Login | Register

ফতোয়া: ব্যবসা-চাকুরী

ফতোয়া নং: ৬২৫৪
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

ক) আমাদের এলাকায় এক ব্যক্তি মসজিদের পাশে এক খন্ড জমি...

প্রশ্ন

ক) আমাদের এলাকায় এক ব্যক্তি মসজিদের পাশে এক খন্ড জমি ক্রয় করে মাদরাসার নামে ওয়াকফ করে দেয়। কিন্তু মাদরাসা এখনো প্রতিষ্ঠা করা হয়নি। ভবিষ্যতে মাদরাসা করার পরিকল্পনা রয়েছে। এলাকার কিছু লোক ঐ জমিতে কলা, পেপে ইত্যাদি চাষাবাদ করে থাকে এবং তা বিক্রি করে মসজিদের উন্নয়নের কাজে ব্যয় করে।

এখন জানার বিষয় হল-

ক. এভাবে মাদরাসার সম্পদ মসজিদের জন্য ব্যয় করা জায়েয হবে কি না? যদি না হয় তবে পূর্বে ব্যয়কৃত অর্থের হুকুম কী?

খ) মসজিদের মাল মসজিদের ভিতরে বিক্রি করার ব্যাপারে শরীয়তের হুকুম কি? জানালে কৃতজ্ঞ হব।

উত্তর

ক) মাদরাসার জন্য ওয়াকফকৃত জমির আয়ের মালিক মাদরাসা। মাদরাসা প্রতিষ্ঠা না হলেও মাদরাসার জন্যই এ জমির আয় রেখে দেওয়া জরুরি। তাই অন্য কেউ মাদরাসার জমিতে চাষাবাদের ক্ষেত্রে দুটি বিষয় নিশ্চিত করতে হবে-এক. মাদরাসা কর্তৃপক্ষ/মুতাওয়াল্লির অনুমতি নেওয়া।

দুই. ঐ জমি ব্যবহারের জন্য মাদরাসা ফান্ডে নিয়মিত ভাড়া আদায় করা। এ টাকা কোনো আমানতদার ব্যক্তির নিকট জমা রাখতে হবে, যা ভবিষ্যতে মাদরাসা প্রতিষ্ঠা হওয়ার পর সেখানে ব্যয় হবে। আর মসজিদ কর্তৃপক্ষের উপর কর্তব্য হল, এতদিন ধরে ঐ জমি চাষাবাদ করার কারণে এর ন্যায্য ভাড়া মাদরাসা কর্তৃপক্ষের নিকট বুঝিয়ে দেওয়া।-রদ্দুল মুহতার ৪/৩৬০; কিতাবুল ওয়াকফ, পৃষ্ঠা : ২০৩

খ) মসজিদের মালামালও মসজিদের ভেতরে নিয়ে গিয়ে বিক্রি করা জায়েয নেই। মসজিদ আল্লাহ তাআলার ঘর। ইবাদত-বন্দেগীর স্থান। ক্রয়বিক্রয়ের জায়গা মসজিদ নয়। তাই মসজিদের মালামালও বেচাকেনার প্রয়োজন হলে মসজিদের বাইরে তা সম্পন্ন করতে হবে।

হাদীস শরীফে এসেছে, রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, মসজিদ আল্লাহর যিকর, নামায ও কুরআন তিলাওয়াতের জন্য নির্ধারিত স্থান। (সহীহ মুসলিম, হাদীস : ২৮৫)

অপর একটি বর্ণনায় রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মসজিদে ক্রয়বিক্রয় করতে নিষেধ করেছেন।-সুনানে আবু দাউদ, হাদীস : ১০৭৯; আলবাহরুর রায়েক ২/৩০৩; রদ্দুল মুহতার ২/৪৪৯

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬২৪১
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমরা তিন ভাই একটি ঘরের সমহারে মালিক। বড় ভাই তার...

প্রশ্ন

আমরা তিন ভাই একটি ঘরের সমহারে মালিক। বড় ভাই তার অংশ বিক্রয়ের প্রস্তাব করলে ছোট ভাই খরিদ করতে রাজি হয়। উভয়ে এ সিদ্ধান্তে উপনীত হয় যে, উক্ত ঘরের মূল্য নির্ণয় করার জন্য তাদের দুজনের পছন্দমতো দ্বীনদার লোকের সমন্বয়ে পাঁচ জনের একটি কমিটি গঠিত হবে। তারা যে মূল্য নির্ধারণ করবে উভয় পক্ষ তা মেনে নিবে বলে ওয়াদাবদ্ধ হয়। কমিটি যখন মূল্য নির্ধারণ করে তখন ক্রেতা ছোট ভাই ওয়াদা মোতাবেক তাদের সিদ্ধান্ত মেনে নেয়। কিন্তু বড় ভাই ঘরের মূল্য কম হচ্ছে মনে করে কমিটির নিকট পুনরায় আরো সাত লক্ষ টাকা বেশি দাবি করেন। কমিটি মাসলাহাত মনে করে তা আমলে নিয়ে আরো পাঁচ লক্ষ টাকা বাড়িয়ে দেন। তখন বড় ভাই (বিক্রেতা) বলেন, আলহামদুলিল্লাহ। তখন কমিটি সকলের উপস্থিতিতে লেনদেন ও রেজিস্ট্রির সময় নির্ধারণ করেন। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় যে, রেজিস্ট্রির সময় তিনি বলেন আমি উক্ত মূল্যে বিক্রি করব না। আমার বিক্রি শুদ্ধ হয়নি। আমার শরীয়া মোতাবেক ফিরে যাওয়ার এখতিয়ার আছে। আমার প্রশ্ন হল, আমাদের এই ক্রয়-বিক্রয় শুদ্ধ হয়েছে কি না এবং বিক্রেতার ফিরে যাওয়ার এখতিয়ার আছে কি না। কুরআন-সুন্নাহর আলোকে সমাধান জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

প্রশ্নে উল্লেখ করা হয়েছে যে, সালিশের পক্ষ থেকে মূল্য নির্ধারণের পর বড় ভাই কেবল আলহামদুলিল্লাহ বলে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন এরপর লেনদেন ও রেজিস্ট্রির জন্য সামনে একটি তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। এ বক্তব্য দ্বারা বুঝা যাচ্ছে যে, সালিশের মধ্যে বড় ভাইয়ের অংশের কেবল মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে। ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি এবং লেনদেন কিছুই হয়নি। বরং সামনের ঐ তারিখে ক্রয়-বিক্রয় ও লেনদেন সম্পন্ন করার বিষয়টি চূড়ান্ত করা হয়েছে। আর বড় ভাই সালিশের ঐ সিদ্ধান্ত যেহেতু মেনে নিয়েছেন এবং আলহামদুলিল্লাহ বলে সন্তুষ্টিও প্রকাশ করেছেন সেহেতু পরবর্তীতে তার জন্য উক্ত মূল্যে বিক্রি করতে অসম্মতি জ্ঞাপন করা ঠিক হয়নি। এতে ওয়াদা ভঙ্গ করা এবং সালিশের সিদ্ধান্ত অমান্য করার গুনাহ হয়েছে। তাই বড় ভাইয়ের উচিত হবে, সালিশের সিদ্ধান্ত মোতাবেক উক্ত মূল্যেই ছোট ভাইয়ের নিকট তা বিক্রি করে দেওয়া।

-বাদায়েউস সানায়ে ৪/৩১৮

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬২৪০
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমি এবং রফিক মুদারাবা চুক্তিতে পাটের ব্যবসা শুরু করি। শ্রম...

প্রশ্ন

আমি এবং রফিক মুদারাবা চুক্তিতে পাটের ব্যবসা শুরু করি। শ্রম আমার আর মূলধন রফিকের। আমরা মুকসুদপুর বাজারে একটি দোকান ও গুদাম ভাড়া নিয়েছি। পাটের সিজনে পাট ক্রয়ের জন্য অনেক সময় আমাকে নিকটে ও দূরে যেতে হয়। আমার নিজের মোটরসাইকেল আছে। আমি তাতে যাতায়াত করি। যাওয়া-আসার পথে মোটরসাইকেলে যে তেল খরচ হয় আমি তা মুদারাবা সম্পদ থেকে নিতে পারব কি? অনুরূপভাবে দোকানের সাইনবোর্ড স্থাপন এবং মাল গাড়িতে উঠানো ও নামানোর লেবার খরচ মুদারাবার সম্পদ থেকে নিতে পারব কি? জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

পাট ক্রয়ের জন্য কোথাও গেলে বা ব্যবসার কোনো কাজে কোথাও যাতায়াতের কারণে বাস্তবে মোটর সাইকেলে যে পরিমাণ তেল খরচ হয় তা ব্যবসার সম্পদ থেকে নিতে পারবেন। খরচের অতিরিক্ত তেল নেওয়া যাবে না। আর বিনিয়োগকারী অনুমতি দিলে দোকানের সাইনবোর্ড স্থাপন করা এবং এর খরচও ব্যবসার মাল থেকে নিতে পারবেন। এ বাবদ যতটুকু অনুমতি দিবে তার বেশি খরচ করা যাবে না। আর গাড়িতে ব্যবসার মাল উঠানো ও নামানোর জন্য যে খরচ হবে তাও মুদারাবার সম্পদ থেকে নিতে পারবেন।

-আলমাবসূত, সারাখসী ২২/৬৪; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ১৫/৪৪৮; আদ্দুররুল মুখতার ৫/৬৫৭, ৫/৬৪৯; শরহুল মাজাল্লাহ ৪/৩৫৩; শরহুল মুহাযযাব ১৫/১৬৫; ফাতাওয়া খানিয়া ৩/১৬৬; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ৪/২৯৬

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬২২৭
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমি মাদরাসায় পড়ি। আববা ও অন্যান্য আত্মীয়-স্বজন মাদরাসায় যাওয়ার ভাড়া,...

প্রশ্ন

আমি মাদরাসায় পড়ি। আববা ও অন্যান্য আত্মীয়-স্বজন মাদরাসায় যাওয়ার ভাড়া, নাশতা বাবদ বিভিন্ন সময় টাকা দিয়ে থাকেন। ঐ টাকা থেকে যৎসামান্য বাঁচিয়ে বই কেনা, কাগজ-কলম ইত্যাদি কাজে খরচ করি। তারা যেহেতু ভাড়া, নাশতার জন্য দিচ্ছেন তাই এ সকল কাজে খরচ করা জায়েয হবে কি?

উত্তর

হ্যাঁ, ঐ টাকা থেকে বাঁচিয়ে বইপত্র, কাগজ-কলম ইত্যাদি কিনতে পারবেন। কেননা ঐ টাকা আপনাকে খরচের জন্যই দেওয়া হয়েছে। তাই এর মালিক আপনিই। সুতরাং যে কোনো প্রয়োজনে তা খরচ করতে পারবেন।

আলমাবসূত, সারাখসী ১২/৯৬; বাদায়েউস সানায়ে ৫/১৬৭; আলমুহীতুল বুরহানী ৯/১৬৯; আলবাহরুর রায়েক ৭/২৮৫

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬২২৬
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

পুরান ঢাকার কিছু এলাকায় বিগত ৩-৪ বছর আগে একটি মর্টগেজ...

প্রশ্ন

পুরান ঢাকার কিছু এলাকায় বিগত ৩-৪ বছর আগে একটি মর্টগেজ ভাড়াটিয়া ব্যবস্থা চালু হয়েছে এবং ক্রমেই তা দ্রুত বিস্তার ঘটছে। মূলত বাড়িওয়ালাদের অর্থের প্রয়োজন মেটাতেই এই মর্টগেজ ভাড়াটিয়া ব্যবস্থাটি চালু হয়েছে। যার বিবরণ এই যে, বাড়ি বা ফ্ল্যাটের মালিকদের তিন বা পাঁচ লক্ষ টাকা একত্রে প্রদান করে মর্টগেজ ভাড়াটিয়া বাড়ি বা ফ্ল্যাটে উঠে। ব্যবহৃত গ্যাস, বিদ্যুৎ এবং পানির বিলই তারা কেবল পরিশোধ করে। মাসিক কোনো ভাড়া তাদের দিতে হয় না। একসঙ্গে নগদ তিন-পাঁচ লক্ষ টাকা প্রদানের কারণেই বিনা ভাড়ায় বসবাসের এমন ব্যবস্থা। রীতিমতো দলিল-দস্তাবেজ করেই পরস্পর চুক্তিবদ্ধ হয়। তিন বা পাঁচ বছর মেয়াদে সাধারণত চুক্তি হয়ে থাকে। চুক্তির সময়সীমা অতিক্রমের পর বাড়িওয়ালাকে শুরুতে দেওয়া তিন বা পাঁচ লক্ষ টাকা মর্টগেজ ভাড়াটিয়াকে একত্রে ফেরত দিতে হয়। অর্থাৎ চুক্তির মেয়াদকাল পর্যন্ত মর্টগেজ ভাড়াটিয়া বিনা ভাড়ায় থাকবে। কেবল গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পানির বিল পরিশোধ করবে। চুক্তির মেয়াদ শেষে লগ্নির পুরো টাকা একত্রে ফেরত নেবে। কোনো কারণে বাড়িওয়ালা অর্থ ফেরত দিতে অক্ষম হলে তাদের মধ্যে পুনরায় নতুন করে চুক্তিপত্র সম্পাদন করে আগের নিয়মেই ফ্ল্যাট বা বাড়িতে বিনা ভাড়ায় বসবাস করতে পারবে।

ব্যবস্থাটি ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই এ বিষয়ে শরীয়তের বিধান বিস্তারিত দলিল-প্রমাণসহ জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

মর্টগেজ ভাড়ার এ লেনদেন সম্পূর্ণ নাজায়েয। এটি সুদী লেনদেন। এককালীন ফেরতযোগ্য কিছু টাকা দিয়ে বিনিময়ে বন্ধকী বাড়ি বা ফ্ল্যাটে বসবাস করাটা মূলত ঋণের বিনিময়ে সুবিধা ভোগ করা, যা হারাম। তাই মর্টগেজ ভাড়ার এ পদ্ধতি সম্পূর্ণভাবে পরিত্যাগযোগ্য। বাসা-বাড়ি ভাড়ার স্বাভাবিক প্রচলিত বৈধ তরিকাটাই অনুসরণযোগ্য। বেশি টাকার প্রয়োজন হলে দীর্ঘ মেয়াদের জন্য এককালীন অগ্রিম ভাড়া দিয়ে দিবে। প্রয়োজনে এক্ষেত্রে স্বাভাবিক ভাড়ার চেয়ে কমও নির্ধারণ করতে পারবে। আর মেয়াদ শেষে ভাড়ার টাকা ফেরত দিতে হবে না।

-মুসান্নাফে আবদুর রাযযাক, হাদীস : ১৫০৭১; বাদায়েউস সানায়ে ৫/২১২; রদ্দুল মুহতার ৬/৪৮২; শরহুল মাজাল্লাহ ৩/১৯৬

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬২১৮
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমার বড় ভাই আমাকে মুদারাবার ভিত্তিতে পাঁচ লক্ষ টাকা দিয়েছেন...

প্রশ্ন

আমার বড় ভাই আমাকে মুদারাবার ভিত্তিতে পাঁচ লক্ষ টাকা দিয়েছেন এবং লভ্যাংশের ৪০% তাকে দিতে বলেছেন। আমি সে টাকা দিয়ে একটি দোকান ভাড়া নেই এবং তাতে মুদি ব্যবসা শুরু করি। বর্তমানে দোকানে একজন কর্মচারী প্রয়োজন। তাই প্রশ্ন হল, উক্ত দোকানের জন্য কি কর্মচারী রাখা যাবে? নাকি সব কাজ আমাকেই করতে হবে? আর কর্মচারী রাখা হলে তার খরচ কে বহন করবে? দয়া করে জানালে উপকৃত হব।

উত্তর

মুদারাবা ব্যবসায় কর্মচারীর প্রয়োজন হলে ব্যবসার খরচ থেকে কর্মচারী নেওয়া যাবে। তাই প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রেও দোকানের জন্য কর্মচারীর প্রয়োজন হলে আপনি ব্যবসার খরচ থেকে কর্মচারী রাখতে পারবেন। তবে বিষয়টি বড় ভাইয়ের সাথে আলোচনা করে নিতে হবে।

-আলবাহরুর রায়েক ৭/২৬৪; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ১৫/৪৪৮; আদ্দুররুল মুখতার ৫/৬৪৯

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬২০৫
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমি বিগত ২০০৯ সালে ই-লিংকস নামক একটি মাল্টি লেভেল মার্কেটিং...

প্রশ্ন

আমি বিগত ২০০৯ সালে ই-লিংকস নামক একটি মাল্টি লেভেল মার্কেটিং কোম্পানিতে জয়েন করি এবং ৩ বছর কাজ করি। তাতে আমার কাছে ২ লক্ষ টাকার মতো সঞ্চয় হয়েছে। প্রশ্ন হল, এই টাকা আমার জন্য হালাল হবে নাকি হারাম?

কোম্পানির প্রোডাক্ট : বায়ো এনার্জেটিক ব্রেসলেট। প্রজেক্ট সিস্টেম : কোম্পানি থেকে কেউ বেনিফিটেড হতে চাইলে তাকে প্রথমে একটা প্রোডাক্ট ক্রয় করতে হবে। প্রডাক্ট ক্রয় করলে সে কোম্পানির একজন মেম্বার হয়ে যাবে। মেম্বার হওয়ার জন্য আলাদা কোনো চার্জ দিতে হয় না বা টাকা দিয়ে মেম্বার হওয়া যায় না। বরং প্রোডাক্ট ক্রয়ের মাধ্যমেই মেম্বার হতে হয়। মেম্বার হওয়ার পর যদি একটি প্রোডাক্ট সেল করাতে পারি তাহলে সাথে সাথে এসপি (ডাইরেক্ট সেল) বাবদ ৩৫০/- টাকা দেওয়া হয়। মনে করি, আমি একটি প্রোডাক্ট সেল করার কারণে ডিরেক্ট সেল বাবদ আমাকে ৩৫০/- টাকা দিয়ে দিল কোনো শর্ত ছাড়া। আবার আরেকটি সেল করার দ্বারা আবার কোনো শর্ত ছাড়া আমাকে ৩৫০/- টাকা দিয়ে দিত। এবং আমার বাম ও ডানে জোড়া মিলার কারণে আরো ৫০০/- টাকা দিয়ে দিত।

এখন আমার নিচে যদি সেল হয় তাহলে যে স্পন্সর করবে সে সেলের জন্য ৩৫০/- টাকা পেয়ে যাবে। এবং আমার ডান-বামে জোড়া মিলে যাওয়ার কারণে আমি কমিশন পেয়ে যাব। মোটকথা হল আমি ঐ কোম্পানিতে ৩ বছর ছিলাম। তাতে যা উপার্জন করেছি তার ৯৫ ভাগ আমি সবার মাঝে খরচ করেছি (যা সবাই করে না।) এখন ৬ মাস আগে আমি তা ছেড়ে দিয়েছি। আমার কাছে আনুমানিক ২ লক্ষ টাকা লাভ আছে। আমার জন্য এ টাকা হালাল হবে নাকি হারাম? কেননা এই টাকাটা একটা ব্যবসায় লাগিয়েছি, যা থেকে প্রত্যেক মাসে কিছু লাভ আসে।

উত্তর

মাল্টিলেভেল মার্কেটিং শরীয়ত পরিপন্থী একটি কারবার। এতে শরীয়ত নিষিদ্ধ আলগারার, উজরত বিলা-আমল ও আকলুল মাল বিলবাতিল ইত্যাদি বড় বড় খারাবি বিদ্যমান রয়েছে। একই কারণে ই-লিংকস কোম্পানির প্রশ্নে বর্ণিত কারবারও বৈধ নয়। সুতরাং এই কোম্পানির মার্কেটিং পদ্ধতিতে জড়িত হয়ে মূলধনের অতিরিক্ত যত টাকা অর্জন করেছেন তা হালাল নয়। তাই তা সদকা করে দিতে হবে। এক্ষেত্রে শুধু মূলধনই নেওয়া জায়েয হবে।

প্রকাশ থাকে যে, মাল্টিলেভেল মার্কেটিং কেন অবৈধ এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানার জন্য পড়তে পারেন মাসিক আলকাউসার, জানুয়ারি, ফেব্রুয়ারি ও মার্চ ২০১২ সংখ্যাগুলো। যা পরবর্তীতে মাকতাবাতুল আশরাফ থেকে ‘মাল্টি লেভেল মার্কেটিং : তাত্ত্বিক বিশ্লেষণ ও শরয়ী হুকুম’ নামে পুস্তিকা আকারে প্রকাশিত হয়েছে।

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬২০৪
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমরা কয়েকজন ছাত্র মিলে একটি সংগঠন করতে চাই। এবং এই...

প্রশ্ন

আমরা কয়েকজন ছাত্র মিলে একটি সংগঠন করতে চাই। এবং এই সংগঠনের কাজ হবে, যে মানুষের টাকা প্রয়োজন তাকে টাকা করজ দেওয়া। তো এক্ষেত্রে আমরা একটি হিলা (কৌশল) করতে চাই তা এই যে, সংগঠনটির পক্ষ থেকে কিছু নিয়মানুপাতে ফরম তৈরি করা হবে। ঋণ গ্রহিতা ফরমটি ক্রয় করবে এবং যে পরিমাণ টাকা ঋণ দেওয়ার কথা লেখা রয়েছে সে পরিমাণ টাকা করজ নিবে। আর এক্ষেত্রে করজকৃত টাকার পরিমাণ যত বেশি হবে ফরমের মূল্যও তত বেশি হবে। ফরমের এই টাকা দ্বারা আমরা উপকৃত হব। যথা সময়ে টাকা না দিলে পুনরায় ফরম কেনা জরুরি। এখন জানতে চাই, এই ধরনের সংগঠন এবং এই হিলা করা জায়েয আছে কি না? দয়া করে এর সমাধান জানিয়ে আমাদেরকে উপকৃত করবেন।

উত্তর

প্রশ্নোক্ত হীলা সম্পূর্ণ হারাম। এটি ঋণ দিয়ে সুদ গ্রহণেরই নামান্তর। ফরম বিক্রি একটি ছুতামাত্র। কেননা ঋণের পরিমাণ বৃদ্ধির সাথে সাথে ফরমের দামও বাড়ে। অথচ ফরমের খরচ একই। আবার মেয়াদ শেষে ঋণের মেয়াদ বাড়াতে চাইলে সেক্ষেত্রে নতুন ফরম কিনতে হয়। এসব কিছু থেকে প্রমাণিত হয় যে, এটি প্রকৃতপক্ষে ফরম বিক্রির অন্তরালে ঋণের উপর অতিরিক্ত টাকা গ্রহণের অপকৌশলমাত্র। যা শরীয়তের দৃষ্টিতে সম্পূর্ণ সুদ ও হারাম।

-আলমুহীতুল বুরহানী ১০/৩৫১; ইলাউস সুনান ১৪/১৭৯

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬১৫৫
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

শেয়ারবাজার সম্পর্কে সর্বশেষ সিদ্ধান্ত কী? বর্তমান শেয়ারবাজারে অংশগ্রহণ করা জায়েয...

প্রশ্ন

শেয়ারবাজার সম্পর্কে সর্বশেষ সিদ্ধান্ত কী? বর্তমান শেয়ারবাজারে অংশগ্রহণ করা জায়েয কি না? জায়েয হলে কি কি শর্তের সাথে জায়েয আছে জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

বর্তমান শেয়ারবাজারের কারবারগুলো শরীয়তের লেনদেন সংক্রান্ত নীতিমালার সাথে সঙ্গতিপূর্ণ নয়। ব্যাপকভাবে সুদের মিশ্রণের সাথে সাথে বাজারটি অনেকটা জুয়ার মার্কেটের আকার ধারণ করেছে। তাই আরব দেশসহ বিশ্বের অনেক অঞ্চলের অধিকাংশ বড় বড় আলেম শেয়ারবাজারের কারবারকে নাজায়েয ফতওয়া দিয়েছেন। জেদ্দা ভিত্তিক ওআইসি ফিকহ একাডেমীতে বিশ্বের বড় বড় ফকীহগণের অংশগ্রহণে এ বিষয়ে ব্যাপক গবেষণা হয়েছে এবং দীর্ঘ আলোচনা-পর্যালোচনার পর এটি না জায়েয হওয়ার সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়েছে।-মাজাল্লাতু মাজমায়িল ফিকহিল ইসলামী, সংখ্যা : ৭, পৃষ্ঠা : ৭১১-৭১২

এ ব্যাপারে বিস্তারিত দালিলিক প্রবন্ধ ছাপা হয়েছিল মাসিক আলকাউসারের এপ্রিল ’১০, ফেব্রুয়ারি, মার্চ, এপ্রিল ’১১ সংখ্যায়। যা পরবর্তীতে মাকতাবাতুল আশরাফ লাইব্রেরী থেকে পুস্তিকা আকারে প্রকাশিত হয়েছে। বিস্তারিত জানার জন্য ঐ পুস্তিকাটি দেখা যেতে পারে।

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬১৩৭
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমার বন্ধু সুহাইলের বাসা শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত। তার সাথে আমার...

প্রশ্ন

আমার বন্ধু সুহাইলের বাসা শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত। তার সাথে আমার এ মর্মে চুক্তি হয় যে, সে একটি রুম দেবে এবং আমি একটি ফটোকপি মেশিন দিব। এ দিয়ে দুজনে একসাথে ফটোকপির ব্যবসা করব এবং উভয়েই শ্রম দিব। আর লাভ দুজনের মাঝে সমান হারে ভাগ হবে। জানার বিষয় হল, এ ধরনের শরিকানা কারবার কি বৈধ?

উত্তর

হ্যাঁ, আপনার বন্ধুর সাথে এভাবে চুক্তি করা সহীহ হবে। ব্যবসায় লাভ হলে চুক্তি অনুযায়ী তা দুজনের মাঝে সমান হারে বণ্টিত হবে।

-ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ৭/৫০৪; রদ্দুল মুহতার ৪/৩২২; আলমুহীতুল বুরহানী ৮/৩৯৮; আলবাহরুর রায়েক ৫/১৮১; বাদায়েউস সানায়ে ৫/৮৬

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬১৩১
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

এক লোক ঢাকা থাকে। আমার বাড়ির পাশে এক খন্ড জমি...

প্রশ্ন

এক লোক ঢাকা থাকে। আমার বাড়ির পাশে এক খন্ড জমি ক্রয় করে মাটি ভরাট করেছে। ভবিষ্যতে তার সন্তানের জন্য বাড়ি তৈরি করবে। আমি তাকে প্রস্তাব দিয়েছি যে, এ জমিতে আমি মেহগনির চারা রোপন করে পরিচর্যা করব। অতপর যখন বাড়ি বানাবেন তখন গাছগুলো বিক্রি করে প্রাপ্য টাকা উভয়ে অর্ধেক করে ভাগ করে নিব। আমাদের এ চুক্তি বৈধ হবে কি না জানাবেন।

উত্তর

হ্যাঁ, জমির মালিকের সাথে আপনার ঐ চুক্তি বৈধ হবে, তবে এ ক্ষেত্রে কতদিন পর গাছ বিক্রি করা হবে এর একটি সময় নির্দিষ্ট করে নেওয়া আবশ্যক। গাছ বিক্রির সময় নির্ধারণ করা না হলে এ চুক্তি সহীহ হবে না।

-ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ১৭/২৮৩; ফাতাওয়া খানিয়া ৩/২০২; শরহুল মাজাল্লা ৪/৩৯৭; রদ্দুল মুহতার ৬/২৮৯

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬১১২
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমাদের এলাকায় কয়েকটি লেনদেন খুবই প্রচলিত। কিন্তু বৈধ কিনা আমার...

প্রশ্ন

আমাদের এলাকায় কয়েকটি লেনদেন খুবই প্রচলিত। কিন্তু বৈধ কিনা আমার সন্দেহ হচ্ছে। নিম্নে এগুলোর বিবরণ উল্লেখ করছি।

১ম পদ্ধতি : সমিতির কাছে ঋণের আবেদন করলে সমিতি কর্তৃপক্ষ আবেদনকারীকে সরাসরি নগদ অর্থ না দিয়ে এক কৌশল অবলম্বন করে। প্রথমে সমিতির নির্ধারিত ফরম পূরণ করত: আবেদনকারীকে নিয়ে সমিতি কর্তৃক নির্ধারিত দোকানে চলে যায়। দোকানের কোন নির্দিষ্ট মালের স্ত্তপের দিকে ইঙ্গিত করে বলে যে, মালগুলি আমি (উদাহরণত) ১,০০,০০০/- (এক লক্ষ) টাকায় খরিদ করলাম। অতপর ১,০০,০০০/- (এক লক্ষ) টাকা ব্যবসায়ীর হাতে দিয়ে আবেদনকারীকে বলে এ মালগুলি সমিতি আপনার কাছে ছয়মাস মিয়াদে ১,৪০,০০০/- (এক লক্ষ চল্লিশ) হাজার টাকায় বাকিতে বিক্রি করছে। আপনি মালগুলি দোকানীর কাছে বিক্রি করে নগদ টাকা নিয়া যেতে পারেন অথবা দোকানী নিজেই ৯৯,৫০০/- (নিরানববই হাজার পাঁচশত) টাকা আবেদনকারীকে দিয়ে বলে এই মালগুলি আমি আপনার কাছ থেকে ক্রয় করলাম।

২য় পদ্ধতি : সমিতির অফিস দ্বিতীয় তলায় এবং অফিসে বিক্রয়যোগ্য কিছু মালামাল আছে। নিচ তলায় মার্কেট এবং মার্কেটে সমিতির নির্ধারিত দোকান আছে। দোকানের কাজ হল বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে মাল ক্রয় করে সমিতির অফিসে পৌঁছিয়ে দেওয়া। এ সমিতির বিনিয়োগ পদ্ধতি হল সমিতির কাছে ঋণ চাইলে সমিতি তাকে নগদ অর্থ না দিয়ে তার কাছে অফিসের রক্ষিত মাল বাকির উপর অধিক মূল্যে বিক্রি করে। অতপর ঋণপ্রার্থী উক্ত মাল নিজ আয়ত্তে নিয়ে নিচ তলার মার্কেটে সমিতির নির্ধারিত দোকানে নগদ অর্থে কম মূল্যে বিক্রি করে। এতে করে সমিতির সম্পদ সমিতির কাছেই ফিরে যায়। এবং এই বাকি ও নগদ ক্রয়ের আড়ালে সমিতির মোটা অংকের মুনাফা অর্জন হয়। আবেদনকারীর প্রয়োজনও মিটে যায়।

৩য় পদ্ধতি : ঋণ প্রার্থী একজন ব্যবসায়ী। তার ঠান্ডা পানিয় এর ব্যবসা সম্প্রসারণের লক্ষ্যে এক লোকের নিকট ২০,০০০/- (বিশ হাজার) টাকা ঋণ চাইলেন। কিন্তু তিনি বিনা লাভে ঋণ দিতে প্রস্ত্তত নন। তাই তিনি এই পদ্ধতি আবিষ্কার করলেন যে ঋণপ্রার্থীর দোকানের একটি ফ্রিজ ২০,০০০/- (বিশ হাজার) টাকা মূল্যে ক্রয় করলেন এবং (মালিকানা বোঝানোর জন্য) ফ্রিজে হাত রেখে ঋণপ্রার্থীর নিকট ছয় মাসের জন্য প্রতি মাসে ১২০০ (এক হাজার দুইশত) টাকা দরে ভাড়া দিলেন। এবং শর্ত করে যে, ছয় মাস পর ঋণপ্রার্থী ঐ ফ্রিজটি পুনরায় ২০,০০০/- টাকা মূল্যে ক্রয় করে নিবেন। এতে করে বিনিয়োগ দাতা ফ্রিজের ভাড়ার নামে ছয় মাসে মুনাফা পেল ৭২০০/- (সাত হাজার দুইশত) টাকা এবং ছয় মাস পর ফ্রিজের মূল্য ফেরত বাবদ পেল ২০,০০০/- (বিশ হাজার) টাকা।

৪র্থ পদ্ধতি : এই বিনিয়োগের তরিকা হল, এক ব্যক্তি ফাল্গুন-চৈত্র মাসে প্রতি হাজারে ৩/৪ মণ ধান দরে লগ্নী করেন যা আষাঢ়-শ্রাবণ মাসে পরিশোধ যোগ্য। সমস্যা দেখা দেয় পরিশোধের সময় গরিব বেচারা এত ধান পাবে কোথায়। অথবা যারা ১/২ লক্ষ টাকা বিনিয়োগ গ্রহণ করেছেন তারা এত ধান পাবে কোথায়। সমাধান কল্পে ঐ ব্যক্তি ঋণ গ্রহীতাকে নিয়ে চলে যায় তার পূর্ব নির্ধারিত ধানের আরতে বা ধান বোঝাই নৌকায়। অতপর ঋণগ্রহীতা বাজার দর হিসাব করে ধানের যা মূল্য আসে (মনে করেন হাজারে ৩ মণ ধরে এক লক্ষ টাকার লগ্নী ধান তিন শত মণ ৫০০ (পাঁচ শত) টাকা দরে তিন শত মণ ধানের মূল্য ১,৫০,০০০/- (এক লক্ষ পঞ্চাশ) হাজার টাকা। উক্ত টাকা ঋণ গ্রহীতা নৌকা বা আড়তের ব্যাপারীকে দিয়ে বলেন যে, আমি আপনার নৌকা বা আড়ত থেকে তিনশত মণ ধান ক্রয় করিলাম। এবং তা (লগ্নীদাতাকে লগ্নী পরিশোধার্তে দিয়ে দিলাম। এবার লগ্নীদাতা যেহেতু তিন শত মণ ধানের মালিক হয়ে গেলে তাই উক্ত ধান পুনরায় নৌকা বা আড়তের ব্যাপারীর কাছে এক হাজার টাকা কমে অর্থাৎ এক লক্ষ উনপঞ্চাশ হাজার টাকায় বিক্রি করে নগদ টাকা নিয়ে আসে। এতে করে ঐ ব্যক্তি মুনাফা ও মূলধন মিলে এক লক্ষ উনপঞ্চাশ হাজার টাকা পাইলেন। নৌকা বা আড়তের ব্যাপারী উক্ত কর্মটি সম্পাদন করে দেওয়ায় এক হাজার টাকা পেলেন। উল্লেখ্য উক্ত ক্রয়বিক্রয়ে কোন মাপ বা ওজন কিছুই করা হয় না। এমনকি উক্ত নৌকা বা আড়তে তিন শত মণ ধান আছে কি না? এ ব্যাপারেও কোন খোঁজ খবর থাকে না।

দলিলসহ পদ্ধতিগুলোর সমাধান দিয়া চির কৃতজ্ঞ করিবেন।

উত্তর

প্রশ্নে বর্ণিত সবকটি লেনদেনই নাজায়েয। এসব পদ্ধতি সুদ গ্রহণের অপকৌশলমাত্র। আর সুদ যেমনিভাবে সরাসরি হারাম তেমনিভাবে তা গ্রহণের জন্য হীলা বাহানা অবলম্বন করাও হারাম।

জেনে রাখা দরকার যে, ক্রয়-বিক্রয় ও লেনদেন বাস্তবমুখী কারবার। যা মালিকানা পরিবর্তন ও পণ্য হস্তান্তরের বাস্তবতার সাথে সম্পৃক্ত।

কিন্তু প্রশ্নোক্ত সবকটি পদ্ধতিতেই দেখা যাচ্ছে, পণ্য প্রথমে যার কাছে ছিল তার কাছেই থেকে যাচ্ছে। মাঝে শুধু বিভিন্ন লেনদেনের নাম ব্যবহার করা হয়েছে। যেমন প্রথম পদ্ধতি এক মাধ্যম হয়ে

এ পণ্যই আবার দোকানীর কাছে বিক্রি করে দেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

অথচ পণ্য পূর্বে থেকে দোকানীর কাছেই আছে।

দ্বিতীয় পদ্ধতিতেও গ্রাহক সমিতির এক প্রতিনিধি থেকে পণ্য নিয়ে সমিতিরই আরেক প্রতিনিধির নিকট বিক্রি করে দিচ্ছে। অর্থাৎ সমিতির মাল সমিতির কাছেই থেকে যাচ্ছে।

তেমনি তৃতীয় পদ্ধতিতেও ফ্রিজ যার কাছে ছিল তার কাছেই আছে। মাঝে শুধু ফ্রিজের ক্রয়-বিক্রয় ও ভাড়ার নাম ব্যবহার করা হয়েছে। একইভাবে চতুর্থ পদ্ধতিতেও ধানের আড়তে বা ধানবোঝাই নৌকায় গিয়ে শুধু ধান ক্রয়-বিক্রয়ের কথা বলা হচ্ছে। কিন্তু ধান

যার কাছে যেভাবে ছিল তার কাছেই থেকে যাচ্ছে।

সুতরাং প্রশ্নোক্ত কোন পদ্ধতিতেই টাকাদাতা ও গ্রহীতা কোন পক্ষেরই বাস্তবিক অর্থে পণ্য লেনদেন করা উদ্দেশ্য নয়। বরং গ্রাহককে ঋণ দিয়ে মেয়াদান্তে তার থেকে অতিরিক্ত নেওয়ার ছুতা হিসেবে এ পদ্ধতিগুলো অবলম্বন করা হয়েছে।

জানা কথা যে, ঋণ দিয়ে অতিরিক্ত নেওয়া সুদ। যেমনিভাবে সুদ হারাম ও ঘৃণিত তেমনিভাবে তা গ্রহণের জন্য হীলা-বাহানা অবলম্বন করাও হারাম ও ঘৃণিত। মনে রাখা দরকার যে, কোন ছুঁতা বা হীলা-বাহানা অবলম্বন করলেই সুদী লেনদেন বৈধ হয়ে যায় না। কারণ শরীয়তে মুআমালাত তথা লেনদেনের ক্ষেত্রে উদ্দেশ্য ও হাকীকতের গুরুত্ব অপরিসীম। তাই কোন সুদী কারবারের শুধু নাম বদলে দিলেই তা বৈধ হয়ে যায় না।

অতএব মুসলমানের কর্তব্য হল, এ ধরনের হীলা-বাহানার মাধ্যমে উপার্জন না করে শরীয়ত স্বীকৃত পন্থায় লেনদেন করা। এবং সামর্থ্য থাকলে করযে হাসানা প্রদান করা।

-মুসনাদে আহমদ, হাদীস : ৫০০৭; মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা ১০/৫২৫; রদ্দুল মুহতার ৫/৩২৬; আলমুহীতুল বুরহানী ১০/৩৬৮; ফাতহুল কাদীর ৬/৩২৩; আলবাহরুর রায়েক ৬/২৩৫; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ৩/২০৮; শরহুল মাজাল্লা ২/৪৫৩; ইলাউস সুনান ১৪/১৭৭

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬০৬৯
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমরা ছয়জন মিলে চুক্তি করেছি, প্রতিমাসে আমাদের প্রত্যেকে পাঁচশ টাকা...

প্রশ্ন

আমরা ছয়জন মিলে চুক্তি করেছি, প্রতিমাসে আমাদের প্রত্যেকে পাঁচশ টাকা করে মোট তিন হাজার টাকা জমা করব। অতপর এই ছয়জনের নামে লটারি হবে। যার নাম উঠবে সে প্রথম মাসে এই তিন হাজার টাকা নিবে। যার নাম লটারিতে এসেছে তার নাম বাদ দিয়ে পরের মাসে বাকি পাঁচজনের নামে লটারি করা হবে। যার নাম উঠবে সে এ মাসে তিন হাজার টাকা নিবে। এভাবে তৃতীয় মাসে বাকি চারজনের নামে লটারি করা হবে। প্রত্যেক মাসে টাকা জমা হবে, লটারি হবে এবং একেকজন করে টাকা পাবে। এই পদ্ধতিতে টাকা জমা করে লটারির মাধ্যমে টাকা নেওয়া জায়েয কি না? জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

হ্যাঁ, প্রশ্নোক্ত পদ্ধতিতে টাকা জমা করা ও ঋণ আদানপ্রদান করা জায়েয। কেননা এক্ষেত্রে কেউই জমাকৃত টাকার কম বা বেশি পায় না এবং ঋণ গ্রহীতাকেও অতিরিক্ত কিছু দিতে হয় না। বরং মেয়াদের শেষ পর্যন্ত প্রত্যেকে নিজের জমাকৃত পূর্ণ টাকা পেয়ে যায়। তবে লটারিতে যার নাম আসবে তাকে ঋণ দেওয়ার বিষয়টি সকলের স্বতঃস্ফূর্ত সম্মতিতে হতে হবে।

প্রকাশ থাকে যে, প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে যারা আগে আগে ঋণ পাবে তারা যেন শেষ পর্যন্ত কিস্তি দেওয়া অব্যাহত রাখে এটা নিশ্চিত করতে হবে। যেন ঋণদাতাদের জমা ক্ষতিগ্রস্ত না হয়।

এখানে আরো উল্লেখ্য, এক্ষেত্রে লটারি দ্বারা যেহেতু শুধু কাকে আগে ঋণ দেওয়া হবে এটা চিহ্নিত করা উদ্দেশ্য- তাই এই লটারি জায়েয।

-ফিকহুন নাওয়াযিল ৩/৩২৫; আলবাহরুর রায়েক ১/৩৪৮; আদ্দুররুল মুখতার ১/৫৫৮

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬০৫১
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমি ও আমার বন্ধু মিলে দশ লক্ষ টাকা দিয়ে একটি...

প্রশ্ন

আমি ও আমার বন্ধু মিলে দশ লক্ষ টাকা দিয়ে একটি চালের আড়ৎ দিয়েছি। আমার পুঁজি চার লক্ষ টাকা আর বন্ধুর ছয় লক্ষ। ব্যবসা পরিচালনা আমি একাই করি। তাই তার সাথে আমার চুক্তি হয় যে, লাভের ৩৩% তোমার, আর বাকিটা আমার। আর লোকসান হলে অর্ধেক তুমি বহন করবে আর বাকি অর্ধেক আমি। সে এতে রাজি হয়। প্রশ্ন হল, এভাবে চুক্তি করা কি আমার জন্য বৈধ হয়েছে?

উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে লাভ বণ্টনের চুক্তি সহীহ হয়েছে। কিন্তু লোকসানের বণ্টন সহীহ হয়নি। কারণ যৌথমূলধনী কারবারে লোকসান হলে প্রত্যেককে মূলধন হিসাবেই দায়ভার বহন করতে হয়। তাই প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে লোকসান হলে মূলধন অনুপাতে আপনি ৪০% বহন করবেন, আর আপনার বন্ধুকে ৬০% বহন করতে হবে।

-মুসান্নাফ আবদুর রাযযাক ৮/২৪৮; বাদায়েউস সানায়ে ৫/৮৩; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ৪/২৯৫; রদ্দুল মুহতার ৪/৩০৫; আলবাহরুর রায়েক ৫/১৭৪

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬০৫০
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমি পাশের গ্রামের এক চাষীকে এক লক্ষ টাকা দিয়েছি এই...

প্রশ্ন

আমি পাশের গ্রামের এক চাষীকে এক লক্ষ টাকা দিয়েছি এই শর্তে যে, তিন মাস পর বোরো ধানের মৌসুমে সে আমাকে পাঁচশত টাকা দরে দুই শত মণ ধান দিবে। টাকা দেওয়ার একমাস পরেই আমার মা অসুস্থ হয়ে যান। ফলে চিকিৎসার জন্য টাকার প্রয়োজন দেখা দেয়। তখন আমার মামা থেকে পঞ্চাশ হাজার টাকা এ কথা বলে ধার নিলাম যে, দু মাস পরে ঐ কৃষক দুইশত মণ ধান দিলে আমরা দুজনে একশত মণ করে ভাগ করে নিব। আর এভাবে তার ঋণ পরিশোধ হয়ে যাবে। মামার সাথে আমার এই ঋণচুক্তিটি কি ঠিক হয়েছে? দয়া করে জানালে কৃতজ্ঞ থাকব।

উত্তর

আপনার মামা থেকে ঐভাবে টাকা নেওয়া বৈধ হয়নি। এটাকে ঋণ বলা হলেও বাস্তবে এটি ধানের আগাম খরিদচুক্তি, ঋণচুক্তি নয়। কারণ এক্ষেত্রে আপনি মামা থেকে পঞ্চাশ হাজার টাকা নিয়েছেন এ শর্তে যে, পরবর্তীতে আপনি এর বিনিময়ে চাষী থেকে আপনার পাওনা ধানের অর্ধেক তাকে দিবেন। সুতরাং আপনার মামার সাথে ঐ টাকার বিনিময়ে ধানের আগাম ক্রয় চুক্তি করা হল। অথচ চাষী থেকে এখনো আপনি ঐ ধান হস্তগত করেননি। আর ক্রয়কৃত পণ্য হস্তগত করার আগেই তা বিক্রি করে দেওয়া জায়েয নয়। হাদীস শরীফে এ থেকে নিষেধ করা হয়েছে। আবদুল্লাহ ইবনে আববাস রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, যে ব্যক্তি কোনো খাদ্যদ্রব্য ক্রয় করল তা হস্তগত করার আগেই যেন সে তা বিক্রি না করে। (মুসনাদে আহমদ, হাদীস : ২৪৩৮)

সুতরাং এ চুক্তিটি বাতিল করে দেওয়া জরুরি।

-আলবাহরুর রায়েক ৬/১৬২; বাদায়েউস সানায়ে ৪/৪৫১; তাবয়ীনুল হাকায়েক ৪/৫১৬

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬০৪৮
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

রাজধানীর ব্যস্ততম মার্কেটগুলোর একটিতে পাঁচ বছরের জন্য একটি দোকান ভাড়া...

প্রশ্ন

রাজধানীর ব্যস্ততম মার্কেটগুলোর একটিতে পাঁচ বছরের জন্য একটি দোকান ভাড়া নিয়েছি। হঠাৎ একদিন সংবাদ পেলাম, মার্কেটের মালিক কোনো কারণে আমার পাশের দোকানটি অন্যের কাছে বিক্রি করে দিয়েছে। সাথে সাথে মালিককে ক্রয়ের ব্যাপারে আমার আগ্রহের কথা জানালাম। কিন্তু তিনি ততটা গুরুত্ব দিলেন না। এখন আমি প্রিএমশন-এর দাবি করতে চাচ্ছি। জানতে চাই, শরীয়তের দৃষ্টিতে শুফআ প্রিএমশন-এর ভিত্তিতে দোকানটি ক্রয়ের দাবি করতে পারব কি?

উত্তর

ভাড়াটিয়া শুফআ তথা অগ্রক্রয়ের অধিকারী হয় না। তাই প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে আপনার জন্য শুফআর দাবি করা বৈধ হবে না। কেননা শুফআর দাবি একমাত্র বিক্রিত সম্পত্তির মালিকানায় শরিকগণ বা পার্শ্ববর্তী মালিকগণই করতে পারে।

-বাদায়েউস সানায়ে ৪/১১২; আলমাবসূত, সারাখসী ১৪/৯৫; ফাতাওয়া সিরাজিয়া ১০৯; আদ্দুররুল মুখতার ৬/২১৭

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬০২৭
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমার বাবা একজন রিটায়ার্ড অফিসার। তিনি বিশ লাখ টাকা পেনশন...

প্রশ্ন

আমার বাবা একজন রিটায়ার্ড অফিসার। তিনি বিশ লাখ টাকা পেনশন স্কীমে সঞ্চয়পত্র কিনে রেখেছেন। এর ফলে গভঃমেন্ট তাকে তিন মাসে ৬২,৫০০/- টাকা দেয়। এটা কি সুদ?

আমার বাবা বলেন যে, এটা রিটায়ার্ড লোকদের জন্য করা হয়েছে। অন্যরা এটা করতে পারে না। এটাকে ‘‘গভঃমেন্ট পেনশন স্কীম’’ নাম দেওয়া হয়েছে। আসলেই কি এটা পেনশনের মতো হালাল, নাকি সুদ?

বিস্তারিত দলিল-প্রমাণসহ জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

‘‘গভঃমেন্ট পেনশন স্কীম’’ যদিও সরকারি ব্যবস্থাপনায় রিটায়ার্ড অফিসারদের জন্য করা হয়েছে, কিন্তু এটি সম্পূর্ণ সুদি স্কীম। কারণ সরকার মেয়াদী সঞ্চয়পত্রের মাধ্যমে গৃহিত টাকার উপর নির্দিষ্ট অংকে সুদ দিয়ে থাকে। তাই পেনশন নাম দেওয়ার কারণে তা হালাল হয়ে যাবে না। বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর সুদুভিত্তিক মেয়াদী জমা হিসাবকেও তো ডি.পি.এস বা ডিপোজিট পেনশন স্কীম বলা হয়ে থাকে। অথচ সেটিও হারাম।

সুতরাং আপনার পিতার সঞ্চয়পত্র কেনা সম্পূর্ণ নাজায়েয হয়েছে এবং এ স্কীম থেকে তিনি অতিরিক্ত যে অর্থ গ্রহণ করেছেন তা সুদ হয়েছে। ক্রয়কৃত সঞ্চয়পত্র জমা দিয়ে এ স্কীম প্রত্যাহার করা জরুরি। অতপর মূল টাকার অতিরিক্ত অংশ ফকীর-মিসকীনকে সওয়াবের নিয়ত ছাড়া সদকা করে দেওয়া আবশ্যক। আর কৃত গুনাহের জন্য আল্লাহ তাআলার দরবারে তাওবা-ইস্তিগফার করতে হবে।

-সূরা বাকারা : ২৭৫; আহকামুল কুরআন, জাসসাস ১/৪৬৫; তাফসীরে তবারী ৩/১০৪; শরহুল মাজাল্লা ২/৪৫৫; বুহুস ফী কাযায়া ফিকহিয়্যাহ মুআছিরা ২/১১০, ২৩৩

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬০০২
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমি একজন সাধারণ মানুষ। সরকারি বিভিন্ন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তার সাথে সম্পর্ক...

প্রশ্ন

আমি একজন সাধারণ মানুষ। সরকারি বিভিন্ন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তার সাথে সম্পর্ক থাকার কারণে তাদেরকে মাধ্যম বানিয়ে আমি বিভিন্নজনকে চাকরির ব্যবস্থা করে দিতে পারি। এখন প্রশ্ন হল, কোনো ব্যক্তিকে চাকরির ব্যবস্থা করে দেওয়ার বিনিময়ে তার থেকে টাকা গ্রহণ করা আমার জন্য বৈধ হবে কি না? জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

আপনার প্রশ্নের বিবরণ শুনে মনে হচ্ছে, আপনি নিজে সুপারিশ করে বা কারো মাধ্যমে সুপারিশ করিয়ে তাদের চাকরির ব্যবস্থা করবেন। আর সুপারিশ শরীয়তের দৃষ্টিতে বিনিময়যোগ্য নয়। সুতরাং এ কাজের জন্য আপনি কোনো টাকা গ্রহণ করতে পারবেন না।

-সুনানে আবু দাউদ, হাদীস : ১৫৩৫; বযলুল মাজহূদ ১৫/২২২; আল মওসূআতুল ফিকহিয়্যাহ, কুয়েত ২৬/১৩৪

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৬০০১
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

ফেরিওয়ালারা সিলভারের পুরাতন হাড়িপাতিলের বিনিময়ে সিলভারের নতুন হাড়িপাতিল বিক্রি করে।...

প্রশ্ন

ফেরিওয়ালারা সিলভারের পুরাতন হাড়িপাতিলের বিনিময়ে সিলভারের নতুন হাড়িপাতিল বিক্রি করে। নতুন সিলভারের দাম যদি হয় ১৫০/- টাকা তবে পুরাতন সিলভারের দাম হয় ১০০/- টাকা বা তার কম। সুতরাং এক কেজি ওজনের হাড়িপাতিল নিতে হলে দেড় কেজি পরিমাণ পুরাতন সিলভার দিতে হয়। প্রশ্ন হল, এক কেজি নতুন সিলভার দেড় কেজি পুরাতন সিলভারের বিনিময়ে ক্রয় করা বৈধ কি? না হলে বৈধ উপায়ে লেনদেনের পদ্ধতি কী?

উত্তর

সিলভারের পুরাতন হাড়িপাতিল দিয়ে সিলভারের নতুন হাড়িপাতিল নিতে হলে উভয় দিকে ওজনে সমান সমান করে লেনদেন করতে হবে। এক্ষেত্রে ওজনে কমবেশ করা সুদের অন্তর্ভুক্ত। তাই পুরাতন হাড়িপাতিল বদলাতে চাইলে পুরাতনগুলি ফেরিওয়ালার কাছে টাকার বিনিময়ে বিক্রি করবে। আর সিলভারের নতুন হাড়িপাতিলও আলাদাভাবে টাকার বিনিময়ে ক্রয় করবে।

-তাকমিলা ফাতহুল মুলহিম ১/৫৭৮; তাফসীরে কুরতুবী ৩/২২৮; আদ্দুররুল মুখতার ৫/১৭২; হেদায়া ৩/৭৮-৭৯; তাবয়ীনুল হাকায়েক ৪/৪৫৫

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৯৯৯
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

খতমে কুরআন, খতমে ইউনুস ইত্যাদি পড়ে টাকা-পয়সা আদানপ্রদান জায়েয আছে...

প্রশ্ন

খতমে কুরআন, খতমে ইউনুস ইত্যাদি পড়ে টাকা-পয়সা আদানপ্রদান জায়েয আছে কি? মৃতের জন্য ঈসালে সওয়াব করে কিংবা বালা-মুসিবতের জন্য বা রোগমুক্তির জন্য খতম পড়ে বর্তমানে টাকাপয়সার যে লেনদেন করা হয় তার হুকুম কী? বিস্তারিত জানতে চাই।

উত্তর

ঈসালে সওয়াবের উদ্দেশ্যে কুরআন মজীদ খতম করে বা অন্য কোনো দুআ-দরূদ পড়ে বিনিময়ে টাকা-পয়সা বা কোনো কিছু আদান-প্রদান করা নাজায়েয়।

সুতরাং বর্তমান সমাজে ঈসালে সওয়াবের উদ্দেশ্যে দুআ দরূদ ও কুরআন খতম করিয়ে বিনিময়ে টাকা-পয়সা আদান-প্রদানের যে প্রথা কোনো কোনো জায়গায় চালু আছে তা নাজায়েয ও কু প্রথার

অন্তর্ভুক্ত। এ থেকে বিরত থাকা জরুরি।

হ্যাঁ, খতমে কুরআন, খতমে ইউনুস বা অন্য কোনো দুআ-দরূদের খতম যদি কেবলমাত্র দুনিয়াবী উদ্দেশ্যে করা হয় (যেমন, রোগমুক্তি, বিপদ-আপদ থেকে হেফাযত, ব্যবসা-বাণিজ্যে উন্নতি ইত্যাদি) তবে সেক্ষেত্রে বিনিময় দেওয়া-নেওয়া জায়েয। অবশ্য এক্ষেত্রেও বিনিময়ে কোনো কিছু না নেওয়াই শ্রেয়। আর কারো জন্য এভাবে খতম পড়াকে পেশা হিসাবে অবলম্বন করা কিছুতেই সমীচীন নয়।

প্রকাশ থাকে যে, মুসলমানদের কর্তব্য হল, অসুখ-বিসুখ, বিপদ-আপদ ও প্রয়োজনের মুহূর্তে নিজেই নফল নামায, দুআ, দরূদ ও ইস্তিগফার দ্বারা আল্লাহ তাআলার সাহায্য প্রার্থনা করা, নফল সদকা দেওয়া। প্রয়োজনে পরিবারের সদস্যদেরকেও দুআ করতে বলা। আলেম, বুযুর্গ ব্যক্তিদের থেকে দুআ চাওয়া। সর্বোপরি সবর ও তাকওয়ার মাধ্যমে আল্লাহ তাআলার রহমত কামনা করা।

এমনিভাবে মৃত আত্মীয়-স্বজনের ঈসালে সওয়াবের উদ্দেশ্যে নিজেরাই কুরআন খতম ও দুআ-দরূদ পড়বে। দান-সদকা করবে। মূলত এসবই হল শরীয়তের দৃষ্টিতে উত্তম পন্থা।

আর ব্যবসা-বাণিজ্যে বরকতের জন্য সবচে বড় করণীয় হল, বৈধ পন্থায় ব্যবসা করা, মিথ্যা, ধোঁকা, ভেজাল, মাপে কম দেওয়া, সুদ ইত্যাদি সকল ধরনের হারাম কাজ ও পন্থা থেকে বেঁচে থাকা এবং সততা ও সত্যবাদিতার প্রতি যত্নবান হওয়া।

-ইলাউস সুনান ১৬/১৭৩; রদ্দুল মুহতার ৬/৫৬; তাকমিলা ফাতহুল মুলহিম ৪/৩১৮; বযলুল মাজহূদ ১৫/৮৪; মজমূআতু রাসাইলি ইবনে আবেদীন ১/১৫৬-১৫৭, ২৭৪

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৯৮২
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমাদের এলাকার এক ব্যক্তি তার কিছু জমি মসজিদ ও মাদরাসার...

প্রশ্ন

আমাদের এলাকার এক ব্যক্তি তার কিছু জমি মসজিদ ও মাদরাসার উন্নয়নের জন্য মৌখিকভাবে ওয়াকফ করেছিলেন। এবং জমিগুলো মসজিদ-মাদরাসার কর্তৃপক্ষের নিকট হস্তান্তর করেছিলেন। তখন থেকে কর্তৃপক্ষ ওয়াকফের স্বার্থে জমিগুলো ভাড়া দিয়ে আসছেন। কিন্তু চেষ্টা সত্ত্বেও দলিল করে নেওয়া সম্ভব হয়নি। তিন-চার বছর পর ওয়াকফকারীর আর্থিক অবস্থা খারাপ হয়ে যায়। তখন তিনি নিজের বাড়ি এবং তার ওয়াকফকৃত উক্ত জমিগুলোও বিক্রি করে দেন। তবে ক্রেতাকে এখনো দলিল করে দেননি। প্রশ্ন হল, এ পরিস্থিতিতে তার জন্য ওয়াকফকৃত জমিগুলো বিক্রি করা কি বৈধ হয়েছে? আমাদের দাবি হল, সেই জমি যেন আবার ফিরিয়ে দেয়। দ্রুত উত্তর জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

প্রশ্নের বর্ণনা অনুযায়ী মাদরাসার জন্য জমি দান করে দিয়ে তা আবার অন্যত্র বিক্রি করে দেওয়া খুবই অন্যায় হয়েছে। কারণ মসজিদ-মাদরাসার কর্তৃপক্ষের নিকট জমিটি হস্তান্তর করে দেওয়ার দ্বারা শরীয়তের দৃষ্টিতে ঐ জমির ওয়াকফ সম্পন্ন হয়ে গেছে এবং দাতার মালিকানা থেকে বেরিয়ে তা মসজিদ-মাদরাসার মালিকানায় এসে গেছে। সুতরাং ঐ জমি বিক্রি করা নাজায়েয হয়েছে। এখন তার কর্তব্য ঐ বিক্রি বাতিল করে জমিগুলো মসজিদ-মাদরাসার জন্য ফিরিয়ে দেওয়া এবং দলিলও করে দেওয়া।

-সহীহ বুখারী ১/৩৮৭; ফাতহুল কাদীর ৫/৪১৮, ৪৩২; আলবাহরুর রায়েক ৫/১৯৮; রদ্দুল মুহতার ৪/৩৩৮

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৯৭৯
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমি এক জায়গায় যাওয়ার ইচ্ছা করি। যেখানে আছি সেখান থেকে...

প্রশ্ন

আমি এক জায়গায় যাওয়ার ইচ্ছা করি। যেখানে আছি সেখান থেকে ঐ গন্তব্যে পৌঁছতে পায়ে হেঁটে ৩/৪ মিনিট সময় লাগে। কিন্তু ঐ জায়গাটা ভালোভাবে চিনি না এবং এত কাছে তাও জানি না। আমার গন্তব্যের দিকে যাচ্ছে এমন একটা অটো রিক্সাকে আমি হাত দিয়ে ইশারা দিলেই সে আমার নিকট এসে থামল। রিক্সাটি এমন, যা ৭/৮ জন লোক নিয়ে চলে। দেখলাম ভিতরে একজন লোক আছে বাকি সিটগুলো খালি। আমি তাকে বললাম, অমুক জায়গায় যাবেন? সে কয়েকবার জায়গাটির নাম জিজ্ঞাসা করার পর বলল যাব। আমি বললাম, ভাড়া কত? সে বলল ১০/- টাকা। আমি কিছু কমাতে চাইলে সে রাজি হল না। তখন আমি উঠলাম। আমাদের দুজনকে নিয়ে সে অনেক দূরে চলে গেল। এবং অপর লোকটি যেখানে নামল আমাকেও সেখানে নামতে বলল। আমি বললাম আমি তো অমুক জায়গায় যাব। সে বলল, তা তো অনেক পিছনে রেখে এসেছি। আপনি আর একটি গাড়ি নিয়ে চলে যান এবং সে আমার কাছে ভাড়া চাইল। আমি বললাম, আমার গন্তব্যে পৌঁছে দিন ভাড়া দিব। সে বলল, আমি তো মনে করেছি, আপনি এখানেই নামবেন। কেননা, যেখানে ছিলেন সেখান থেকে তো ওখানে ১ মিনিটের রাস্তা। এতটুকু কেউ গাড়িতে আসে? এরপর সে আমার সাথে তর্কে লিপ্ত হয়। আমি তাকে ৫/- টাকা দিতে চাইলাম। কিন্তু সে রাজি হল না এবং গালিগালাজ শুরু করল। আমি রাগ করে তাকে কোনো টাকা না দিয়ে চলে আসি।

প্রশ্ন হল, আমার এ কাজটি কি ঠিক হয়েছে? আমার করণীয় কী ছিল? এবং এখন আমার করণীয় কী? আমি তাকে চিনি না এবং তাকে খুঁজে পাওয়াও মনে হয় অসম্ভব।

উত্তর

না, আপনার জন্য এমনটি করা ঠিক হয়নি। প্রথমত আপনার গন্তব্যে নেমে যাওয়া আপনার দায়িত্ব ছিল। অথবা গাড়িতে উঠেই আপনি তাকে বলতে পারতেন আমি জায়গাটা চিনি না আপনি আমাকে নামিয়ে দিবেন, কিন্তু আপনি এর কোনোটিই করেননি। সুতরাং এ ব্যক্তির নির্ধারিত ভাড়া পরিশোধ না করে আপনি অন্যায় করেছেন। এখন যদি লোকটিকে পাওয়ার সম্ভাবনা না থাকে তবে ১০/- টাকা কোনো গরীবকে সদকা করে দিন।

আরেকটি কথা মনে রাখা দরকার, তা হচ্ছে, রিক্সা, লোকাল বাস ও যাত্রীবাহী ছোট গাড়িগুলোর হেলপার, কন্ট্রাকটরদের অনেকেই থাকে অল্প শিক্ষিত বা অশিক্ষিত। গাল-মন্দ করা তাদের অনেকের কাছেই সাধারণ বিষয়। তাই এসব ক্ষেত্রে নিজের রাগ সংবরণ করা উচিত। যেন অল্প কিছু টাকার জন্য তারা গালমন্দ করার সুযোগ না পায়।

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৯৬৩
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমরা হাদীস শরীফে শুনেছি যে, মৃত ব্যক্তিকে দাফন করে লোকজন...

প্রশ্ন

আমরা হাদীস শরীফে শুনেছি যে, মৃত ব্যক্তিকে দাফন করে লোকজন যখন চলে আসে তখন মুনকার-নাকীর ফেরেশতা এসে মৃত ব্যক্তিকে উঠিয়ে বসায় এবং তিনটি বিষয়ে সওয়াল করে।

জানার বিষয় হল, এখানে মৃত ব্যক্তিকে উঠিয়ে বসানোর অর্থ কী? বাস্তবেই কি বসানো হয় নাকি এর অর্থ ও মর্ম অন্য কিছু? এবং বসালে তার ধরণ কীরূপ হয়? জানিয়ে উপকৃত করবেন।

উত্তর

সহীহ হাদীসে শুধু এতটুকু আছে যে, কবরে দুইজন ফেরেশতা এসে মৃত ব্যক্তিকে বসাবে এবং কয়েকটি বিষয়ে তাকে প্রশ্ন করবে।

এখানে কীভাবে বসানো হবে, বসার ধরণ কেমন হবে তা হাদীস শরীফে উল্লেখ নেই। বসার বাহ্যিক রূপ হওয়াটা অবসম্ভব কিছু নয়। এটি তো এ জগতের বিষয় নয়। বরং একটি ভিন্ন জগতের বিষয়, যার নাম ‘বারযাখ’। তাই এটাকে এ জগতের বিষয়ের সাথে তুলনা করলে চলবে না।

এক্ষেত্রে আমাদের করণীয় হল, সহীহ হাদীসে যতটুকু বর্ণিত হয়েছে তা-ই বর্ণনা করা ও বিশ্বাস করা। এর ধরণ বা বাস্তব রূপ কী হবে তা নিয়ে আলোচনা ও বিতর্কে না জড়িয়ে বিষয়টিকে আল্লাহর উপর সোপর্দ করা।

-সহীহ বুখারী ১/১৭৮; শরহু সহীহ মুসলিম, নববী ১৭/২০১; সুনানে ইবনে মাজাহ পৃ. ৩১৫; মিরকাতুল মাফাতীহ ১/৩১৩; তাসীকনুস সুদূর, আল্লামা সরফরায খান সফদর রাহ.

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৯৫৭
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমি ঢাকা থেকে যশোর যাওয়ার জন্য ৫,০০০/- টাকায় একটি মাইক্রো...

প্রশ্ন

আমি ঢাকা থেকে যশোর যাওয়ার জন্য ৫,০০০/- টাকায় একটি মাইক্রো বাস ভাড়া করি। তা ফরিদপুর গিয়ে যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে বন্ধ হয়ে যায়, যা মেরামত করতে অনেক সময়ের প্রয়োজন। ড্রাইভার আমাকে ঢাকা-যশোরগামী একটি বাসে তুলে দেয়। ঐ বাসের ভাড়া আমি দিয়েছি। কিন্তু মাইক্রোবাসের ভাড়া নিতে চাইলেও আমি দেইনি। এখন জানতে চাই, মাইক্রোর ভাড়া না দেওয়া কি ঠিক হয়েছে? জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে ঐ মাইক্রোবাসে করে যেহেতু আপনি ফরিদপুর পর্যন্ত গেছেন তাই আপনার জন্য ঐ পর্যন্তের ভাড়া আদায় করা জরুরি। তা না দেওয়া অন্যায় হয়েছে। মাইক্রোর ড্রাইভারের ঐ টাকা আপনার নিকট পাওনা রয়েছে।

-আলজামিউস সগীর ৪৫০; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ১৫/১৫; আলমুহীতুল বুরহানী ১১/২২৩; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ৪/৪৮৮

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৯৫৫
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমাদের অঞ্চলে ইট ভাটাগুলোতে একটি পদ্ধতি চালু আছে যে, ভাটার...

প্রশ্ন

আমাদের অঞ্চলে ইট ভাটাগুলোতে একটি পদ্ধতি চালু আছে যে, ভাটার মালিকগণ সিজনের শুরুতে বিভিন্ন জন থেকে টাকা নিয়ে সিজন শেষে অর্থাৎ ৩/৪ মাস পর ইট দেয়। অনেকেই এই কারবারে জড়িত হচ্ছে। বিশেষভাবে যারা নতুন ঘরবাড়ি নির্মাণের ইচ্ছা করেছে। এ কারবারের একটি লাভজনক দিক এই যে, ইট প্রতি ৫ টাকা হলে ৫০,০০০ টাকায় ১০,০০০ ইট কেনা যাবে। কিন্তু উক্ত পদ্ধতিতে দেড় হাজার বা ততোধিক ইট বেশি পাওয়া যায়। আমি একটি বিল্ডিং তৈরি করব। এখন এই পদ্ধতিতে ইট ক্রয় করা কি বৈধ হবে, না এটা সুদী কারবারের অন্তর্ভুক্ত হবে? দয়া করে জানাবেন।

উত্তর

কিছু শর্ত সাপেক্ষে ঐভাবে অগ্রিম ইট ক্রয় করা জায়েয আছে। শর্তগুলো হল, ১. ইটের পূর্ণ মূল্য চুক্তির সময়ই পরিশোধ করে দেওয়া।

২. ইটের ধরণ ও গুণগত মান নির্ধারণ করা (যেমন, এক নাম্বার ইট)। ৩. ইটের পরিমাণ নির্ধারণ করা। ৪. ইট প্রদানের তারিখ ও তা হস্তান্তরের স্থান নির্ধারণ করা। ৫. বিক্রেতার নিকট পুনরায় ঐ ইট বিক্রি না করা।

উপরোক্ত শর্ত সাপেক্ষে অগ্রিম ইট ক্রয় করলে যদি নগদ লেনদেনের চেয়ে কিছু কম মূল্যে পাওয়া যায় তাতে অসুবিধা নেই। তবে এ ধরনের লেনদেনে মেয়াদান্তে ইটই গ্রহণ করতে হবে। ইট না নিয়ে এর মূল্য নেওয়া যাবে না।

-সহীহ বুখারী, হাদীস : ২২৪০; হেদায়া ৩/৯৫; ফাতাওয়া সিরাজিয়া ১০৬; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ৩/১০; আদ্দুররুল মুখতার ৫/২০৯

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৯৫৪
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমি একজনকে দশ লক্ষ টাকা ঋণ দিই। সে আমার কাছে...

প্রশ্ন

আমি একজনকে দশ লক্ষ টাকা ঋণ দিই। সে আমার কাছে একটি আম বাগান বন্ধক রেখেছে। বাগানে যে ফল হয় তা সে নিয়ে যায়। আমের সিজনে সে আমাকে দুইটি গাছের আম খাওয়ার অনুমতি দিয়েছে। আমার জন্য উক্ত গাছ দুইটির আম খাওয়া জায়েয হবে কি না? জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে বাগানের মালিক অনুমতি দিলেও আপনার জন্য ঐ গাছগুলোর ফল গ্রহণ করা বৈধ হবে না। কারণ ঋণদাতার জন্য বন্ধকী বস্ত্ত থেকে উপকৃত হওয়া সুদ। ফাযালা বিন উবাইদ রা. বলেন, যে ঋণ লাভ টেনে আনে তা সুদ।

-আসসুনানুল কুবরা, বায়হাকী ৫/৩৫০; মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা, হাদীস : ২১০৭৮; রদ্দুল মুহতার ৬/৪৮২

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৯৪৯
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

সাঈদ একটি ইট ভাটার মালিক। আমি তার সাথে এই মর্মে...

প্রশ্ন

সাঈদ একটি ইট ভাটার মালিক। আমি তার সাথে এই মর্মে চুক্তিবদ্ধ হই যে, আমি এখন তাকে দুই লক্ষ টাকা দিব। তিন মাস পর সে আমাকে ২০ হাজার ইট দিবে। কিন্তু সে নির্ধারিত সময় ১০ হাজার ইট দেয় আর বলে যে, ভাটায় এখন অনেক চাপ তাই অবশিষ্ট ইট দিতে পারব না। আমাকে বলেছে, আরো এক মাস অপেক্ষা করতে অথবা বাকি ১ লক্ষ টাকা ফেরত নিতে। আমারও টাকা প্রয়োজন। জানতে চাই, এখন কি আমি ঐ টাকা ফেরত নিতে পারব?

উত্তর

হ্যাঁ, প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে অবশিষ্ট দশ হাজার ইট না নিয়ে আপনার দেওয়া ১ লক্ষ টাকা ফেরত নিতে পারবেন। এর চেয়ে বেশি নেওয়া জায়েয হবে না।

-ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ৯/৩৭৪; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ৩/১৯৬; আদ্দুররুল মুখতার ৫/২১৯

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৯৪৮
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমার চাচার এক লক্ষ টাকার প্রয়োজন হলে সে তার এক...

প্রশ্ন

আমার চাচার এক লক্ষ টাকার প্রয়োজন হলে সে তার এক বন্ধুকে বললেন, আমার ৫ শতাংশ জমি তোমার কাছে এক লক্ষ টাকায় বিক্রি করলাম। এক মাস পর তা আমি সাড়ে সাত হাজার টাকা বেশি দিয়ে কিনে নিব। সে এতে রাজি হয়ে এক লক্ষ টাকা দিয়ে দেয়। তবে এখানে কোনো দলিল রেজিস্ট্রি হয়নি। ঐ জমির দখলও বুঝিয়ে দেয়নি; বরং তা চাচার কাছেই আছে। তিনিই তা ভোগ করছেন। আর বাস্তবে ঐ জমির মূল্য এক লক্ষ টাকা নয়; বরং নিম্নে দশ লক্ষ টাকা। এ অবস্থায় তাদের এ বেচাকেনা কি বৈধ হয়েছে?

উত্তর

প্রশ্নোক্ত লেনদেনটি নাজায়েয ও সুদী কারবারের অন্তর্ভুক্ত। কারণ এক্ষেত্রে জমি ক্রয়-বিক্রয়ের কথা বলা হলেও বাস্তবে উভয় পক্ষের কারো জমি কেনা-বেচা উদ্দেশ্য নয়; বরং এখানে ঋণ দেওয়া নেওয়া করে মেয়াদান্তে অতিরিক্ত টাকা গ্রহণই মূল উদ্দেশ্য। এ কারণেই এ ক্ষেত্রে জমির বাস্তব দাম নির্ধারণ করা হয়নি এবং জমির রেজিস্ট্রি ও দখল দেওয়া হয়নি।

-আননুতাফ ফিলফাতাওয়া ২৯৬; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ৩/২০৩; আদ্দুররুল মুখতার ৫/১৬৬

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৯২৯
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমি এক ব্যক্তির কাছ থেকে মুদারাবা ভিত্তিতে পাঁচ লক্ষ টাকা...

প্রশ্ন

আমি এক ব্যক্তির কাছ থেকে মুদারাবা ভিত্তিতে পাঁচ লক্ষ টাকা এনে একটি বইয়ের দোকান দিয়েছি। প্রাথমিকভাবে ব্যবসা পরিচিতির জন্য এ্যাডের পিছনে কিছু টাকা খরচ হয়েছে। প্রশ্ন হচ্ছে, এ টাকাগুলো ব্যবসার খরচ ধরে ব্যবসার টাকা থেকে নিতে পারব কি না?

উত্তর

ব্যবসা পরিচিতির জন্য সাধারণ বিজ্ঞাপন ব্যবসার খরচ হিসেবে ধর্তব্য। তবে বর্তমানে বহুধরনের বিজ্ঞাপন আছে। এর কোনো সীমারেখা নেই। আর বহুমুখি মিডিয়ারও কোনো শেষ নেই। তাই মুদারাবা ভিত্তিতে পরিচালিত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন নীতি কী হবে তা বিনিয়োগকারীর সাথে আলোচনা করে ঠিক করা কর্তব্য। অবশ্য ব্যবসার স্বার্থে জরুরি প্রয়োজন রয়েছে-এমন দু একটি বিজ্ঞাপন ন্যায্য মূল্যে প্রদান করার ইখতিয়ার মুযারিবের থাকবে। এর বেশি দিতে হলে বিনিয়োগকারীর অনুমতি নেওয়া আবশ্যক।

-আলমুগনী, ইবনে কুদামা ৭/১৬৪; রওযাতুত তালিবীন ৫/১৩৪; মাজাল্লাতুল আহকামিল আদলিয়া, মাদ্দা : ১৪১৪

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৯২৮
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমাদের একটি ধান মাড়ানোর মেশিন আছে। আমরা এই শর্তে লোকদের...

প্রশ্ন

আমাদের একটি ধান মাড়ানোর মেশিন আছে। আমরা এই শর্তে লোকদের ধান মাড়ানোর কাজ করে থাকি যে, এর দ্বারা যত মণ ধান মাড়ানো হবে প্রতি মণে এক কেজি করে ধান দিতে হবে।

প্রশ্ন হল এ পদ্ধতিতে আমাদের ধান মাড়ানো জায়েয হচ্ছে কি না? আমাদের এলাকায় ধান মাড়ানোর প্রচলন এমনই। যদি জায়েয না হয় তাহলে জায়েয কোনো পন্থা আছে কি না? জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

ধান মাড়ানোর প্রশ্নোক্ত চুক্তিটি জায়েয। তবে মাড়ানো ধান থেকেই পারিশ্রমিক দেওয়ার শর্ত করা যাবে না। বরং এভাবে চুক্তি করবে যে, আমাকে আমন বা ইরি এ জাতীয় নির্দিষ্ট প্রকার ধান নির্ধারিত পরিমাণ দিবে। এভাবে চুক্তি করার পর পরবর্তীতে ঐ মেশিনের মাড়ানো ধান থেকে দিলেও কোনো অসুবিধা নেই।

-বাদায়েউস সানায়ে ৪/৪৬; আদ্দুররুল মুখতার ৬/৫৬; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ৪/৪৪৪; ফাতাওয়া খানিয়া ২/৩৩০

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৯০২
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

ক) যদি বিক্রেতা জমি বিক্রির জন্য কোনো দালালের সাথে এভাবে...

প্রশ্ন

ক) যদি বিক্রেতা জমি বিক্রির জন্য কোনো দালালের সাথে এভাবে চুক্তি করে যে, আমি এই জমি পাঁচ লক্ষ টাকায় বিক্রি হলে সন্তুষ্ট অথবা তুমি আমাকে পাঁচ লক্ষ টাকা দিবে। এরচেয়ে বেশি বিক্রি করতে পারলে তা তুমি পাবে। তাহলে কি এ চুক্তি বৈধ হবে?

খ) বিক্রেতা যদি বলে, আমার জমি এক লক্ষ টাকায় বিক্রি করব এই শর্তের উপর বিক্রয় প্রতিনিধি নির্ধারণ করে তাহলে কি তার জন্য নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশিতে বিক্রি করে অতিরিক্ত মূল্য নিজে গ্রহণ করা জায়েয হবে?

গ) আমাদের এলাকায় এক কাঠা জমি বিশ হাজার টাকা দরে বিক্রি হয়, সে হিসেবে বিক্রেতা জমি বিক্রির জন্য কাউকে দায়িত্ব দেয়। কিন্তু সে পঁচিশ হাজার টাকায় বিক্রি করে এবং পাঁচ হাজার টাকা বিক্রেতাকে প্রদান করে অথবা নিজে গ্রহণ করে তাহলে কি বৈধ হবে? বিস্তারিত জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

ক) এভাবে চুক্তি করা শরীয়তসম্মত নয়। কেননা এতে দালালরা বিক্রয় প্রতিনিধির পারিশ্রমিকনির্ধারিত হয় না। অথচ তাদের পারিশ্রমিক নির্ধারণ করে নেওয়া জরুরি। দ্বিতীয়ত এভাবে চুক্তিকরার কারণে প্রতিনিধি জমির স্বাভাবিক মূল্য থেকে অনেক বেশি মূল্যে বিক্রি করার প্রয়াস পায়।ফলে অনেক ক্ষেত্রে ক্রেতাগণ বেশি মূল্য দিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হন। আর মধ্যস্বত্ত্বভোগীর অবাধ সুযোগ ও

হস্তক্ষেপের মাধ্যমে পণ্যের মূল্য বাড়িয়ে বাজারকে প্রভাবিত করা শরীয়তসম্মত নয়। তাই এমনচুক্তি করা থেকে বিরত থাকা আবশ্যক। এক্ষেত্রে সঠিক পদ্ধতি হল, প্রতিনিধি নিযুক্ত করার সময়ইতার পারিশ্রমিক নির্ধারণ করে নেওয়া। যেমন-জমি বিক্রি করে দিলে কাঠা বা শতাংশ প্রতিমধ্যস্থতাকারী কত টাকা পাবে তা শুরুতেই বলে দিবে।-আলমুহীতুল

বুরহানী ১১/২১৬; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ৪/৪১০; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ১৫/৬

খ ও গ) বিক্রয় প্রতিনিধির জন্য জমির মালিক কর্তৃক নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশিতে বিক্রি করাসমীচীন নয়। আর বাজার মূল্য থেকে অস্বাভাবিক বেশি মূল্যে বিক্রি করা নিষেধ। অবশ্য কোনোপ্রকারের ধোকার আশ্রয় না নিয়ে বাজারের স্বাভাবিক দামের ভিতর থেকেই যদি মালিকের নির্ধারিতমূল্যের চেয়ে কিছু বেশি দামে বিক্রি করে তাহলে তাতে অসুবিধা নেই। এক্ষেত্রে বিক্রিলব্ধ সকলটাকা জমির মালিক পাবে। জমির মালিক কর্তৃক নির্ধারিত মূল্য থেকে বেশি দামে বিক্রি করলেওপ্রতিনিধির জন্য অতিরিক্তটুকু নেওয়া জায়েয হবে না। বরং পুরোটাই জমির মালিককে দিয়ে দেওয়াজরুরি। অবশ্য মালিক খুশি হয়ে পারিশ্রমিকের বেশি দিলে তা নেওয়া বৈধ হবে।

-বাদায়েউস সানায়ে ৫/২৬; আলমুহীতুল বুরহানী ১৫/৮১; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ৩/৫৭৫

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৮৭৫
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমাদের এলাকায় একটি মসজিদ আছে। সে মসজিদের উন্নয়নের জন্য এক...

প্রশ্ন

আমাদের এলাকায় একটি মসজিদ আছে। সে মসজিদের উন্নয়নের জন্য এক লোক একটি মার্কেট ওয়াকফ করেছে। প্রতি মাসে মার্কেট থেকে ভাড়া বাবদ যে টাকা আসে মসজিদের কাজে ব্যয়ের পরও অনেক টাকা অবশিষ্ট থেকে যায়। যা বর্তমানে এই মসজিদের কোনো প্রয়োজন নেই। তবে ভবিষ্যতে মসজিদ সম্প্রসারণ করলে তখন প্রয়োজন হতে পারে। মুসল্লিদের যাতায়াত সুবিধার্থে মহল্লায় আরেকটি নতুন মসজিদ নির্মাণ করা হচ্ছে। নতুন মসজিদের নির্মাণের জন্য প্রচুর টাকা প্রয়োজন। কিন্তু এই নতুন মসজিদের আয়ের নির্দিষ্ট কোনো উৎস নেই। তাই পুরাতন মসজিদের জন্য যে ব্যক্তি মার্কেট ওয়াকফ করেছিল সে চাচ্ছে, পুরাতন মসজিদের খরচের পর মার্কেটের আয়ের অবশিষ্টাংশ নতুন মসজিদের নির্মাণ ও উন্নয়নের জন্য দিয়ে দিতে। মসজিদ কমিটিও এতে রাজি আছে। জানার বিষয় হল, উল্লেখিত অবস্থায় নতুন মসজিদের জন্য পুরাতন মসজিদের মার্কেটের আয়ের অবশিষ্ট অংশ নেওয়া বৈধ হবে কি না? জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

প্রশ্নোক্ত পুরাতন মসজিদের মার্কেটের আয়ের উদ্ধৃত্ত অংশও নতুন মসজিদের জন্য নিতে পারবে না। প্রতিটি মসজিদ স্বতন্ত্র ওয়াকফ প্রতিষ্ঠান। তাই একটির সম্পদ অন্যটিতে ব্যয় করা যাবে না। প্রত্যেক মসজিদের পুরো আয় সে মসজিদের খরচের জন্যই গচ্ছিত রাখতে হবে। বর্তমানে তা প্রয়োজন না হলেও পরবর্তীতে মসজিদের নির্মাণ-সম্প্রসারণ ও উন্নয়ন কাজে প্রয়োজন হতে পারে। তাই সে টাকা সংরক্ষণ করা জরুরি।

আর নতুন মসজিদের নির্মাণ ও উন্নয়নের জন্য ভিন্ন ব্যবস্থা করা মহল্লাবাসীর ঈমানী দায়িত্ব। এর মাধ্যমে তারা আল্লাহ তাআলার কাছে মহা ছওয়াবের অধিকারী হবেন। হাদীস শরীফে এসেছে, রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, যে ব্যক্তি আল্লাহকে রাজি-খুশি করার জন্য মসজিদ নির্মাণ করবে আল্লাহ তাআলা তার জন্য জান্নাতে গৃহ নির্মাণ করবেন।

-সহীহ বুখারী ১/৬৪; আদ্দুররুল মুখতার ৪/৩৬০; ফাতহুল কাদীর ৫/৪৩৬

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৮৪৪
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমাদের এলাকার এক কৃষক থেকে ২০০/- টাকা দরে ৫০ মণ...

প্রশ্ন

আমাদের এলাকার এক কৃষক থেকে ২০০/- টাকা দরে ৫০ মণ পাইজম ধান ক্রয় করেছি। চুক্তিটি এভাবে হয়েছে যে, আমি তাকে নগদ ১০ হাজার টাকা দিয়েছি। তিনি প্রতি ছয়মাস পর পর ৫ মণ করে ধান দিবেন। ৫ বছরে সম্পূর্ণ ধান পরিশোধ করবেন। চুক্তি অনুযায়ী প্রথম কিস্তি দেওয়ার সময় ৩ মণ ধান দিতে চাচ্ছেন এবং বলছেন, ক্ষেতে ধান কম হয়েছে তাই ৩ মণ ধান দিবেন। আর ২ মণ ধানের (বর্তমান বাজার মূল্য হিসেবে) মূল্য দিয়ে দিবেন। এখন আমার জন্য ঐ দুই মণ ধানের মূল্য নেওয়া জায়েয হবে কি?

উত্তর

না, প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে আপনার জন্য ধানের মূল্য নেওয়া জায়েয হবে না। বরং তার থেকে ধানই নিতে হবে। তার কাছে না থাকলে বাজার থেকে খরিদ করেও দিতে পারে।

প্রসিদ্ধ সাহাবী আবু সাঈদ খুদরী রা. বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, যদি কেউ আগাম খরিদ চুক্তিতে কোনো পণ্য ক্রয় করে তাহলে সে যেন ক্রয়কৃত পণ্যের পরিবর্তে অন্য কোনো বস্ত্ত গ্রহণ না করে।-সুনানে আবু দাউদ, হাদীস : ৩৪৬৮

বিশিষ্ট সাহাবী আবদুল্লাহ ইবনে উমর রা. বলেন, যদি আগাম চুক্তিতে কোনো বস্ত্ত ক্রয় কর তাহলে ক্রয়কৃত বস্ত্তটি গ্রহণ কর। অথবা (ঐ বস্ত্ত দিতে সক্ষম না হলে) যে পরিমাণ অর্থ দিয়েছিলে তা নিয়ে নাও।-মুসান্নাফ আবদুর রাযযাক ৮/১৪

প্রকাশ থাকে যে, প্রশ্নোক্ত লেনদেনে এক মণ ধানের মূল্য ২০০/- টাকা ধরা হয়েছে। এটি বাজার মূল্য থেকে অনেক কম (এমনকি কিস্তির ক্ষেত্রেও), অথচ শরীয়তে বাজারমূল্য থেকে বেশি তারতম্য করা নিষেধ। তাই ভবিষ্যতে এ ধরনের চুক্তি করতে হলে এ বিষয়টি খেয়াল রাখতে হবে।

-সুনানে আবু দাউদ, হাদীস : ৩৪৬৮; মুসান্নাফ আবদুর রাযযাক ৮/১৪; ফাতাওয়া খানিয়া ২/১১৯; আদ্দুররুল মুখতার ৫/২১৮-২১৯

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৮৪৩
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

বি.বাড়িয়া জেলায় আমাদের (মালিক সমিতির) একটি সিএনজি-স্কুটারের গ্যারেজ আছে। সেখান...

প্রশ্ন

বি.বাড়িয়া জেলায় আমাদের (মালিক সমিতির) একটি সিএনজি-স্কুটারের গ্যারেজ আছে। সেখান থেকে সিএনজি-স্কুটার ভাড়া দেওয়া হয়। বাংলাদেশ ট্রাফিক আইন অনুযায়ী এক জেলার গাড়ি অন্য জেলায় যাওয়ার অনুমতি থাকলেও ট্রাফিকরা অনেক সময় দুর্নীতি করে। বি.বাড়িয়ার সিএনজি কুমিল্লা বা অন্য কোনো জেলায় গেলে ভুয়া কারণ দেখিয়ে জরিমানা করে। জরিমানা না দিলে কখনো মিথ্যা মামলা দিয়ে গাড়ি আটক করে রাখে। এজন্য আমরা মালিক কর্তৃপক্ষ আমাদের সিএনজির সকল ড্রাইভারকে (যারা সিএনজি ভাড়া নিয়ে থাকে তাদেরকে) বি.বাড়িয়া জেলার বাইরে যেতে নিষেধ করে দিয়েছি, কিন্তু ড্রাইভাররা মাঝেমধ্যে জেলার বাইরে চলে যায়, ফলে কখনো কখনো ট্রাফিকদের অন্যায় জরিমানার সম্মুখীন হয়। তখন ড্রাইভাররা বলে যে, আমরা তো ট্রাফিক আইন অমান্য করিনি। তারপরও ট্রাফিকরা জরিমানা করেছে। তাই এর কিছু অংশ আপনাদের মালিক সমিতিরও বহন করতে হবে। জানার বিষয় হল, উক্ত জরিমানা কি আমাদেরকেও বহন করতে হবে?

উত্তর

সিএনজি মালিক কর্তৃপক্ষ যেহেতু পূর্ব থেকেই সকল ড্রাইভারকে জেলার সীমানা অতিক্রম করতে নিষেধ করে দিয়েছে তাই ড্রাইভারদের জন্য এই নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘন করা বৈধ নয়। সুতরাং ড্রাইভাররা যদি মালিকদের নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘন করে জেলার সীমানা অতিক্রম করে এবং এ কারণে কোনো জরিমানার সম্মুখীন হয় তাহলে তা ড্রাইভারকেই দিতে হবে। এই জরিমানা বা তার অংশ বিশেষ মালিক পক্ষ দিতে বাধ্য থাকবে না।

উল্লেখ্য, বিনা কারণে কারো উপর জরিমানা করা মারাত্মক অন্যায় ও গুনাহর কাজ। সংশ্লিষ্ট সকলের এ ব্যাপারে সতর্ক হওয়া জরুরি।

-মাজাল্লাতু আহকামিল আদলিয়া, মাদ্দা : ৬০০, ৬০১; আলজাওহারাতুন নাইয়িরা ১/৩৩৯; মাজমাউল আনহুর ৩/৫২৫; শরহু মুখতাসারিত তাহাভী ৩/৩৯৪

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৮৩২
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমার মামাতো ভাই এক সরকারী অফিসে চাকরি করে। অফিসের এক...

প্রশ্ন

আমার মামাতো ভাই এক সরকারী অফিসে চাকরি করে। অফিসের এক উর্ধ্বতন কর্মকর্তা হল কাদিয়ানী। ধীরে ধীরে ঐ লোকের সাথে মামাতো ভাইয়ের বন্ধুত্ব হয়। একপর্যায়ে সেও কাদিয়ানী হয়ে যায়। (নাউযুবিল্লাহ)

কাদিয়ানী হওয়ার পর সে মসজিদের জন্য একটি জমি ওয়াকফ করেছে। কিন্তু আমাদের ইমাম সাহেব বলছেন, কাদিয়ানীর ওয়াকফ সহীহ হয় না। সুতরাং এ জমির আয় মসজিদে খরচ করা যাবে না। জানতে চাই, আসলেই কি কাদিয়ানীর ওয়াকফ সহীহ হয় না? ইমাম সাহেবের কথা কি ঠিক?

উত্তর

ইমাম সাহেব ঠিক বলেছেন। কোনো মুসলমান কাদিয়ানী মত গ্রহণ করলে তার ঈমান থাকে না। সে মুরতাদ হয়ে যায়। আর মুরতাদের ওয়াকফ সহীহ নয়। অতএব ঐ ব্যক্তির ওয়াকফ সহীহ হবে না। তবে ওয়াকফ করার পর যদি কাদিয়ানী মতবাদ ত্যাগ করে পুনরায় ইসলাম গ্রহণ করে তাহলে সেক্ষেত্রে উক্ত ওয়াকফ সহীহ বলে গণ্য হবে।

-কানূনুল আদল ওয়াল ইনসাফ লিল কাযা আলা মুশকিলাতুল আওকাফ পৃ. ৩৮; ফিকহুন নাওয়াযিল ২/৭৩; আলবাহরুর রায়েক ৫/১৮৯; রদ্দুল মুহতার ৪/৪০০, ৩৪২; আহকামুল আওকাফ, মুসতাফা যারকা ৫৬

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৮২৭
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

ক) ...।খ) ফিকহের কিতাবে বহু স্থানে বাইয়ে সরফ শিরোনামে অনেক...

প্রশ্ন

ক) ...।

খ) ফিকহের কিতাবে বহু স্থানে বাইয়ে সরফ শিরোনামে অনেক আলোচনা আছে। যেমন বলা হয়েছে, স্বর্ণের সাথে স্বর্ণের এবং রূপার সাথে রূপার বিনিময় করতে চাইলে বেশকম করা জায়েয নেই। অর্থাৎ ক্রয়বিক্রয় করতে চাইলে সমান সামন ছাড়া অতিরিক্ত দেওয়া হারাম হবে। সেটা সুদের অন্তর্ভুক্ত হবে। এখান থেকে প্রশ্ন জাগে যে, আমাদের দেশের টাকা যেহেতু কাগজের, স্বর্ণ বা রূপার নয় তাহলে আমরা যে নষ্ট বা ছেঁড়া-ফাটা টাকা নতুন চকচকে টাকা দিয়ে পরিবর্তন করি অথচ ছেঁড়া ২০ টাকা দিলে ভালো ১৫ টাকা দেওয়া হয় অর্থাৎ সমান সমান হওয়ার যে হুকুম কিতাবে বলা হয়েছে তা ঠিক থাকে না। তাহলে আমাদের এ পদ্ধতি কি সুদের অন্তর্ভুক্ত হবে? বিস্তারিত জানিয়ে সমস্যার সঠিক সমাধান দিলে সম্মানির হুজুরের কাছে চির কৃতজ্ঞ থাকব।

উত্তর

ক) আপনার প্রশ্নটি অস্পষ্ট। এতে কোম্পানির কারবারের বিস্তারিত বিবরণ উল্লেখ করা হয়নি। তাই আপনি মাসআলাটি সরাসরি বা ফোনে জেনে নিন। নতুবা পুনরায় স্পষ্ট করে প্রশ্ন লিখুন।

খ) হ্যাঁ, এক দেশীয় মুদ্রার পরস্পর লেনদেনের ক্ষেত্রেও কমবেশি করা নাজায়েয এবং সুদের অন্তর্ভুক্ত। সুতরাং দেশীয় ছেঁড়া বা পুরাতন টাকা দিয়ে নতুন টাকা কমবেশি করে আদানপ্রদান করা নাজায়েয। কারণ বর্তমানে কাগজি নোটগুলোই আদানপ্রদানের মাধ্যম হিসেবে স্বর্ণ-রূপার মুদ্রার স্থান দখল করে নিয়েছে।

উল্লেখ্য যে, ছেঁড়া-ফাটা নোট যদি চালানো সম্ভব না হয় তাহলে ব্যাংকের মাধ্যমে পরিবর্তন করে নিবে।

-বুহুস ফী কাযায়া ফিকহিয়্যাহ মুআসিরা ১/১৬৪-১৬৬; ফিকহুন নাওয়াযিল ৩/২২; আততাযাখখুমুন নকদী ফিলফিকহিল ইসলামী ৭৩; মাজাল্লাহ মাজমাউল ফিকহিল ইসলামী ৩/১৯৬৫

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৮২৬
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

একটি মাল নগদ মূল্যে ক্রয় করলে যে মূল্য নেওয়া হয়...

প্রশ্ন

একটি মাল নগদ মূল্যে ক্রয় করলে যে মূল্য নেওয়া হয় কিস্তিতে তা ক্রয় করলে তার চেয়ে বেশি মূল্য নেওয়া হয়। এরূপ ক্রয়-বিক্রয় শরীয়তসম্মত কি না? জমি, ফ্ল্যাট ইত্যাদি এই পদ্ধতিতে ক্রয়বিক্রয় করা শরীয়তসম্মত হবে কি না?

উত্তর

হ্যাঁ, নগদ মূল্যের তুলনায় কিস্তিতে বিক্রির ক্ষেত্রে কিছুটা বেশি দাম নেওয়া জায়েয আছে। তবে এক্ষেত্রে বাকির মেয়াদ এবং পণ্যের মূল্য চুক্তির সময়ই নির্ধারণ করে নিতে হবে। আর পণ্য নগদে হস্তান্তর করতে হবে। উভয়টি বাকি রাখা যাবে না। এছাড়া কিস্তি আদায়ে বিলম্ব হলে চুক্তির সময় যে মূল্য ধার্য করা হয়েছিল তার চেয়ে দাম বাড়িয়ে নেওয়া জায়েয হবে না।

উল্লেখ্য যে, জমি এবং তৈরি ফ্ল্যাটও কিস্তিতে কেনা জায়েয। তবে এগুলোর ক্ষেত্রে অনেক সময় বিক্রেতার বা ক্রেতার পক্ষ থেকে শরীয়ত পরিপন্থী শর্তাবলিও আরোপ করা হয়ে থাকে। তাই এ ধরনের ক্রয়-বিক্রয় করতে হলে বিজ্ঞ আলেম থেকে এর শর্তাবলি সুনির্দিষ্টভাবে জেনে নেওয়া আবশ্যক।

হযরত শুবা ইবনুল হাজ্জাজ রাহ. (মৃত্যু : ১৬০ হি.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি হাকাম ইবনে উতাইবা এবং হাম্মাদ ইবনে আবু সুলাইমকে এক ক্রেতা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলাম যে, সে অন্যের থেকে পণ্য ক্রয় করে আর বিক্রেতা তাকে বলে যে, নগদ মূল্যে কিনলে এত টাকা আর বাকিতে কিনলে এত টাকা। (এতে কোনো অসুবিধা আছে কি?) তারা উভয়ে বললেন, ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়ে যদি (মজলিস ত্যাগ করার পূর্বে) কোনো একটি (মূল্য) চূড়ান্ত করে নেয় তাহলে এতে কোনো অসুবিধা নেই।

দেখুন : মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা, হাদীস : ২০৮৩৬; জামে তিরমিযী ১/১৪৭; মাবসূত ১৩/৮; রদ্দুল মুহতার ৫/১৪২; বুহুস ফী কাযায়া ফিকহিয়্যাহ মুআসিরা ১/৭-৮

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৭৮২
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

জনৈক কিষাণ এক মাড়াইকলের মালিককে বলল যে, তুমি আমার এই...

প্রশ্ন

জনৈক কিষাণ এক মাড়াইকলের মালিককে বলল যে, তুমি আমার এই ধানগুলো মাড়িয়ে দিবে। তোমাকে মাড়াইকৃত ধান থেকে এক মণ ধান দিব। জানার বিষয় হল, এভাবে কারবার সহীহ হবে কি না। আর যদি সহীহ না হয় তাহলে এ কারবার করার কোনো সহীহ পদ্ধতি আছে কি না? জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে মাড়াইকৃত ধান থেকেই পারিশ্রমিক দেওয়ার চুক্তি করা সহীহ হয়নি। কারণ এভাবে মজুরি নির্ধারণের ব্যাপারে হাদীস শরীফে নিষেধাজ্ঞা এসেছে। হযরত আবু সায়ীদ খুদরী রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম একটি হাদীসে গম পিষার বিনিময়ে পিষণকারীকে ঐ আটা থেকে এক কাফীয প্রদানের শর্ত করা থেকে বারণ করেছেন। (সুনানে বায়হাকী ৫/৩৩৯; শরহু মুশকিলুল আছার ২/১৮৬

অন্য এক বর্ণনায় এসেছে, বিশিষ্ট তাবেয়ী হযরত হাসান বসরী রাহ. কোনো তাতীকে কাপড় বুনার জন্য এ শর্তে সুতা দেওয়া অপছন্দ করতেন যে, সে এর দ্বারা কাপড় বুনে তৈরি কাপড়ের এক তৃতীয়াংশ বা এক চতুর্থাংশ নিবে (আর বাকিটা মালিক নিবে)। (মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা ১১/২০০, হাদীস : ২১৯৭৫)

এক্ষেত্রে সহীহ তরীকায় কারবার করতে চাইলে মাড়াইকৃত ধান থেকেই দিতে হবে এমন শর্ত করা যাবে না; বরং নির্ধারিত মানের নির্দিষ্ট ধান দেওয়ার চুক্তি করবে। এরপর ধানের মালিক যে কোনো ধান দিতে পারবে। এমনকি শর্ত অনুযায়ী হলে মাড়াইকৃত ধান থেকেও তা দিতে পারবে।

-সুনানে দারাকুতনী ৩/৪৭, হাদীস : ১৯৫; রদ্দুল মুহতার ৬/৫৭; মাবসূত ১৬/৩৫; আলমুহীতুল বুরহানী ১১/৩৩৩; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ৩/২৬, ১১৩; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ১৫/১১৪; বাদায়েউস সানায়ে ৪/৪৩

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৭৭৯
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমি দুই লক্ষ টাকা দিয়ে কিছু জায়গা ক্রয় করেছি। এক...

প্রশ্ন

আমি দুই লক্ষ টাকা দিয়ে কিছু জায়গা ক্রয় করেছি। এক লক্ষ টাকা নগদ দিয়েছি। আর অবশিষ্ট এক লক্ষ টাকা এক বছর পর দেওয়ার চুক্তি হয়েছে। ছয় মাস পর বিক্রেতার টাকার প্রয়োজন হলে সে আমাকে অবশিষ্ট টাকা পরিশোধ করতে বলে। আমি বললাম, যদি বিশ হাজার টাকা কম নেন তাহলে অবশিষ্ট টাকা এখনই পরিশোধ করে দিব। নতুবা এক বছর পরই টাকা নিতে হবে। লোকটি আমার কথায় রাজি হয়ে গেল। জানার বিষয় হল, আমার জন্য এ বিশ হাজার টাকা কম দেওয়া জায়েয হবে কি?

উত্তর

না, এভাবে সময়ের আগে দেওয়ার শর্তে নির্ধারিত মূল্য থেকে কম দেওয়া আপনার জন্য জায়েয হবে না। হযরত কায়েস রাহ. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রা.কে জিজ্ঞেস করলাম যে, আমরা ব্যবসার পণ্য নিয়ে বসরা ও শামে যাই। এগুলো আমরা বাকিতে বিক্রি করি। অতপর আমরা সেখান থেকে চলে আসার সময় হলে ক্রেতারা বলে, বিক্রিত মূল্য থেকে কিছু টাকা কম নিন তাহলে অবশিষ্ট টাকা আমরা এখনই আদায় করে দিব। এ সম্পর্কে আপনার মতামত কী?

একথা শুনে আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রা. তিনবার আমার বাহু চেপে ধরে মানুষকে উদ্দেশ্য করে বললেন, দেখ, এই ব্যক্তি আমাকে সুদ গ্রহণের ফতোয়া দিতে আদেশ করছে।

তখন আমি বললাম, না। আমি তো এ ব্যাপারে আপনার কাছ থেকে শরঈ হুকুম জানতে চাচ্ছি। তখন তিনি বললেন, না। এ ধরনের কারবার বৈধ হবে না।

-মুসান্নাফ আবদুর রাযযাক, হাদীস : ১৪৩৬৮; আহকামুল কুরআন, জাসসাস ১/৪৬৭; হেদায়া-ফাতহুল কাদীর ৭/৩৯৬; আলইসতিযকার ৫/৫০০; আলমুগনী ৭/২১; বুহুছ ফী কাযায়া ফিকহিয়্যাহ মুআছিরা ১/২৫

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার
ফতোয়া নং: ৫৭৭৪
তারিখ: ২৭/১০/২০১৭
বিষয়: ব্যবসা-চাকুরী

আমাদের এলাকায় ব্যাপক রেওয়াজ আছে যে, বিত্তবান লোকেরা দরিদ্র শ্রেণীর...

প্রশ্ন

আমাদের এলাকায় ব্যাপক রেওয়াজ আছে যে, বিত্তবান লোকেরা দরিদ্র শ্রেণীর লোকদেরকে গরু-ছাগল পোষার জন্য ক্রয় করে দেয়। দরিদ্র লোকেরা গরু-ছাগল পালে আর বছর দেড়েক পর তা বিক্রি করে। বিক্রিলব্ধ টাকা থেকে ক্রয়মূল্য বাদ দিয়ে লাভটুকু উভয়ে সমানভাবে ভাগ করে নেয়। প্রশ্ন হল, এ ধরনের চুক্তি করা সহীহ কি না। যদি সহীহ না হয় তাহলে এ ধরনের কারবার করার কোনো সহীহ পন্থা আছে কি? জানিয়ে বাধিত করবেন।

উত্তর

গরু-ছাগল পালনের প্রশ্নোল্লেখিত পদ্ধতিটি শরীয়তের ইজারা-নীতির সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। এক্ষেত্রে সহীহ তরীকায় চুক্তি করতে চাইলে নিম্নের পন্থাটি অবলম্বন করা যেতে পারে। গরুর মালিক গরু পালনকারীর সঙ্গে নির্দিষ্ট পারিশ্রমিকের ভিত্তিতে চুক্তি করবে। গরুতে অংশিদারিত্বের চুক্তি করবে না। অর্থাৎ গরুর পূর্ণ মালিকানা গরুর মালিকেরই থাকবে। গরুর সব ধরনের খরচও তাকে বহন করতে হবে। গরু বিক্রি করা হলে এর বিক্রিলব্ধ পুরো টাকা সেই পাবে। এতে গরু পালনকারীর কোনো অংশ থাকবে না। সে গরুর দেখাশুনা ও লালন-পালনের জন্য শুধু নির্ধারিত পারিশ্রমিক পাবে।

-খুলাসাতুল ফাতাওয়া ৩/১১৪; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ১৫/৩৪৫; ফাতাওয়া বাযযাযিয়া ৫/৩৭; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ৪/৪৪৫; শরহুল মাজাল্লাহ, খালিদ আতাসী ২/৫৪২

উত্তর দিয়েছেন : মাসিক আল-কাওসার

Execution time: 0.08 render + 0.01 s transfer.