুহাররম মাসের দশ দিন...

প্রশ্ন

কোনো ব্যক্তি নির্দিষ্ট কোনো মাসের, যেমন মুহাররম মাসের দশ দিন ইতিকাফের মান্নত করে, তাহলে কি রমযানের শেস দশকে ইতিকাফ করলে তার মান্নত আদায় হবে? অর্থাৎ রমযানের রোযা কি ঐ মান্নতের জন্য যথেষ্ট হবে না অন্য মাসে নফল রোযাসহ তা আদায় করতে হবে?

প্রশ্ন : খ) আর যদি কোনো নির্দিষ্ট মাসে নয়; বরং যে কোনো মাসের ১০ দিন ইতিকাফের মান্নত করল তাহলে সে কি রমযানের শেষ দশকে ইতিকাফ করলে মান্নত আদায় হবে, না নফল রোযাসহ অন্য মাসে তা আদায় করতে হবে?

উত্তর

ক ও খ) রমযান ছাড়া অন্য কোনো নির্দিষ্ট মাসে ইতিকাফের মান্নত করলে রমযানে ইতিকাফ করার দ্বারা মান্নত আদায় হবে না। রমযান ছাড়া অন্য কোনো মাসে নফল রোযাসহ তা আদায় করা আবশ্যক। তদ্রূপ মাস উল্লেখ না করে কিছুদিনের ইতিকাফের মান্নত করলেও রমযান ছাড়া অন্য মাসে নফল রোযাসহ ইতিকাফ করতে হবে। এক্ষেত্রেও রমযানের ইতিকাফ যথেষ্ট নয়। সুতরাং প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে মান্নতকৃত দশ দিনের ইতিকাফ রমযানের শেষ দশকের ইতিকাফ দ্বারা আদায় করা যাবে না; বরং অন্য কোনো মাসে নফল রোযাসহ তা আদায় করতে হবে।

উল্লেখ্য, রমযানের ইতিকাফ ছাড়া অন্য কোনো মাসের ইতিকাফের মান্নত করলে তাতে একত্রে দুটি কাজের মান্নত হয়ে যায় : ১. ইতিকাফ করা ও ২. ইতিকাফের দিনে রোযা রাখা।

-আলমাবসূত, সারাখসী ১/১২১; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/২১১; আলমুহীতুল বুরহানী ৩/৩৮৩; উমদাতুল ফিকহ ৩/৩১৯

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৮৫০
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

আমি একজনের বাড়িতে গেলে সে আমাকে ভাত খাওয়ার জন্য জোরাজুরি...

প্রশ্ন

আমি একজনের বাড়িতে গেলে সে আমাকে ভাত খাওয়ার জন্য জোরাজুরি করে। আমি তার বাড়িতে খাব না এজন্য মিথ্যা কসম করে বলি, আমি খানা খেয়ে এসেছি। এতে আমার উপর কাফফারা ওয়াজিব হয়েছে কি?

উত্তর

কোনো বিষয়ে মিথ্য কসম করা নিকৃষ্টতর কবীরা গুনাহ। প্রশ্নোক্ত মিথ্যা কসমের কারণে আপনার কবীরা গুনাহ হয়েছে।

হাদীস শরীফে এসেছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, কবীরা গুনাহ হল, আল্লাহর সাথে শিরক করা, মাতাপিতার অবাধ্যতা করা, মানুষ হত্যা করা ও মিথ্যা কসম করা।’-সহীহ বুখারী ২/৯৮৭

অতএব ঐ গুনাহ থেকে কায়মনোবাক্যে তাওবা-ইস্তিগফার করতে হবে। অবশ্য প্রশ্নোক্ত মিথ্যা কসমের কারণে আপনার উপর কোনো কাফফারা ওয়াজিব হয়নি। কাফফারা ওয়াজিব হয় ভবিষ্যতে কোনো বিষয়ের কসম করে তা ভঙ্গ করলে।

-আসসুনানুল কুবরা ১০/৩৮; বাদায়েউস সানায়ে ৩/২৭; ফাতহুল কাদীর ৪/৩৪৮; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ২/১২৩

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৮২৪
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

আমি একটি মান্নত করেছি এভাবে যে, চাকরিটা যদি হয়ে যায়...

প্রশ্ন

আমি একটি মান্নত করেছি এভাবে যে, চাকরিটা যদি হয়ে যায় তাহলে ৪০ দিন ১০০ বার দরূদ শরীফ পড়ব। আলহামদুলিল্লাহ চাকরিটা আমার হয়ে গেছে। এখন জানতে চাই, ৪০ দিন দরূদ শরীফ পড়া কি আমার উপর ওয়াজিব হয়ে গেছে?

উত্তর

হ্যাঁ, উক্ত মান্নতের কারণে আপনার উপর ৪০ দিন ১০০ বার করে দরূদ শরীফ পড়া ওয়াজিব হয়ে গেছে।

-আদ্দুররুল মুখতার ৩/৭৩৮; হাশিয়াতুত তহতাবী আলাদ্দুর ২/৩৩৯; ইমদাদুল ফাতাওয়া ২/৫৬২

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৮২৩
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

এক লোকের কাছে আমি পঞ্চাশ হাজার টাকা ঋণ চেয়েছিলাম। কিন্তু...

প্রশ্ন

এক লোকের কাছে আমি পঞ্চাশ হাজার টাকা ঋণ চেয়েছিলাম। কিন্তু এক মাস পর যেহেতু তার টাকার প্রয়োজন ছিল তাই সে আমাকে টাকা দিতে চাচ্ছিল না। আমি বললাম, কসম করে বলছি, এক মাস পর আপনার টাকা দিয়ে দিব। একথা বলার পর সে আমাকে ঋণ দেয়। কিন্তু কারণবশত এক মাস পর আমি তার ঋণ পরিশোধ করতে পারিনি। আরো দুই মাস পর পরিশোধ করেছি। আমাকে এক লোক বলেছে, কসমের সাথে আল্লাহর নাম না বললে কসম হয় না। জানতে চাই, তার কথা কি ঠিক? আমার উল্লেখিত কসমটি কি সংঘটিত হয়নি?

উত্তর

ঐ ব্যক্তির কথা ঠিক নয়। আল্লাহ তাআলার নাম নিয়ে কসম করলে যেমনিভাবে কসম সংঘটিত হয় তদ্রূপ আল্লাহ তাআলার নাম না নিয়ে শুধু কসম শব্দ ব্যবহার করলেও তা সংঘটিত হয়ে যায়। প্রখ্যাত তাবেয়ী ইবরাহীম নাখায়ী রাহ. বলেন, আমি শপথ করছি আর আল্লাহ তাআলার নামে শপথ করছি-উভয়টি দ্বারাই কসম সংঘটিত হয়।-মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা, হাদীস : ১২৪৭২

সুতরাং আপনার প্রশ্নোক্ত কথা দ্বারা কসম হয়ে গেছে। এরপর সময়মতো ঋণ পরিশোধ না করার কারণে কসমটি ভঙ্গ হয়েছে। এজন্য আপনাকে কসমের কাফফারা আদায় করতে হবে।

-কিতাবুল আছল ৩/১৭৫; ফাতহুল কাদীর ৪/৩৫৯; আদ্দুররুল মুখতার ৩/৭১৬; ফাতাওয়া খানিয়া ২/৪; আলবাহরুর রায়েক ৪/২৮৩

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৮১৪
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

আমার নানার উপর হজ্ব ফরয। তিনি এখনো তা আদায় করেননি।...

প্রশ্ন

আমার নানার উপর হজ্ব ফরয। তিনি এখনো তা আদায় করেননি। আমরা তাকে হজ্বের জন্য তাগাদা দিয়ে আসছিলাম। এরই মধ্যে গত বছর তিনি গুরুতর অসুস্থ হয়ে অনেকদিন যাবত শয্যাশায়ী ছিলেন। একদিন আমরা তার হজ্বের বিষয়ে আলোচনা করছিলাম তখন তিনি মান্নত করেছিলেন যে, আল্লাহ তাআলা আমাকে সুস্থ করলে আগামী বছরই ইনশাআল্লাহ হজ্ব করব। আল্লাহর রহমতে তিনি এখন সুস্থ।

প্রশ্ন হল, উক্ত মান্নতের কারণে কি নানাজানের ফরয হজ্ব ছাড়াও আরেকটি হজ্ব করতে হবে? যদি দুটি হজ্ব করতে হয় তবে কোনটি আগে করবে। ফরয হজ্ব নাকি মান্নতের হজ্ব? জানিয়ে উপকৃত করবেন।

উত্তর

প্রশ্নের বর্ণনা অনুযায়ী আপনার নানাজানের ঐ কথার কারণে পৃথক কোনো হজ্ব তার উপর ওয়াজিব হয়নি। তাই এখন তিনি হজ্ব করলে তার ফরয হজ্বটিই আদায় হবে। অতএব আপনার নানার কর্তব্য হল, আগামী হজ্বের মৌসুমেই তার ফরয হজ্বটি আদায় করে নেওয়া।

-আতাজনীস ওয়ালমাযীদ ২/৪৭৩; আলবাহরুল আমীক ৪/২২১৪; আলবাহরুর রায়েক ৪/২৯৬

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৮০৮
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

এক ব্যক্তি রমযান মাসের শেষ দশকে ইতিকাফের নিয়ত করেছেন। তবে...

প্রশ্ন

এক ব্যক্তি রমযান মাসের শেষ দশকে ইতিকাফের নিয়ত করেছেন। তবে অনিবার্য কারণবশত তিনি ইতিকাফ করতে পারেননি। এখন নিয়ত ভঙ্গ হওয়ার ফলে তার করণীয় কী?

উত্তর

প্রশ্নের বর্ণনা অনুযায়ী ঐ ব্যক্তি যেহেতু ইতিকাফের শুধু নিয়ত করেছে, মান্নত করেনি তাই এ কারণে তার উপর ইতিকাফ করা ওয়াজিব হয়নি। তাই ইতিকাফ না করার কারণে তার উপর কিছুই ওয়াজিব হয়নি।

-রদ্দুল মুহতার ২/৪৪১; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ৩/৪৪২; ফাতাওয়া খানিয়া ১/২২১; হাশিয়াতুত তাহতাবী আলালমারাকী ৩৮২

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৭৯৯
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

আমি একটি বিষয়ে কসম করেছিলাম। কিন্তু কোনো কারণে তা রক্ষা...

প্রশ্ন

আমি একটি বিষয়ে কসম করেছিলাম। কিন্তু কোনো কারণে তা রক্ষা করতে পারিনি। এখন কাফফারা আদায় করতে চাই। আমি জানি, কসমের কাফফারা হল ১০জন মিসকীনকে দু বেলা খানা খাওয়ানো। আমি জানতে চাই, আমার সুবিধার জন্য যদি একজন ফকীরকে ১০ দিন দু বেলা খানা খাইয়ে দেই তাহলে এতে আমার কাফফারা আদায় হবে কি না।

উত্তর

হ্যাঁ, একজন মিসকীনকে দশদিন দু বেলা তৃপ্তির সাথে খানা খাওয়ালেও আপনার কাফফারা আদায় হয়ে যাবে।

-বাদায়েউস সানায়ে ৪/২৬৪; তাবয়ীনুল হাকায়েক ৩/৪৩০

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৭৭৮
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

আমি একটি বিষয়ে মান্নত করেছিলাম যে, অমুক বিষয়টি সমাধা হলে...

প্রশ্ন

আমি একটি বিষয়ে মান্নত করেছিলাম যে, অমুক বিষয়টি সমাধা হলে তিনদিন রোযা রাখব। জানতে চাই, এক্ষেত্রে আমাকে ধারাবাহিকভাবে তিন দিন রোযা রাখতে হবে নাকি ভিন্ন ভিন্ন করে রাখলেও চলবে। উল্লেখ্য, মান্নতের সময় ধারাবাহিকভাবে রোযা রাখার নিয়ত ছিল না।

উত্তর

মান্নতের সময় যেহেতু ধারাবাহিকভাবে রোযা রাখার নিয়ত ছিল না তাই ভিন্ন ভিন্ন করেও রাখতে পারবেন। এতে মান্নত আদায় হয়ে যাবে।

-ফাতাওয়া খানিয়া ১/২১৮; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/২০৯

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৭৬২
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

এক ব্যক্তির মদ পানের পুরনো নেশা আছে। অনেকবার প্রতিজ্ঞা করেও...

প্রশ্ন

এক ব্যক্তির মদ পানের পুরনো নেশা আছে। অনেকবার প্রতিজ্ঞা করেও তা ছাড়তে পারেনি। একপর্যায়ে সে শপথ করে বলল, আর কখনোও মদ পান করব না। তার এই কথা কি কসম হয়েছে?

উত্তর

হ্যাঁ, প্রশ্নোক্ত কথা দ্বারা কসম সংগঠিত হয়েছে। প্রখ্যাত তাবেয়ী হযরত ইবরাহীম নাখায়ী রাহ. (মৃত : ৯৬ হি.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি শপথ করছি এবং আমি আল্লাহর নামে শপথ করছি উভয়টা দ্বারাই কসম সংগঠিত হয়। (মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা, হাদীস : ১২৪৭২)

সুতরাং ঐ ব্যক্তি উক্ত কসমের পর মদ পান করলে মদপানের গুনাহ তো হবেই সাথে সাথে কসম ভঙ্গেরও গুনাহ হবে এবং তাকে কাফফারাও আদায় করতে হবে। তাই এখন তার জন্য অপরিহার্য কর্তব্য হল ভবিষ্যতে আর কখনোও মদ পান না করা এবং স্বীয় শপথের উপর অবিচল ও অনড় থাকা।

-বাদায়েউস সানায়ে ৩/১৪; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ২/১২৬; আলমুহীতুল বুরহানী ৬/৬৫; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ২/৫২

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৭০৭
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

আমার এক বন্ধু মান্নত করেছে, তার অমুক কাজ সমাধা হলে...

প্রশ্ন

আমার এক বন্ধু মান্নত করেছে, তার অমুক কাজ সমাধা হলে সে মাযারে একটি ছাগল দিবে। পরে কাজটি সমাধা হওয়ার পর সে জানতে চাচ্ছে, ঐ মান্নত আদায় করা তার জন্য জরুরি কি না? আর ছাগলটি মাযারে না দিয়ে অন্য কোথাও দেওয়া যাবে কি না?

উত্তর

মাযারের নামে মান্নত করলে মান্নত হয় না। মান্নত একটি ইবাদত, যা একমাত্র আল্লাহর নামেই করা যায়। আল্লাহ তাআলা ছাড়া অন্য কারো নামে, যেমন পীরের নামে, মাযারের নামে মান্নত করা হারাম। অতএব প্রশ্নোক্ত নিয়ত পূর্ণ করা যাবে না; বরং অবৈধ মান্নত করার জন্য তাওবা-ইস্তিগফার করতে হবে।

-মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা, হাদীস : ১২৫৭৫; সুনানে আবু দাউদ ২/৪৬৯; আহকামুল কুরআন, জাসসাস ২/৪৮৫; আলবাহরুর রায়েক ২/২৯৮; আলমুগনী, ইবনে কুদামা ১৩/৬৪৩; রদ্দুল মুহতার ২/৪৩৯; ফাতাওয়া ইবনে তাইমিয়া ২৭/৭৭, ২৬/৩০৭

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৬৯৯
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

ক) এক মহিলার ছেলের নামে মামলা হয়েছে। আদালত ঘোষণা করেছে,...

প্রশ্ন

ক) এক মহিলার ছেলের নামে মামলা হয়েছে। আদালত ঘোষণা করেছে, মঙ্গলবার এ মামলার ফয়সালা হবে। এ কথা শুনে মহিলা মান্নত করেছে যে, যদি তার ছেলের পক্ষে ফয়সালা হয় তাহলে তিনি সারা জীবন প্রতি মঙ্গলবার রোযা রাখবেন। মঙ্গলবার দিন আদালত তার ছেলের পক্ষেই ফয়সালা দিয়েছে। এখন কি সারা জীবন প্রতি মঙ্গলবার তাকে রোযা রাখতে হবে?

খ) কসম ভঙ্গের কারণে আমার উপর একটি কাফফারা ওয়াজিব হয়েছে। আমরা জানি, দশজন মিসকীনের প্রত্যেককে এক সদকাতুল ফিতর পরিমাণ গম বা এর মূল্য দিলে কাফফারা আদায় হয়ে যায়। এক্ষেত্রে আমার জানার বিষয় হল, আমাদের মসজিদের ইমাম সাহেব প্রতি জুমআয় মসজিদের জেনারেটরের তেলের জন্য টাকা তোলেন। কাফফারার টাকা গরীবকে না দিয়ে জেনারেটরের তেলের জন্য দিয়ে দিলে আমার কাফফারা আদায় হবে কি?

উত্তর

ক) হ্যাঁ, ঐ মহিলাকে সারা জীবন মঙ্গলবার দিন রোযা রাখতে হবে। ওজরের কারণে কোনো মঙ্গলবার রোযা রাখতে না পারলে অন্যদিন তা কাযা করতে হবে। আর ভবিষ্যতে বার্ধক্য বা অসুস্থতার কারণে রোযা রাখা সম্ভব না হলে প্রতি মঙ্গলবারের রোযার পরিবর্তে ফিদয়া দিতে হবে।-খুলাসাতুল ফাতাওয়া ১/২৬২; আলমুহীতুল বুরহানী ৩/৩৭৫; আলবাহরুর রায়েক ২/২৯৬; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/২০৯

খ) মসজিদে দান করা অনেক সওয়াবের কাজ। তবে এতে কাফফারা আদায় হবে না। তা নফল সদকা বলেই গণ্য হবে। কেননা, কাফফারা আদায়ের জন্য শর্ত হল, দশজন গরীবের প্রত্যেককে নির্ধারিত সম্পদের মালিক বানিয়ে দেওয়া। অর্থাৎ দশজন মিসকীনের প্রত্যেককে দুই বেলা পরিতৃপ্ত হয়ে খাবার খাওয়ানো বা এর মূল্য দিয়ে দেওয়া। কিংবা প্রত্যেককে জোড়া করে কাপড় দেওয়া অথবা একটি গোলাম আযাদ করা।

কুরআন মজীদে আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, (তরজমা) কসমের কাফফারা হল দশজন মিসকীনকে মধ্যম ধরনের খাবার দিবে। যা তোমরা তোমাদের পরিবারবর্গকে খাইয়ে থাক। অথবা তাদেরকে বস্ত্র দান করবে কিংবা একজন গোলাম আযাদ করবে। তরে কারো কাছে যদি (এসব জিনিসের মধ্য হতে) কিছুই না থাকে তবে সে তিন দিন রোযা রাখবে।-সূরা মায়েদা : ৮৯; কিতাবুল আছল, ইমাম মুহাম্মাদ ৪/২২০; আলমাবসূত, সারাখসী ৮/১৫৪; রদ্দুল মুহতার ২/৩৩৯

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৬৯৮
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

আমার উপর একটি কসমের কাফফারা ওয়াজিব হয়েছে। শুনেছি, দশ জন...

প্রশ্ন

আমার উপর একটি কসমের কাফফারা ওয়াজিব হয়েছে। শুনেছি, দশ জন ফকিরকে দু’ বেলা তৃপ্তি সহ খাবার খাওয়ালে কাফফারা আদায় হয়। আমি যদি দশজনকে দু’ বেলা খাওয়ানোর পরিবর্তে বিশজনকে এক বেলা খাওয়াই তাহলে কি কাফফারা আদায় হবে?

উত্তর

না, এভাবে কাফফারা আদায় হবে না। প্রত্যেককে দু’ বেলা খাবার খাওয়াতে হবে। এক বেলা খাওয়ানো যথেষ্ট নয়। কাফফারা আদায়ের জন্য শর্ত হল, দশজন মিসকীনকে দু’ বেলা খাবার খাওয়ানো। তদ্রূপ একজন মিসকীনকে দশ দিন দু’ বেলা করে খাবার খাওয়ালেও কাফফারা আদায় হয়ে যাবে।

হারেস রাহ. বলেন, হযরত আলী রা. কুরআন মজীদের আয়াত (তরজমা) (কসমের কাফফারা এই যে, দশজন মিসকীনকে মধ্যমমানের খাবার দেবে, যা তোমরা স্বীয় পরিবারকে খাইয়ে থাক।) এর ব্যাখ্যায় বলেছেন, দশ জনের প্রত্যেককে দিনে ও রাতে (দু’ বেলা) খাওয়াবে।-ইবনে কাসীর ২/১৪৩; জাসসাস ২/৪৫৭

বিশিষ্ট তাবেয়ী হযরত কাতাদা রাহ. বলেন, প্রত্যেক মিসকীনকে দিনে ও রাতে (দু বেলা) খাওয়াবে।

-মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা, হাদীস : ১২৩৪৮; বাদায়েউস সানায়ে ৪/২৬১; মাবসূত, সারাখসী ৭/১৫

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৬৮৬
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

আমার এক বন্ধু মান্নত করেছে, তার অমুক কাজ সমাধা হলে...

প্রশ্ন

আমার এক বন্ধু মান্নত করেছে, তার অমুক কাজ সমাধা হলে সে মাযারে একটি ছাগল দিবে। পরে কাজটি সমাধা হওয়ার পর সে জানতে চাচ্ছে, ঐ মান্নত আদায় করা তার জন্য জরুরি কি না? আর ছাগলটি মাযারে না দিয়ে অন্য কোথাও দেওয়া যাবে কি না?

উত্তর

মাযারের নামে মান্নত করলে মান্নত হয় না। মান্নত একটি ইবাদত, যা একমাত্র আল্লাহর নামেই করা যায়। আল্লাহ তাআলা ছাড়া অন্য কারো নামে, যেমন পীরের নামে, মাযারের নামে মান্নত করা সম্পূর্ণ নাজায়েয। অতএব প্রশ্নোক্ত মান্নত পুরা তো করা যাবেই না; বরং অবৈধ মান্নত করার কারণে তাওবা-ইস্তিগফার করতে হবে।

মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা, হাদীস : ১২৫৭৫; সুনানে আবু দাউদ ২/৪৬৯; আহকামুল কুরআন, জাসসাস ২/৪৮৫; আলবাহরুর রায়েক ২/২৯৮; আলমুগনী, ইবনে কুদামা ১৩/৬৪৩; রদ্দুল মুহতার ২/৪৩৯; ফাতাওয়া ইবনে তাইমিয়া ২৭/৭৭, ২৬/৩০৭

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৬৮৫
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

দীর্ঘ দিন পর্যন্ত আমাদের কোনো সন্তান হচ্ছিল না। ফলে আমার...

প্রশ্ন

দীর্ঘ দিন পর্যন্ত আমাদের কোনো সন্তান হচ্ছিল না। ফলে আমার স্বামী মান্নত করলেন যে, আমাদের সন্তান হলে আমরা তাকে নিয়ে শাহজালাল রাহ.-এর মাযার যিয়ারত করতে যাব এবং সেখানকার গরীবদেরকে একটি গরু জবাই করে খাওয়াব। আল্লাহ তাআলার মেহেরবানীতে আমাদের একটি কন্যা সন্তান হয়েছে। কিন্তু আমার স্বামী বিদেশ চলে যাওয়ার দরুণ মাযারে যাওয়া সম্ভব হচ্ছে না। এই পরিস্থিতিতে আমাদের মান্নতটি কিভাবে আদায় করব?

উত্তর

আপনার স্বামী মাযারে যাওয়ার মান্নত করে ঠিক কাজ করেননি। এ ধরনের মান্নত শরীয়তে নিষিদ্ধ। তবে গরীবদেরকে গরু জবাই করে খাওয়ানোর যে মান্নত করা হয়েছে তার জন্য একটি গরু জবাই করে গরীব-মিসকীনকে খাইয়ে দিতে হবে অথবা এর গোশত তাদেরকে বিলিয়ে দিতে হবে। হযরত আয়েশা রা. থেকে বর্ণিত একটি হাদীসে আছে, রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, যে ব্যক্তি আল্লাহ তাআলার কোনো ইবাদতের মান্নত করে সে যেন তা পুরা করে। আর যে কোনো গুনাহর মান্নত করে সে যেন তা থেকে বিরত থাকে। (সহীহ বুখারী ২/৯৯১)

উল্লেখ্য, মাযারে গিয়ে গরু জবাই করার মান্নত করা ঠিক নয়। কেননা, বর্তমানে মাযারগুলোতে নানাপ্রকার শিরকী ও বিদআতী কাজ হয়ে থাকে। যার কারণে এসব মাযারে গিয়ে পশু জবাই করে খাওয়ানোর ইচ্ছা করা কিছুতেই বাঞ্ছনীয় নয়।

এক্ষেত্রে আপনারা একটি গরু জবাই করে নিজ এলাকার বা আশপাশের অথবা অন্য কোনো স্থানের গরীব-মিসকীনের মাঝে গোশত বণ্টন করে দিয়ে মান্নত আদায় করতে পারেন। মাযারে গিয়ে জবাই করবেন না।

আদ্দুররুল মুখতার ২/৪৩৯; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ৬/২৮৬

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৬৮৪
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

আমি মান্নত করেছি যে, দাখিল পরীক্ষায় এ প্লাস পেলে একদিন...

প্রশ্ন

আমি মান্নত করেছি যে, দাখিল পরীক্ষায় এ প্লাস পেলে একদিন ইতিকাফ করব। পরে আল্লাহর রহমতে আমি এ প্লাস পেয়েছি। এখন জানতে চাই, ঐ একদিনের ইতিকাফের জন্য কি রোযাও রাখতে হবে? জানালে উপকৃত হব।

উত্তর

হ্যাঁ। মান্নতের ইতিকাফটি নফল রোযাসহ আদায় করতে হবে। আবদুল্লাহ ইবনে উমর রা. বলেন, হযরত উমর রা. জিয়িররানা-দিবসে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বললেন, আমি ইতিপূর্বে একদিনের ইতিকাফের মান্নত করেছিলাম। এখন তা পুরা করতে চাই। তখন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাকে রোযাসহ ইতিকাফ আদায়ের নির্দেশ দিলেন। (সুনানে কুবরা, বায়হাকী ৪/৭৭৩; মুসতাদরাকে হাকেম ২/৮১; মুসান্নাফ আবদুর রাযযাক ৪/৩৫২)

হযরত আয়েশা রা. বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘রোযা ছাড়া ইতিকাফ নেই।’

সুনানে আবু দাউদ ১/৩৩৫; মুসতাদরাকে হাকিম ২/৮১; ফাতাওয়া খানিয়া ১/২১১; আলমুহীতুল বুরহানী ৩/৩৮৩; আলবাহরুর রায়েক ২/৩০০

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৬৪২
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

এক ব্যক্তি রমযান মাসে সূর্যাস্ত হয়েছে মনে করে ইফতার করেছেন।...

প্রশ্ন

এক ব্যক্তি রমযান মাসে সূর্যাস্ত হয়েছে মনে করে ইফতার করেছেন। কিন্তু সূর্য তখনও ডোবেনি। তার রোযা কি ভেঙ্গে গেছে? ভেঙ্গে গিয়ে থাকলে একটি রোযা কাযা করাই কি যথেষ্ট হবে নাকি কাফফারাও দিতে হবে?

উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে ঐ ব্যক্তির রোযা ভেঙ্গে গেছে। এ ধরনের ক্ষেত্রে হুকুম হল, ভুল সম্পর্কে অবগত হওয়ার পর সূর্যাস্ত পর্যন্ত পানাহার ইত্যাদি থেকে বিরত থাকবে এবং পরবর্তীতে একটি রোযা কাযা করে নিবে। তবে কাফফারা আদায় করতে হবে না। হযরত হানযালা রা. বলেন, আমি রমযান মাসে হযরত উমর রা.-এর নিকট উপস্থিত ছিলাম। সেখানে কিছু পানীয় পেশ করা হল এবং কেউ কেউ সূর্য ডুবে গেছে মনে করে তা পান করল। তখন মুয়াজ্জিন উচ্চস্বরে বললেন, আমীরুল মুমিনীন! আল্লাহর কসম, সূর্য এখনো ডোবেনি, তা উদিত অবস্থায় আছে। তখন হযরত উমর রা. বললেন, যারা ইফতার করে ফেলেছে তারা যেন তার পরিবর্তে আরেকটি রোযা রাখে। আর যারা ইফতার করেনি তারা যেন সূর্য ডুবা পর্যন্ত তা পূর্ণ করে।

-মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা ৬/১৫০; আদ্দুররুল মুখতার ২/৪০৫; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ১/২৫৬; আলমুহীতুল বুরহানী ৩/৩৩৬; হাশিয়াতুত তাহতাবী আলালমারাকী ৩৬৯; ফাতহুল কাদীর ২/২৯০

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৬৩১
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

জনৈক মহিলা তার পুত্রের ঘরে খানা খেত। একদিন ঝগড়া লেগে...

প্রশ্ন

জনৈক মহিলা তার পুত্রের ঘরে খানা খেত। একদিন ঝগড়া লেগে তার পুত্রকে বলেছে যে, তোর ঘরে খাওয়া আমার জন্য হারাম। এর কিছুদিন পর দুজনের মধ্যে মিল-মিশ হয়ে যায় এবং ঐ মহিলা তার পুত্রের ঘরে পুনরায় খাবার-দাবার করতে থাকেন। জানার বিষয় হল, মহিলার এ কথা কি কসম হয়েছে? কসম হয়ে থাকলে এখন তাকে কী করতে হবে?

উত্তর

হ্যাঁ, ‘তোর ঘরে খাওয়া আমার জন্য হারাম’ মহিলার এ কথা দ্বারা কসম সংঘটিত হয়েছে। সুতরাং এর পর সেখানে খাওয়ার কারণে কসমটি ভেঙ্গে গেছে। এজন্য তাকে একটি কসমের কাফফারা দিতে হবে।

-আদ্দুররুল মুখতার ৩/৭২৯; আলবাহরুর রায়েক ৪/২৯২, ৪/২৯০; আহকামুল কুরআন, জাসসাস ৩/৪৬৬, ২/৪৫৯; ফাতাওয়া সিরাজিয়া ৫৮; বাদায়েউস সানায়ে ৪/২৬২

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৬৩০
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

কিছুদিন আগে ছেলের এসএসসি পরীক্ষা ছিল। তার ভালো ফলাফলের জন্য...

প্রশ্ন

কিছুদিন আগে ছেলের এসএসসি পরীক্ষা ছিল। তার ভালো ফলাফলের জন্য মান্নত করেছিলাম যে, সে যদি জিপিএ ফাইভ পায় তাহলে আমি একটি মান্নাত আদায় করব। আলহামদুলিল্লাহ, সে জিপিএ ফাইভ পেয়েছে। এখন আমি উক্ত মান্নতটি কীভাবে আদায় করব? উল্লেখ্য, মান্নত করার সময় কী দিয়ে মান্নত আদায় করব তা স্থির করিনি।

উত্তর

হাদীস শরীফে এসেছে, হযরত উকবা বিন আমের রা. বলেন, নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, যে ব্যক্তি কোনো মান্নত করল এবং কিছু নির্দিষ্ট করল না তাকে কসমের কাফফারা দিতে হবে। (মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা, হাদীস : ১২৩১১; সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস : ২১২৭

সুতরাং প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে আপনাকে কসমের কাফফারা আদায় করতে হবে। অর্থাৎ পূর্ণ আহার গ্রহণ করতে পারে এমন দশজন মিসকীনকে তৃপ্তিসহ দু বেলা খানা খাওয়াতে হবে। অথবা এর মূল্য দান করে দিতে হবে কিংবা দশজনের প্রত্যেককে এক জোড়া করে কাপড় দিতে হবে। আর এ দুটির সামর্থ্য না থাকলে ধারাবাহিকভাবে তিনটি রোযা রাখতে হবে।

-বাদায়েউস সানায়ে ৪/২৪৫; আলবাহরুর রায়েক ৪/২৯৭; আদ্দুররুল মুখতার ৩/৭৪২

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৬১১
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

রফিক তার দুই ছেলের মাথায় হাত রেখে বলেছে, আমি কসম...

প্রশ্ন

রফিক তার দুই ছেলের মাথায় হাত রেখে বলেছে, আমি কসম করছি, জীবনে আর জুয়া খেলব না। পরবর্তীতে সে জুয়া খেলেছে। প্রশ্ন হল, এই কসম ভাঙ্গার কারণে কি তার উপর কাফফারা ওয়াজিব হয়েছে?

উত্তর

হ্যাঁ, উক্ত কসম ভাঙ্গার কারণে তার উপর কাফফারা ওয়াজিব হয়েছে। কাফফারা হল, পূর্ণ আহার গ্রহণ করতে পারে এমন দশজন মিসকীনের প্রত্যেককে দু’ বেলা তৃপ্তি সহকারে খানা খাওয়ানো। অথবা প্রত্যেককে এক জোড়া কাপড় প্রদান করা। আর যদি তার এ পরিমাণ আর্থিক সামর্থ্য না থাকে তাহলে ধারাবাহিকভাবে তিনটি রোযা রাখা।

প্রকাশ থাকে যে, কসম কেবলমাত্র আল্লাহ তাআলার নামেই করা জায়েয। আল্লাহ তাআলা ব্যতীত অন্য কিছুর নামে কসম করা জায়েয নয়। তদ্রূপ সন্তান বা কোনো মানুষের নামে বা মাথা ছুঁয়ে কসম করাও গুনাহ। অবশ্য এ ধরনের কসম করা অন্যায় হলেও তা অনেক ক্ষেত্রে সংগঠিত হয়ে যায় এবং ভেঙ্গে ফেললে কাফফারাও দিতে হয়।

-আলমুহীতুল বুরহানী ৬/৬৫, ৬/৩৬৭; বাদায়েউস সানায়ে ৩/১৪; আননুতাফ ফিলফাতাওয়া ২৪২; হেদায়া-ফাতহুল কাদীর ৪/৩০৮; রদ্দুল মুহতার ৩/৭১২

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৬০২
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

ক) বর্তমান বাজারগুলোতে যেসব পারফিউম বা বডি স্প্রে পাওয়া যায়...

প্রশ্ন

ক) বর্তমান বাজারগুলোতে যেসব পারফিউম বা বডি স্প্রে পাওয়া যায় এগুলো ব্যবহার করা ঠিক হবে কি? এবং এগুলো ব্যবহার করে নামায পড়লে নামায সহীহ হবে কি না?

খ) এক লোক জনসম্মুখে তার কিছু উন্মুক্ত জমি মসজিদের জন্য ওয়াকফ করেছে। সে বলেছিল, মসজিদের জন্য এই জমি ওয়াকফ করে দিলাম। আপনারা এতে নামায পড়তে পারেন। কিছুদিন পর ঐ লোক উক্ত জমি মাদরসার জন্য ওয়াকফ করার ইরাদা করেছে। এখন জানার বিষয় হল, মসজিদের জন্য ওয়াকফ করার পর পুনরায় তা মাদরাসার জন্য ওয়াকফ করা কি সহীহ হবে? উল্লেখ্য, মসজিদের জন্য ওয়াকফ করার পর তাতে মসজিদ নির্মাণ হয়নি এবং নামাযও আদায় করা হয়নি।

গ) এক লোকের নিকট পর্যাপ্ত টাকা না থাকার কারণে খানা বা বস্ত্র দ্বারা কসমের কাফফারা আদায় করতে পারেনি। তাই রোযা রাখা শুরু করেছে। দুদিন রোযা রাখার পর তার হাতে বেশ টাকা আসে। এখন সে ১০ জন মিসকীনকে দু’ বেলা খাবার খাওয়াতে সক্ষম। এখন তৃতীয় রোযা রাখার দ্বারা লোকটির কাফফারা আদায় হয়ে যাবে নাকি নতুন করে ১০ জন মিসকীনকে খাবার খাওয়াতে হবে?

উত্তর

ক : বর্তমান অধিকাংশ পারফিউম ও স্প্রেতে এ্যালকোহল থাকে। তাবে এ্যালকোহলমুক্ত পারফিউমও পাওয়া যায়। তাই পারফিউম বা স্প্রে ব্যবহার করতে চাইলে এ্যালকোহলমুক্তগুলোই খরিদ করবেন। এ্যালকোহলযুক্ত স্প্রে ব্যবহার করা অনুত্তম। নাজায়েয বা নাপাক নয়। তাই কাপড় বা শরীরে স্প্রে লাগিয়ে নামায পড়লে নামায সহীহ হয়ে যাবে।-মাবসূতে সারাখসী ২৪/৯; ফাতাওয়া খানিয়া ৩/২৩০; তাকমিলাতু ফাতহুল মুলহিম ১/৫৫১, ৩/৬০০; মাজমুআতুল ফাতাওয়া শারইয়্যাহ ১/১৮৪, ৪/৪৫

খ : প্রশ্নের বিবরণ অনুযায়ী জনসম্মুখে ঐ জমি মসজিদের জন্য দিয়ে দেওয়ার দ্বারা তা মসজিদের হয়ে গেছে। এবং তা দাতার মালিকানা থেকে বের হয়ে মসজিদের মালিকানায় এসে গেছে। সুতরাং পরবর্তীতে ঐ জমি মাদরাসার জন্য দেওয়া বৈধ হবে না। বরং তাতে মসজিদই করতে হবে।-হাশিয়াতুত তাহতাবী আলাদ্দুর ২/৫৩৫; কিতাবুল ওয়াফক পৃ. ৩২৫; রদ্দুল মুহতার ৪/৩৩৮

গ : প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে তিনটি রোযা সম্পন্ন করার আগেই যেহেতু লোকটি খানা খাওয়ানোর মাধ্যমে কাফফারা আদায়ে সক্ষম হয়েছে তাই এখন রোযা দ্বারা তার কাফফারা আদায় হবে না। কাফফারা আদায়ের জন্য এখন তাকে ১০ জন মিসকীনকে দু’ বেলা পেটভরে খাবার খাওয়াতে হবে। অথবা তাদের প্রত্যেককে পরিধেয় বস্ত্র দিতে হবে। আর লোকটি যে দুটি রোযা রেখেছে তা নফল হিসেবে গণ্য হবে।-কিতাবুল আছল ৩/২০৩; আদ্দুররুল মুখতার ৩/৭২৭

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৫৭৪
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

জনৈক ব্যক্তি মান্নত করেছে, পরীক্ষায় পাশ করলে আজীবন দৈনিক দু...

প্রশ্ন

জনৈক ব্যক্তি মান্নত করেছে, পরীক্ষায় পাশ করলে আজীবন দৈনিক দু রাকাত নফল নামায আদায় করবে। এখন পরীক্ষায় পাশ করার পর জানতে চাচ্ছে, প্রতিদিন দু রাকাত নফল নামায পড়া কি তার জন্য জরুরি? নামায না পড়ে কাফফারা দিলে কি যথেষ্ট হবে? দ্রুত জানতে আগ্রহী।

উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে প্রতিদিন মান্নতের দুই রাকাত নামায পড়া জরুরি। কাফফারা দেওয়া যথেষ্ট হবে না। অসুস্থতা বা কোনো কারণে কোনে দিন ছুটে গেলে ঐ নামায কাযা করে নিতে হবে।

-আলমুহীতুল বুরহানী ৬/৩৫১; বাদায়েউস সানায়ে ৪/২৪১-২৪২; আলবাহরুর রায়েক ৪/২৯৫; ইমদাদুল ফাতাওয়া ২/৫৫৬; ফাতাওয়া রহীমিয়া ৯/২৩

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৫৭৩
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

এক লোক মান্নত করেছে যে, তার চাকুরি হলে ৪ হাজার...

প্রশ্ন

এক লোক মান্নত করেছে যে, তার চাকুরি হলে ৪ হাজার টাকা মূল্যের একটি ছাগল ফকীরদেরকে সদকা করবে। চাকুরি হওয়ার পর মান্নত আদায়ের জন্য লোকটি তার এক নিকটাত্মীয় থেকে ৩ হাজার টাকা দিয়ে একটি ছাগল ক্রয় করে, যার বাজার মূল্য চার হাজার টাকা। এখন সে জানতে চায়, ৪ হাজার টাকা মূল্যের ছাগল ৩ হাজার টাকা দিয়ে ক্রয় করে তা সদকা করলে মান্নত আদায় হবে কি না?

উত্তর

প্রশ্নের বিবরণ অনুযায়ী বাস্তবেই যদি ঐ ছাগলের বাজারমূল্য ৪ হাজার টাকা হয়ে থাকে তাহলে সেটি সদকা করলেও তার মান্নত আদায় হয়ে যাবে।

-আলমুহীতুল বুরহানী ৬/৩৬২; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ৫/৫২

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৪৫৬
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

জনৈক ব্যক্তি মান্নত করেছে যে, মসজিদে একটি মুরগি দিবে। জানার...

প্রশ্ন

জনৈক ব্যক্তি মান্নত করেছে যে, মসজিদে একটি মুরগি দিবে। জানার বিষয় হল, ঐ মুরগি সে কীভাবে দিবে? বিক্রি করে টাকা মসজিদে দিবে? নাকি গরিবদেরকে দিবে?

উত্তর

ঐ ব্যক্তি ইচ্ছা করলে মুরগি বিক্রি করে তার মুল্য মসজিদে দিতে পারে। আবার মুরগিও দিতে পারে। সেক্ষেত্রে মসজিদকর্তপক্ষ তা বিক্রি করে মসজিদের কাজে লাগাবে।

-আলমাবসূত, সারাখসী ৮/১৩৭; বাদায়েউস সানায়ে ৪/২২৮; মাজমাউল আনহুর ২/২৭৪; ফাতহুল কাদীর ৪/৩৭৪; আলবাহরুর রায়েক ৪/২৯৬-২৯৭; আদ্দুররুল মুখতার ৩/৭৩৫; আলমাওসূআতুল ফিকহিয়্যাহ ৪০/১৪৭

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৪৪৬
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

ক) জনৈক ব্যক্তি ইমামের সাথে নামায আদায় করছিল। দাড়ানো অবস্থায়...

প্রশ্ন

ক) জনৈক ব্যক্তি ইমামের সাথে নামায আদায় করছিল। দাড়ানো অবস্থায় তার ঘুম এসে যায়। এদিকে ইমাম সাহেব রুকু শেষে সিজদায় যাচ্ছিলেন। তখন সে জেগে উঠে এবং নিজে নিজে রুকু করে ইমামের সাথে সিজদায় শরিক হয়। জানার বিষয় হল, এই ব্যক্তির নামায হয়েছে কি

খ) লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদার রাসূলুল্লাহ বলে শপথ করলে শপথ হবে কি না? বিস্তারিত জানালে কৃতজ্ঞ হব।

উত্তর

ক) ঐ ব্যক্তির নামায সহীহ হয়েছে। নামাযে থাকা অবস্থায় ইমামের সাথে কোনো রোকন আদায় করা না হলে ছুটে যাওয়া রোকন একাকী আদায় করে ইমামের সাথে শরিক হওয়াই নিয়ম। তবে নামাযে এভাবে ঘুমিয়ে পড়া উদাসীনতার অন্তর্ভুক্ত। তাই আর কখনো এমনটি না হয় সে ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে। ঘুমের চাপ নিয়ে নামাযে না দাঁড়ানোই উচিত।

-ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/৯২; রদ্দুল মুহতার ১/৫৯৪

খ) হ্যাঁ, এভাবে কালিমা পড়ে শপথ করলে তা শরীয়তের দৃষ্টিতে কসম বলে গণ্য হবে।

-আলবাহরুর রায়েক ৪/২৮৬; রদ্দুল মুহতার ৩/৭১৫

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৪১২
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

যদি কোনো ব্যক্তি কুরআন মজীদের উপর হাত রেখে কোনো কাজ...

প্রশ্ন

যদি কোনো ব্যক্তি কুরআন মজীদের উপর হাত রেখে কোনো কাজ করার কসম করে তাহলে কি কসম হয়ে যাবে? ঐ কাজ না করতে পারলে কি কাফফারা দিতে হবে?

উত্তর

কুরআন মজীদের উপর হাত রেখে কসম করলে কসম হয়ে যায়। যে বিষয়ের কসম করা হয়েছে তা শরীয়তের দৃষ্টিতে বৈধ হলে কৃত কসম পূরণ করা জরুরি। কসম ভঙ্গ করলে কাফফারা দিতে হবে।

মুসান্নাফ ইবনে আবী শায়বা ৭/৫৩৭; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ২/৫৩; আদ্দুররুল মুখতার ৩/৭১২; ফাতহুল কাদীর ৪/৩৫৬; আলবাহরুর রায়েক ৪/২৮৬; আননাহরুল ফায়েক ৩/৫৫; তাকরীরাতুর রাফেয়ী পৃ. ১৩; ফাতাওয়া খানিয়া ২/৫; হেদায়া ২/৪৭৯, ৪৮১; মাবসূত সারাখসী ৮/১৩২; আলমুহীতুল বুরহানী ৬/৬৮; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ২/১২৭; রদ্দুল মুহতার ৩/৭২৬

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৩৪২
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

আমি একটি মসজিদের মুআযযিন। মসজিদ কমিটি আমাকে সকালে মক্তবে পড়ানোর...

প্রশ্ন

আমি একটি মসজিদের মুআযযিন। মসজিদ কমিটি আমাকে সকালে মক্তবে পড়ানোর দায়িত্বও দিয়েছে। আমার বেতন ধার্য করা হয়েছে চার হাজার টাকা, যা দিয়ে আমার সংসার কোনো মতে চলে যায়। একবার আমি বিপদে পড়ে মান্নত করি, বিপদ কেটে গেলে আমি এক মাস ইতেকাফ করব। আল্লাহ তাআলা আমার বিপদটি দূর করে দিয়েছেন। তাই মান্নত আদায়ের জন্য মসজিদে ইতেকাফে বসি। ইতেকাফের কারণে আমি মক্তবে পড়ানো বন্ধ করে দেই। কেননা, মক্তবটি মসজিদের বাহিরে অবস্থিত। কিন্তু মসজিদ কমিটি আমাকে বলল, প্রয়োজনে মসজিদে বসে মক্তব পড়ান। এক মাস পড়া বন্ধ রাখতে পারেন না। অন্যথায় আপনার বেতন বন্ধ করে দেওয়া হবে। বেতন বন্ধ হলে বা কমে গেলে আমার সংসার চালানো মুশকিল হবে। তাই আমি মসজিদে বসে মক্তব পড়ানো শুরু করি। কোনো এক ব্যক্তি বলল, মসজিদে পড়িয়ে বিনিময় নেওয়া ঠিক নয়। আমার প্রশ্ন হল, উল্লেখিত কারণেও কি আমি মসজিদে পড়িয়ে পারিশ্রমিক নিতে পারব না? দয়া করে সঠিক বিষয়টি জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

উল্লেখিত ওযরের কারণে আপনি ইতেকাফের দিনগুলোতে মসজিদে পড়াতে পারবেন এবং আপনার নির্ধারিত বেতনও নিতে পারবেন।

হাশিয়াতুত তাহতাবী আলালমারাকী পৃ. ৩৮৪; আলবাহরুর রায়েক ২/৩০৪

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৩৩২
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: কসম-মান্নত

একবার আমার বোন খুব অসুস্থ হয়ে পড়েন। তখন আমার মা...

প্রশ্ন

একবার আমার বোন খুব অসুস্থ হয়ে পড়েন। তখন আমার মা শাহজালালের মাজারে একটি ছাগল মেনেছিল। বোন পরে সুস্থ হয়েছে। কিন্তু মার মান্নতটি এখনো পূর্ণ করা হয়নি। জানতে চাই, আমাদের এখন কী করা উচিত। বিলম্বের কারণে কোনো গুনাহ হচ্ছে কি না?

উত্তর

‘মান্নত’ একটি ইবাদত। নামায, রোযা, দুআ করা এগুলো যেমন ইবাদত, যা একমাত্র আল্লাহ তাআলার উদ্দেশ্যেই তাকে সন্তুষ্ট করার জন্যই করা জরুরি। তদ্রূপ ‘মান্নত’ও কেবলমাত্র আল্লাহ তাআলার উদ্দেশ্যে তাঁর নামেই হতে হবে। কোনো মাজার, পীর বা কোনো সৃষ্টির উদ্দেশ্যে বা তার সন্তুষ্ট কামনার্থে মান্নত করা শিরকের অন্তর্ভুক্ত। তাই মাজারের জন্য ছাগল মানা সম্পূর্ণ নাজায়েয হয়েছে। শিরকি হয়েছে। এ থেকে বিরত থাকা জরুরি। অতএব মাজারে বা অন্য কোনো মাজারে ছাগল দেওয়া জায়েয হবে না। উপরন্তু মাজারে দেওয়ার নিয়তের কারণে আল্লাহ তাআলার দরবারে তওবা-ইস্তিগফার করতে হবে।

সুনানে আবু দাউদ ২/৪৬৯; রদ্দুল মুহতার ২/৪৩৯; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ২/৬৬; আলমুগনী, ইবনে কুদামা ১৩/৬৪৩

প্রকাশ থাকে যে, কোনো মাখলুক, অলী-পীর বা মাজারবাসী কারো কোনো প্রয়োজন পূরণ করতে পারে না। কাউকে সুস্থতা দিতে পারে না। আরোগ্য দান করা, মসীবত দূর করা এগুলো কেবলমাত্র আল্লাহ তাআলারই বৈশিষ্ট্য। কোনো মাখলুকের মধ্যে এই বৈশিষ্ট্য আছে মনে করা শিরক। মাজারে মান্নত করলে মাজারওয়ালা খুশি হবেন, অসুখ ভালো হয়ে যাবে এমন ধরাণা সম্পূর্ণ শিরক। আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, (তরজমা) আল্লাহ যদি তোমাদের উপর কোনো কষ্ট আরোপ করতে চান তাহলে তিনি ব্যতীত তা খণ্ডানোর মতো কেউ নেই। আর যদি তিনি কোনো কল্যাণ দিতে চান তাহলে তাঁর অনুগ্রহ রহিত করার মতো কেউ নেই। তিনি স্বীয় বান্দাদের মধ্যে যাকে ইচ্ছা অনুগ্রহ করেন । তিনিই ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।-সূরা ইউনুস : ১০৭

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার

Execution time: 0.07 render + 0.01 s transfer.