Login | Register

ফতোয়া: মসজিদ

ফতোয়া নং: ৪৫৫৩
তারিখ: ১/৯/২০১৬
বিষয়: মসজিদ

মসজিদের গাছের ফল মুসল্লি খাওয়া৷

প্রশ্ন
আমাদের মসজিদের উত্তরপার্শ্বে মসজিদের জমিতে বেশ কয়েকটি পেয়ারা গাছ আছে। তাতে প্রচুর পেয়ারা ধরে। অনেক সময় দেখা যায় কিছু মুসল্লি পেয়ারা ছিড়ে খেয়ে ফেলে। কেউ কেউ সাথে করে নিয়ে যায়। আমার জানার বিষয় হল, এভাবে মসজিদের গাছের ফল খাওয়া কি বৈধ?
উত্তর
মসজিদের ঐ গাছগুলোর ফল মুসল্লি বা অন্য কারো জন্য বিনামূল্যে খাওয়া জায়েয হবে না। মসজিদ কর্তৃপক্ষ ফলগুলো বিক্রি করে তার মূল্য মসজিদের কাজে ব্যয় করবে। -ফাতাওয়া খানিয়া ৩/৩১০; আলবাহরুর রায়েক ৫/২০৪; আলমুহীতুল বুরহানী ৯/১৪৯; আদ্দুররুল মুখতার ৪/৪৩২৷ উত্তর প্রদানে মুফতী মেরাজ তাহসীন
01756473393
ফতোয়া নং: ৪১৪৩
তারিখ: ১/৫/২০১৬
বিষয়: মসজিদ

আমাদের মহল্লায় একটি নতুন মসজিদ নির্মিত হয়েছে। আমি তাতে কিছু...

প্রশ্ন
আমাদের মহল্লায় একটি নতুন মসজিদ নির্মিত হয়েছে। আমি তাতে কিছু পাখা
ওয়াকফ করতে চাচ্ছি। কেউ কেউ বলছে, পাখা যেহেতু স্থানান্তরযোগ্য
জিনিস তাই তা ওয়াকফ হবে না; বরং সাধারণ দান বলেই বিবেচ্য হবে। দয়া
করে শরীয়তের আলোকে বিষয়টির সমাধান জানাবেন।
উত্তর
আপনি যািদ মসজিদে পাখা দান করেন তাহলে সেগুলো ওয়াকফের মতোই
স্থায়ীভাবে মসজিদের মালিকানায় চলে যাবে। এবং আপনিও স্থায়ীভাবে
এগুলোর সওয়াব পেতে থাকবেন। সুতরাং এগুলো ওয়াকফ না সাধারণ দান এই প্রশ্ন
করা অর্থহীন।
আলমাবসূত সারাখসী ১২/৪৫; আলমুহীতুল বুরহানী ৮/৫০২; তাবয়ীনুল হাকায়েক ৪/২৬৪; হেদায়া,
ফাতহুল কাদীর ৫/৪৩১
ফতোয়া নং: ৪১১০
তারিখ: ১/৫/২০১৬
বিষয়: মসজিদ

আমাদের মহল্লায় একটি নতুন মসজিদ নির্মিত হয়েছে। আমি তাতে কিছু...

প্রশ্ন
আমাদের মহল্লায় একটি নতুন মসজিদ নির্মিত হয়েছে। আমি তাতে কিছু
পাখা ওয়াকফ করতে চাচ্ছি। কেউ কেউ বলছে, পাখা যেহেতু
স্থানান্তরযোগ্য জিনিস তাই তা ওয়াকফ হবে না; বরং সাধারণ দান বলেই
বিবেচ্য হবে। দয়া করে শরীয়তের আলোকে বিষয়টির সমাধান জানাবেন।
উত্তর
আপনি যািদ মসজিদে পাখা দান করেন তাহলে সেগুলো ওয়াকফের মতোই
স্থায়ীভাবে মসজিদের মালিকানায় চলে যাবে। এবং আপনিও
স্থায়ীভাবে এগুলোর সওয়াব পেতে থাকবেন। সুতরাং এগুলো ওয়াকফ না
সাধারণ দান এই প্রশ্ন করা অর্থহীন।
আলমাবসূত সারাখসী ১২/৪৫; আলমুহীতুল বুরহানী ৮/৫০২; তাবয়ীনুল হাকায়েক ৪/২৬৪;
হেদায়া, ফাতহুল কাদীর ৫/৪৩১
ফতোয়া নং: ৩৭৩৩
তারিখ: ১/১/২০১৬
বিষয়: মসজিদ

ক) মসজিদে কোনো ফ্যান, মাইক, বদনা ইত্যাদি দান করলেই কি...

প্রশ্ন
ক) মসজিদে কোনো ফ্যান, মাইক, বদনা ইত্যাদি দান
করলেই কি তা ওয়াকফ হয়ে যাবে, নাকি মুখেও
পৃথকভাবে ওয়াকফের কথা উচ্চারণ করা ওয়াকফের জন্য
শর্ত?
খ) মসজিদের চাঁদার দ্বারা যে ফ্যান, মাইক ইত্যাদি
ক্রয় করা হয় তা কি ওয়াকফ হয়ে যাবে? গ) মসজিদের নারিকেল, আম ইত্যাদি যা
অন্যদের কাছে বিক্রি করা হয় তা কি ইমাম-মুয়াযযিনের
জন্য বিনামূল্যে খাওয়া জায়েয হবে? অনুগ্রহপূর্বক উপরের মাসআলাগুলোর সমাধান
শরীয়তের বিধান মোতাবেক দিয়ে আমাদের বিবাদ
নিরসনে হযরতের সুমর্জি কামনা করছি।
উত্তর
ক) মসজিদে ফ্যান, মাইক ইত্যাদি কোনো জিনিস দান করলে তা মসজিদের ওয়াকফের অন্তর্ভুক্ত। এজন্য
ওয়াকফ শব্দ উচ্চারণ করা জরুরি নয়।

খ) মসজিদের চাঁদা দিয়ে ফ্যান, মাইক ইত্যাদি ক্রয়
করলে তা-ও মসজিদের নিজস্ব মালিকানা হিসেবে ধর্তব্য
হবে এবং এর উপরও ওয়াকফের হুকুম আরোপিত হবে।

গ) মসজিদের গাছের ফল মসজিদের মালিকানাধীন
সম্পদ। যথাসম্ভব এগুলো বিক্রি করে এর মূল্য মসজিদের
প্রয়োজনে ব্যয় করতে হবে। এগুলো ইমাম-মুয়াযযিন বা
অন্য কারো জন্য মুতাওয়াল্লির অনুমোদন ছাড়া বিনামূল্যে খাওয়া বৈধ হবে না।
-খুলাসাতুল ফাতাওয়া ৪/৪১৭; আলমুহীতুল বুরহানী
৯/১৩০-১৩১, ৯/১৩৮; রদ্দুল মুহতার ৪/৩৫৯; ফাতাওয়া হিন্দিয়া
২/৪১৭; আলইসআফ পৃ. ২২,৫৬
ফতোয়া নং: ৩৭৩২
তারিখ: ১/১/২০১৬
বিষয়: মসজিদ

মসজিদের জায়গায় মসজিদের উন্নয়নের জন্য নিচ তলায় মার্কেট রেখে ২য়...

প্রশ্ন
মসজিদের জায়গায় মসজিদের উন্নয়নের জন্য নিচ তলায় মার্কেট রেখে ২য় তলা থেকে মসজিদ বানানো যাবে কি না? আমাদের দেশে প্রায় জায়গায় এমন দেখা যায়। এ বিষয়ে শরীয়তের হুকুম কী?
উত্তর
মসজিদের জন্য ওয়াকফকৃত স্থানে নিচ তলা মসজিদ হিসেবে ব্যবহার করা হলে পরবর্তীতে বহুতল ভবন করার সময় নিচতলা বা অন্য কোনো ফ্লোরে দোকান-পাট করা জায়েয হবে না। তবে জায়গাটি মসজিদ হিসেবে ব্যবহারের আগেই যদি নিচের দুই এক তলায় দোকান করার সিদ্ধান্ত থাকে কিংবা ওয়াকফ দলিলেই এমন লেখা থাকে তাহলে তা জায়েয আছে। তদ্রƒপ মসজিদের জন্য ওয়াকফকৃত স্থানে মসজিদ নির্মাণের আগে প্রথম থেকেই যদি নিচ তলায় মার্কেট বানানো হয় তবে জায়েয হবে। তবে এসব ক্ষেত্রে জায়েয থাকলেও মসজিদের নিচে দোকান-পাট না করাই উচিত। কেননা, মসজিদ হল সর্বোৎকৃষ্ট স্থান আর বাজার হল নিকৃষ্টতম স্থান। তাই মসজিদ ভবনে শপিং মল, দোকান- পাট থাকলে মসজিদের পরিবেশ মারাত্মকভাবে নষ্ট হয়। তাই মসজিদের আয়ের জন্যও মসজিদের নিচ তলায় দোকান-পাট করা থেকে বিরত থাকা
উচিত।
উল্লেখ্য যে, মসজিদের ব্যয় নির্বাহের জন্য মসজিদের জমিতে শপিং মল, দোকানপাট ইত্যাদি করতে চাইলে মসজিদের জন্য বেশি জমি ওয়াকফ করে মসজিদর ভবন থেকে দূরে পৃথক ভবন নির্মাণ করে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে তা ব্যবহার করা যেতে পারে। এতে মসজিদের পরিবেশও বজায় থাকবে এবং মসজিদের আয়েরও একটা ব্যবস্থা হয়ে যাবে। এছাড়া মসজিদের নিয়মিত জরুরি ব্যয় মুসল্লি ও সাধারণ মুসলমানের স্বতঃস্ফূর্ত দান থেকে নির্বাহ করা হবে। -সূরা জিন (৭২) : ১৮; আলমুহাররারুল ওয়াজিয ১৫/১৪৫; হাশিয়াতুশ শিলবী আলাত তাবয়ীন ৪/২৭১; আলমুহীতুল বুরহানী ৯/১২৭; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ৮/১৬২; আদ্দুররুল মুখতার
৪/৩৫৮
ফতোয়া নং: ৩৭২৮
তারিখ: ১/১/২০১৬
বিষয়: মসজিদ

একদিন মসজিদে গিয়ে দেখি, ইমাম সাহেব রুকুতে চলে গিয়েছেন। তখন...

প্রশ্ন
একদিন মসজিদে গিয়ে দেখি, ইমাম সাহেব রুকুতে চলে গিয়েছেন। তখন আমি রুকুতে গিয়ে এক তাসবীহ পড়ার আগেই ইমাম সাহেব দাঁড়িয়ে যান। এ অবস্থায় আমি ঐ রাকাত পেয়েছি বলে ধর্তব্য হবে কি?
উত্তর
রাকাত পাওয়ার জন্য রুকু পাওয়া জরুরি। আর রুকু পাওয়ার জন্য অল্প সময় ইমামের সাথে রুকুতে শরিক হওয়াই যথেষ্ট। ইমামকে এক তাসবীহ পরিমাণ পাওয়া জরুরি নয়। তবে ইমামের সাথে রুকুতে শরিক হওয়ার পর অন্তত এক তাসবীহ পরিমাণ বিলম্ব করে উঠবে। -মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা, হাদীস
২৫৩৪; শরহুল মুনইয়াহ ৩০৫; হালবাতুল মুজাল্লী
২/১২৬
ফতোয়া নং: ২৮২৭
তারিখ: ১/৪/২০১৫
বিষয়: মসজিদ

আমাদের গ্রামের পূর্ব পাড়ায় একটি মসজিদ আছে। যা ৫০-৬০ বছর...

প্রশ্ন
আমাদের গ্রামের পূর্ব পাড়ায় একটি মসজিদ আছে। যা ৫০-৬০ বছর পুরনো। আমাদের পশ্চিম পাড়ায় ঐ মসজিদেরই একটি জমি আছে। যা এক ব্যক্তি ঐ মসজিদের খরচ নির্বাহের জন্য ঐ মসজিদের নামে ওয়াকফ করেছিল। বর্তমানে মুসল্লি সংখ্যা বাড়ায় ঐ মসজিদে জায়গা সংকুলান হয় না। দ্বিতীয়ত প্রতি ওয়াক্তে পশ্চিম পাড়া থেকে পূর্ব পাড়ায় আসাও কষ্টকর। তাই এলাকার লোকজন চাচ্ছে পশ্চিম পাড়ায় অবস্থিত জমিটিতে আরেকটি মসজিদ নির্মাণ করতে। জানার বিষয় হল, এলাকাবাসীর জন্য
এমনটি করা কি বৈধ হবে? ঐ মসজিদের জায়গায় আরেকটি মসজিদ নির্মাণ করা কি জায়েয হবে?
উত্তর
প্রশ্নের বক্তব্য অনুযায়ী পশ্চিম পাড়ার জায়গাটি যেহেতু পূর্ব পাড়ার ঐ মসজিদের আয়ের জন্য ওয়াকফ করা হয়েছে তাই এ জমিতে পৃথক মসজিদ নির্মাণ করা বৈধ হবে
না। ওয়াকফের শর্ত অনুযায়ী এ জায়গাটি
পূর্ব পাড়ার মসজিদের উন্নয়ন ও আয়ের জন্যই
ব্যবহার করতে হবে। পশ্চিম পাড়ায় নতুন
মসজিদ নির্মাণের প্রয়োজন থাকলে ভিন্ন জায়গার ব্যবস্থা করে নির্মাণ করতে হবে।
-রদ্দুল মুহতার ৪/৩৬০; দুরারুল হুক্কাম
২/১৩৬
ফতোয়া নং: ২৫৫০
তারিখ: ১/১/২০১৫
বিষয়: মসজিদ

কয়েকদিন আগে আমাদের মাদরাসা সংলগ্ন মহল্লার মসজিদের জায়গা মাপা হলে...

প্রশ্ন
কয়েকদিন আগে আমাদের মাদরাসা সংলগ্ন মহল্লার মসজিদের জায়গা মাপা হলে দেখা গেল, মসজিদের অনেক জায়গা পাশের এক বিত্তবান প্রভাবশালী ব্যক্তির বাড়ির ভেতর চলে গেছে। তিনি আমাদের মাদরাসায় প্রচুর পরিমাণ দান করে থাকেন এবং মসজিদের প্রয়োজনীয় খরচও বহন করে থাকেন। তাকে জানানো হলে তিনি বললেন, মসজিদের যে পরিমাণ জায়গা তার
বাড়ির
ভেতরে চলে গেছে তা তাকে বিক্রি করে দিতে বা এর পরিবর্তে অন্য কোনো জায়গা নিয়ে নিতে। জানার বিষয় হল, এ অবস্থায় মসজিদের জায়গা তার কাছে বিক্রি করা বা অন্য আরেকটি জায়গার সাথে বদল করা জায়েয হবে কি? বিস্তারিত জানালে উপকৃত হব।
উত্তর
মসজিদের জমি বিক্রি করা জায়েয নেই। অন্যায়ভাবে মসজিদের জায়গা ভোগ- দখলের কারণে উক্ত ব্যক্তি গুনাহগার হবে। এখন তার কর্তব্য, মসজিদের যে পরিমাণ জায়গা তার বাড়ির ভেতর চলে গেছে তার দখল ছেড়ে দিয়ে মসজিদ কর্তৃপক্ষের নিকট তা বুঝিয়ে দেওয়া। আর উক্ত জায়গার বদলে অন্য জায়গা নেওয়ার যে প্রস্তাব করা হয়েছে তা করা বৈধ হবে কি না, তা বলার জন্য মসজিদের জায়গার দলীল ও নকশা লাগবে এবং ঐ ব্যক্তি যে জায়গা দিতে চাচ্ছেন তার অবস্থান কী এবং তা মসজিদের জন্য কতটা উপকারী, এসব বিষয়ে অবগত হলে এ সম্পর্কে কী করণীয় তা নির্ধারণ করা সম্ভব হতে পারে ইনশাআল্লাহ। -সহীহ বুখারী ১/৩৮৭; ফাতাওয়া খানিয়া ৩/৩০৭; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ২/৪০১; ফাতাওয়া বাযযাযিয়া ৬/২৫৪;
ফতোয়া নং: ২৩৫০
তারিখ: ১/১১/২০১৪
বিষয়: মসজিদ

আমি মসজিদে গিয়ে যখন ইমাম সাহেবকে রুকুতে পাই তখন কি...

প্রশ্ন
আমি মসজিদে গিয়ে যখন ইমাম সাহেবকে রুকুতে পাই তখন কি তাকবীরে তাহরীমা বলে হাত বেঁধে তারপর রুকুতে যাব, নাকি হাত না বেঁধে সোজা রুকুতে চলে যাব? এ অবস্থায় তাকবীরে তাহরীমার পর রুকুর জন্য কি আলাদা করে তাকবীর বলতে হবে?
উত্তর
প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে দাঁড়ানো অবস্থায় তাকবীরে তাহরীমা বলবেন। অতপর হাত না বেঁধে তাকবীর বলে রুকুতে চলে যাবেন। অবশ্য এক্ষেত্রে রুকুর জন্য আলাদা করে তাকবীর না বললেও চলবে।
সাহাবা-তাবেয়ীন থেকে এক্ষেত্রে রুকুর তাকবীর
বলা না বলা উভয় ধরনের বক্তব্য ও আমল
আছে।
-মুসান্নাফে আবদুর রাযযাক ২/২৭৮; মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা, ২/৪৩১-২; ফাতাওয়া খানিয়া ১/৮৮; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ১/৫২; ফাতহুল কাদীর ১/৪২০
ফতোয়া নং: ২৩২৬
তারিখ: ১/১১/২০১৪
বিষয়: মসজিদ

কিছুদিন আগে আমার চাচির পূর্ণ দেহবিশিষ্ট একটি মৃত সন্তান ভূমিষ্ট...

প্রশ্ন
কিছুদিন আগে আমার চাচির পূর্ণ দেহবিশিষ্ট একটি মৃত সন্তান ভূমিষ্ট হয়। আমরা তার কাফন- দাফনের ব্যাপারে আমাদের মসজিদের ইমাম সাহেবকে জিজ্ঞাসা করি। তিনি বলেন, তাকে গোসল দিয়ে একটি কাপড়ে পেঁচিয়ে কবর দিয়ে দিতে হবে। তখন আমরা হুযুরের কথামতো তাই করি। প্রশ্ন হল, আমাদের জন্য কি মৃত শিশুটিকে গোসল দেওয়া ঠিক
হয়েছে?
উত্তর
হাঁ, ঐ মৃত সন্তানটিকে গোসল দেওয়া ঠিক হয়েছে। কেননা পূর্ণ সন্তান মৃত ভূমিষ্ট হলে তাকে গোসল দেওয়া এবং কাফন পরিয়ে দাফন করাই শরীয়তের বিধান। -ফাতাওয়া খানিয়া ১/১৮৭; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ১/২১৯; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/১৫৯; ইমদাদুল ফাত্তাহ ৬২৮
ফতোয়া নং: ২০৩২
তারিখ: ১/৮/২০১৪
বিষয়: মসজিদ

আমাদের এলাকায় মসজিদের ছাদে স্থানীয় লোকজন ধান কিংবা বিভিন্ন জিনিষ...

প্রশ্ন
আমাদের এলাকায় মসজিদের ছাদে স্থানীয় লোকজন ধান কিংবা বিভিন্ন জিনিষ শুকানোর জন্য নিয়ে আসে। এখন আমার জানার বিষয় হলো মসজিদের ছাদের উপর ধান শুকানো কিংবা মসজিদের কোন জিনিষ নিজের জন্য ব্যাবহার করা জায়েয আছে কি না?
উত্তর
মসজিদের ছাদে ধান শুকানো কিংবা মসজিদের কোন জিনিষ নিজের ব্যাক্তিগত কাজে ব্যাবহার করা কোনভাবেই জায়েয নেই। তাছাড়া মসজিদের কোন প্রয়োজন ব্যাতিত মসজিদের ছাদে আরোহন করা বেয়াদবী ও মাকরুহ।
দলিলঃ-
বাহরুর রায়েক ৫/৪২১ (জাকারিয়া). আলমগিরী ৫/৩২২ (দারুল কিতাব) দুররুল মুখতার ২/৪২৬ (জাকারিয়া).


Execution time: 0.01 render + 0.00 s transfer.